alt

সারাদেশ

রংপুরে ভাঙচুর-লুটপাট

দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সমন জারি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, রংপুর : রোববার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

রংপুর নগরীর অভিজাত ধাপ জেল রোড এলাকায় প্রায় ৩২ বছর ধরে দখল ভোগ করে আসা জমিতে নির্মাণ করা ভবন ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশে কর্মরত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান খান ও আরও এক পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে এই হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় নাজনীন নাহার খানম বাদী হয়ে রংপুর চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ১০ আসামিকে করে মামলা করেন। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি তারিখে আদালতে স্ব শরীরে হাজির হবার জন্য সমন জারির আদেশ দিয়েছেন। রংপুরের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এফ এম আহসানুল হক এ আদেশ প্রদান করেন। মামলা নম্বর সিআর ১১৯৮/২২ ধারা দন্ড বিধি আইনের ১৪৩/৩৪১/৪২৭/৪৪৭/৪৪৮/৩২৩/৩০৭ /৩৭৯/৫০৬/১৯৪ দন্ড বিধি।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, রংপুর নগরীর ধাপ জেএল রোড এলাকায় অবস্থিত মামলার বাদী নাজনীন নাহার বেগম মামলার আরজিতে অভিযোগ করেন প্রায় ৩২ বছর ধরে ৭ দশমিক ৭৯ শতাংম জমিতে রংপুর সিটি করপোরেশনের অনুমোদন নিয়ে প্রথম অংশ ৬ তলা ও দ্বিতীয় অংশে ৬ তলা ভবন নির্মাণের লক্ষ্যে উভয় অংশে তৃতীয় তলা ভবন নির্মাণ করেন। বর্তমানে ভবনের নীচতলায় ওষুধের দোকান, ইলেক্ট্রনিক্স দোকান ও দ্বিতীয় তলায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার ভাড়া দিয়ে তৃতীয় তলায় বাদিনী নিজে স্বপরিবারে বসবাস করে আসছেন। গত ৪ নভেম্বর তারিখে বিকেল ৫টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশে কর্মরত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান খান, কর্মকর্তা আহসানুজ্জামানসহ অন্যান্য আসামিরা তৃতীয় তলা ভবনের প্রধান গেট জোর করে ঠেলিয়া বাড়িতে প্রবেশ করে তারা জানায় ওই বাড়ি কেনার জন্য বায়না দলিল সম্পাদন করেছেন বলে দাবি করেন। বাদী নাজনীন নাহার ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা জানায় তারা কোন জমি বিক্রি করার উদ্দেশে বায়না করে নাই এ কথা বলার সাথে সাথে আসামি আহসান খানের হুকুমে অন্যান্য আসামিরা বাদিনীর পরিবারের ওপর চড়াও হয় এবং সকলকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। এক পর্যায়ে আসামি আহসান খান বাদিনীর গলা চেপে ধরে শ্বাস ধরে হত্যার চেষ্টা করলে তাদের চিৎকারে সাক্ষীরা এসে তাকে রক্ষা করে। এ সময় আসামিরা সোনার গহনা ছিনিয়ে নেয় এবং লক্ষাধিক টাকার মালামাল ভাংচুর করে ক্ষতিসাধন করে। তারা বাদিনী ও তার স্বজনদের হুমকি দেয় এই জমি তারা কেনার জন্য বায়না দলিল রেজিস্টারি করেছে এ জায়গা ছেড়ে দিয়ে অনত্র চলে না গেলে বাড়ির সকলকে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলা হবে হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় বাদী ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে পুলিশ এসে ঘটনা প্রত্যক্ষ করে। পরে পুরো বিষয়টি লিখিত আকারে ধাপ পুলিশ ফাঁড়ি ও মেট্রোপলিটান কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করা হয়। কিন্তু পুলিশ কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। পরে বাদিনীর জবানবন্দি গ্রহন করে ১০ আসামির বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করে তাদের আদালতে হাজির হবার জন্য সমন জারির আদেশ দেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা আহসান খানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট বলে দাবি করে বলেন ওই জমি তারা কয়েকজন মিলে ক্রয় করার জন্য বায়না দলিল সম্পাদন করেছেন সেই সাথে জমির মালিক নাজনীন নাহার নয় বলেও দাবি করেন।

ছবি

মীরসরাই : থেমে নেই পাহাড় কাটা

ছবি

ঢাকায় ভারতের ৭৪তম প্রজাতন্ত্র দিবসে ভিসা আবেদন সুবিধা কেন্দ্র উদ্বোধন

দোহারে শিশু ধর্ষণের অভিযোগ : আটক-১

কলেজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

ছবি

ধোবাউড়ায় ২৫১ ভূমিহীন পরিবার আশ্রয়ণের ঘরে

ছবি

৫১ বছরেও মেরামত হয়নি কুড়িখাঁই সেতু প্রতিশ্রুতিই সার

ছবি

সরস্বতী পূজোয় ২শ’ বছরের ঐতিহ্যবাহী দই মেলা

সরিষা ফুলে আশার আলো দেখছেন কৃষক

শুভ হত্যার ৫ মাসেও খুনিদের শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ

এনজিওর ঋণের চাপে আত্মহত্যার চেষ্টা দম্পতির

ফসলি জমিতে পুকুর ৬ মাসের কারাদন্ড

ছবি

বোরো খেতে অতিরিক্ত পানি দিয়ে ধান গাছ তলিয়ে রাখার অভিযোগ

পনেরশ’ মিটার দৌড়ে অংশ নিয়ে ৭ ছাত্রী হাসপাতালে

৫০ লিটার চোরাই মদসহ আটক ৩

ছবি

মেঘনার মাটি ইটভাটার গ্রাসে : ভাঙন আতঙ্কে মানুষ

ছবি

২০ বছর পর গণধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার

ছবি

একই পরিবারের ২ নারীর লাশ উদ্ধার

ছবি

বসতঘরে মিলল ২ নারীর নিথর দেহ

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জঙ্গি আতঙ্ক

ছবি

টানা ৬ দিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায়

ছবি

চূড়ান্তভাবে নিষিদ্ধ হলো ‘সাকার ফিশ’

দুর্নীতির আখড়া সিলেট সিটি করপোরেশন

নোয়াখালীতে ৫৪দিন পর কবর থেকে কিশোরীর লাশ উত্তোলন

সাংবাদিক আফতাব আহমেদ হত্যা মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার

ছবি

ঝিনাইদহে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক

হাসপাতাল থেকে নবজাতক চুরি

ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

ছবি

খানাখন্দে বেহাল ৯ কিমি. সড়ক চলাচলে দুর্ভোগ : সংস্কার দাবি এলাকাবাসীর

ছবি

নারায়ণগঞ্জে রেলের ভূমিতে ‘কল্যাণ ট্রাস্ট’র নামে মার্কেট নির্মাণ বন্ধের দাবি

দুই প্রকল্পের কাজ না করেই টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

নবাবগঞ্জে ৬ চোরাই গরুসহ ট্রাক জব্দ

চিকিৎসা অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর প্রতিবাদে মানববন্ধন

ট্রলির ধাক্কায় সড়কে ঝরল ২ মোটরসাইকেল আরোহী

ছবি

অবৈধভাবে দিনরাত সমানতালে কাটা হচ্ছে ফসলি জমির মাটি

খসড়া তালিকায় ভোটার কমেছে কাঁঠালিয়ায়

সাদুল্লাপুরে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা

tab

সারাদেশ

রংপুরে ভাঙচুর-লুটপাট

দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সমন জারি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, রংপুর

রোববার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

রংপুর নগরীর অভিজাত ধাপ জেল রোড এলাকায় প্রায় ৩২ বছর ধরে দখল ভোগ করে আসা জমিতে নির্মাণ করা ভবন ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশে কর্মরত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান খান ও আরও এক পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে এই হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় নাজনীন নাহার খানম বাদী হয়ে রংপুর চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ১০ আসামিকে করে মামলা করেন। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি তারিখে আদালতে স্ব শরীরে হাজির হবার জন্য সমন জারির আদেশ দিয়েছেন। রংপুরের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এফ এম আহসানুল হক এ আদেশ প্রদান করেন। মামলা নম্বর সিআর ১১৯৮/২২ ধারা দন্ড বিধি আইনের ১৪৩/৩৪১/৪২৭/৪৪৭/৪৪৮/৩২৩/৩০৭ /৩৭৯/৫০৬/১৯৪ দন্ড বিধি।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, রংপুর নগরীর ধাপ জেএল রোড এলাকায় অবস্থিত মামলার বাদী নাজনীন নাহার বেগম মামলার আরজিতে অভিযোগ করেন প্রায় ৩২ বছর ধরে ৭ দশমিক ৭৯ শতাংম জমিতে রংপুর সিটি করপোরেশনের অনুমোদন নিয়ে প্রথম অংশ ৬ তলা ও দ্বিতীয় অংশে ৬ তলা ভবন নির্মাণের লক্ষ্যে উভয় অংশে তৃতীয় তলা ভবন নির্মাণ করেন। বর্তমানে ভবনের নীচতলায় ওষুধের দোকান, ইলেক্ট্রনিক্স দোকান ও দ্বিতীয় তলায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার ভাড়া দিয়ে তৃতীয় তলায় বাদিনী নিজে স্বপরিবারে বসবাস করে আসছেন। গত ৪ নভেম্বর তারিখে বিকেল ৫টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশে কর্মরত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান খান, কর্মকর্তা আহসানুজ্জামানসহ অন্যান্য আসামিরা তৃতীয় তলা ভবনের প্রধান গেট জোর করে ঠেলিয়া বাড়িতে প্রবেশ করে তারা জানায় ওই বাড়ি কেনার জন্য বায়না দলিল সম্পাদন করেছেন বলে দাবি করেন। বাদী নাজনীন নাহার ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা জানায় তারা কোন জমি বিক্রি করার উদ্দেশে বায়না করে নাই এ কথা বলার সাথে সাথে আসামি আহসান খানের হুকুমে অন্যান্য আসামিরা বাদিনীর পরিবারের ওপর চড়াও হয় এবং সকলকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। এক পর্যায়ে আসামি আহসান খান বাদিনীর গলা চেপে ধরে শ্বাস ধরে হত্যার চেষ্টা করলে তাদের চিৎকারে সাক্ষীরা এসে তাকে রক্ষা করে। এ সময় আসামিরা সোনার গহনা ছিনিয়ে নেয় এবং লক্ষাধিক টাকার মালামাল ভাংচুর করে ক্ষতিসাধন করে। তারা বাদিনী ও তার স্বজনদের হুমকি দেয় এই জমি তারা কেনার জন্য বায়না দলিল রেজিস্টারি করেছে এ জায়গা ছেড়ে দিয়ে অনত্র চলে না গেলে বাড়ির সকলকে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলা হবে হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় বাদী ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে পুলিশ এসে ঘটনা প্রত্যক্ষ করে। পরে পুরো বিষয়টি লিখিত আকারে ধাপ পুলিশ ফাঁড়ি ও মেট্রোপলিটান কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করা হয়। কিন্তু পুলিশ কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। পরে বাদিনীর জবানবন্দি গ্রহন করে ১০ আসামির বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করে তাদের আদালতে হাজির হবার জন্য সমন জারির আদেশ দেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা আহসান খানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট বলে দাবি করে বলেন ওই জমি তারা কয়েকজন মিলে ক্রয় করার জন্য বায়না দলিল সম্পাদন করেছেন সেই সাথে জমির মালিক নাজনীন নাহার নয় বলেও দাবি করেন।

back to top