alt

সারাদেশ

শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় হলো কুতুপালংয়ের পাশে ট্রানজিট ক্যাম্পে

প্রতিনিধি, বান্দরবান : রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

শূন্যরেখা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পুড়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিচ্ছে সরকার। নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের তমুব্রু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ ও এর আশপাশের এলাকায় অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রোববার (৫ জানুয়ারি) ৩৬ পরিবারের ১৮৬ জনকে সরানো হয়েছে। গত ১৮ জানুয়ারি ভোর থেকে শূন্যরেখা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গোলাগুলি শুরু হয় সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসা ও আরএসওর মধ্যে।

পরে বিকেলে পুড়িয়ে দেয়া হয় ক্যাম্পটি। আগুনে সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব তারা। সেই দিনের স্মৃতি মনে পড়তেই আঁতকে উঠেন রোহিঙ্গারা। এমন দুর্দশাগ্রস্ত সময়ে তাদের আশ্রয় দেয়ায় কৃতজ্ঞ বাংলাদেশের প্রতি। শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) মিজানুর রহমান বলেন, এখানে আগত যেসব রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অপরাধে জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া যাবে, তাদের ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করা হবে। অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শামসুদ্দোজা জানান, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের যাচাই-বাছাই করার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

সেই কমিটি ২ হাজার ৯৭০ জনের একটি তালিকা তৈরি করে। তাদের প্রথমে উখিয়ার বালুখালী ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসছে। পরে সেখান থেকে যারা আগে থেকেই নিবন্ধিত তাদের উখিয়া-টেকনাফের স্ব স্ব ক্যাম্পে পাঠানো হবে। বাকিদের নিবন্ধন করে বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় দেয়া হবে। ২০১৭ সালে মায়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিলেও প্রায় ৬৩০ পরিবার ৪ হাজার ৩০০ জন রোহিঙ্গা তুমব্রু শূন্যরেখায় ক্যাম্প গড়ে তুলেছিলেন। সেখানে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসলেও গত ১৮ জানুয়ারি দুই সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের এক পর্যায়ে আগুন দেয়া হলে পুড়ে যায় ক্যাম্পটি। তখন থেকেই ঘুমধুম ইউনিয়নের পার্শ্বে তুমব্রু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাঁবু দিয়ে বসবাস করে আসছিল তারা।

এদিকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোমেন শর্মা বলেন, তুমব্রুতে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের গণনা শেষে রোববার (৫ জানুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে প্রশাসন, আরআরআরসি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আন্তর্জাতিক সংস্থা প্রতিনিধিরাসহ জাতীয় টাস্কফোর্স কমিটির মাধ্যমে ৩৬ পরিবারের ১৮৬ জন সদস্যকে ট্রানজিট ক্যাম্পে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, ‘সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ আইআরসিআরসির সহায়তায় ইউনিয়ন পরিষদ রোহিঙ্গা সংখ্যা গণনার কাজ সম্পন্ন করেছে।’

একজন ইউপি সদস্যের সমন্বয়ে দুই দিনে মোট আটজন এই জরিপ কাজ পরিচালনা করেছে। এখানে ৫৩৭টি পরিবারে মোট দুই হাজার ৯৭০ জন রোহিঙ্গা পাওয়া গেছে বলে জানান চেয়ারম্যান।

ছবি

রাঙামাটিতে হাতি হত্যা, মাটিতে পুতে রাখা হয়েছে হাঁড়গোড়

ছবি

শরীয়তপুরে জেলের জালে ভেসে উঠলো দিনমজুরের লাশ

ছবি

নড়াইলে ৬ ক্লিনিককে ৯৩ হাজার টাকা জরিমানা, অপারেশন থিয়েটার সিলগালা

ছবি

বারিতে পেঁয়াজের স্মার্ট উৎপাদন এবং রোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ

ছবি

শিক্ষক পিস্তল বের করে বললেন ‘এটা আমার পোষাপাখি’, আহত ১

ছবি

এক বাবুর্চী দিয়ে চলছে নীলের পাড়া সমন্বিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষা কার্যক্রম

ছবি

ঢাকা- ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ের শিবচরে বাস চাপায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

ছবি

চট্টগ্রামে এস আলম সুগার মিলে আগুন

ছবি

স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলেন অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীও

ছবি

ভাঙা লাইন মেরামত, রাজশাহীর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

ছবি

কুসিক নির্বাচন : কায়সারের ১২ দফা নির্বাচনী ইশতেহার

ছবি

আদিবাসীদের বরাদ্দকৃত ঘর অসমাপ্ত রেখেই টাকা উত্তোলনের অভিযোগ

ছবি

মায়ানমায় খাদ্য ও জ্বালানি তেল পাচারকালে গ্রেপ্তার ৬

শিবালয়ে কবরস্থান থেকে ১৮টি কঙ্কাল চুরি

ছবি

স্কুলছাত্রীকে অপহরণ: ১৪ বছরের ৬ যুবককে দণ্ড

বগুড়ার শিবগঞ্জে ধানী জমি দখল নিয়ে মারপিটে আহত-৮

ছবি

সখীপুরে ইউপি চেয়ারম্যান প্রতিবেশী নারীকে পেটালেন , সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও ভাইরাল

ছবি

নড়াইলে ট্রলির চাপায় এক কিশোরের মৃত্যু

ছবি

সিলেট ট্রাক-অটোরিকশার সংঘর্ষে নারীসহ দুইজন নিহত

ছবি

ঝিনাইদহ: ১৫ বছর আগের হত্যা মামলায় ৫ জনের যাবজ্জীবন

ছবি

অতীতের কোন সরকারই এত উন্নয়ন করতে পারেনি : শিল্পমন্ত্রী

ছবি

নারায়ণগঞ্জে হত্যা মামলায় দুজনের মৃত্যুদণ্ড, একজনের যাবজ্জীবন

ছবি

গাজীপুরে ঝুট গুদামে আগুন

ছবি

নওগাঁয় আদিবাসীদের বরাদ্দকৃত ঘর, কাজ শেষ না করেই টাকা উত্তোলনের অভিযোগ

ছবি

গাজীপু‌রের কালিয়াকৈরে অ‌তি‌রিক্ত মধ্যপানে ৩ জনের মৃত্যু

ছবি

নাফ নদীর ওপারে গোলাগুলির শব্দ-কালো ধোঁয়া, সীমান্তে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে

ছবি

দুই কোটি টাকার স্বর্ণসহ দুই যাত্রী আটক

ছবি

আগুনের বিভীষিকা, শোকের মাতম

ছবি

চিহ্নিতের পরেও হয় না ঝুঁকিমুক্ত

এক মুহূর্তেই আনন্দ পরিণত হলো বিষাদে

ছবি

বাড়িতে আসার কথা ছিল, এলো অ্যাম্বুলেন্সে একে একে ৫ লাশ

‘কার্বন মনোক্সাইডের বিষক্রিয়ায় ইন্টার্নাল বার্নে মৃত্যু বেড়েছে’

ছবি

শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

ছবি

মন্ত্রিসভায় নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী যুক্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি

ছবি

চট্টগ্রামে নির্মাণাধীন ভবনে আগুন

ছবি

বাচানো গেল না সাবেক স্বামীর দেওয়া আগুনে দগ্ধ চিকিৎসক লতাকে

tab

সারাদেশ

শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় হলো কুতুপালংয়ের পাশে ট্রানজিট ক্যাম্পে

প্রতিনিধি, বান্দরবান

রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

শূন্যরেখা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পুড়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিচ্ছে সরকার। নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের তমুব্রু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ ও এর আশপাশের এলাকায় অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রোববার (৫ জানুয়ারি) ৩৬ পরিবারের ১৮৬ জনকে সরানো হয়েছে। গত ১৮ জানুয়ারি ভোর থেকে শূন্যরেখা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গোলাগুলি শুরু হয় সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসা ও আরএসওর মধ্যে।

পরে বিকেলে পুড়িয়ে দেয়া হয় ক্যাম্পটি। আগুনে সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব তারা। সেই দিনের স্মৃতি মনে পড়তেই আঁতকে উঠেন রোহিঙ্গারা। এমন দুর্দশাগ্রস্ত সময়ে তাদের আশ্রয় দেয়ায় কৃতজ্ঞ বাংলাদেশের প্রতি। শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) মিজানুর রহমান বলেন, এখানে আগত যেসব রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অপরাধে জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া যাবে, তাদের ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করা হবে। অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শামসুদ্দোজা জানান, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের যাচাই-বাছাই করার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

সেই কমিটি ২ হাজার ৯৭০ জনের একটি তালিকা তৈরি করে। তাদের প্রথমে উখিয়ার বালুখালী ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসছে। পরে সেখান থেকে যারা আগে থেকেই নিবন্ধিত তাদের উখিয়া-টেকনাফের স্ব স্ব ক্যাম্পে পাঠানো হবে। বাকিদের নিবন্ধন করে বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় দেয়া হবে। ২০১৭ সালে মায়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিলেও প্রায় ৬৩০ পরিবার ৪ হাজার ৩০০ জন রোহিঙ্গা তুমব্রু শূন্যরেখায় ক্যাম্প গড়ে তুলেছিলেন। সেখানে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসলেও গত ১৮ জানুয়ারি দুই সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের এক পর্যায়ে আগুন দেয়া হলে পুড়ে যায় ক্যাম্পটি। তখন থেকেই ঘুমধুম ইউনিয়নের পার্শ্বে তুমব্রু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাঁবু দিয়ে বসবাস করে আসছিল তারা।

এদিকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোমেন শর্মা বলেন, তুমব্রুতে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের গণনা শেষে রোববার (৫ জানুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে প্রশাসন, আরআরআরসি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আন্তর্জাতিক সংস্থা প্রতিনিধিরাসহ জাতীয় টাস্কফোর্স কমিটির মাধ্যমে ৩৬ পরিবারের ১৮৬ জন সদস্যকে ট্রানজিট ক্যাম্পে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, ‘সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ আইআরসিআরসির সহায়তায় ইউনিয়ন পরিষদ রোহিঙ্গা সংখ্যা গণনার কাজ সম্পন্ন করেছে।’

একজন ইউপি সদস্যের সমন্বয়ে দুই দিনে মোট আটজন এই জরিপ কাজ পরিচালনা করেছে। এখানে ৫৩৭টি পরিবারে মোট দুই হাজার ৯৭০ জন রোহিঙ্গা পাওয়া গেছে বলে জানান চেয়ারম্যান।

back to top