alt

সারাদেশ

আরাভকে গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলের সহায়তা চেয়েছে পুলিশ

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ১৯ মার্চ ২০২৩

পুলিশ কর্মকর্তা মামুন ইমরান খান হত্যা মামলায় পলাতক আসামি স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তারে আন্তর্জাতিক পুলিশ তদন্ত সংস্থা ইন্টারপোলের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। পুলিশ সদর দপ্তরের ইন্টারপোল শাখা থেকে এ রেড নোটিশ জারি করতে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার এ চিঠি পাঠানোর পাশাপাশি দুবাইয়ে অবস্থানরত আরাভ খানের বিষয়ে দেশটির পুলিশের সঙ্গেও যোগাযোগ চলছে।

এদিকে পুলিশ হত্যা মামলায় ‘পরোয়ানা থাকা’ সত্ত্বেও আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলাম বাংলাদেশে দুইবার এসে ঘুরে গেছেন বলে তথ্য মিলেছে। বাংলাদেশে ঘুরতে আসা আরাভ খান যে রবিউল ইসলাম এটা তখন পুলিশের অনেক কর্মকর্তাই জানতেন। কিন্তু কিভাবে তিনি পরিচয় পাল্টে এভাবে দাপটের সঙ্গে ঘুরে বেরিয়েছেন এবং কেনই বা তখন তাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি তা এখন প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। যদিও অনেকেই বলছেন পুলিশের একজন শীর্ষ কর্মকর্তার আশীর্বাদপুষ্ট হওয়ার কারণে পুলিশ পরিদর্শক হত্যা মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হলেও তাকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

পুলিশ সদর দপ্তরের সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশে পুলিশ হত্যা মামলার অন্যতম আসামি রবিউল ইসলাম ওরফে হৃদয় ওরফে সোহাগই যে দুবাইয়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান এবং সে ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে সে দেশটিতে অবস্থান করছে এটি জানার পর তাকে গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার আরাভ খানের তথ্য-উপাত্ত দিয়ে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে ইন্টারপোলের কাছে। দুবাইয়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান বাংলাদেশের রবিউল ইসলাম এবং তার বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তারি পরোয়ানাসহ যাবর্তীয় তথ্য-প্রমাণ চিঠির সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। আমরা আশা করি ইন্টারপোলের সহযোগিতায় আরাভ খানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবো।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি মিডিয়া মনজুর রহমান বলেন, ‘পলাতক আসামি আরাভ ওরফে রবিউল ওরফে হৃদয়কে দেশে ফিরিয়ে এনে আইনের মুখোমুখি করার জন্য পুলিশ সদর দপ্তরের এনসিবি শাখা কাজ করছে। সে যাতে অন্য কোথাও যেতে না পারে সে বিষয়টিও ইন্টারপোলকে অবহিত করা হয়েছে।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, ‘আরাভের বিষয়ে বাংলাদেশে অবস্থিত দুবাই দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ চলমান রয়েছে। আরাভের পেছনে কারা জড়িত রয়েছে এসব বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তের প্রয়োজনে ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানসহ অনেককেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে।’

২০১৮ সালের ৮ জুলাই বনানীতে আরাভের অফিসে পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক মামুন ইমরান খানকে হত্যা করা হয়। পরে মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে খুনিরা। আরাভ খান ওই হত্যায় সংশ্লিষ্টদের অন্যতম একজন যিনি তখন রবিউল ইসলাম নামে পরিচিতি ছিলেন। এ হত্যা মামলায় তার নাম আসার পর তিনি ভারতে পালিয়ে যান এবং পরিচয় পাল্টে হয়ে যান আরাভ খান। ভারতীয় এক দম্পতির আধার কার্ড ব্যবহার করে তাদের সন্তান পরিচয়ে ভারতীয় পাসপোর্ট তৈরি করেন। পরে তিনি ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে দুবাইয়ের ভিসা নিয়ে দেশটিতে পালিয়ে যান। রবিউল ইসলাম দাবি করে আরেকজন যখন আদালতে আত্মসমর্পণ করে বিচারের মুখোমুখি হওয়ার পর ইউসুফ নামের ব্যক্তি আদালতে দাবি করেন তিনি রবিউল ইসলাম নন তখন আদালত এটি পুনরায় তদন্তের নির্দেশন দেন। পুলিশ তদন্ত করতে গেলে থলের বিরাল বেরিয়ে আসে। দুবাইয়ে স্বর্ণের দোকান উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন এবং সে অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশের তারাকারা হাজির থাকবেন এমন তথ্য জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যখন রবিউল ইসলাম ওরফে আরাভ খান ভিডিও পোস্ট করেন তখন পুলিশ জানতে পারে দুবাইয়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান আর কেউ নন বাংলাদেশের রবিউল ইসলাম যিনি পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা মামলায় ফেরারি।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুলিশ কর্মকর্তা মামুন ইমরান খান হত্যা মামলার এই পলাতক আসামির নাম রবিউল ইসলাম ওরফে আপন। তার বাড়ি গোপালগঞ্জে। কখনও সে নাম ধারণ করে সোহাগ, কখনও বা শেখ হৃদয়। তাকে খোঁজা হচ্ছিল। তখন মামলাটি তদন্ত করে তাকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটও দিয়েছিল ডিবি। এরমধ্যে পালিয়ে থাকা রবিউল ভারতে চলে যায়। ফলে তখন তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে তদন্তে ওঠে আসে রবিউল ইসলাম আপন নামের একজন কোর্টে আত্মসমর্পণ করেছে। তারপর তাকে জেলখানায় নেয়া হয়। কিন্তু এটা একটা সাজানো ঘটনা। আত্মসমর্পণ করা রবিউল ইসলাম মূল খুনি রবিউল ইসলামের সঙ্গে অর্থের সুবিধায় চুক্তিবদ্ধ হয়ে নিজের নাম রবিউল বলেছিল। যাতে পুলিশ আসল রবিউলকে খুঁজে না পায়। পুলিশ রবিউলের জেলে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হলে আসল রবিউল ভারতে তখন নির্বিঘ্নে পালিয়ে যায়।

টাকার বিনিময়ে প্রকৃত আসামি রবিউলের পরিবর্তে চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার আবু ইউসুফ লিমন জেলে যাওয়ার পর চুক্তি অনুযায়ী যখন আসল রবিউলের কাছ থেকে কোন টাকা পাননি তখন তিনি আদালতে আসল তথ্য প্রকাশ করে দেন। তখন সে আদালতে বলে আমি রবিউল ইসলাম আপন না। আপন হচ্ছে ওনি, যিনি ভারতে আছেন। আমি ভুল করেছি। তখন কোর্ট আবার ডিবিকে অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন। তদন্তে সবকিছু বের হয়ে আসে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, আরাভ খানের সঙ্গে বাংলাদেশের অনেক শীর্ষ মহলের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। পুলিশের শীর্ষ কর্মকতা থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠত ব্যবসায়ী, বিনোদন জগতের তারাকাসহ অনেকের সঙ্গে আরাভ খানের সখ্য ছিল। দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত শিল্পী সমিতির অনুষ্ঠানেও অংশ নিয়েছিলেন আরাভ খান। ওই অনুষ্ঠানে বড় অঙ্ক ডেনোশন করেন আরাভ খান।

গত বছরের মার্চ এবং চলতি বছরের ফেব্রুযারি মাসে আরাভ খান দুইবার বাংলাদেশে এসেছিলেন। যদিও তিনি ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছিলেন। তখন পুলিশের অনেক কর্মকর্তা জানতেন ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহারে বাংলাদেশে স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান পরিচয়ে আসা ব্যক্তি আর কেউ নন পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা মামলার আসামি রবিউল ইসলামই। কিন্তু রহস্যজনক কারণে তখন তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

ছবি

উৎপাদন কেন্দ্রে আগুন, সিলেটে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত

ছবি

নওগাঁয় প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া, ঠিকাদারকে কুপিয়ে জখম

ছবি

আরও ৫ মায়ানমার সীমান্তরক্ষী আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে

ছবি

হাসপাতালে স্ত্রীর মরদেহ রেখে পালালেন স্বামী

ছবি

মোটরসাইকেলের তেলের ট্যাংকে ইয়াবা, পাচারকারি গ্রেপ্তার

ছবি

বাংলাদেশে ঢুকে পড়ল মায়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আরও ৯ সদস্য

ছবি

শরীয়তপুরে অপহরণের পর স্কুলছাত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৪

ছবি

ঈদের ছুটিতে ঐতিহাসিক বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়

ছবি

মোটরসাইকেলের সাথে রিকশার ধাক্কা চালককে পিটিয়ে হত্যা, রাতে অটোচালকদের বিক্ষোভ

ছবি

নাবিকদের মুক্তিতে মুক্তিপণের তথ্য সরকারের কাছে নেই: নৌ প্রতিমন্ত্রী

ছবি

রুমায় ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় আরও ৪ জন গ্রেপ্তার

ছবি

বাংলাদেশে ঢুকে পড়ল মায়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আরও ৯ সদস্য

ছবি

হোটেলে বাড়তি ভাড়া আদায়, তবুও তিল ধারণের ঠাঁই নেই সাগরপাড়ে

ছবি

বরিশালে নদীতে গোসলে নেমে তরুণী নিখোঁজ

ছবি

চট্টগ্রামে এক নারীর লাশ উদ্ধার

ছবি

ঈশ্বরগঞ্জে একই স্থানে দুপক্ষের বৈশাখী মেলা, সংঘাতের আশঙ্কা

ছবি

আশ্রয় শিবিরের বাইরে আসা ৭১ রোহিঙ্গা আটক

ছবি

নাটোরে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

নানীর সাথে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে দুই ভাইয়ের মৃত্যু

ছবি

সাভারে ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যা

ছবি

সিলেটের জাফলংয়ে নারী পর্যটকদের যৌন হয়রানি, যুবককে দুই বছরের কারাদণ্ড

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ধানকাটা নিয়ে সংঘর্ষে একজন নিহত, আহত অর্ধশত

শরীয়তপুরে গাছের ঝুলছিলো যুবকের মরদেহ, পরিবারের দাবী হত্যা

ছবি

মাতারবাড়ি-ধলঘাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের ঢল

ছবি

রুমায় ভ্রমণ নি‌ষেধাজ্ঞা স্থ‌গিত

ছবি

যশোরে বাইকে এসে দুই আ. লীগ নেতাকে গুলি

রংপুরে ঢাকা কোচ ষ্টান্ডে টিকেট বিক্রিতে নৈরাজ্য,ইচ্ছে মতো দামে বিক্রি

ইসলামপুরে উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গা যুবককে পুলিশ পেঁৗছে দিলো ক্যাম্পে

বকশীগঞ্জে স্ত্রীকে মাংস কিনে দিতে না পারায় চিঠি লিখে যবুকের আত্মহত্যা

শিবচরে গ্রাম্য দলাদলিকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১৫

ছবি

বান্দরবানে যৌথবাহিনীর অভিযান পরিচালিত ভ্রমণ নিষেধ

ছবি

পটিয়ায় বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে বাইক আরোহী দুজন নিহত

ছবি

সদরঘাটে নিহত এক পরিবারের ৩ জনের লাশ দাফন পিরোজপুরে

ছবি

হবিগঞ্জে গরুকে ঘাস খাওয়ানোকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ৩৫

রংপুরে ১০ বছর ধরে পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার

এস আলম তেলের কারখানার আগুন ২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে

tab

সারাদেশ

আরাভকে গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলের সহায়তা চেয়েছে পুলিশ

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ১৯ মার্চ ২০২৩

পুলিশ কর্মকর্তা মামুন ইমরান খান হত্যা মামলায় পলাতক আসামি স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তারে আন্তর্জাতিক পুলিশ তদন্ত সংস্থা ইন্টারপোলের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। পুলিশ সদর দপ্তরের ইন্টারপোল শাখা থেকে এ রেড নোটিশ জারি করতে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার এ চিঠি পাঠানোর পাশাপাশি দুবাইয়ে অবস্থানরত আরাভ খানের বিষয়ে দেশটির পুলিশের সঙ্গেও যোগাযোগ চলছে।

এদিকে পুলিশ হত্যা মামলায় ‘পরোয়ানা থাকা’ সত্ত্বেও আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলাম বাংলাদেশে দুইবার এসে ঘুরে গেছেন বলে তথ্য মিলেছে। বাংলাদেশে ঘুরতে আসা আরাভ খান যে রবিউল ইসলাম এটা তখন পুলিশের অনেক কর্মকর্তাই জানতেন। কিন্তু কিভাবে তিনি পরিচয় পাল্টে এভাবে দাপটের সঙ্গে ঘুরে বেরিয়েছেন এবং কেনই বা তখন তাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি তা এখন প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। যদিও অনেকেই বলছেন পুলিশের একজন শীর্ষ কর্মকর্তার আশীর্বাদপুষ্ট হওয়ার কারণে পুলিশ পরিদর্শক হত্যা মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হলেও তাকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

পুলিশ সদর দপ্তরের সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশে পুলিশ হত্যা মামলার অন্যতম আসামি রবিউল ইসলাম ওরফে হৃদয় ওরফে সোহাগই যে দুবাইয়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান এবং সে ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে সে দেশটিতে অবস্থান করছে এটি জানার পর তাকে গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার আরাভ খানের তথ্য-উপাত্ত দিয়ে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে ইন্টারপোলের কাছে। দুবাইয়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান বাংলাদেশের রবিউল ইসলাম এবং তার বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেপ্তারি পরোয়ানাসহ যাবর্তীয় তথ্য-প্রমাণ চিঠির সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। আমরা আশা করি ইন্টারপোলের সহযোগিতায় আরাভ খানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবো।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি মিডিয়া মনজুর রহমান বলেন, ‘পলাতক আসামি আরাভ ওরফে রবিউল ওরফে হৃদয়কে দেশে ফিরিয়ে এনে আইনের মুখোমুখি করার জন্য পুলিশ সদর দপ্তরের এনসিবি শাখা কাজ করছে। সে যাতে অন্য কোথাও যেতে না পারে সে বিষয়টিও ইন্টারপোলকে অবহিত করা হয়েছে।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, ‘আরাভের বিষয়ে বাংলাদেশে অবস্থিত দুবাই দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ চলমান রয়েছে। আরাভের পেছনে কারা জড়িত রয়েছে এসব বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তের প্রয়োজনে ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানসহ অনেককেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে।’

২০১৮ সালের ৮ জুলাই বনানীতে আরাভের অফিসে পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক মামুন ইমরান খানকে হত্যা করা হয়। পরে মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে খুনিরা। আরাভ খান ওই হত্যায় সংশ্লিষ্টদের অন্যতম একজন যিনি তখন রবিউল ইসলাম নামে পরিচিতি ছিলেন। এ হত্যা মামলায় তার নাম আসার পর তিনি ভারতে পালিয়ে যান এবং পরিচয় পাল্টে হয়ে যান আরাভ খান। ভারতীয় এক দম্পতির আধার কার্ড ব্যবহার করে তাদের সন্তান পরিচয়ে ভারতীয় পাসপোর্ট তৈরি করেন। পরে তিনি ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে দুবাইয়ের ভিসা নিয়ে দেশটিতে পালিয়ে যান। রবিউল ইসলাম দাবি করে আরেকজন যখন আদালতে আত্মসমর্পণ করে বিচারের মুখোমুখি হওয়ার পর ইউসুফ নামের ব্যক্তি আদালতে দাবি করেন তিনি রবিউল ইসলাম নন তখন আদালত এটি পুনরায় তদন্তের নির্দেশন দেন। পুলিশ তদন্ত করতে গেলে থলের বিরাল বেরিয়ে আসে। দুবাইয়ে স্বর্ণের দোকান উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন এবং সে অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশের তারাকারা হাজির থাকবেন এমন তথ্য জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যখন রবিউল ইসলাম ওরফে আরাভ খান ভিডিও পোস্ট করেন তখন পুলিশ জানতে পারে দুবাইয়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান আর কেউ নন বাংলাদেশের রবিউল ইসলাম যিনি পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা মামলায় ফেরারি।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুলিশ কর্মকর্তা মামুন ইমরান খান হত্যা মামলার এই পলাতক আসামির নাম রবিউল ইসলাম ওরফে আপন। তার বাড়ি গোপালগঞ্জে। কখনও সে নাম ধারণ করে সোহাগ, কখনও বা শেখ হৃদয়। তাকে খোঁজা হচ্ছিল। তখন মামলাটি তদন্ত করে তাকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটও দিয়েছিল ডিবি। এরমধ্যে পালিয়ে থাকা রবিউল ভারতে চলে যায়। ফলে তখন তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে তদন্তে ওঠে আসে রবিউল ইসলাম আপন নামের একজন কোর্টে আত্মসমর্পণ করেছে। তারপর তাকে জেলখানায় নেয়া হয়। কিন্তু এটা একটা সাজানো ঘটনা। আত্মসমর্পণ করা রবিউল ইসলাম মূল খুনি রবিউল ইসলামের সঙ্গে অর্থের সুবিধায় চুক্তিবদ্ধ হয়ে নিজের নাম রবিউল বলেছিল। যাতে পুলিশ আসল রবিউলকে খুঁজে না পায়। পুলিশ রবিউলের জেলে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হলে আসল রবিউল ভারতে তখন নির্বিঘ্নে পালিয়ে যায়।

টাকার বিনিময়ে প্রকৃত আসামি রবিউলের পরিবর্তে চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার আবু ইউসুফ লিমন জেলে যাওয়ার পর চুক্তি অনুযায়ী যখন আসল রবিউলের কাছ থেকে কোন টাকা পাননি তখন তিনি আদালতে আসল তথ্য প্রকাশ করে দেন। তখন সে আদালতে বলে আমি রবিউল ইসলাম আপন না। আপন হচ্ছে ওনি, যিনি ভারতে আছেন। আমি ভুল করেছি। তখন কোর্ট আবার ডিবিকে অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন। তদন্তে সবকিছু বের হয়ে আসে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, আরাভ খানের সঙ্গে বাংলাদেশের অনেক শীর্ষ মহলের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। পুলিশের শীর্ষ কর্মকতা থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠত ব্যবসায়ী, বিনোদন জগতের তারাকাসহ অনেকের সঙ্গে আরাভ খানের সখ্য ছিল। দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত শিল্পী সমিতির অনুষ্ঠানেও অংশ নিয়েছিলেন আরাভ খান। ওই অনুষ্ঠানে বড় অঙ্ক ডেনোশন করেন আরাভ খান।

গত বছরের মার্চ এবং চলতি বছরের ফেব্রুযারি মাসে আরাভ খান দুইবার বাংলাদেশে এসেছিলেন। যদিও তিনি ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছিলেন। তখন পুলিশের অনেক কর্মকর্তা জানতেন ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহারে বাংলাদেশে স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরাভ খান পরিচয়ে আসা ব্যক্তি আর কেউ নন পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা মামলার আসামি রবিউল ইসলামই। কিন্তু রহস্যজনক কারণে তখন তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

back to top