alt

সারাদেশ

তনু হত্যার ৭ বছর, তদন্তে দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই

প্রতিনিধি, মুরাদনগর (কুমিল্লা) : সোমবার, ২০ মার্চ ২০২৩

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ শিক্ষার্থী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনু হত্যাকাণ্ডের সাত বছর পূর্ণ হয়েছে সোমবার (২০ মার্চ)। কিন্তু এই দীর্ঘ সময়ে আলোচিত এই হত্যা মামলার তদন্তে দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি নেই। শনাক্ত হয়নি কোন আসামি, দেয়া হয়নি অভিযোগপত্র। মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই গত প্রায় আড়াই বছর যাবৎ বাদীপক্ষের সঙ্গে কোন যোগাযোগ নেই। তনুর বাবা ইয়ার হোসেন ও মা আনোয়ারা বেগম জীবিত থাকাবস্থায় এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দেখে যেতে চান।

পুলিশ জানায়, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ও নাট্যকর্মী ছিলেন সোহাগী জাহান তনু। ২০১৬ সালের ২০ মার্চ রাতে কুমিল্লার ময়নামতি সেনানিবাসের পাওয়ার হাউজের অদূরে কালভার্টের ২০ থেকে ৩০ গজ পশ্চিমে ঝোপ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ২১ মার্চ বিকেলে তনুর বাবা কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহকারী ইয়ার হোসেন বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, প্রথমে ২০১৬ সালের ২১ মার্চ কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই সাইফুল ইসলামকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়। চার দিন পর দ্বিতীয় দফায় ২৫ মার্চ কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি একেএম মনজুর আলমকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল থেকে ২৩ আগস্ট পর্যন্ত পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কুমিল্লার পরিদর্শক গাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম তৃতীয় দফা তদন্ত করেন।

চতুর্থ দফায় ২০১৬ সালের ২৪ আগস্ট তদন্ত কর্মকর্তা বদল করে সিআইডির নোয়াখালী ও ফেনী অঞ্চলের তৎকালীন সহকারী পুলিশ সুপার (বর্তমানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার) জালাল উদ্দিন আহম্মদকে দায়িত্ব দেয়া হয়। তিনি চার বছরের বেশি সময় ধরে তদন্ত করেও মামলার কোন কূল-কিনারা করতে পারেননি।

পঞ্চমবার ২০২১ সালের ২১ অক্টোবর হত্যা মামলাটি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) থেকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঢাকার সদর দপ্তরে স্থানান্তর করা হয়।

পিবিআই তিনবার কুমিল্লা সেনানিবাসে এসে মামলার বাদী তনুর বাবা ইয়ার হোসেন, মা আনোয়ারা বেগম ও তাদের ছোট ছেলে আনোয়ার হোসেন ওরফে রুবেলকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পিবিআই ২০২০ সালের নভেম্বরের পর বাদী পক্ষের সঙ্গে আর যোগাযোগ করেনি বলে দাবি করেছেন ইয়ার হোসেন। এ অবস্থায় ঘুরপাক খাচ্ছে মামলার তদন্ত।

মামলার বাদী তনুর বাবা ইয়ার হোসেন বলেন, ‘মামলার কোন অগ্রগতি নেই। এরমধ্যে পাঁচবার তদন্ত কর্মকর্তা বদল হয়েছে। সিআইডির জালাল উদ্দিন আহম্মদ মামলার তদন্তে কালক্ষেপন করছেন। তিনি মামলাটি নষ্ট করে ফেলেছেন। এ বিষয়ে গত শনিবার জালাল উদ্দিন আহম্মদের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন ও খুদে বার্তা পাঠানো হলেও তিনি সাড়া দেননি। ইয়ার হোসেন পিবিআই তদন্ত প্রসঙ্গে বলেন, পিবিআইয়ের মুজিবুর রহমান নামের একজন কর্মকর্তা তদন্ত করছেন। কিন্ত তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গে প্রায়ই আড়াই বছর ধরে কোন যোগাযোগ নেই। মামলা কী অবস্থায় আছে সেটাও জানি না।

পিবিআই কুমিল্লার পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, পিবিআই হেড কোয়ার্টারের স্পেশাল টিম এ মামলাটি তদন্ত করছেন। তাই এ বিষয়ে কিছুই বলা যাচ্ছে না। বার বার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন ও মামলার কোন অগ্রগতি না হওয়ায় ক্ষুব্ধ তনুর বাবা প্রশ্ন করেন, ‘গরিবের বিচার আছে আল্লাহ ছাড়া? পিবিআই আমাদের কাছে আসে না। এখনও আসামি চিহ্নিত হয়নি’।

তনুর মা আনোয়ারা বেগম বলেন, ‘শরীরটা আমার ভালো যাচ্ছে না। মরণের আগেই বিচারটা দেখে যেতে চাই। তনুকে হারিয়ে আমি সর্বহারা। আমার এই মেয়ের জন্য আমি পড়াশোনায় বিনিয়োগ করেছি। সে পড়াশেনায় ভালো ছিল। পুরো ঘরে এখনও ওর জামা কাপড়, শখের জিনিস ছড়ানো ছিটানো আছে। প্রতিদিনই ওর কথা মনে পড়ে। ওর জিনিসপত্র দেখি। হাত বুলাই। আমি সরকারের কাছে ধনসম্পদ চাই না। বিচার চাই।’

তনু হত্যাকা-ের পর বিচার নিয়ে আন্দোলন করে গণজাগরণ মঞ্চ কুমিল্লা ও কুমিল্লার থিয়েটার কর্মীরা। তাদের একজন কুমিল্লার সংস্কৃতিককর্মী খায়রুল আনাম বলেন, ‘এই মামলা হিমাগারে। জাতি চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চায়। মানুষের মনে এই ঘটনার রেশ রয়ে গেছে। ২০ মার্চ কুমিল্লার মানুষের হৃদয়ে আছে।’

এদিকে মেয়ে সোহাগী জাহান তনুর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে গত শুক্রবার কুমিল্লা সেনানিবাস থেকে গ্রামের বাড়ি মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা পশ্চিম ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামে আসেন বাবা ইয়ার হোসেন ও মা আনোয়ারা বেগমসহ তার স্বজনরা। তনুর মাগফেরাত কামনার্থে কবর জিয়ারত, কোরানখানি ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

ছবি

বন্যা সিলেটে কমেছে, বাড়ছে রংপুরে

কক্সবাজারে ‘আশানুরূপ’ পর্যটক সমাগম

ছবি

সুনামগঞ্জে বন্যার পানি কমলেও কমেনি দূর্ভোগ।

ছবি

হাইমচরে মেঘনার ভাঙনে দিশেহারা জালিয়ারচরবাসী

জামালপুরে সড়ক ভবনে দরপত্র ছিনতাই, কর্মকর্তা লাঞ্চিত

ছবি

বৃষ্টিপাত ও পাহাড় ধসে ৩৩টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১২০০ বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত

ছবি

টেকনাফে বন‍্যার পানি নামতে শুরু করেছে, ফুটে উঠছে ক্ষতের চিহ্ন

ছবি

কক্সবাজারে ঈদের শেষভাগে পর্যটকের উপস্থিতি : ব্যবসায় চাঙ্গাভাব

ছবি

নেত্রকোণায় ২০০ বস্তা চিনিসহ ভারতীয় ট্রাক জব্দ

ছবি

যাদুকাটায় নির্মাণাধীন সেতু, ড্রেজার-ট্রলারের ধাক্কায় কাজ ক্ষতিগ্রস্ত

ছবি

সিলেটে বন্যার পানি দেখতে গিয়ে নৌকাডুবে যুবকের মৃত্যু

ছবি

মৃত হজযাত্রীর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৯০০, নিখোঁজ অনেকে

ছবি

পদ্মার চরাঞ্চলে রাসেলস ভাইপারের আতঙ্ক

ছবি

উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পাঁচ জেলা প্লাবিত

ছবি

বন্যায় ভাসছে সিলেট

ছবি

সুনামগঞ্জে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত , ত্রানের জন্য হাহাকার

নরসিংদীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ২০

ছবি

সুনামগঞ্জের বন্যা কবলিত মানুষের বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট

বাগেরহাটে বজ্রপাতে ২ জন ও বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে ১ জন নিহত

সরিষাবাড়ীতে সাবেক স্বামীর ছুরিকাঘাতে নারী নিহত

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে হেডফোনে কথা বলার সময় ট্রেনের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু

ছবি

সমুদ্র সৈকত থেকে ৬০ রোহিঙ্গা আটক, বাস চালকদের জরিমানা

ছবি

জনপ্রতিনিধিদের দুষলেন ওবায়দুল কাদের

ছবি

মোটরসাইকেলে ঘুরতে বেরিয়ে প্রাণ গেলো দুজনের

ছবি

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় ধসে ১০জনের মৃত্যু

ছবি

সিলেটে পানিবন্দি ৪ লাখের ৪ হাজার গেছেন আশ্রয়কেন্দ্রে

ঢাকা-মহাসড়কে প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহী তরুণ ও কিশোরীর

ডুবছে সুনামগঞ্জ, মানুষের দূর্ভোগ বাড়ছে

ছবি

বন্যার কারণে সিলেটের সব পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা

ছবি

সেন্টমার্টিনে আবারও খাদ্য সঙ্কট

ছবি

সুনামগঞ্জে ঈদের আনন্দ মলিন হয়ে গেছে আকস্মিক বন্যায়

ঈশ্বরগঞ্জে ঈদ আনন্দ উপভোগ করা হলনা চাচা ভাতিজার

সখীপুরে গৃহবধূ নিখোঁজের পর পুকুর থেকে লাশ উদ্ধার

দুই ভাইয়ের চিরদিনের ছুটি

সিলেটে তিন নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

ছবি

ঘড়ি ছাড়াই হাতের দিকে তাকিয়েই সময় বলে দেন ইয়াছিন!

tab

সারাদেশ

তনু হত্যার ৭ বছর, তদন্তে দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই

প্রতিনিধি, মুরাদনগর (কুমিল্লা)

সোমবার, ২০ মার্চ ২০২৩

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ শিক্ষার্থী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনু হত্যাকাণ্ডের সাত বছর পূর্ণ হয়েছে সোমবার (২০ মার্চ)। কিন্তু এই দীর্ঘ সময়ে আলোচিত এই হত্যা মামলার তদন্তে দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি নেই। শনাক্ত হয়নি কোন আসামি, দেয়া হয়নি অভিযোগপত্র। মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই গত প্রায় আড়াই বছর যাবৎ বাদীপক্ষের সঙ্গে কোন যোগাযোগ নেই। তনুর বাবা ইয়ার হোসেন ও মা আনোয়ারা বেগম জীবিত থাকাবস্থায় এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দেখে যেতে চান।

পুলিশ জানায়, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ও নাট্যকর্মী ছিলেন সোহাগী জাহান তনু। ২০১৬ সালের ২০ মার্চ রাতে কুমিল্লার ময়নামতি সেনানিবাসের পাওয়ার হাউজের অদূরে কালভার্টের ২০ থেকে ৩০ গজ পশ্চিমে ঝোপ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ২১ মার্চ বিকেলে তনুর বাবা কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহকারী ইয়ার হোসেন বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, প্রথমে ২০১৬ সালের ২১ মার্চ কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই সাইফুল ইসলামকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়। চার দিন পর দ্বিতীয় দফায় ২৫ মার্চ কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি একেএম মনজুর আলমকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল থেকে ২৩ আগস্ট পর্যন্ত পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কুমিল্লার পরিদর্শক গাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম তৃতীয় দফা তদন্ত করেন।

চতুর্থ দফায় ২০১৬ সালের ২৪ আগস্ট তদন্ত কর্মকর্তা বদল করে সিআইডির নোয়াখালী ও ফেনী অঞ্চলের তৎকালীন সহকারী পুলিশ সুপার (বর্তমানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার) জালাল উদ্দিন আহম্মদকে দায়িত্ব দেয়া হয়। তিনি চার বছরের বেশি সময় ধরে তদন্ত করেও মামলার কোন কূল-কিনারা করতে পারেননি।

পঞ্চমবার ২০২১ সালের ২১ অক্টোবর হত্যা মামলাটি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) থেকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঢাকার সদর দপ্তরে স্থানান্তর করা হয়।

পিবিআই তিনবার কুমিল্লা সেনানিবাসে এসে মামলার বাদী তনুর বাবা ইয়ার হোসেন, মা আনোয়ারা বেগম ও তাদের ছোট ছেলে আনোয়ার হোসেন ওরফে রুবেলকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পিবিআই ২০২০ সালের নভেম্বরের পর বাদী পক্ষের সঙ্গে আর যোগাযোগ করেনি বলে দাবি করেছেন ইয়ার হোসেন। এ অবস্থায় ঘুরপাক খাচ্ছে মামলার তদন্ত।

মামলার বাদী তনুর বাবা ইয়ার হোসেন বলেন, ‘মামলার কোন অগ্রগতি নেই। এরমধ্যে পাঁচবার তদন্ত কর্মকর্তা বদল হয়েছে। সিআইডির জালাল উদ্দিন আহম্মদ মামলার তদন্তে কালক্ষেপন করছেন। তিনি মামলাটি নষ্ট করে ফেলেছেন। এ বিষয়ে গত শনিবার জালাল উদ্দিন আহম্মদের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন ও খুদে বার্তা পাঠানো হলেও তিনি সাড়া দেননি। ইয়ার হোসেন পিবিআই তদন্ত প্রসঙ্গে বলেন, পিবিআইয়ের মুজিবুর রহমান নামের একজন কর্মকর্তা তদন্ত করছেন। কিন্ত তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গে প্রায়ই আড়াই বছর ধরে কোন যোগাযোগ নেই। মামলা কী অবস্থায় আছে সেটাও জানি না।

পিবিআই কুমিল্লার পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, পিবিআই হেড কোয়ার্টারের স্পেশাল টিম এ মামলাটি তদন্ত করছেন। তাই এ বিষয়ে কিছুই বলা যাচ্ছে না। বার বার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন ও মামলার কোন অগ্রগতি না হওয়ায় ক্ষুব্ধ তনুর বাবা প্রশ্ন করেন, ‘গরিবের বিচার আছে আল্লাহ ছাড়া? পিবিআই আমাদের কাছে আসে না। এখনও আসামি চিহ্নিত হয়নি’।

তনুর মা আনোয়ারা বেগম বলেন, ‘শরীরটা আমার ভালো যাচ্ছে না। মরণের আগেই বিচারটা দেখে যেতে চাই। তনুকে হারিয়ে আমি সর্বহারা। আমার এই মেয়ের জন্য আমি পড়াশোনায় বিনিয়োগ করেছি। সে পড়াশেনায় ভালো ছিল। পুরো ঘরে এখনও ওর জামা কাপড়, শখের জিনিস ছড়ানো ছিটানো আছে। প্রতিদিনই ওর কথা মনে পড়ে। ওর জিনিসপত্র দেখি। হাত বুলাই। আমি সরকারের কাছে ধনসম্পদ চাই না। বিচার চাই।’

তনু হত্যাকা-ের পর বিচার নিয়ে আন্দোলন করে গণজাগরণ মঞ্চ কুমিল্লা ও কুমিল্লার থিয়েটার কর্মীরা। তাদের একজন কুমিল্লার সংস্কৃতিককর্মী খায়রুল আনাম বলেন, ‘এই মামলা হিমাগারে। জাতি চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চায়। মানুষের মনে এই ঘটনার রেশ রয়ে গেছে। ২০ মার্চ কুমিল্লার মানুষের হৃদয়ে আছে।’

এদিকে মেয়ে সোহাগী জাহান তনুর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে গত শুক্রবার কুমিল্লা সেনানিবাস থেকে গ্রামের বাড়ি মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা পশ্চিম ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামে আসেন বাবা ইয়ার হোসেন ও মা আনোয়ারা বেগমসহ তার স্বজনরা। তনুর মাগফেরাত কামনার্থে কবর জিয়ারত, কোরানখানি ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

back to top