alt

অর্থ-বাণিজ্য

বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যে বড় ঘাটতি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যে সবচেয়ে বড় অস্বস্তি এখন আর্থিক হিসাবের ঘাটতি। চলতি অর্থবছরের নয় মাসেই এই ঘাটতি ৯ বিলিয়ন (৯০০ কোটি) ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এর আগে এক অর্থবছরেও (১২ মাস) এই সূচকে এত বড় ঘাটতির মুখে পড়েনি বাংলাদেশ।

ডলার সংকটের কারণে আমদানি ব্যয়ের লাগাম টেনে ধরতে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক নানা পদক্ষেপ নিয়েছিল। তার সুফলও মিলছে। আমদানি ব্যয় কমছেই। আর তাতে বাণিজ্য ঘাটতি বেশ খানিকটা কমেছে। তবে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) ঘাটতি বেড়েই চলেছে। আর এতে অর্থনীতিতে উদ্বেগ আরও বাড়ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক গত সোমবার বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যের হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায়, চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৭৪ কোটি ৫০ লাখ (৪.৭৪ বিলিয়ন) ডলার যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৬৭ দশমিক ৫৭ শতাংশ কম। ২০২২-২৩ অর্থবছরের এই নয় মাসে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৪৬৩ কোটি ৩০ লাখ (১৪.৬৩ বিলিয়ন) ডলার।

জুলাই-মার্চ সময়ে ৪ হাজার ৫৬২ কোটি (৪৫.৬২ বিলিয়ন) ডলারের বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি করেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তারা। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৫ দশমিক ৪২ শতাংশ কম। ২০২২-২৩ অর্থবছরের এই নয় মাসে ৫৩ দশমিক ৯৪ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি হয়েছিল। অন্যদিকে জুলাই-মার্চ সময়ে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে ৪০ দশমিক ৮৭ বিলিয়ন ডলার আয় করেছেন রপ্তানিকারকরা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৩ দশমিক ৯৯ শতাংশ বেশি।

গত বছরের এই নয় মাসে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৯ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলার আয় হয়েছিল। এ হিসাবেই চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতির পরিমাণ কমে ৪ দশমিক ৭৪ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। ১৭ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। তার আগের অর্থবছরে (২০২১-২২) অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে এই ঘাটতি ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলারে উঠেছিল।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) ঘাটতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ২৬ বিলিয়ন ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই সূচকে ২ কোটি ৯৩ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি ছিল। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২ দশমিক ১৪ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি নিয়ে অর্থবছর শেষ হয়। ২০২১-২২ অর্থবছরে এই সূচকে ১৫ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত ছিল।

২০২৩-২৪ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অব পেমেন্ট) উদ্বৃত্তের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলার। আট মাসে অর্থাৎ জুলাই-ফেব্রুয়ারি সময়ে এই উদ্বৃত্ত ছিল ৪ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন ডলার। জুলাই-জানুয়ারি উদ্বৃত্ত ছিল ৩ দশমিক ০৯ বিলিয়ন ডলার। ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) ছিল ১ দশমিক ৯২ বিলিয়ন ডলার। পাঁচ মাসে অর্থাৎ জুলাই-নভেম্বর সময়ে ছিল মাত্র ৪৬ কোটি ৪০ লাখ ডলার। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচকে ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি ছিল।

আমদানি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ১৮ দশমিক ৭০ বিলিয়ন ডলারের বিশাল ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ২০২১-২২ অর্থবছর। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনোই কোনো অর্থবছরে ব্যালান্স অব পেমেন্টে এতো ঘাটতি দেখা যায়নি। আমদানি কমায় গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে এই ঘাটতি ৩৩৩ কোটি (৩.৩৩ বিলিয়ন) ডলারে নেমে এসে অর্থবছর শেষ হয়েছিল। ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যালান্স অব পেমেন্টে ঘাটতি ছিল ৪ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০২১ সালের আগস্ট থেকে আমদানি ব্যয় বাড়তে শুরু করে। পুরো অর্থবছরে সেই উল্লম্ফন দেখা যায়। শেষ পর্যন্ত ৩৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে ২০২১-২২ অর্থবছর শেষ হয়। ওই অর্থবছরে রপ্তানি আয়েও উল্লম্ফন হয়েছিল, ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। কিন্তু আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক রেমিটেন্স কমেছিল ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ। সে কারণেই ব্যালান্স অব পেমেন্টের ঘাটতি চূড়ায় উঠেছিল।

বেশ কয়েক বছর পর ২০২০-২১ অর্থবছরে লেনদেন ভারসাম্যে ঘাটতিতে পড়ে বাংলাদেশ। প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ওই বছর। তার আগে ৯ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত নিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে উদ্বৃত্ত ছিল ৩ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলার। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে ১৭ দশমিক ০৭ বিলিয়ন ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই অঙ্ক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৬ দশমিক ৪৮ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের একই সময়ে এসেছিল ১৬ দশমিক ০৩ বিলিয়ন ডলার। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২১ দশমিক ৬১ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। যা ছিল আগের বছরের চেয়ে ২ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেশি।

ইতোমধ্যে অর্থবছরের দশ মাসের অর্থাৎ জুলাই-এপ্রিল সময়ের তথ্যও প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তাতে দেখা যায়, এই দশ মাসে ১৯ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স দেশে এসেছে। যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৭ দশমিক ৮৯ শতাংশ বেশি।

জুলাই-মার্চ সময়ে সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যে (ওভারঅল ব্যালান্স) ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন ডলার। ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে এই সূচকে ঘাটতি ছিল ৮ দশমিক ৪৮ বিলিয়ন ডলার।

ছবি

কাঁচা মরিচের কেজি ২৪০ টাকা, মুরগি আগের দামেই

ছবি

খেলাপির সঠিক তথ্য প্রকাশ করছে না ব্যাংকগুলো : সিপিডি

ছবি

রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১ পেলো ডীপলেড ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড

ছবি

১ মিলিয়ন ডলার বিদেশী বিনিয়োগ পেল টেক স্টার্টআপ ‘সম্ভব’

মাস্টারকার্ডের ‘স্পেন্ড অ্যান্ড উইন ক্যাম্পেইন ২০২৪’ চালু

ছবি

রোজার সময় দেশে ডিজিটাল পেমেন্ট বৃদ্ধি পেয়েছে ২৫ শতাংশের বেশি: ভিসা

ছবি

রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার পেল ২০ প্রতিষ্ঠান

ছবি

জুনের মধ্যে ইচ্ছাকৃত খেলাপী সনাক্ত করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ

ছবি

রেমিট্যান্সে সুবাতাস, ১৭ দিনে এলো ১৩৬ কোটি ডলার

ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার না করলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

ছবি

মহেশপুরে সবার দৃষ্টি কাড়ছে রশিদের আঙুর বাগান

ছবি

পিছিয়ে গেল রূপপুরের বিদ্যুৎ উৎপাদন

ছবি

শুরু হলো ‘মিরপুর ফার্নিচার ঈদ উৎসব ২০২৪’

ছবি

২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে গ্রাহক বৃদ্ধিতে শীর্ষে বাংলালিংক, বেড়েছে আয়ও

ছবি

এয়ার অ্যাস্ট্রার বনানী সেলস অফিস উদ্বোধন করলেন মৌ

ছবি

সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ভুল তথ্য দিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

রপ্তানির নতুন বাজার খুঁজছে বরেন্দ্র অঞ্চলের আম

ছবি

আতঙ্কে আমানত তুলে নিচ্ছেন গ্রাহকরা, জানুয়ারিতে কমলো ১৩ হাজার কোটি টাকা

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বারবার নীতি পরিবর্তনে ‘ক্ষতি হচ্ছে’ বললেন ব্যবসায়ীরা

ছবি

বড় বড় খেলাপিরা সাত, আট, নয়বার ঋণ পুনঃ তফসিলের সুযোগ পাচ্ছে: ফরাসউদ্দিন

ছবি

চলতি অর্থবছরের এডিপির ৮ দশমিক ১৬ শতাংশ বেশি

ছবি

অনলাইন কোরবানি হাট চালু করল বেঙ্গল মিট

ছবি

আড়াই শতাংশ কমতে পারে করপোরেট কর

ছবি

ব্রহ্মপুত্র নদে ডুবে এক জেলের মৃত্যু

ছবি

রপ্তানির প্রণোদনা কমালো সরকার

ছবি

অর্থনীতিতে চার উদ্বেগ

ছবি

ঢাকায় সেনহাইজার ও নিউম্যান বার্লিন এর পণ্য প্রদর্শনী

ছবি

নতুন করে রিজার্ভ চুরির খবর ভুয়া : বাংলাদেশ ব্যাংক

ছবি

মামলা নয়, সমঝোতায় খেলাপি ঋণ আদায়ে ‘জোর’ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের

ছবি

ড্যাপ এবং ইমারত নির্মাণ বিধিমালায় সংশোধন চান আবাসন খাতের ব্যবসায়ীরা

সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হওয়ার চুক্তি করলো বিডিবিএল

ছবি

সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হওয়ার চুক্তি করল বিডিবিএল

ছবি

বাংলাদেশী উদ্যোক্তাদের লন্ডনে বিজনেস গ্রোথ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ

ছবি

গরম কমলে আমরা বড় আন্দোলনে নামবো : মান্না

ছবি

বেগুনের কেজি ১২০, সোনালি মুরগির দাম উঠেছে ৪২০ টাকায়

ছবি

অর্থনীতির দুই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তিন পদক্ষেপ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যে বড় ঘাটতি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যে সবচেয়ে বড় অস্বস্তি এখন আর্থিক হিসাবের ঘাটতি। চলতি অর্থবছরের নয় মাসেই এই ঘাটতি ৯ বিলিয়ন (৯০০ কোটি) ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এর আগে এক অর্থবছরেও (১২ মাস) এই সূচকে এত বড় ঘাটতির মুখে পড়েনি বাংলাদেশ।

ডলার সংকটের কারণে আমদানি ব্যয়ের লাগাম টেনে ধরতে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক নানা পদক্ষেপ নিয়েছিল। তার সুফলও মিলছে। আমদানি ব্যয় কমছেই। আর তাতে বাণিজ্য ঘাটতি বেশ খানিকটা কমেছে। তবে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) ঘাটতি বেড়েই চলেছে। আর এতে অর্থনীতিতে উদ্বেগ আরও বাড়ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক গত সোমবার বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যের হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায়, চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৭৪ কোটি ৫০ লাখ (৪.৭৪ বিলিয়ন) ডলার যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৬৭ দশমিক ৫৭ শতাংশ কম। ২০২২-২৩ অর্থবছরের এই নয় মাসে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৪৬৩ কোটি ৩০ লাখ (১৪.৬৩ বিলিয়ন) ডলার।

জুলাই-মার্চ সময়ে ৪ হাজার ৫৬২ কোটি (৪৫.৬২ বিলিয়ন) ডলারের বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি করেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তারা। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৫ দশমিক ৪২ শতাংশ কম। ২০২২-২৩ অর্থবছরের এই নয় মাসে ৫৩ দশমিক ৯৪ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি হয়েছিল। অন্যদিকে জুলাই-মার্চ সময়ে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে ৪০ দশমিক ৮৭ বিলিয়ন ডলার আয় করেছেন রপ্তানিকারকরা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৩ দশমিক ৯৯ শতাংশ বেশি।

গত বছরের এই নয় মাসে পণ্য রপ্তানি থেকে ৩৯ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলার আয় হয়েছিল। এ হিসাবেই চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতির পরিমাণ কমে ৪ দশমিক ৭৪ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। ১৭ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। তার আগের অর্থবছরে (২০২১-২২) অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে এই ঘাটতি ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলারে উঠেছিল।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) ঘাটতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ২৬ বিলিয়ন ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই সূচকে ২ কোটি ৯৩ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি ছিল। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২ দশমিক ১৪ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি নিয়ে অর্থবছর শেষ হয়। ২০২১-২২ অর্থবছরে এই সূচকে ১৫ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত ছিল।

২০২৩-২৪ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অব পেমেন্ট) উদ্বৃত্তের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলার। আট মাসে অর্থাৎ জুলাই-ফেব্রুয়ারি সময়ে এই উদ্বৃত্ত ছিল ৪ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন ডলার। জুলাই-জানুয়ারি উদ্বৃত্ত ছিল ৩ দশমিক ০৯ বিলিয়ন ডলার। ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) ছিল ১ দশমিক ৯২ বিলিয়ন ডলার। পাঁচ মাসে অর্থাৎ জুলাই-নভেম্বর সময়ে ছিল মাত্র ৪৬ কোটি ৪০ লাখ ডলার। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচকে ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি ছিল।

আমদানি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ১৮ দশমিক ৭০ বিলিয়ন ডলারের বিশাল ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ২০২১-২২ অর্থবছর। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনোই কোনো অর্থবছরে ব্যালান্স অব পেমেন্টে এতো ঘাটতি দেখা যায়নি। আমদানি কমায় গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে এই ঘাটতি ৩৩৩ কোটি (৩.৩৩ বিলিয়ন) ডলারে নেমে এসে অর্থবছর শেষ হয়েছিল। ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যালান্স অব পেমেন্টে ঘাটতি ছিল ৪ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০২১ সালের আগস্ট থেকে আমদানি ব্যয় বাড়তে শুরু করে। পুরো অর্থবছরে সেই উল্লম্ফন দেখা যায়। শেষ পর্যন্ত ৩৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে ২০২১-২২ অর্থবছর শেষ হয়। ওই অর্থবছরে রপ্তানি আয়েও উল্লম্ফন হয়েছিল, ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। কিন্তু আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক রেমিটেন্স কমেছিল ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ। সে কারণেই ব্যালান্স অব পেমেন্টের ঘাটতি চূড়ায় উঠেছিল।

বেশ কয়েক বছর পর ২০২০-২১ অর্থবছরে লেনদেন ভারসাম্যে ঘাটতিতে পড়ে বাংলাদেশ। প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ওই বছর। তার আগে ৯ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত নিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে উদ্বৃত্ত ছিল ৩ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলার। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ে ১৭ দশমিক ০৭ বিলিয়ন ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই অঙ্ক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৬ দশমিক ৪৮ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের একই সময়ে এসেছিল ১৬ দশমিক ০৩ বিলিয়ন ডলার। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২১ দশমিক ৬১ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। যা ছিল আগের বছরের চেয়ে ২ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেশি।

ইতোমধ্যে অর্থবছরের দশ মাসের অর্থাৎ জুলাই-এপ্রিল সময়ের তথ্যও প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তাতে দেখা যায়, এই দশ মাসে ১৯ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স দেশে এসেছে। যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৭ দশমিক ৮৯ শতাংশ বেশি।

জুলাই-মার্চ সময়ে সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যে (ওভারঅল ব্যালান্স) ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন ডলার। ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে এই সূচকে ঘাটতি ছিল ৮ দশমিক ৪৮ বিলিয়ন ডলার।

back to top