alt

অর্থ-বাণিজ্য

শেয়ারবাজারে বাজার মূলধন কমলো ২,৭৫০ কোটি টাকা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০২৩

গত সপ্তাহে দেশের শেয়ারবাজার পতন প্রবণতায় পার করেছে। সপ্তাহটিতে শেয়ারবাজারের সব সূচক কমেছে। সূচকের সঙ্গে টাকার পরিমাণে লেনদেনও কমেছে। আর সপ্তাহটিতে শেয়ারবাজারে দুই হাজার সাতশত কোটি টাকা বাজার মূলধন কমেছে।

আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন ছিল ৭ লাখ ৭৫ হাজার ২৪২ কোটি ৫১ লাখ ৫২ হাজার ২২৪ টাকা। আর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বাজার মূলধন দাঁড়ায় ৭ লাখ ৭২ হাজার ৪৯১ কোটি ৫৫ লাখ ৭৪ হাজার ২৫৫ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে বাজার মূলধন দুই হাজার ৭৫০ কোটি ৯৫ লাখ ৭৭ হাজার ৯৬০ টাকা কমেছে।

সপ্তাহটিতে ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনেদেন হয়েছে দুই হাজার ২ কোটি ১০ লাখ টাকার। আগের সপ্তাহের ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ১৭৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন ১৭৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা কমেছে।

সপ্তাহটিতে ডিএসইর প্রধান সূচক ২৩.৪৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ছয় হাজার ২৩৩.৭১ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৬.৭৪ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১২.২২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৩৫২.৫৪ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ১০৬.৭২ পয়েন্টে।

সপ্তাহটিতে ডিএসইতে ৩৭৮টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৩টির বা ১১.৩৮ শতাংশের, দর কমেছে ১২০টির বা ৩১.৭৫ শতাংশের এবং ২১৫টির বা ৫৬.৮৮ শতাংশের শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অন্য শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ৪৬.১৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৪৯৫.৭৯ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে সিএসসিএক্স ২৮.৭০ পয়েন্টে, সিএসই-৩০ সূচক ৬০.০৩ পয়েন্ট, সিএসই-৫০ সূচক ২.৯৩ পয়েন্ট এবং সিএসআই ৪.২০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১১ হাজার ৬১.১৪ পয়েন্টে, ১৩ হাজার ২৮২.০৩ পয়েন্টে, এক হাজার ৩০৩.২৭ পয়েন্টে এবং এক হাজার ১৬৯.০৩ পয়েন্টে।

সপ্তাহটিতে সিএসইতে ৩৮ কোটি ৬৮ লাখ ৯৮ হাজার ২১২ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের সপ্তাহ থেকে ৬ কোটি ২১ লাখ ৫৭ হাজার ৭০১ টাকা কম। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৪৪ কোটি ৯০ লাখ ৫৫ হাজার ৯১৩ টাকা। সপ্তাহটিতে সিএসইতে ২৫৪টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৩টির বা ১৬.৯৩ শতাংশের, দর কমেছে ৭৯টির বা ৩১.১০ শতাংশের এবং শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৩২টির বা ৫১.৯৭ শতাংশ কোম্পানির।

গত সপ্তাহে ডিএসইর সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহের শুরুতে ডিএসইর পিই রেশিও ছিল ১৪.৪৬ পয়েন্টে। আর সপ্তাহ শেষে তা ১৪.৪০ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে পিই রেশিও ০.০৬ পয়েন্ট বা ০.৪১ শতাংশ কমেছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ৪৩টির বা ১১.৩৭ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। সপ্তাহটিতে ফু-ওয়াং সিরামিকের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন ফু-ওয়াং সিরামিকের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৭.৪০ টাকায়। আর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে এর শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়িয়েছে ২২.২০ টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ার দর ৪.৮০ টাকা বা ২৭.৫৯ শতাংশ বেড়েছে। এর মাধ্যমে ফু-ওয়াং সিরামিক ডিএসইর সাপ্তাহিক টপটেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠেছে।

ডিএসইতে সাপ্তাহিক টপটেন গেইনার তালিকায় উঠে আসা কোম্পানিগুলোর মধ্যে- খুলনা প্রিন্টিংয়ের ২৪.৬৩ শতাংশ, ইভিন্স টেক্সটাইলের ১৮.৮৭ শতাংশ, ইয়াকিন পলিমারের ১৭.৯২ শতাংশ, প্যাসিফিক ডেনিমসের ১৬.৫৪ শতাংশ, জিকিউ বলপেনের ১৪.৯৯ শতাংশ, ঢাকা ডাইংয়ের ১৪.৮৬ শতাংশ, আজিজ পাইপসের ১৪.৩১ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মার ১১.৮৪ শতাংশ এবং ওয়াইম্যাক্সের শেয়ার দর ১০.১৪ শতাংশ বেড়েছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্য ১২০টির বা ৩১.৭৫ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। সপ্তাহটিতে এমারেল্ড অয়েলের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে এমারেল্ড অয়েলের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১১৪.২০ টাকায়। আর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে এর শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়ায় ৯৭.৫০ টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ার দর ১৬.৭০ টাকা বা ১৪.৬২ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে এমারেল্ড অয়েল ডিএসইর সাপ্তাহিক টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে।

ডিএসইতে সাপ্তাহিক টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে- ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সের ১২.৭০ শতাংশ, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্সের ১০.৩৪ শতাংশ, ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের ৯.৪৯ শতাংশ, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের ৮.৪৯ শতাংশ, দেশবন্ধু পলিমারের ৮.৩৫ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের ৮.২৭ শতাংশ, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সের ৭.৮৫ শতাংশ, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের ৭.৬৩ শতাংশ এবং এসকে ট্রিমসের শেয়ার দর ৭.৬২ শতাংশ কমেছে।

ছবি

২৪ দিনে দেশে রেমিট্যান্স এলো ১৮ হাজার কোটি টাকা

ছবি

মেঘনা পিইটি ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক হলেন ড. মাশরিক

ছবি

আমদানি নির্ভরতা, সিন্ডিকেটের কারণে জিনিসপত্রের দাম বাড়লেও করের বোঝাটাই সবার কাছে মাথা ব্যথার কারণ

ছবি

রমজানে দ্রব্যমূল্য বাড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সালমান এফ রহমান

ছবি

চড়া দামে আটকা বেশিরভাগ নিত্যপণ্য

ছবি

ভারত: চাল রপ্তানিতে শুল্ক আরোপের মেয়াদ বাড়াল ৩১ মার্চ

ছবি

উৎপাদন খরচ বাড়লেও বাড়েনি বইয়ের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমবে ১০ টাকা

ছবি

অর্থপাচারের ৮০ শতাংশই ব্যাংকিং চ্যানেলে : বিএফআইইউ

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

জিআই পণ্যের তালিকা করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

দেশ-বিদেশে পর্যটক আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে : পর্যটনমন্ত্রী

ছবি

কৃষি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ কমানো, লাভে নেয়াই লক্ষ্য : শওকত আলী খান

ছবি

অস্তিত্বের জন্য বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি সীমাবদ্ধ রাখতে হবে: সাবের হোসেন চৌধুরী

ছবি

ড. ইউনূসের ‘জবরদখলে’র অভিযোগ নিয়ে যা বলল গ্রামীণ ব্যাংক

ছবি

খেজুরের গুড়, মিষ্টি পান ও নকশিকাঁথা পেল জিআই স্বীকৃতি

ছবি

কর নেট বাড়ানোর জন্য ধীরে ধীরে কাজ করছি : এনবিআর চেয়ারম্যান

ছবি

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

ছবি

পার্বত্য চট্রগ্রাম মেলায় বেচাকেনা কম, হতাশ উদ্যোক্তারা

টাকা-ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০ টাকা

ছবি

রমজানে রাজধানীতে ২৫টি স্থানে কম দামে মাংস ও ডিম বিক্রির উদ্যোগ

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টাকা–ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

তালিকাভূক্ত ব্যাংকের মধ্যে সর্বোচ্চ ক্যাশ ফ্লো রূপালী ব্যাংকের

ছবি

পুঁজিবাজারে ২২টি ব্যাংকের ক্যাশ ফ্লো বেড়েছে

ছবি

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিশেষ নীরিক্ষায় চমকপ্রদ তথ্য বের হচ্ছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ছবি

সূচকের উত্থানে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে ফেসবুক পোস্ট সরিয়েছে ভারত: নানক

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ: ঢাকা চেম্বার সভাপতি

ছবি

ছয় মাসে ৪৫৯ কোটি ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি

ছবি

খেজুরের আমদানি শুল্ক আরো কমানোর দাবি ব্যবসায়ীদের

ছবি

পাট খাতের বৈশ্বিক রপ্তানি আয়ের ৭২ শতাংশ এখন বাংলাদেশের দখলে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

তিন মাসে খেলাপি ঋণ কমেছে, তবে ২০২২ সালের হিসেবে এখনও বেশি

ছবি

ভাষা শহীদদের স্মরণে বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণার নির্দেশ পলকের

বাংলাদেশ দেউলিয়া হয়ে যায়নি ,সঠিক পথে ফিরেছে: অর্থমন্ত্রী

tab

অর্থ-বাণিজ্য

শেয়ারবাজারে বাজার মূলধন কমলো ২,৭৫০ কোটি টাকা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০২৩

গত সপ্তাহে দেশের শেয়ারবাজার পতন প্রবণতায় পার করেছে। সপ্তাহটিতে শেয়ারবাজারের সব সূচক কমেছে। সূচকের সঙ্গে টাকার পরিমাণে লেনদেনও কমেছে। আর সপ্তাহটিতে শেয়ারবাজারে দুই হাজার সাতশত কোটি টাকা বাজার মূলধন কমেছে।

আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন ছিল ৭ লাখ ৭৫ হাজার ২৪২ কোটি ৫১ লাখ ৫২ হাজার ২২৪ টাকা। আর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বাজার মূলধন দাঁড়ায় ৭ লাখ ৭২ হাজার ৪৯১ কোটি ৫৫ লাখ ৭৪ হাজার ২৫৫ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে বাজার মূলধন দুই হাজার ৭৫০ কোটি ৯৫ লাখ ৭৭ হাজার ৯৬০ টাকা কমেছে।

সপ্তাহটিতে ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনেদেন হয়েছে দুই হাজার ২ কোটি ১০ লাখ টাকার। আগের সপ্তাহের ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ১৭৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন ১৭৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা কমেছে।

সপ্তাহটিতে ডিএসইর প্রধান সূচক ২৩.৪৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ছয় হাজার ২৩৩.৭১ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৬.৭৪ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১২.২২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৩৫২.৫৪ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ১০৬.৭২ পয়েন্টে।

সপ্তাহটিতে ডিএসইতে ৩৭৮টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৩টির বা ১১.৩৮ শতাংশের, দর কমেছে ১২০টির বা ৩১.৭৫ শতাংশের এবং ২১৫টির বা ৫৬.৮৮ শতাংশের শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অন্য শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ৪৬.১৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৪৯৫.৭৯ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে সিএসসিএক্স ২৮.৭০ পয়েন্টে, সিএসই-৩০ সূচক ৬০.০৩ পয়েন্ট, সিএসই-৫০ সূচক ২.৯৩ পয়েন্ট এবং সিএসআই ৪.২০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১১ হাজার ৬১.১৪ পয়েন্টে, ১৩ হাজার ২৮২.০৩ পয়েন্টে, এক হাজার ৩০৩.২৭ পয়েন্টে এবং এক হাজার ১৬৯.০৩ পয়েন্টে।

সপ্তাহটিতে সিএসইতে ৩৮ কোটি ৬৮ লাখ ৯৮ হাজার ২১২ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের সপ্তাহ থেকে ৬ কোটি ২১ লাখ ৫৭ হাজার ৭০১ টাকা কম। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৪৪ কোটি ৯০ লাখ ৫৫ হাজার ৯১৩ টাকা। সপ্তাহটিতে সিএসইতে ২৫৪টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৩টির বা ১৬.৯৩ শতাংশের, দর কমেছে ৭৯টির বা ৩১.১০ শতাংশের এবং শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৩২টির বা ৫১.৯৭ শতাংশ কোম্পানির।

গত সপ্তাহে ডিএসইর সার্বিক মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহের শুরুতে ডিএসইর পিই রেশিও ছিল ১৪.৪৬ পয়েন্টে। আর সপ্তাহ শেষে তা ১৪.৪০ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে পিই রেশিও ০.০৬ পয়েন্ট বা ০.৪১ শতাংশ কমেছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ৪৩টির বা ১১.৩৭ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। সপ্তাহটিতে ফু-ওয়াং সিরামিকের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন ফু-ওয়াং সিরামিকের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৭.৪০ টাকায়। আর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে এর শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়িয়েছে ২২.২০ টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ার দর ৪.৮০ টাকা বা ২৭.৫৯ শতাংশ বেড়েছে। এর মাধ্যমে ফু-ওয়াং সিরামিক ডিএসইর সাপ্তাহিক টপটেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠেছে।

ডিএসইতে সাপ্তাহিক টপটেন গেইনার তালিকায় উঠে আসা কোম্পানিগুলোর মধ্যে- খুলনা প্রিন্টিংয়ের ২৪.৬৩ শতাংশ, ইভিন্স টেক্সটাইলের ১৮.৮৭ শতাংশ, ইয়াকিন পলিমারের ১৭.৯২ শতাংশ, প্যাসিফিক ডেনিমসের ১৬.৫৪ শতাংশ, জিকিউ বলপেনের ১৪.৯৯ শতাংশ, ঢাকা ডাইংয়ের ১৪.৮৬ শতাংশ, আজিজ পাইপসের ১৪.৩১ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মার ১১.৮৪ শতাংশ এবং ওয়াইম্যাক্সের শেয়ার দর ১০.১৪ শতাংশ বেড়েছে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্য ১২০টির বা ৩১.৭৫ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। সপ্তাহটিতে এমারেল্ড অয়েলের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে এমারেল্ড অয়েলের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১১৪.২০ টাকায়। আর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে এর শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়ায় ৯৭.৫০ টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ার দর ১৬.৭০ টাকা বা ১৪.৬২ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে এমারেল্ড অয়েল ডিএসইর সাপ্তাহিক টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে।

ডিএসইতে সাপ্তাহিক টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে- ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সের ১২.৭০ শতাংশ, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্সের ১০.৩৪ শতাংশ, ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের ৯.৪৯ শতাংশ, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের ৮.৪৯ শতাংশ, দেশবন্ধু পলিমারের ৮.৩৫ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের ৮.২৭ শতাংশ, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সের ৭.৮৫ শতাংশ, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের ৭.৬৩ শতাংশ এবং এসকে ট্রিমসের শেয়ার দর ৭.৬২ শতাংশ কমেছে।

back to top