alt

অর্থ-বাণিজ্য

এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়েছে আইএমএফ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ২৬ নভেম্বর ২০২৩

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) শর্ত পূরণ করতে গিয়ে শুল্ক-কর আদায়ের চাপ বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের বাজেটে এনবিআরকে ৪ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকার শুল্ক-কর আদায়ের লক্ষ্য দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে আইএমএফই সেই লক্ষ্য কমিয়ে দিয়েছে।

আইএমএফের দেয়া লক্ষ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে চার লাখ কোটি টাকার বেশি শুল্ক-কর আদায় করতে হবে। কিন্তু বছরের প্রথম চার মাসেই লক্ষ্য অর্জনের পথে বেশ পিছিয়ে পড়েছে এনবিআর। জাতীয় নির্বাচনের আগে অর্থনীতিতে নানা অনিশ্চয়তায় পড়েছে। হরতাল-অবরোধে ব্যবসা-বাণিজ্যেও ভাটা চলছে। ফলে আইএমএফের দেয়া লক্ষ্য অর্জন ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে।

এনবিআর সূত্র জানায়, আইএমএফ দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের আগে গত মাসে এ দেশের অর্থনীতির সর্বশেষ পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে। তখন একাধিক দফায় এনবিআর কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে সফররত আইএমএফ প্রতিনিধিদল।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আইএমএফ চায়, চলতি অর্থবছরে অন্তত ৪ লাখ ১ হাজার কোটি টাকা আদায় করুক এনবিআর। অর্থাৎ রাজস্ব আদায়ে এনবিআরের লক্ষ্য কমলো ২৯ হাজার কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, গত অর্থবছরেও এনবিআরের জন্য প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য দিয়েছিল আইএমএফ। কিন্তু বছর শেষে আইএমএফের দেয়া সেই লক্ষ্যও অর্জন করতে পারেনি এনবিআর। সব মিলিয়ে রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি ছিল ৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

চলতি বছরের শুরুতে আইএমএফ বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে। এ ঋণ পাওয়ার অন্যতম শর্ত ছিল, প্রতি বছর রাজস্ব আদায়ের স্বাভাবিক প্রবণতার চেয়ে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) দশমিক ৫ শতাংশ বেশি রাজস্ব আদায় করতে হবে।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘এটা নির্বাচনের বছর। নির্বাচনের বছরে ডলারেরও সংকট চলছে। আমদানি কমে গেছে, কমে গেছে ব্যবসার গতি। ফলে এমন পরিস্থিতিতে লক্ষ্যমাত্রা অনুসারে রাজস্ব আয় আদায় করা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। সেই সঙ্গে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হলে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ক্ষতিগ্রস্ত হতেই পারে।’

এনবিআরের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, রাজনৈতিক এসব কর্মসূচির কারণে অতীতের মতো এবারও রাজস্ব আদায় কমেছে। চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারছে না এনবিআর। বছরের শুরু থেকে নির্ধারিত লক্ষ্য থেকে পিছিয়ে পড়ছে রাজস্ব আদায়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত এই সংস্থা।

চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) শুল্ক, করসহ সব মিলিয়ে ১৩ হাজার ৮৪৯ কোটি টাকার রাজস্ব কম আদায় হয়েছে। এ সময় সব মিলিয়ে রাজস্ব আদায় হয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা। তবে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ছিল ১ লাখ ১৬ হাজার ২৯৪ কোটি টাকা। এটি এনবিআরের সাময়িক হিসাব।

কর্মকর্তারা মনে করছেন, শুল্ক-কর আদায়ের এ ধারা বজায় থাকলে বছর শেষে তিন লাখ কোটি টাকার কিছু বেশি পরিমাণ শুল্ক-কর আদায় হতে পারে। তাহলে বছর শেষে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় এক লাখ কোটি টাকা। বছরের শেষ দিকে সাধারণত রাজস্ব আদায়ে গতি বাড়ে। তবে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নভেম্বর, ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসে হরতাল-অবরোধের মতো রাজনৈতিক কর্মসূচি অব্যাহত থাকলে রাজস্ব আদায় আরও পিছিয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, আমদানি, ভ্যাট ও আয়কর এই তিন খাতের মধ্যে কোনোটির ক্ষেত্রেই চার মাসের লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হয়নি। সবচেয়ে বেশি ঘাটতি মূল্য সংযোজন কর বা মূসক বা ভ্যাট খাতে। এ খাতে চার মাসে ঘাটতি ছিল ৪ হাজার ৯৩১ কোটি টাকা। এ সময়ে ৪৩ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ভ্যাট আদায়ের লক্ষ্য ছিল। কিন্তু আদায় হয়েছে ৩৮ হাজার ৪৩৩ কোটি টাকা।

অন্যদিকে চার মাসে আমদানি খাতে ৩৬ হাজার ৮৬৮ কোটি টাকার লক্ষ্যের বিপরীতে ৩২ হাজার ৭৫৩ কোটি টাকা আদায় হয়েছে। এ খাতে ঘাটতি ৪ হাজার ১১৫ কোটি টাকা। আয়কর খাতে ঘাটতি ৪ হাজার ৮০২ কোটি টাকা। এ সময়ে আয়কর আদায় হয়েছে ৩১ হাজার ২৫৯ কোটি টাকার। এ খাতে লক্ষ্য ছিল ৩৬ হাজার ৬২ কোটি টাকা।

ছবি

ভারত: চাল রপ্তানিতে শুল্ক আরোপের মেয়াদ বাড়াল ৩১ মার্চ

ছবি

উৎপাদন খরচ বাড়লেও বাড়েনি বইয়ের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমবে ১০ টাকা

ছবি

অর্থপাচারের ৮০ শতাংশই ব্যাংকিং চ্যানেলে : বিএফআইইউ

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

জিআই পণ্যের তালিকা করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

দেশ-বিদেশে পর্যটক আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে : পর্যটনমন্ত্রী

ছবি

কৃষি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ কমানো, লাভে নেয়াই লক্ষ্য : শওকত আলী খান

ছবি

অস্তিত্বের জন্য বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি সীমাবদ্ধ রাখতে হবে: সাবের হোসেন চৌধুরী

ছবি

ড. ইউনূসের ‘জবরদখলে’র অভিযোগ নিয়ে যা বলল গ্রামীণ ব্যাংক

ছবি

খেজুরের গুড়, মিষ্টি পান ও নকশিকাঁথা পেল জিআই স্বীকৃতি

ছবি

কর নেট বাড়ানোর জন্য ধীরে ধীরে কাজ করছি : এনবিআর চেয়ারম্যান

ছবি

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

ছবি

পার্বত্য চট্রগ্রাম মেলায় বেচাকেনা কম, হতাশ উদ্যোক্তারা

টাকা-ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০ টাকা

ছবি

রমজানে রাজধানীতে ২৫টি স্থানে কম দামে মাংস ও ডিম বিক্রির উদ্যোগ

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টাকা–ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

তালিকাভূক্ত ব্যাংকের মধ্যে সর্বোচ্চ ক্যাশ ফ্লো রূপালী ব্যাংকের

ছবি

পুঁজিবাজারে ২২টি ব্যাংকের ক্যাশ ফ্লো বেড়েছে

ছবি

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিশেষ নীরিক্ষায় চমকপ্রদ তথ্য বের হচ্ছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ছবি

সূচকের উত্থানে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে ফেসবুক পোস্ট সরিয়েছে ভারত: নানক

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ: ঢাকা চেম্বার সভাপতি

ছবি

ছয় মাসে ৪৫৯ কোটি ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি

ছবি

খেজুরের আমদানি শুল্ক আরো কমানোর দাবি ব্যবসায়ীদের

ছবি

পাট খাতের বৈশ্বিক রপ্তানি আয়ের ৭২ শতাংশ এখন বাংলাদেশের দখলে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

তিন মাসে খেলাপি ঋণ কমেছে, তবে ২০২২ সালের হিসেবে এখনও বেশি

ছবি

ভাষা শহীদদের স্মরণে বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণার নির্দেশ পলকের

বাংলাদেশ দেউলিয়া হয়ে যায়নি ,সঠিক পথে ফিরেছে: অর্থমন্ত্রী

প্রায় বন্ধ নাফনদী পাড়ের বাণিজ্য, রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার

ছবি

প্রতারণামূলক তথ্য দিয়ে টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব নিয়েছে ভারত, এবার চায় ঢাকাই মসলিন

ছবি

নারায়ণগঞ্জ বকেয়া বেতন না দিয়ে কারখানা বন্ধ শ্রমিকদের বিক্ষোভ

ছবি

নারায়ণগঞ্জে বকেয়া বেতন দাবিতে শ্রমিক বিক্ষোভ

চাল তেল-চিনি ও খেজুরের শুল্ক কমানো হচ্ছে

tab

অর্থ-বাণিজ্য

এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়েছে আইএমএফ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

রোববার, ২৬ নভেম্বর ২০২৩

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) শর্ত পূরণ করতে গিয়ে শুল্ক-কর আদায়ের চাপ বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের বাজেটে এনবিআরকে ৪ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকার শুল্ক-কর আদায়ের লক্ষ্য দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে আইএমএফই সেই লক্ষ্য কমিয়ে দিয়েছে।

আইএমএফের দেয়া লক্ষ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে চার লাখ কোটি টাকার বেশি শুল্ক-কর আদায় করতে হবে। কিন্তু বছরের প্রথম চার মাসেই লক্ষ্য অর্জনের পথে বেশ পিছিয়ে পড়েছে এনবিআর। জাতীয় নির্বাচনের আগে অর্থনীতিতে নানা অনিশ্চয়তায় পড়েছে। হরতাল-অবরোধে ব্যবসা-বাণিজ্যেও ভাটা চলছে। ফলে আইএমএফের দেয়া লক্ষ্য অর্জন ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে।

এনবিআর সূত্র জানায়, আইএমএফ দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের আগে গত মাসে এ দেশের অর্থনীতির সর্বশেষ পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে। তখন একাধিক দফায় এনবিআর কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে সফররত আইএমএফ প্রতিনিধিদল।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আইএমএফ চায়, চলতি অর্থবছরে অন্তত ৪ লাখ ১ হাজার কোটি টাকা আদায় করুক এনবিআর। অর্থাৎ রাজস্ব আদায়ে এনবিআরের লক্ষ্য কমলো ২৯ হাজার কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, গত অর্থবছরেও এনবিআরের জন্য প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য দিয়েছিল আইএমএফ। কিন্তু বছর শেষে আইএমএফের দেয়া সেই লক্ষ্যও অর্জন করতে পারেনি এনবিআর। সব মিলিয়ে রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি ছিল ৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

চলতি বছরের শুরুতে আইএমএফ বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে। এ ঋণ পাওয়ার অন্যতম শর্ত ছিল, প্রতি বছর রাজস্ব আদায়ের স্বাভাবিক প্রবণতার চেয়ে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) দশমিক ৫ শতাংশ বেশি রাজস্ব আদায় করতে হবে।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘এটা নির্বাচনের বছর। নির্বাচনের বছরে ডলারেরও সংকট চলছে। আমদানি কমে গেছে, কমে গেছে ব্যবসার গতি। ফলে এমন পরিস্থিতিতে লক্ষ্যমাত্রা অনুসারে রাজস্ব আয় আদায় করা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। সেই সঙ্গে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হলে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ক্ষতিগ্রস্ত হতেই পারে।’

এনবিআরের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, রাজনৈতিক এসব কর্মসূচির কারণে অতীতের মতো এবারও রাজস্ব আদায় কমেছে। চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারছে না এনবিআর। বছরের শুরু থেকে নির্ধারিত লক্ষ্য থেকে পিছিয়ে পড়ছে রাজস্ব আদায়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত এই সংস্থা।

চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) শুল্ক, করসহ সব মিলিয়ে ১৩ হাজার ৮৪৯ কোটি টাকার রাজস্ব কম আদায় হয়েছে। এ সময় সব মিলিয়ে রাজস্ব আদায় হয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা। তবে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ছিল ১ লাখ ১৬ হাজার ২৯৪ কোটি টাকা। এটি এনবিআরের সাময়িক হিসাব।

কর্মকর্তারা মনে করছেন, শুল্ক-কর আদায়ের এ ধারা বজায় থাকলে বছর শেষে তিন লাখ কোটি টাকার কিছু বেশি পরিমাণ শুল্ক-কর আদায় হতে পারে। তাহলে বছর শেষে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় এক লাখ কোটি টাকা। বছরের শেষ দিকে সাধারণত রাজস্ব আদায়ে গতি বাড়ে। তবে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নভেম্বর, ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসে হরতাল-অবরোধের মতো রাজনৈতিক কর্মসূচি অব্যাহত থাকলে রাজস্ব আদায় আরও পিছিয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, আমদানি, ভ্যাট ও আয়কর এই তিন খাতের মধ্যে কোনোটির ক্ষেত্রেই চার মাসের লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হয়নি। সবচেয়ে বেশি ঘাটতি মূল্য সংযোজন কর বা মূসক বা ভ্যাট খাতে। এ খাতে চার মাসে ঘাটতি ছিল ৪ হাজার ৯৩১ কোটি টাকা। এ সময়ে ৪৩ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ভ্যাট আদায়ের লক্ষ্য ছিল। কিন্তু আদায় হয়েছে ৩৮ হাজার ৪৩৩ কোটি টাকা।

অন্যদিকে চার মাসে আমদানি খাতে ৩৬ হাজার ৮৬৮ কোটি টাকার লক্ষ্যের বিপরীতে ৩২ হাজার ৭৫৩ কোটি টাকা আদায় হয়েছে। এ খাতে ঘাটতি ৪ হাজার ১১৫ কোটি টাকা। আয়কর খাতে ঘাটতি ৪ হাজার ৮০২ কোটি টাকা। এ সময়ে আয়কর আদায় হয়েছে ৩১ হাজার ২৫৯ কোটি টাকার। এ খাতে লক্ষ্য ছিল ৩৬ হাজার ৬২ কোটি টাকা।

back to top