alt

অর্থ-বাণিজ্য

একের পর এক বাতিল হচ্ছে বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

বিধিবিধান না মানায় গত ১৫ মাসে বিভিন্ন খাতের ১৯টি বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন বাতিল হয়েছে। একের পর এক বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন এভাবে বাতিল হয়ে যাচ্ছে। মাসে বাতিল হচ্ছে অন্তত একটি সংগঠনের নিবন্ধন। কোনো কোনো মাসে বেশিও বাতিল হচ্ছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সময়ে যেসব সংগঠনকে বাণিজ্য সংগঠন (টিও) হিসেবে নিবন্ধন দিয়েছিল। কোনো কার্যক্রম না থাকায় এবং নিয়মকানুন না মানায় সেগুলোকে সুপ্ত বাণিজ্য সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হচ্ছে।

বাণিজ্য সংগঠন অধ্যাদেশ-১৯৬১ অনুযায়ী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পরিচালক বাণিজ্য সংগঠন (ডিটিও) দেশের চেম্বার, অ্যাসোসিয়েশন ও মালিক সমিতিগুলোকে লাইসেন্স বা নিবন্ধন দেয়। তবে বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনসহ (এফবিসিসিআই) সব ধরনের অ্যাসোসিয়েশন ও চেম্বারকে কার্যক্রম পরিচালনা করতে টিও নিবন্ধন নিতে হয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকেই। গত বছর ওই অধ্যাদেশ বাতিল করে সরকার নতুন বাণিজ্য সংগঠন আইন প্রণয়ন করে।

মোটা দাগে তিন ধরনের বাণিজ্য সংগঠন রয়েছে। এগুলো হচ্ছে, বিদ্যমান ১৯৯৪ সালের কোম্পানি আইন অনুযায়ী সীমিত দায়ের কোম্পানি হিসেবে গঠিত প্রতিষ্ঠান, লাইসেন্স নিয়ে ও কোম্পানি আইনে নিবন্ধিত হয়ে বিভিন্ন ব্যবসা, শিল্প, বাণিজ্য ও সেবা খাতের প্রতিনিধিত্বকারী অরাজনৈতিক ও অলাভজনক সংগঠন এবং আয় বা মুনাফা কোনো সদস্য বা পরিচালনা পর্ষদের কেউ ভাগ করে নিতে পারবেন না এমন প্রতিষ্ঠান।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে এ ধরনের সংগঠন রয়েছে ৮৭৭টি। এর মধ্যে শীর্ষ ব্যবসায়ী সংগঠন এফবিসিসিআই, ৪৪১টি অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ চেম্বার, ৭টি মেট্রো চেম্বার, ৬৪টি জেলা চেম্বার ও দুটি উপজেলা চেম্বার রয়েছে। আছে ১৯টি উইমেন চেম্বার, ৩৫টি জয়েন্ট চেম্বার, বিভিন্ন খাতের ১৫৩টি গ্রুপ বা সমিতি। এছাড়া কোম্পানি আইনের ২৮ ধারা অনুযায়ী রয়েছে ১৫৪টি সংগঠন।

লাইসেন্স নেয়ার ছয় মাসের মধ্যে কার্যালয় স্থাপন না করলে, পরপর দুই বছর বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) না হলে এবং পরপর দুই বছর নিরীক্ষা প্রতিবেদন ও রিটার্ন দাখিল না করলে সংগঠনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার কথা বলা আছে আইনে। নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হলে বাণিজ্য সংগঠন মহাপরিচালক ওই সংগঠনকে সুপ্ত বলে ঘোষণা করবেন এবং সংশোধনের সুযোগ দেবেন। তাতেও কোনো অগ্রগতি না হলে ওই সংগঠনের লাইসেন্স বাতিল করতে সরকারের কাছে সুপারিশ করবেন মহাপরিচালক।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সূত্রগুলো জানায়, যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এবং যথেষ্ট সময় দিয়েও কোনো কাজ না হওয়ায় কিছু কিছু সংগঠনের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। বাতিলের পর কেউ কেউ আবার ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে গেছেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এক বছরে যেসব বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন বাতিল করেছে, সেগুলো হচ্ছেÑ বাংলাদেশ টোব্যাকো প্রোডাক্টস পরিবেশক সমিতি, বাংলাদেশ উইভার্স প্রোডাক্টস অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মোটরসাইকেল ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফটোগ্রাফিক অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ সাইজিং মিলস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফিল্ম ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ কনজুমার প্রোডাক্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড মার্কেটার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ইনডিপেনডেন্ট পাওয়ার প্রডিউসারস অ্যাসোসিয়েশন, প্রাইভেট রেডিও ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ জুট এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফোম ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ রেডিমিক্স কংক্রিট অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ পণ্য পরিবহন এজেন্সি মালিক সমিতি, বাংলাদেশ পুরোনো কাপড় আমদানিকারক সমিতি, বাংলাদেশ ম্যাচ ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ সিগারেট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ রডেনটিসাইড, পেস্টিসাইড অ্যান্ড ইনসেক্টিসাইড অ্যাসোসিয়েশন।

বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেন, ‘ঠিকঠাকভাবে পরিচালিত না হলে আরও বাণিজ্য সংগঠনের লাইসেন্স বাতিল হতে পারে।’

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একজন শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা উদাহরণ হিসেবে সিগারেট প্রস্তুতকারী কোম্পানিগুলোর সংগঠন বাংলাদেশ সিগারেট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের লাইসেন্স বাতিলের কারণগুলো তুলে ধরেন। তিনি জানান, ২০০১ সালের ২৪ এপ্রিল অ্যাসোসিয়েশনটি টিও লাইসেন্স পেলেও ২০ বছর ধরে কাগজপত্র জমা দেয়নি। সংগঠনটি ২০০১-০২ সালের বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) কার্যবিবরণী ও নিরীক্ষা প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে দাখিল করেছিল। এরপর আর কিছুই দাখিল করেনি।

এ সংগঠন নির্বাচন করার কাগজপত্রও সর্বশেষ দাখিল করেছিল ২০০৩-০৫ সময়ে। এরপর থেকে এ অ্যাসোসিয়েশন আর কোনো হালনাগাদ কাগজপত্র দাখিল করেনি। এছাড়া সংগঠনটির ঠিকানায় কোনো অফিস নেই, চিঠি পাঠালেও তা ফেরত আসে।

সব ধাপ অনুসরণ করে গত বছরের ২৮ আগস্ট সংগঠনটির টিও লাইসেন্স বাতিল করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সংগঠনগুলোর লাইসেন্স বাতিল হওয়ার কারণ প্রায় একই।

ছবি

ভারত: চাল রপ্তানিতে শুল্ক আরোপের মেয়াদ বাড়াল ৩১ মার্চ

ছবি

উৎপাদন খরচ বাড়লেও বাড়েনি বইয়ের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমবে ১০ টাকা

ছবি

অর্থপাচারের ৮০ শতাংশই ব্যাংকিং চ্যানেলে : বিএফআইইউ

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

জিআই পণ্যের তালিকা করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

দেশ-বিদেশে পর্যটক আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে : পর্যটনমন্ত্রী

ছবি

কৃষি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ কমানো, লাভে নেয়াই লক্ষ্য : শওকত আলী খান

ছবি

অস্তিত্বের জন্য বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি সীমাবদ্ধ রাখতে হবে: সাবের হোসেন চৌধুরী

ছবি

ড. ইউনূসের ‘জবরদখলে’র অভিযোগ নিয়ে যা বলল গ্রামীণ ব্যাংক

ছবি

খেজুরের গুড়, মিষ্টি পান ও নকশিকাঁথা পেল জিআই স্বীকৃতি

ছবি

কর নেট বাড়ানোর জন্য ধীরে ধীরে কাজ করছি : এনবিআর চেয়ারম্যান

ছবি

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

ছবি

পার্বত্য চট্রগ্রাম মেলায় বেচাকেনা কম, হতাশ উদ্যোক্তারা

টাকা-ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০ টাকা

ছবি

রমজানে রাজধানীতে ২৫টি স্থানে কম দামে মাংস ও ডিম বিক্রির উদ্যোগ

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টাকা–ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

তালিকাভূক্ত ব্যাংকের মধ্যে সর্বোচ্চ ক্যাশ ফ্লো রূপালী ব্যাংকের

ছবি

পুঁজিবাজারে ২২টি ব্যাংকের ক্যাশ ফ্লো বেড়েছে

ছবি

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিশেষ নীরিক্ষায় চমকপ্রদ তথ্য বের হচ্ছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ছবি

সূচকের উত্থানে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে ফেসবুক পোস্ট সরিয়েছে ভারত: নানক

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ: ঢাকা চেম্বার সভাপতি

ছবি

ছয় মাসে ৪৫৯ কোটি ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি

ছবি

খেজুরের আমদানি শুল্ক আরো কমানোর দাবি ব্যবসায়ীদের

ছবি

পাট খাতের বৈশ্বিক রপ্তানি আয়ের ৭২ শতাংশ এখন বাংলাদেশের দখলে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

তিন মাসে খেলাপি ঋণ কমেছে, তবে ২০২২ সালের হিসেবে এখনও বেশি

ছবি

ভাষা শহীদদের স্মরণে বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণার নির্দেশ পলকের

বাংলাদেশ দেউলিয়া হয়ে যায়নি ,সঠিক পথে ফিরেছে: অর্থমন্ত্রী

প্রায় বন্ধ নাফনদী পাড়ের বাণিজ্য, রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার

ছবি

প্রতারণামূলক তথ্য দিয়ে টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব নিয়েছে ভারত, এবার চায় ঢাকাই মসলিন

ছবি

নারায়ণগঞ্জ বকেয়া বেতন না দিয়ে কারখানা বন্ধ শ্রমিকদের বিক্ষোভ

ছবি

নারায়ণগঞ্জে বকেয়া বেতন দাবিতে শ্রমিক বিক্ষোভ

চাল তেল-চিনি ও খেজুরের শুল্ক কমানো হচ্ছে

tab

অর্থ-বাণিজ্য

একের পর এক বাতিল হচ্ছে বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

বিধিবিধান না মানায় গত ১৫ মাসে বিভিন্ন খাতের ১৯টি বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন বাতিল হয়েছে। একের পর এক বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন এভাবে বাতিল হয়ে যাচ্ছে। মাসে বাতিল হচ্ছে অন্তত একটি সংগঠনের নিবন্ধন। কোনো কোনো মাসে বেশিও বাতিল হচ্ছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সময়ে যেসব সংগঠনকে বাণিজ্য সংগঠন (টিও) হিসেবে নিবন্ধন দিয়েছিল। কোনো কার্যক্রম না থাকায় এবং নিয়মকানুন না মানায় সেগুলোকে সুপ্ত বাণিজ্য সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হচ্ছে।

বাণিজ্য সংগঠন অধ্যাদেশ-১৯৬১ অনুযায়ী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পরিচালক বাণিজ্য সংগঠন (ডিটিও) দেশের চেম্বার, অ্যাসোসিয়েশন ও মালিক সমিতিগুলোকে লাইসেন্স বা নিবন্ধন দেয়। তবে বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনসহ (এফবিসিসিআই) সব ধরনের অ্যাসোসিয়েশন ও চেম্বারকে কার্যক্রম পরিচালনা করতে টিও নিবন্ধন নিতে হয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকেই। গত বছর ওই অধ্যাদেশ বাতিল করে সরকার নতুন বাণিজ্য সংগঠন আইন প্রণয়ন করে।

মোটা দাগে তিন ধরনের বাণিজ্য সংগঠন রয়েছে। এগুলো হচ্ছে, বিদ্যমান ১৯৯৪ সালের কোম্পানি আইন অনুযায়ী সীমিত দায়ের কোম্পানি হিসেবে গঠিত প্রতিষ্ঠান, লাইসেন্স নিয়ে ও কোম্পানি আইনে নিবন্ধিত হয়ে বিভিন্ন ব্যবসা, শিল্প, বাণিজ্য ও সেবা খাতের প্রতিনিধিত্বকারী অরাজনৈতিক ও অলাভজনক সংগঠন এবং আয় বা মুনাফা কোনো সদস্য বা পরিচালনা পর্ষদের কেউ ভাগ করে নিতে পারবেন না এমন প্রতিষ্ঠান।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে এ ধরনের সংগঠন রয়েছে ৮৭৭টি। এর মধ্যে শীর্ষ ব্যবসায়ী সংগঠন এফবিসিসিআই, ৪৪১টি অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ চেম্বার, ৭টি মেট্রো চেম্বার, ৬৪টি জেলা চেম্বার ও দুটি উপজেলা চেম্বার রয়েছে। আছে ১৯টি উইমেন চেম্বার, ৩৫টি জয়েন্ট চেম্বার, বিভিন্ন খাতের ১৫৩টি গ্রুপ বা সমিতি। এছাড়া কোম্পানি আইনের ২৮ ধারা অনুযায়ী রয়েছে ১৫৪টি সংগঠন।

লাইসেন্স নেয়ার ছয় মাসের মধ্যে কার্যালয় স্থাপন না করলে, পরপর দুই বছর বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) না হলে এবং পরপর দুই বছর নিরীক্ষা প্রতিবেদন ও রিটার্ন দাখিল না করলে সংগঠনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার কথা বলা আছে আইনে। নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হলে বাণিজ্য সংগঠন মহাপরিচালক ওই সংগঠনকে সুপ্ত বলে ঘোষণা করবেন এবং সংশোধনের সুযোগ দেবেন। তাতেও কোনো অগ্রগতি না হলে ওই সংগঠনের লাইসেন্স বাতিল করতে সরকারের কাছে সুপারিশ করবেন মহাপরিচালক।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সূত্রগুলো জানায়, যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এবং যথেষ্ট সময় দিয়েও কোনো কাজ না হওয়ায় কিছু কিছু সংগঠনের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। বাতিলের পর কেউ কেউ আবার ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে গেছেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এক বছরে যেসব বাণিজ্য সংগঠনের নিবন্ধন বাতিল করেছে, সেগুলো হচ্ছেÑ বাংলাদেশ টোব্যাকো প্রোডাক্টস পরিবেশক সমিতি, বাংলাদেশ উইভার্স প্রোডাক্টস অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মোটরসাইকেল ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফটোগ্রাফিক অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ সাইজিং মিলস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফিল্ম ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ কনজুমার প্রোডাক্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড মার্কেটার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ইনডিপেনডেন্ট পাওয়ার প্রডিউসারস অ্যাসোসিয়েশন, প্রাইভেট রেডিও ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ জুট এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফোম ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ রেডিমিক্স কংক্রিট অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ পণ্য পরিবহন এজেন্সি মালিক সমিতি, বাংলাদেশ পুরোনো কাপড় আমদানিকারক সমিতি, বাংলাদেশ ম্যাচ ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ সিগারেট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ রডেনটিসাইড, পেস্টিসাইড অ্যান্ড ইনসেক্টিসাইড অ্যাসোসিয়েশন।

বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেন, ‘ঠিকঠাকভাবে পরিচালিত না হলে আরও বাণিজ্য সংগঠনের লাইসেন্স বাতিল হতে পারে।’

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একজন শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা উদাহরণ হিসেবে সিগারেট প্রস্তুতকারী কোম্পানিগুলোর সংগঠন বাংলাদেশ সিগারেট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের লাইসেন্স বাতিলের কারণগুলো তুলে ধরেন। তিনি জানান, ২০০১ সালের ২৪ এপ্রিল অ্যাসোসিয়েশনটি টিও লাইসেন্স পেলেও ২০ বছর ধরে কাগজপত্র জমা দেয়নি। সংগঠনটি ২০০১-০২ সালের বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) কার্যবিবরণী ও নিরীক্ষা প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে দাখিল করেছিল। এরপর আর কিছুই দাখিল করেনি।

এ সংগঠন নির্বাচন করার কাগজপত্রও সর্বশেষ দাখিল করেছিল ২০০৩-০৫ সময়ে। এরপর থেকে এ অ্যাসোসিয়েশন আর কোনো হালনাগাদ কাগজপত্র দাখিল করেনি। এছাড়া সংগঠনটির ঠিকানায় কোনো অফিস নেই, চিঠি পাঠালেও তা ফেরত আসে।

সব ধাপ অনুসরণ করে গত বছরের ২৮ আগস্ট সংগঠনটির টিও লাইসেন্স বাতিল করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সংগঠনগুলোর লাইসেন্স বাতিল হওয়ার কারণ প্রায় একই।

back to top