alt

অর্থ-বাণিজ্য

ভূরাজনৈতিক পরিবর্তনে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ছে স্বল্পোন্নত দেশগুলো : ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে সরকার যত বেশি জনসমর্থনপুষ্ট হবে, বৈদেশিক অর্থনৈতিক স্বার্থের সঙ্গে দেশের রাজনৈতিক স্বর্থের সমন্বয় করাও তত বেশি সহজ হবে। একইসঙ্গে, গণতান্ত্রিক সরকারগুলো বিদেশি শক্তি বা বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর অন্যায় ও অন্যায্য সুযোগ নেয়ার প্রবণতা তত বেশি সামলানো যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও অর্থনীতিবিদ ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ।

তিনি আরও বলেছেন, ‘পরিবর্তনশীল ভূরাজনৈতিক পরিস্থিতির সঙ্গে বিশ্বব্যাপী আন্তঃদেশীয় সম্পর্কের সমীকরণ ক্রমশ জঠিল হচ্ছে। স্বল্পোন্নত দেশগুলোকেও এই টানাপড়েনের মধ্যে পড়তে হচ্ছে।’

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) তিন দিনব্যাপী উন্নয়নবিষয়ক সম্মেলনের শনিবার (৯ ডিসেম্বর) শেষদিনে ‘বিকাশমান বৈশ্বিক ব্যবস্থা ও ভূরাজনীতি : স্বল্পোন্নত দেশগুলোর কী বাস্তবতা’- শীর্ষক বক্তৃতায় ড. ওয়াহিদউদ্দিন বলেন, ‘এই ধরনের পরিবর্তনে (ভূরাজনৈতিক) ঝুঁকিও আছে, আবার লাভবান হওয়ার সুযোগও আছে। ঝুঁকি মোকাবিলা করে ভূরাজনীতি ও ভূঅর্থনীতির পরিস্থিতি সামাল দেয়া বাংলাদেশের মতো স্বল্পোন্নত দেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।’

এমন পরিস্থিতিতে, সরকারের প্রতি যত জনসমর্থন থাকবে, বৈদেশিক অর্থনৈতিক স্বার্থের সঙ্গে তার রাজনৈতিক স্বার্থের সমন্বয় করা ততাই সহজ হবে বলে জানান তিনি।

বক্তৃতায় পরাশক্তিদের দ্বন্দ্ব নিয়ে এই অর্থনীতিবিদ বলেন, ‘এখন চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের যে দ্বৈরথ চলছে, তা স্নায়ুযুদ্ধ থেকে অনেকটাই ভিন্ন। কারণ, এখন একেবারে বিচ্ছিন্ন হওয়া সম্ভব নয়। যুক্তরাষ্ট্র ও চীন এত দিন ধরে শুল্কযুদ্ধ চালালেও এখন পর্যন্ত তারা পরস্পরের সবচেয়ে বড় বাণিজ্য অংশীদার। অন্যদিকে স্নায়ুযুদ্ধের আদর্শিক ভিত্তি ছিল, বিষয়টি ছিল একদম সোজাসাপটা। চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বিষয়টি সেরকম নয়, যদিও চীন নিজেদের মডেল সম্প্রসারণের চেষ্টা করছে। সেটি আমাদের খেয়াল রাখা উচিত।’

একইসঙ্গে, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি চীনকে কোনোভাবেই উপেক্ষা করা সম্ভব নয় বলেও মন্তব্য করেন এই অর্থনীতিবিদ।

ড. মাহমুদ বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের তাৎক্ষণিক প্রভাবের তুলনায়, চীনের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য যুদ্ধ কম দৃশ্যমান হতে পারে। তবে সারা বিশ্ব অর্থনীতির জন্য এর প্রভাব সুদূরপ্রসারী এবং দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ক্রমবর্ধমান সংঘর্ষ, বিনিয়োগের বিধিনিষেধ, রপ্তানি নিয়ন্ত্রণ এবং শুল্ক কাঠামো বিশ্বের এই দুটি বৃহত্তম অর্থনীতির রপ্তানি এবং জিডিপিতে সরাসরি স্বল্পমেয়াদি বিরূপ প্রভাব ফেলেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটি লক্ষণীয় যে, বাণিজ্য যুদ্ধ সত্ত্বেও, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন একে অপরের বৃহত্তম বাণিজ্য অংশীদার। এটি সত্য যে, কিছু উন্নয়নশীল দেশ মার্কিন বাণিজ্য ও বিনিয়োগকে চীন থেকে দূরে সরিয়ে নেয়ার সুযোগ নিতে পারে। দক্ষতা এবং বিনিয়োগের অনুকূল জলবায়ু, উদাহরণস্বরূপ, ভিয়েতনাম এক্ষেত্রে বাংলাদেশের তুলনায় ভালো অবস্থানে আছে বলে মনে হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটি প্রমাণ করেছে যে বৃহৎ আকারের সংঘাতে অর্থনৈতিক সরঞ্জামগুলোর এ ধরনের ব্যবহারের প্রভাব সারা বিশ্ব অর্থনীতির জন্য কতা বিঘ্নিত হতে পারে। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে বাণিজ্য বাড়াতে হলে, উচ্চ কর প্রবণতা কমাতে হবে।

বিনিয়োগ পরিবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি রপ্তানিতে এতদিন যেসব প্রণোদনা দিয়ে আসছে সরকার, তা আমদানির ক্ষেত্রেও বাড়াতে হবে।’

ছবি

ভারত: চাল রপ্তানিতে শুল্ক আরোপের মেয়াদ বাড়াল ৩১ মার্চ

ছবি

উৎপাদন খরচ বাড়লেও বাড়েনি বইয়ের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমবে ১০ টাকা

ছবি

অর্থপাচারের ৮০ শতাংশই ব্যাংকিং চ্যানেলে : বিএফআইইউ

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

জিআই পণ্যের তালিকা করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

দেশ-বিদেশে পর্যটক আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে : পর্যটনমন্ত্রী

ছবি

কৃষি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ কমানো, লাভে নেয়াই লক্ষ্য : শওকত আলী খান

ছবি

অস্তিত্বের জন্য বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি সীমাবদ্ধ রাখতে হবে: সাবের হোসেন চৌধুরী

ছবি

ড. ইউনূসের ‘জবরদখলে’র অভিযোগ নিয়ে যা বলল গ্রামীণ ব্যাংক

ছবি

খেজুরের গুড়, মিষ্টি পান ও নকশিকাঁথা পেল জিআই স্বীকৃতি

ছবি

কর নেট বাড়ানোর জন্য ধীরে ধীরে কাজ করছি : এনবিআর চেয়ারম্যান

ছবি

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

ছবি

পার্বত্য চট্রগ্রাম মেলায় বেচাকেনা কম, হতাশ উদ্যোক্তারা

টাকা-ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০ টাকা

ছবি

রমজানে রাজধানীতে ২৫টি স্থানে কম দামে মাংস ও ডিম বিক্রির উদ্যোগ

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টাকা–ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

তালিকাভূক্ত ব্যাংকের মধ্যে সর্বোচ্চ ক্যাশ ফ্লো রূপালী ব্যাংকের

ছবি

পুঁজিবাজারে ২২টি ব্যাংকের ক্যাশ ফ্লো বেড়েছে

ছবি

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিশেষ নীরিক্ষায় চমকপ্রদ তথ্য বের হচ্ছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ছবি

সূচকের উত্থানে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে ফেসবুক পোস্ট সরিয়েছে ভারত: নানক

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ: ঢাকা চেম্বার সভাপতি

ছবি

ছয় মাসে ৪৫৯ কোটি ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি

ছবি

খেজুরের আমদানি শুল্ক আরো কমানোর দাবি ব্যবসায়ীদের

ছবি

পাট খাতের বৈশ্বিক রপ্তানি আয়ের ৭২ শতাংশ এখন বাংলাদেশের দখলে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

তিন মাসে খেলাপি ঋণ কমেছে, তবে ২০২২ সালের হিসেবে এখনও বেশি

ছবি

ভাষা শহীদদের স্মরণে বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণার নির্দেশ পলকের

বাংলাদেশ দেউলিয়া হয়ে যায়নি ,সঠিক পথে ফিরেছে: অর্থমন্ত্রী

প্রায় বন্ধ নাফনদী পাড়ের বাণিজ্য, রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার

ছবি

প্রতারণামূলক তথ্য দিয়ে টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব নিয়েছে ভারত, এবার চায় ঢাকাই মসলিন

ছবি

নারায়ণগঞ্জ বকেয়া বেতন না দিয়ে কারখানা বন্ধ শ্রমিকদের বিক্ষোভ

ছবি

নারায়ণগঞ্জে বকেয়া বেতন দাবিতে শ্রমিক বিক্ষোভ

চাল তেল-চিনি ও খেজুরের শুল্ক কমানো হচ্ছে

tab

অর্থ-বাণিজ্য

ভূরাজনৈতিক পরিবর্তনে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ছে স্বল্পোন্নত দেশগুলো : ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে সরকার যত বেশি জনসমর্থনপুষ্ট হবে, বৈদেশিক অর্থনৈতিক স্বার্থের সঙ্গে দেশের রাজনৈতিক স্বর্থের সমন্বয় করাও তত বেশি সহজ হবে। একইসঙ্গে, গণতান্ত্রিক সরকারগুলো বিদেশি শক্তি বা বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর অন্যায় ও অন্যায্য সুযোগ নেয়ার প্রবণতা তত বেশি সামলানো যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও অর্থনীতিবিদ ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ।

তিনি আরও বলেছেন, ‘পরিবর্তনশীল ভূরাজনৈতিক পরিস্থিতির সঙ্গে বিশ্বব্যাপী আন্তঃদেশীয় সম্পর্কের সমীকরণ ক্রমশ জঠিল হচ্ছে। স্বল্পোন্নত দেশগুলোকেও এই টানাপড়েনের মধ্যে পড়তে হচ্ছে।’

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) তিন দিনব্যাপী উন্নয়নবিষয়ক সম্মেলনের শনিবার (৯ ডিসেম্বর) শেষদিনে ‘বিকাশমান বৈশ্বিক ব্যবস্থা ও ভূরাজনীতি : স্বল্পোন্নত দেশগুলোর কী বাস্তবতা’- শীর্ষক বক্তৃতায় ড. ওয়াহিদউদ্দিন বলেন, ‘এই ধরনের পরিবর্তনে (ভূরাজনৈতিক) ঝুঁকিও আছে, আবার লাভবান হওয়ার সুযোগও আছে। ঝুঁকি মোকাবিলা করে ভূরাজনীতি ও ভূঅর্থনীতির পরিস্থিতি সামাল দেয়া বাংলাদেশের মতো স্বল্পোন্নত দেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।’

এমন পরিস্থিতিতে, সরকারের প্রতি যত জনসমর্থন থাকবে, বৈদেশিক অর্থনৈতিক স্বার্থের সঙ্গে তার রাজনৈতিক স্বার্থের সমন্বয় করা ততাই সহজ হবে বলে জানান তিনি।

বক্তৃতায় পরাশক্তিদের দ্বন্দ্ব নিয়ে এই অর্থনীতিবিদ বলেন, ‘এখন চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের যে দ্বৈরথ চলছে, তা স্নায়ুযুদ্ধ থেকে অনেকটাই ভিন্ন। কারণ, এখন একেবারে বিচ্ছিন্ন হওয়া সম্ভব নয়। যুক্তরাষ্ট্র ও চীন এত দিন ধরে শুল্কযুদ্ধ চালালেও এখন পর্যন্ত তারা পরস্পরের সবচেয়ে বড় বাণিজ্য অংশীদার। অন্যদিকে স্নায়ুযুদ্ধের আদর্শিক ভিত্তি ছিল, বিষয়টি ছিল একদম সোজাসাপটা। চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বিষয়টি সেরকম নয়, যদিও চীন নিজেদের মডেল সম্প্রসারণের চেষ্টা করছে। সেটি আমাদের খেয়াল রাখা উচিত।’

একইসঙ্গে, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি চীনকে কোনোভাবেই উপেক্ষা করা সম্ভব নয় বলেও মন্তব্য করেন এই অর্থনীতিবিদ।

ড. মাহমুদ বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের তাৎক্ষণিক প্রভাবের তুলনায়, চীনের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য যুদ্ধ কম দৃশ্যমান হতে পারে। তবে সারা বিশ্ব অর্থনীতির জন্য এর প্রভাব সুদূরপ্রসারী এবং দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ক্রমবর্ধমান সংঘর্ষ, বিনিয়োগের বিধিনিষেধ, রপ্তানি নিয়ন্ত্রণ এবং শুল্ক কাঠামো বিশ্বের এই দুটি বৃহত্তম অর্থনীতির রপ্তানি এবং জিডিপিতে সরাসরি স্বল্পমেয়াদি বিরূপ প্রভাব ফেলেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটি লক্ষণীয় যে, বাণিজ্য যুদ্ধ সত্ত্বেও, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন একে অপরের বৃহত্তম বাণিজ্য অংশীদার। এটি সত্য যে, কিছু উন্নয়নশীল দেশ মার্কিন বাণিজ্য ও বিনিয়োগকে চীন থেকে দূরে সরিয়ে নেয়ার সুযোগ নিতে পারে। দক্ষতা এবং বিনিয়োগের অনুকূল জলবায়ু, উদাহরণস্বরূপ, ভিয়েতনাম এক্ষেত্রে বাংলাদেশের তুলনায় ভালো অবস্থানে আছে বলে মনে হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটি প্রমাণ করেছে যে বৃহৎ আকারের সংঘাতে অর্থনৈতিক সরঞ্জামগুলোর এ ধরনের ব্যবহারের প্রভাব সারা বিশ্ব অর্থনীতির জন্য কতা বিঘ্নিত হতে পারে। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে বাণিজ্য বাড়াতে হলে, উচ্চ কর প্রবণতা কমাতে হবে।

বিনিয়োগ পরিবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি রপ্তানিতে এতদিন যেসব প্রণোদনা দিয়ে আসছে সরকার, তা আমদানির ক্ষেত্রেও বাড়াতে হবে।’

back to top