alt

অর্থ-বাণিজ্য

৪৩টি নতুন পণ্যকে বাধ্যতামূলক মান সনদে আনবে বিএসটিআই

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০
image

ভোক্তাসাধারণের মধ্যে ক্রমবর্ধমান চাহিদা বিবেচনা করে লো ফ্যাট মিল্ক, ফ্লেভারড মিল্ক, আইস ললি, ন্যাচারাল মেহেদি, ডিসওয়াশিং লিকুইড, লিকুইড টয়লেট ক্লিনার, নেইল পলিস, স্বর্ণ, পাওয়ার লুমে তৈরি কটন শাড়ি, প্যাসেঞ্জার কার টায়ার ও রিম, হলো ক্লে ব্রিক্স ও ব্লকস, পাওয়ার ট্রান্সফরমারসহ নতুন ৪৩টি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যকে বাধ্যতামূলক মান সনদের আওতাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসটিআই।

রোববার (২৫ অক্টোবর) বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) ৩৪তম কাউন্সিল সভায় এ সিদ্ধান্ত অনুমোদিত হয়। শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এতে সভাপতিত্ব করেন। শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সভায় কাউন্সিলের প্রথম সহ-সভাপতি ও শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, দ্বিতীয় সহ-সভাপতি ও শিল্পসচিব কেএম আলী আজম, সদস্য সচিব ও বিএসটিআইয়ের মহাপরিচালক ড. মো. নজরুল আনোয়ার উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সভায় শিল্প, স্বরাষ্ট্র, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, বাণিজ্য, বস্ত্র ও পাট, তথ্য, কৃষি, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ, আইসিটি মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, তথ্য অধিদফতর, বাংলাদেশ টেলিভিশন, অর্থ বিভাগ, কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বিসিএসআইআর, আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রক, ইপিবি এবং এফবিসিসিআই, এমসিসিআই, ক্যাবসহ কাউন্সিলের সদস্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

সভায় গুণগত শিল্পায়নের চলমান ধারা জোরদারে জেলাপর্যায়ে বিএসটিআইয়ের মান নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম সম্প্রসারণ, আধুনিক যন্ত্রপাতি সম্বলিত ল্যাবরেটরির সুবিধার প্রসার, প্রাতিষ্ঠানিক জনবল বৃদ্ধি, দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ সুবিধা জোরদার, কর্তকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন, যাতায়াত ও প্রণোদনার সুযোগ বাড়ানো এবং হালাল খাদ্যের রপ্তানি বাড়াতে বিএসটিআইয়ের মান নির্ধারণী কার্যক্রম সম্প্রসারণের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জেলাপর্যায়ে বিএসটিআইয়ের অফিস সম্প্রসারণ ও সেবাদান কার্যক্রম জোরদারের লক্ষ্যে বিদ্যমান আটটি বিভাগীয় অফিসের পাশাপাশি আরও ১৩টি আঞ্চলিক অফিস স্থাপনের মাধ্যমে মোট ৬৪টি জেলায় কার্যক্রম সম্প্রসারণের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। এছাড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের বাইরে অবস্থিত ৪৩টি জেলায় মোবাইল কোর্ট, ফ্যাক্টরি পরিদর্শন ও সার্ভিল্যান্স পরিচালনার স্বার্থে প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ করে নিজস্ব অফিস স্থাপন এবং সীমিত জনবল দিয়ে তা পরিচালনার প্রস্তাব অনুমোদিত হয়।

সভায় শিল্পমন্ত্রী বিশ্ববাজারের হালাল পণ্য রপ্তানির বিশাল সম্ভাবনার কথা তুলে ধরে বলেন, এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে বিএসটিআইকে দ্রুত হালাল পণ্যের মান নির্ধারণ ও মান সনদ প্রদানের উদ্যোগ নিতে হবে।

তিনি সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগ্যতার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালনের জন্য উৎসাহিত করতে উন্নত প্রশিক্ষণের পাশাপাশি আর্থিক প্রণোদনাসহ সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হবে জানান। তিনি বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে গুণগত শিল্পায়নের ধারা জোরদারে বিএসটিআইয়ের ভূমিকা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিশ্ববাজারের প্রতিযোগিতায় দেশীয় শিল্পপণ্য টিকে থাকার সক্ষমতা জোরদারে সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতিষ্ঠানটির মান নিয়ন্ত্রণ ও উন্নয়ন কার্যক্রম এগিয়ে নিতে হবে। এ প্রতিষ্ঠানের গুণগতমানের সঙ্গে জনগণের জীবনের সুরক্ষা জড়িত। এ বিবেচনায় তিনি মান নির্ধারণ ও পরীক্ষণের ক্ষেত্রে বিএসটিআই কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ সততা, স্বচ্ছতা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালনের তাগিদ দেন।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারীর মধ্যেই মেয়াদোত্তীর্ণ ও ভেজাল পণ্য বাজারজাত করে ব্যবসায়ী নামধারী কিছু সুবিধাবাদী মানুষ টাকার পাহাড় গড়ার হীনকৌশল অবলম্বন করছে। তারা মেয়াদোত্তীর্ণ শিশুখাদ্য, ওষুধসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি করে তাতে নতুন লেবেল লাগিয়ে বাজারজাতকরণের মাধ্যমে ভোক্তাসাধারণকে প্রতারিত করছে। এ ধরনের অপকর্মের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ নজরদারি, জরিমানা আদায় এবং অতিরিক্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেন তিনি। তিনি শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে প্রেরিত বিদেশ প্রশিক্ষণ টিমে বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অন্তর্ভুক্ত করারও পরামর্শ দেন।

শিল্পসচিব বলেন, বাংলাদেশে শিল্পায়নে চলমান ধারার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিএসটিআইয়ের মাননির্ধারণী কার্যক্রম এগিয়ে নিতে হবে। অন্যথায় অভ্যন্তরীণ বাজার হারানোর পাশাপাশি রপ্তানি বাণিজ্যেও বাংলাদেশি পণ্য ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দক্ষতা বাড়াতে মানসম্মত প্রশিক্ষণ কারিকুলাম প্রণয়ন এবং দক্ষ প্রশিক্ষকদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেন। করোনার মধ্যেও বাংলাদেশ উন্নয়নের এক বিস্ময় উল্লেখ করে শিল্পসচিব বলেন, উন্নয়নের এ গতি অব্যাহত রাখতে বিএসটিআইয়ের মান নিয়ন্ত্রণ কর্মকান্ড জেলাপর্যায়ে ছড়িয়ে দেয়া হবে।

মিউচুয়াল ট্রাস্টও ইভ্যালি, আলেশা মার্টের সঙ্গে কার্ড লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা দিল

বন্ড ইস্যুতে সংশোধনী আনছে পূবালী-ব্যাংক এশিয়া

ছবি

ব্র্যাক ব্যাংকের নতুন ডিএমডি চৌধুরী মইনুল ইসলাম

ছবি

হজ্ব ও ওমরাহ পালনের জন্য চালু করা হলো জীবন বীমা

ব্যবসা সম্প্রসারণে ঢাকায় আসছে কঙ্গোর প্রতিনিধি দল

ইকমার্স সাইট থেকে পণ্য বুঝে পেয়ে দাম পরিশোধ

ব্র্যাকের পর লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা দিল আরও দুই ব্যাংক

লেনদেন কমলেও সূচক বেড়েছে শেয়ারবাজারে

১৫ ফেব্রুয়ারির পর এলসি খোলা যাবে না

ছবি

দুই বছরে ২ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ডলারের হালাল পণ্যের বাজার সৃষ্টি হবে

লেনদেনের বড়পতনেও সূচক বেড়েছে অর্ধশত পয়েন্ট

ছবি

ডিএসইতে সূচক বাড়লেও সিএসইতে কমেছে

ছবি

বেসরকারি খাত শক্তিশালী করতে আইনকানুন সংস্কার প্রয়োজন

ছবি

চ্যালেঞ্জ থাকলেও সামষ্টিক অর্থনীতির গতি ঊর্ধ্বমুখী : অর্থমন্ত্রী

ছবি

ইভ্যালিসহ ১০ ই-কমার্সে কেনাকাটায় ব্র্যাক ব্যাংকের নিষেধাজ্ঞা

ফের শেয়ারবাজারে বড় পতন

বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডের অনুমোদন

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে বিড়ি শ্রমিকদের দোয়া

শান্তা ফিক্সড ইনকাম ফান্ডের খসড়া প্রসপেক্টাস অনুমোদন

ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের আইপিও অনুমোদন

ছবি

সূচকের পতনে শেষ হলো লেনদেন

ছবি

১৫৯ জনকে ছাঁটাই করলো গ্রামীণফোন, প্রতিবাদ কর্মীদের

ছবি

ইএফডির জন্য বৈষম্যের স্বীকার ব্যবসায়ীরা

৮ জুলাই থেকে চালু হচ্ছে ই-রিটার্ন সিস্টেম

করোনা মোকাবিলায় সাড়ে ১৩ কোটি টাকা সহায়তা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের

‘এমবিএল রেইনবো’ নিয়ে ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ মার্কেন্টাইল ব্যাংকের

ব্রোকারেজ হাউজে রাখা অর্থের সুদের ভাগ পাবেন বিনিয়োগকারীরা

চারটি অর্থনৈতিক অঞ্চলে জমি ইজারা পেল ছয় প্রতিষ্ঠান

ছবি

ডিএসইতে সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন চলছে

ই-মেইলের লিংক ক্লিকেই রিজার্ভের টাকা চুরি

ছবি

কাজুবাদাম, কফির সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে সমন্বিত উদ্যোগ চলছে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

২০২৫ সালের মধ্যে ৩০০ বিলিয়ন ডলারের বাজার হবে অগমেন্টেড রিয়েলিটি

বর্তমান বাজার ব্যবস্থায় বৈষম্যহীন সমাজ প্রশ্নসাপেক্ষ

ছবি

বীমা কোম্পানির পরিচালকদের ৬০ শতাংশ শেয়ার ধারণ করতে হবে : আইডিআরএ

ছবি

ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করলেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

বাণিজ্য সম্প্রসারণে একযোগে কাজ করবে বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম

tab

অর্থ-বাণিজ্য

৪৩টি নতুন পণ্যকে বাধ্যতামূলক মান সনদে আনবে বিএসটিআই

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
image

রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০

ভোক্তাসাধারণের মধ্যে ক্রমবর্ধমান চাহিদা বিবেচনা করে লো ফ্যাট মিল্ক, ফ্লেভারড মিল্ক, আইস ললি, ন্যাচারাল মেহেদি, ডিসওয়াশিং লিকুইড, লিকুইড টয়লেট ক্লিনার, নেইল পলিস, স্বর্ণ, পাওয়ার লুমে তৈরি কটন শাড়ি, প্যাসেঞ্জার কার টায়ার ও রিম, হলো ক্লে ব্রিক্স ও ব্লকস, পাওয়ার ট্রান্সফরমারসহ নতুন ৪৩টি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যকে বাধ্যতামূলক মান সনদের আওতাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসটিআই।

রোববার (২৫ অক্টোবর) বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) ৩৪তম কাউন্সিল সভায় এ সিদ্ধান্ত অনুমোদিত হয়। শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এতে সভাপতিত্ব করেন। শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সভায় কাউন্সিলের প্রথম সহ-সভাপতি ও শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, দ্বিতীয় সহ-সভাপতি ও শিল্পসচিব কেএম আলী আজম, সদস্য সচিব ও বিএসটিআইয়ের মহাপরিচালক ড. মো. নজরুল আনোয়ার উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সভায় শিল্প, স্বরাষ্ট্র, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, বাণিজ্য, বস্ত্র ও পাট, তথ্য, কৃষি, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ, আইসিটি মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, তথ্য অধিদফতর, বাংলাদেশ টেলিভিশন, অর্থ বিভাগ, কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বিসিএসআইআর, আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রক, ইপিবি এবং এফবিসিসিআই, এমসিসিআই, ক্যাবসহ কাউন্সিলের সদস্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

সভায় গুণগত শিল্পায়নের চলমান ধারা জোরদারে জেলাপর্যায়ে বিএসটিআইয়ের মান নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম সম্প্রসারণ, আধুনিক যন্ত্রপাতি সম্বলিত ল্যাবরেটরির সুবিধার প্রসার, প্রাতিষ্ঠানিক জনবল বৃদ্ধি, দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ সুবিধা জোরদার, কর্তকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন, যাতায়াত ও প্রণোদনার সুযোগ বাড়ানো এবং হালাল খাদ্যের রপ্তানি বাড়াতে বিএসটিআইয়ের মান নির্ধারণী কার্যক্রম সম্প্রসারণের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জেলাপর্যায়ে বিএসটিআইয়ের অফিস সম্প্রসারণ ও সেবাদান কার্যক্রম জোরদারের লক্ষ্যে বিদ্যমান আটটি বিভাগীয় অফিসের পাশাপাশি আরও ১৩টি আঞ্চলিক অফিস স্থাপনের মাধ্যমে মোট ৬৪টি জেলায় কার্যক্রম সম্প্রসারণের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। এছাড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের বাইরে অবস্থিত ৪৩টি জেলায় মোবাইল কোর্ট, ফ্যাক্টরি পরিদর্শন ও সার্ভিল্যান্স পরিচালনার স্বার্থে প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ করে নিজস্ব অফিস স্থাপন এবং সীমিত জনবল দিয়ে তা পরিচালনার প্রস্তাব অনুমোদিত হয়।

সভায় শিল্পমন্ত্রী বিশ্ববাজারের হালাল পণ্য রপ্তানির বিশাল সম্ভাবনার কথা তুলে ধরে বলেন, এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে বিএসটিআইকে দ্রুত হালাল পণ্যের মান নির্ধারণ ও মান সনদ প্রদানের উদ্যোগ নিতে হবে।

তিনি সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগ্যতার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালনের জন্য উৎসাহিত করতে উন্নত প্রশিক্ষণের পাশাপাশি আর্থিক প্রণোদনাসহ সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হবে জানান। তিনি বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে গুণগত শিল্পায়নের ধারা জোরদারে বিএসটিআইয়ের ভূমিকা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিশ্ববাজারের প্রতিযোগিতায় দেশীয় শিল্পপণ্য টিকে থাকার সক্ষমতা জোরদারে সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতিষ্ঠানটির মান নিয়ন্ত্রণ ও উন্নয়ন কার্যক্রম এগিয়ে নিতে হবে। এ প্রতিষ্ঠানের গুণগতমানের সঙ্গে জনগণের জীবনের সুরক্ষা জড়িত। এ বিবেচনায় তিনি মান নির্ধারণ ও পরীক্ষণের ক্ষেত্রে বিএসটিআই কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ সততা, স্বচ্ছতা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালনের তাগিদ দেন।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারীর মধ্যেই মেয়াদোত্তীর্ণ ও ভেজাল পণ্য বাজারজাত করে ব্যবসায়ী নামধারী কিছু সুবিধাবাদী মানুষ টাকার পাহাড় গড়ার হীনকৌশল অবলম্বন করছে। তারা মেয়াদোত্তীর্ণ শিশুখাদ্য, ওষুধসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি করে তাতে নতুন লেবেল লাগিয়ে বাজারজাতকরণের মাধ্যমে ভোক্তাসাধারণকে প্রতারিত করছে। এ ধরনের অপকর্মের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ নজরদারি, জরিমানা আদায় এবং অতিরিক্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেন তিনি। তিনি শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে প্রেরিত বিদেশ প্রশিক্ষণ টিমে বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অন্তর্ভুক্ত করারও পরামর্শ দেন।

শিল্পসচিব বলেন, বাংলাদেশে শিল্পায়নে চলমান ধারার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিএসটিআইয়ের মাননির্ধারণী কার্যক্রম এগিয়ে নিতে হবে। অন্যথায় অভ্যন্তরীণ বাজার হারানোর পাশাপাশি রপ্তানি বাণিজ্যেও বাংলাদেশি পণ্য ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দক্ষতা বাড়াতে মানসম্মত প্রশিক্ষণ কারিকুলাম প্রণয়ন এবং দক্ষ প্রশিক্ষকদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেন। করোনার মধ্যেও বাংলাদেশ উন্নয়নের এক বিস্ময় উল্লেখ করে শিল্পসচিব বলেন, উন্নয়নের এ গতি অব্যাহত রাখতে বিএসটিআইয়ের মান নিয়ন্ত্রণ কর্মকান্ড জেলাপর্যায়ে ছড়িয়ে দেয়া হবে।

back to top