alt

অর্থ-বাণিজ্য

পোশাক খাতকে শিশুশ্রম মুক্ত করার দাবি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০

২০২২ সালের মধ্যে স্থানীয় পোশাক খাতকে শিশুশ্রম মুক্ত করার দাবি জানিয়েছে এ খাতের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্ট শ্রমিকরা। শ্রমিকদের এমন দাবির সঙ্গে একাত্মতা জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কেএম আবদুস সালাম। রোববার (২৫ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে শিশুশ্রম দূরীকরণে এক গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে বাংলাদেশ লেবার ফাউন্ডেশন (বিএলএফ)। ‘স্থানীয় পোশাক প্রস্তুতকারী কারখানার শিশুশ্রম নিরসন : সমস্যা ও করণীয়’ শীর্ষক এ আলোচনায় মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএলএফের নির্বাহী পরিচালক একেএম আশরাফ উদ্দিন।

কেরানীগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত স্থানীয় পোশাক প্রস্তুতকারী কারখানাগুলোকে মডেল ধরে বিএলএফের তৈরি করা এই প্রতিবেদনে দেখানো হয়, সেখানকার কারখানাগুলোতে শিশুশ্রমের সঙ্গে জড়িত শিশুদের শতকরা হার ১৬ দশমিক ৭ শতাংশ। এদের মধ্যে ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুর সংখ্যা প্রায় ২০ হাজার এবং ৫-১৭ বছর বয়সী শিশুর সংখ্যা প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার। তবে এমন তথ্য নাকচ করেছেন সভায় উপস্থিত গার্মেন্টস ব্যবসায়ী সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন। তিনি বলেন, আমার এলাকায় অর্থাৎ কেরানীগঞ্জে ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী কোন শিশু শ্রমিক নেই। আমাদের কারখানাগুলোতে ২৫ থেকে ৩৫ শতাংশ নারী শ্রমিক। শিশুশ্রম আমাদের এলাকায় আছে, সব জায়গাতেই আছে তবে এই প্রতিবেদনে যেভাবে দেখানো হয়েছে সেভাবে নেই। কিন্তু যথাযথ তথ্য উপাত্ত এবং নিয়ম মেনেই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে বলে বিএলএফের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।

গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কেএম আবদুস সালাম মালিক ও শ্রমিক নেতাদের কাছে শিশুশ্রম কবে নাগাদ শূন্যে নামিয়ে আনা যায় সে বিষয়ে জানতে চান। এর উত্তরে প্রতিনিধিরা জানান, ২০২২ সাল নাগাদ এ খাতকে শিশুশ্রম মুক্ত করা যাবে। এ বিষয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান সচিব বলেন, আমিও এ দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করছি। ২০২২ সালের মধ্যে এ খাতকে আমরা শিশুশ্রম মুক্ত দেখতে চাই। আমাদের মন্ত্রণালয়ের কলেবর খুব স্বল্প তবে আমাদের পরিধি অনেক বড়। প্রায় ৬ কোটি পরিবারের সঙ্গে আমাদের কাজ। এ স্থানীয় পোশাক খাতে প্রায় ৪০ থেকে ৬০ শতাংশ নারী কর্মী এবং ৬০ থেকে ৪০ শতাংশ পুরুষ কর্মী আছেন। সেই হিসেবে এ মন্ত্রণালয় নারীর কর্মসংস্থান এবং ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করে। আমরা আশা করছি, সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করলে এ খাতে শ্রম দেয়া শিশুদের সংখ্যা শূন্যে নামিয়ে আনা সম্ভব।

গোলটেবিল আলোচনায় অন্যদের মধ্যে আইনজীবী সালমা আলী, বিএনএফের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম খান এবং মহাসচিব এজেডএম কামরুল আনামসহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন।

মিউচুয়াল ট্রাস্টও ইভ্যালি, আলেশা মার্টের সঙ্গে কার্ড লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা দিল

বন্ড ইস্যুতে সংশোধনী আনছে পূবালী-ব্যাংক এশিয়া

ছবি

ব্র্যাক ব্যাংকের নতুন ডিএমডি চৌধুরী মইনুল ইসলাম

ছবি

হজ্ব ও ওমরাহ পালনের জন্য চালু করা হলো জীবন বীমা

ব্যবসা সম্প্রসারণে ঢাকায় আসছে কঙ্গোর প্রতিনিধি দল

ইকমার্স সাইট থেকে পণ্য বুঝে পেয়ে দাম পরিশোধ

ব্র্যাকের পর লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা দিল আরও দুই ব্যাংক

লেনদেন কমলেও সূচক বেড়েছে শেয়ারবাজারে

১৫ ফেব্রুয়ারির পর এলসি খোলা যাবে না

ছবি

দুই বছরে ২ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ডলারের হালাল পণ্যের বাজার সৃষ্টি হবে

লেনদেনের বড়পতনেও সূচক বেড়েছে অর্ধশত পয়েন্ট

ছবি

ডিএসইতে সূচক বাড়লেও সিএসইতে কমেছে

ছবি

বেসরকারি খাত শক্তিশালী করতে আইনকানুন সংস্কার প্রয়োজন

ছবি

চ্যালেঞ্জ থাকলেও সামষ্টিক অর্থনীতির গতি ঊর্ধ্বমুখী : অর্থমন্ত্রী

ছবি

ইভ্যালিসহ ১০ ই-কমার্সে কেনাকাটায় ব্র্যাক ব্যাংকের নিষেধাজ্ঞা

ফের শেয়ারবাজারে বড় পতন

বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডের অনুমোদন

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে বিড়ি শ্রমিকদের দোয়া

শান্তা ফিক্সড ইনকাম ফান্ডের খসড়া প্রসপেক্টাস অনুমোদন

ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের আইপিও অনুমোদন

ছবি

সূচকের পতনে শেষ হলো লেনদেন

ছবি

১৫৯ জনকে ছাঁটাই করলো গ্রামীণফোন, প্রতিবাদ কর্মীদের

ছবি

ইএফডির জন্য বৈষম্যের স্বীকার ব্যবসায়ীরা

৮ জুলাই থেকে চালু হচ্ছে ই-রিটার্ন সিস্টেম

করোনা মোকাবিলায় সাড়ে ১৩ কোটি টাকা সহায়তা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের

‘এমবিএল রেইনবো’ নিয়ে ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ মার্কেন্টাইল ব্যাংকের

ব্রোকারেজ হাউজে রাখা অর্থের সুদের ভাগ পাবেন বিনিয়োগকারীরা

চারটি অর্থনৈতিক অঞ্চলে জমি ইজারা পেল ছয় প্রতিষ্ঠান

ছবি

ডিএসইতে সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন চলছে

ই-মেইলের লিংক ক্লিকেই রিজার্ভের টাকা চুরি

ছবি

কাজুবাদাম, কফির সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে সমন্বিত উদ্যোগ চলছে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

২০২৫ সালের মধ্যে ৩০০ বিলিয়ন ডলারের বাজার হবে অগমেন্টেড রিয়েলিটি

বর্তমান বাজার ব্যবস্থায় বৈষম্যহীন সমাজ প্রশ্নসাপেক্ষ

ছবি

বীমা কোম্পানির পরিচালকদের ৬০ শতাংশ শেয়ার ধারণ করতে হবে : আইডিআরএ

ছবি

ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করলেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

বাণিজ্য সম্প্রসারণে একযোগে কাজ করবে বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম

tab

অর্থ-বাণিজ্য

পোশাক খাতকে শিশুশ্রম মুক্ত করার দাবি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০

২০২২ সালের মধ্যে স্থানীয় পোশাক খাতকে শিশুশ্রম মুক্ত করার দাবি জানিয়েছে এ খাতের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্ট শ্রমিকরা। শ্রমিকদের এমন দাবির সঙ্গে একাত্মতা জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কেএম আবদুস সালাম। রোববার (২৫ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে শিশুশ্রম দূরীকরণে এক গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে বাংলাদেশ লেবার ফাউন্ডেশন (বিএলএফ)। ‘স্থানীয় পোশাক প্রস্তুতকারী কারখানার শিশুশ্রম নিরসন : সমস্যা ও করণীয়’ শীর্ষক এ আলোচনায় মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএলএফের নির্বাহী পরিচালক একেএম আশরাফ উদ্দিন।

কেরানীগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত স্থানীয় পোশাক প্রস্তুতকারী কারখানাগুলোকে মডেল ধরে বিএলএফের তৈরি করা এই প্রতিবেদনে দেখানো হয়, সেখানকার কারখানাগুলোতে শিশুশ্রমের সঙ্গে জড়িত শিশুদের শতকরা হার ১৬ দশমিক ৭ শতাংশ। এদের মধ্যে ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুর সংখ্যা প্রায় ২০ হাজার এবং ৫-১৭ বছর বয়সী শিশুর সংখ্যা প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার। তবে এমন তথ্য নাকচ করেছেন সভায় উপস্থিত গার্মেন্টস ব্যবসায়ী সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন। তিনি বলেন, আমার এলাকায় অর্থাৎ কেরানীগঞ্জে ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী কোন শিশু শ্রমিক নেই। আমাদের কারখানাগুলোতে ২৫ থেকে ৩৫ শতাংশ নারী শ্রমিক। শিশুশ্রম আমাদের এলাকায় আছে, সব জায়গাতেই আছে তবে এই প্রতিবেদনে যেভাবে দেখানো হয়েছে সেভাবে নেই। কিন্তু যথাযথ তথ্য উপাত্ত এবং নিয়ম মেনেই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে বলে বিএলএফের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।

গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কেএম আবদুস সালাম মালিক ও শ্রমিক নেতাদের কাছে শিশুশ্রম কবে নাগাদ শূন্যে নামিয়ে আনা যায় সে বিষয়ে জানতে চান। এর উত্তরে প্রতিনিধিরা জানান, ২০২২ সাল নাগাদ এ খাতকে শিশুশ্রম মুক্ত করা যাবে। এ বিষয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান সচিব বলেন, আমিও এ দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করছি। ২০২২ সালের মধ্যে এ খাতকে আমরা শিশুশ্রম মুক্ত দেখতে চাই। আমাদের মন্ত্রণালয়ের কলেবর খুব স্বল্প তবে আমাদের পরিধি অনেক বড়। প্রায় ৬ কোটি পরিবারের সঙ্গে আমাদের কাজ। এ স্থানীয় পোশাক খাতে প্রায় ৪০ থেকে ৬০ শতাংশ নারী কর্মী এবং ৬০ থেকে ৪০ শতাংশ পুরুষ কর্মী আছেন। সেই হিসেবে এ মন্ত্রণালয় নারীর কর্মসংস্থান এবং ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করে। আমরা আশা করছি, সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করলে এ খাতে শ্রম দেয়া শিশুদের সংখ্যা শূন্যে নামিয়ে আনা সম্ভব।

গোলটেবিল আলোচনায় অন্যদের মধ্যে আইনজীবী সালমা আলী, বিএনএফের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম খান এবং মহাসচিব এজেডএম কামরুল আনামসহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন।

back to top