alt

অর্থ-বাণিজ্য

# বিবিএসের হিসাব অনুযায়ী, জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে কৃষি ও সেবা খাতে প্রবৃদ্ধি বেশ খানিকটা কমেছে। তবে শিল্প খাতে বেড়েছে

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সংকটের মধ্যেও চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ অর্জিত হয়েছে। এই তিন মাসে স্থিরমূল্যে এই জিডিপির আকার দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। অর্থবছরের সাড়ে সাত মাস চলে যাওয়ার পর বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) গত বৃহস্পতিবার জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রথম তিন মাসের এই তথ্য প্রকাশ করেছে।

বিবিএসের হিসাবে, ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে এই হার ছিল ৮ দশমিক ৭৬ শতাংশ। তার আগে ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৫ দশমিক ১৬ শতাংশ।

এই হিসাব বলছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে বাংলাদেশের অর্থনীতি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ বেড়েছে। অর্থাৎ এই তিন মাসে গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ বেড়েছে।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যে দেখা যায়, গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে স্থিরমূল্যে বাংলাদেশের জিডিপির আকার ছিল ১০ লাখ ৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বরে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা।

বিবিএসের হিসাব অনুযায়ী, জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে কৃষি ও সেবা খাতে প্রবৃদ্ধি বেশ খানিকটা কমেছে। তবে শিল্প খাতে বেড়েছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে কৃষি খাতে ২ দশমিক ০৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে তা কমে দশমিক ৮৪ শতাংশে নেমে এসেছে। শিল্প খাতে প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ১৭ শতাংশ থেকে বেড়ে ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশে উঠেছে। আর সেবা খাতের প্রবৃদ্ধি ১২ দশমিক ৮৭ শতাংশ থেকে কমে ৩ দশমিক ৯৬ শতাংশে নেমেছে।

চলতি অর্থবছরে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। অর্থনীতির চলমান এ অবস্থায় তা অর্জিত হওয়া নিয়ে অর্থনীতিবিদরা বাজেট ঘোষণার পর থেকেই সংশয় প্রকাশ করে আসছেন।

অর্থনীতির বর্তমান বাস্তবতায় অর্থমন্ত্রণালয় জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য কমানো হবে বলে জানিয়েছে। তবে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে প্রান্তিকভিত্তিক (তিন মাস পরপর) জিডিপি হিসাব প্রকাশ করছে পরিসংখ্যান ব্যুরো। ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫-১৬ থেকে ২০২১-২২ অর্থবছর পর্যন্ত প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপি প্রবৃদ্ধির তথ্য প্রকাশ করা হয়। এরপর ২১ নভেম্বর ২০১৫-১৬ থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছর পর্যন্ত তথ্য প্রকাশ করে বিবিএস। প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপি প্রবৃদ্ধির হিসাব প্রকাশ ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিক (জুলাই-সেপ্টেম্বর) দিয়েই শুরু করল পরিসংখ্যান ব্যুরো।

এর ফলে এখন প্রতি অর্থবছরে চারবার জিডিপির হিসাব পাওয়া যাবে। প্রতিবার আগের তিন মাসের জিডিপির গতিপ্রকৃতির চিত্র মিলবে। পরে বছর শেষে তা গড় করা হবে। দীর্ঘদিন ধরে প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপির হিসাব করার তাগিদ দিয়ে আসছিলেন দেশের গবেষক ও অর্থনীতিবিদেরা। দুই বছর আগে এ নিয়ে উদ্যোগও গ্রহণ করে বিবিএস। এজন্য সরকারের উচ্চপর্যায়ের অনুমোদনও নেয়া হয়।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছ থেকে ৪৭০ কোটি (৪.৭ বিলিয়ন) ডলার ঋণ নিচ্ছে বাংলাদেশ। এই ঋণের দুই কিস্তি ইতোমধ্যে পেয়েছে সরকার।

ঋণের শর্ত হিসেবে আইএমএফ বলেছে, তিন মাস পরপর জিডিপির হালনাগাদ হিসাব প্রস্তুত করতে হবে। পাশাপাশি শ্রমশক্তি জরিপও প্রান্তিকভিত্তিক করতে হবে। সেই শর্ত পূরণের অংশ হিসেবেই বিবিএস প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপির হিসাব প্রকাশ করছে। ইতোমধ্যে প্রান্তিকভিত্তিক শ্রমশক্তি জরিপ প্রকাশ শুরু হয়েছে।

এতদিন পুরো এক বছরের হিসাব দিয়ে দুইবার জিডিপির তথ্য প্রকাশ করত বিবিএস। সংশ্লিষ্ট অর্থবছরের প্রথম ছয়-সাত মাসের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে প্রথমে জিডিপির আকার, প্রবৃদ্ধিসহ সাময়িক হিসাব দেয়া হতো। পরে পুরো বছরের তথ্য নিয়ে প্রকাশ করা হতো জিডিপির চূড়ান্ত হিসাব।

প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপির হিসাব প্রকাশের নানা ধরনের সুবিধা আছে। সাধারণত কৃষি, শিল্প ও সেবাÑ এই তিন খাতের মূল্য সংযোজন দিয়ে জিডিপির হিসাব করা হয়। এজন্য মোটাদাগে ১৯টি খাতের তথ্য-উপাত্ত নেয়া হয়। এ তালিকায় আছে কৃষি, প্রাণিসম্পদ, কলকারখানা, খুচরা ও পাইকারি ব্যবসা, নির্মাণ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন, পরিবহন, শিল্প-সংস্কৃতি, গ্যাস-বিদ্যুৎ ইত্যাদি। তিন মাস পরপর হিসাব প্রকাশ করা হলে এসব খাতের মূল্য সংযোজন কত হলো, তা জানা যাবে। কোনো খাতের মূল্য সংযোজন কমে গেলে, সেই বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া যাবে।

ঈদের পর শেয়ারবাজার কিছুটা ভালো হতে শুরু করেছে

ছবি

দিনাজপুরে বাঁশ ফুলের চাল তৈরি

ছবি

অভিনেতা ওয়ালিউল হক রুমি মারা গেছেন

ছবি

বিআইপিডি’র অভিযোগ সঠিক নয় বলে দাবি করছে : এফএফআইএল

ছবি

চাহিদা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেলেও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে সরকার বদ্ধপরিকর

ছবি

রাজধানীতে ঈদের পরও চড়া সবজির বাজার

ছবি

সয়াবিন তেলের লিটার প্রতি দাম বাড়ল ৪ টাকা

ছবি

সূচকের পতনে পুঁজিবাজারে চলছে লেনদেন

ছবি

ব্যাংক এশিয়া কিনবে পাকিস্তানি ব্যাংক আলফালাহর বাংলাদেশ অংশ

ছবি

এ বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.৭%: আইএমএফ

ছবি

একীভূতকরণ প্রক্রিয়ায় থাকা ব্যাংক চাইলে সরে যেতে পারবে, তবে শর্তসাপেক্ষে : কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

পণ্যের দাম ঠিক রাখতে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে : প্রতিমন্ত্রী

ছবি

একীভূত ব্যাংক : পাঁচটির বাইরে আপাতত আর না

ছবি

ঈদে মানুষের মাঝে স্বস্তি দেখেছি : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বিশ্ব ব্যাংকের চেয়ে বেশি দেখছে এডিবি

ছবি

মার্চে দেশে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৯.৮১ শতাংশ

ছবি

ঈদের আগে পাঁচ দিনে দেশে এলো ৪৬ কোটি ডলার

ছবি

শিল্পাঞ্চলের বাইরের কারখানায় গ্যাস-বিদ্যুৎ আর নয়, পাবেনা ঋণও

এবার ঈদে পর্যটন খাত চাঙ্গা হওয়ার আশা

ছবি

জাতীয় লজিস্টিক নীতির খসড়ার অনুমোদন

সোনালীতে একীভূত হচ্ছে বিডিবিএল

ছবি

সোনার দাম আবার বাড়লো, ভরি ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৭৩ টাকা

ছবি

সিটি ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হচ্ছে রাষ্ট্রীয় বেসিক ব্যাংক

ছবি

বিজিএমইএর দায়িত্ব নিলেন এস এম মান্নান কচি

ছবি

বাজার মূলধন কিছুটা বাড়লো, তবু লাখ কোটি টাকার ওপরে ক্ষতি

ছবি

নতুন বিদেশী ঋণ নিয়ে পুরনো ঋণ শোধ করছে সরকার : সিপিডি

ছবি

ব্যাংক একীভুতকরনে নীতিমালা জারি

রাষ্ট্রীয় চার ব্যাংক একীভূত হয়ে হবে দুই

ছবি

এবার একীভূত হচ্ছে ‘সোনালীর সাথে বিডিবিএল’ ও ‘কৃষির সাথে রাকাব’

ছবি

শেয়ার প্রতি ১ পয়সা লভ্যাংশ দেবে একমি পেস্টিসাইড

এসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানী লিমিটেডের কর্মীদের জন্য মেটলাইফের বীমা সুরক্ষা

গাজীপুরে এক বছরে ট্রাফিক পুলিশের ৫ কোটি টাকা রাজস্ব আয়

ছবি

প্রবৃদ্ধি কমে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হবে: বিশ্বব্যাংক

ছবি

সিএসআর ফান্ডের আওতায় কৃষকদের আর্থিক সহযোগিতা করল সাউথইস্ট ব্যাংক

ছবি

ডেমরায় বাস গ্যারেজে আগুন

ছবি

নিত্যপণ্যের দাম বাড়লেও সেইহারে বাড়েনি তামাকপণ্যের দাম

tab

অর্থ-বাণিজ্য

# বিবিএসের হিসাব অনুযায়ী, জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে কৃষি ও সেবা খাতে প্রবৃদ্ধি বেশ খানিকটা কমেছে। তবে শিল্প খাতে বেড়েছে

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সংকটের মধ্যেও চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ অর্জিত হয়েছে। এই তিন মাসে স্থিরমূল্যে এই জিডিপির আকার দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। অর্থবছরের সাড়ে সাত মাস চলে যাওয়ার পর বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) গত বৃহস্পতিবার জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রথম তিন মাসের এই তথ্য প্রকাশ করেছে।

বিবিএসের হিসাবে, ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে এই হার ছিল ৮ দশমিক ৭৬ শতাংশ। তার আগে ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৫ দশমিক ১৬ শতাংশ।

এই হিসাব বলছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে বাংলাদেশের অর্থনীতি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ বেড়েছে। অর্থাৎ এই তিন মাসে গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ বেড়েছে।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যে দেখা যায়, গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে স্থিরমূল্যে বাংলাদেশের জিডিপির আকার ছিল ১০ লাখ ৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বরে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকা।

বিবিএসের হিসাব অনুযায়ী, জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে কৃষি ও সেবা খাতে প্রবৃদ্ধি বেশ খানিকটা কমেছে। তবে শিল্প খাতে বেড়েছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে কৃষি খাতে ২ দশমিক ০৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে তা কমে দশমিক ৮৪ শতাংশে নেমে এসেছে। শিল্প খাতে প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ১৭ শতাংশ থেকে বেড়ে ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশে উঠেছে। আর সেবা খাতের প্রবৃদ্ধি ১২ দশমিক ৮৭ শতাংশ থেকে কমে ৩ দশমিক ৯৬ শতাংশে নেমেছে।

চলতি অর্থবছরে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। অর্থনীতির চলমান এ অবস্থায় তা অর্জিত হওয়া নিয়ে অর্থনীতিবিদরা বাজেট ঘোষণার পর থেকেই সংশয় প্রকাশ করে আসছেন।

অর্থনীতির বর্তমান বাস্তবতায় অর্থমন্ত্রণালয় জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য কমানো হবে বলে জানিয়েছে। তবে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে প্রান্তিকভিত্তিক (তিন মাস পরপর) জিডিপি হিসাব প্রকাশ করছে পরিসংখ্যান ব্যুরো। ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫-১৬ থেকে ২০২১-২২ অর্থবছর পর্যন্ত প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপি প্রবৃদ্ধির তথ্য প্রকাশ করা হয়। এরপর ২১ নভেম্বর ২০১৫-১৬ থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছর পর্যন্ত তথ্য প্রকাশ করে বিবিএস। প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপি প্রবৃদ্ধির হিসাব প্রকাশ ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিক (জুলাই-সেপ্টেম্বর) দিয়েই শুরু করল পরিসংখ্যান ব্যুরো।

এর ফলে এখন প্রতি অর্থবছরে চারবার জিডিপির হিসাব পাওয়া যাবে। প্রতিবার আগের তিন মাসের জিডিপির গতিপ্রকৃতির চিত্র মিলবে। পরে বছর শেষে তা গড় করা হবে। দীর্ঘদিন ধরে প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপির হিসাব করার তাগিদ দিয়ে আসছিলেন দেশের গবেষক ও অর্থনীতিবিদেরা। দুই বছর আগে এ নিয়ে উদ্যোগও গ্রহণ করে বিবিএস। এজন্য সরকারের উচ্চপর্যায়ের অনুমোদনও নেয়া হয়।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছ থেকে ৪৭০ কোটি (৪.৭ বিলিয়ন) ডলার ঋণ নিচ্ছে বাংলাদেশ। এই ঋণের দুই কিস্তি ইতোমধ্যে পেয়েছে সরকার।

ঋণের শর্ত হিসেবে আইএমএফ বলেছে, তিন মাস পরপর জিডিপির হালনাগাদ হিসাব প্রস্তুত করতে হবে। পাশাপাশি শ্রমশক্তি জরিপও প্রান্তিকভিত্তিক করতে হবে। সেই শর্ত পূরণের অংশ হিসেবেই বিবিএস প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপির হিসাব প্রকাশ করছে। ইতোমধ্যে প্রান্তিকভিত্তিক শ্রমশক্তি জরিপ প্রকাশ শুরু হয়েছে।

এতদিন পুরো এক বছরের হিসাব দিয়ে দুইবার জিডিপির তথ্য প্রকাশ করত বিবিএস। সংশ্লিষ্ট অর্থবছরের প্রথম ছয়-সাত মাসের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে প্রথমে জিডিপির আকার, প্রবৃদ্ধিসহ সাময়িক হিসাব দেয়া হতো। পরে পুরো বছরের তথ্য নিয়ে প্রকাশ করা হতো জিডিপির চূড়ান্ত হিসাব।

প্রান্তিকভিত্তিক জিডিপির হিসাব প্রকাশের নানা ধরনের সুবিধা আছে। সাধারণত কৃষি, শিল্প ও সেবাÑ এই তিন খাতের মূল্য সংযোজন দিয়ে জিডিপির হিসাব করা হয়। এজন্য মোটাদাগে ১৯টি খাতের তথ্য-উপাত্ত নেয়া হয়। এ তালিকায় আছে কৃষি, প্রাণিসম্পদ, কলকারখানা, খুচরা ও পাইকারি ব্যবসা, নির্মাণ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন, পরিবহন, শিল্প-সংস্কৃতি, গ্যাস-বিদ্যুৎ ইত্যাদি। তিন মাস পরপর হিসাব প্রকাশ করা হলে এসব খাতের মূল্য সংযোজন কত হলো, তা জানা যাবে। কোনো খাতের মূল্য সংযোজন কমে গেলে, সেই বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া যাবে।

back to top