alt

অর্থ-বাণিজ্য

ভারত থেকে প্রথমবার ট্রেনে চাল আমদানি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১

দেশের চাহিদা পূরণ ও সরকারি মজুদ বাড়াতে ভারত থেকে প্রথমবারের মতো ট্রেনে করে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ৩২ টাকা ৭৩ পয়সা কেজি দরে ভারতের সৌভিক এক্সপোর্ট লিমিটেড থেকে ৫০ হাজার টন নন-বাসমতি সিদ্ধ চাল আমদানির অনুমোদন দিয়েছে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শাহিদা আক্তার জানান, রেলপথে ভারতের কলকাতা ও ছত্তিশগড় থেকে ট্রেনে বোঝাই করে বেনাপোল ও দর্শনা হয়ে বাংলাদেশে এই চাল প্রবেশ করবে। রেলপথে এটিই চালের প্রথম চালান হবে। এর আগে গত কয়েক মাসে ভারত থেকে কয়েক দফায় চাল আমদানির বিভিন্ন প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকার। দেশে মজুদ কমে যাওয়ায় ভারতের পাশাপাশি থাইল্যান্ড ও মিয়ানমার থেকেও সরকারিভাবে এবং বেসরকারি আমদানিকারকদেরও চাল আমদানির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। চলমান বোরো মৌসুমে মিলারদের কাছ থেকে ১১ লাখ টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। তাদের কাছ থেকে কেজি প্রতি ৪০ টাকা দরে চাল কেনা হবে। সেই হিসাবে বুধবার অনুমোদন দেয়ার আমদানির এই চালানে কেজিতে দর কম পড়ছে ৭ টাকা ২৭ পয়সা।

করোনাভাইরাস মহামারীতে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীসহ বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় বিতরণ বাড়লেও সেই অনুযায়ী সরকার চাল সংগ্রহ করতে পারেনি। গত আমন মৌসুমে কৃষকের কাছ থেকে ধান-চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রার ১০ ভাগও পূরণ হয়নি। ফলে দীর্ঘদিন পর মজুদ বাড়াতে আমদানির পরিমাণ বাড়িয়েছে সরকার। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব (বৈদেশিক সংগ্রহ) মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান জানান, বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে বিদেশ থেকে প্রায় ১৩ লাখ টন চাল সংগ্রহের পরিকল্পনা করেছে সরকার। এর মধ্যে কার্যাদেশ দেয়া সাড়ে ১০ লাখ টনে মধ্যে প্রায় চার লাখ টন চাল দেশে এসেছে।

রাজনৈতিক সঙ্কটে থাকা মিয়ানমার থেকেও একলাখ টন চাল আমদানির এলসি খুলেছিল সরকার। দেশটিতে সেনা শাসন ফিরে আসায় সেই কার্যাদেশ নিয়ে দেখা দিয়েছিল শঙ্কা।

মাহবুবুর রহমান জানান, মিয়ানমার থেকে চাল কেনার আদেশ সক্রিয় আছে। ইতোমধ্যে সেখান থেকে কিছু চাল দেশে এসেছে। বুধবার চালসহ সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মোট ১৪টি প্রস্তাব উপস্থাপনা হলেও অনুমোদন পেয়েছে আটটি। এর মধ্যে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে যুক্তরাষ্ট্রের এক্সিলারেট এনার্জির কাছ থেকে উন্মুক্ত দরে এলএনজির ১৩তম ও ১৪তম চালান কেনার দর প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়।

১৩তম চালানে ৩৩ লাখ ৬০ হাজার এমএমবিটিইউ এলএনজি কেনা হচ্ছে ৩১৮ কোটি ২৫ লাখ ৯৫ হাজার ৩৪৩ টাকায়। অর্থাৎ প্রতি এমএমবিটিইউর দাম পড়ছে ৯ দশমিক ৫৩ ডলার। ১৪তম চালানে একই পরিমাণ এলএনজির ইউনিট মূল্য পড়ছে ৮ দশমিক ৯৩ ডলার।

প্রতি বছরই বাড়ছে জীবনযাত্রার ব্যয়

ডেল্টা লাইফের বিরুদ্ধে করা আবেদন খারিজ

এডিপি বাস্তবায়ন মাত্র ৫৮.৩৬ শতাংশ

ছবি

টাকা পাচার রোধে ১৪টি আইন আসছে : অর্থমন্ত্রী

সূচকের সঙ্গে লেনদেনও বেড়েছে শেয়ারবাজারে

বিএসআরএম’র মুনাফা বেড়েছে ৪০০ শতাংশ

ছবি

মহামারীতেও দেশে শিল্পায়নের ধারা চলমান : শিল্পমন্ত্রী

চার দফা দাবিতে সিলেটে বিড়ি ভোক্তাদের সমাবেশ

এডিপি বাস্তবায়ন মাত্র ৫৮.৩৬ শতাংশ

সামান্য উত্থানেই লেনদেন দুই হাজার কোটির ঘরে

১১ কোম্পানির শেয়ার বিক্রি করতে চায় না কোন বিনিয়োগকারী

ছবি

অর্ধেক আসন খালি রেখে কনভেনশন হল খোলার দাবি

‘উপায়’ এর মাধ্যমে কর্মীদের বেতন দেবে ফ্যালকন গ্রুপ

তামাকের ন্যায্যমূল্যসহ ৬ দফা দাবি তামাক চাষি ও ব্যবসায়ীদের

বানকো সিকিউরিটিজের বিরুদ্ধে মামলার সিদ্ধান্ত ডিএসই’র

ওয়ান স্টপ সার্ভিস দিতে বেপজা ও পরিবেশ অধিদপ্তরের মধ্যে সমঝোতা

ছবি

সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন চলছে

ছবি

বীজ বিভাগকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

ছবি

কৃষিকে আধুনিক ও লাভজনক করতে নিরলস কাজ করছে সরকার: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

অর্ধেক আসন খালি রেখে কমিউনিটি সেন্টার খোলার দাবি

সূচক ও লেনদেন দুটোই কমেছে শেয়ারবাজারে

বাংলাদেশে ভ্যাট নিবন্ধন নিল ফেইসবুক

ছবি

রূপালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদে কাজী ছানাউল হকের যোগদান

চূড়ান্ত উৎপাদন শুরু করেছে রিং সাইন টেক্সটাইল

বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চলের শিল্প প্লট বরাদ্দ শুরু

খাবারের মান নিয়ন্ত্রণে দেড় কোটি টাকার বেশি জরিমানা

করোনায় অসচ্ছল মানুষের পাশে প্রাণ ইউএইচটি মিল্ক

বাজেট প্রতিক্রিয়ায় তামাক চাষি-ব্যবসায়ীদের সংবাদ সম্মেলন

ওয়ালটন ওয়াশিং মেশিনের নতুন প্রোডাকশন লাইন উদ্বোধন

ছবি

লেনদেনের ধীরগতিতে নিম্নমুখী সূচক

ছবি

বাংলাদেশের মোট বৈদেশিক দেনা ৬ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে

ছবি

সিনজেনটা বাংলাদেশ লিমিটেডের ২০% লভ্যাংশ ঘোষণা

ছবি

আমরা সংসদে আছি শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলার জন্য: সাবের হোসেন

শেয়ারবাজারে ১২ হাজার ৭০০ কোটি টাকার লেনদেন

ছবি

ব্যাংক হিসাবে চার্জমুক্ত থাকবে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত

ছবি

বাজেটের সুফল বাস্তবায়নের ওপর নির্ভরশীল

tab

অর্থ-বাণিজ্য

ভারত থেকে প্রথমবার ট্রেনে চাল আমদানি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১

দেশের চাহিদা পূরণ ও সরকারি মজুদ বাড়াতে ভারত থেকে প্রথমবারের মতো ট্রেনে করে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ৩২ টাকা ৭৩ পয়সা কেজি দরে ভারতের সৌভিক এক্সপোর্ট লিমিটেড থেকে ৫০ হাজার টন নন-বাসমতি সিদ্ধ চাল আমদানির অনুমোদন দিয়েছে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শাহিদা আক্তার জানান, রেলপথে ভারতের কলকাতা ও ছত্তিশগড় থেকে ট্রেনে বোঝাই করে বেনাপোল ও দর্শনা হয়ে বাংলাদেশে এই চাল প্রবেশ করবে। রেলপথে এটিই চালের প্রথম চালান হবে। এর আগে গত কয়েক মাসে ভারত থেকে কয়েক দফায় চাল আমদানির বিভিন্ন প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকার। দেশে মজুদ কমে যাওয়ায় ভারতের পাশাপাশি থাইল্যান্ড ও মিয়ানমার থেকেও সরকারিভাবে এবং বেসরকারি আমদানিকারকদেরও চাল আমদানির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। চলমান বোরো মৌসুমে মিলারদের কাছ থেকে ১১ লাখ টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। তাদের কাছ থেকে কেজি প্রতি ৪০ টাকা দরে চাল কেনা হবে। সেই হিসাবে বুধবার অনুমোদন দেয়ার আমদানির এই চালানে কেজিতে দর কম পড়ছে ৭ টাকা ২৭ পয়সা।

করোনাভাইরাস মহামারীতে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীসহ বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় বিতরণ বাড়লেও সেই অনুযায়ী সরকার চাল সংগ্রহ করতে পারেনি। গত আমন মৌসুমে কৃষকের কাছ থেকে ধান-চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রার ১০ ভাগও পূরণ হয়নি। ফলে দীর্ঘদিন পর মজুদ বাড়াতে আমদানির পরিমাণ বাড়িয়েছে সরকার। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব (বৈদেশিক সংগ্রহ) মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান জানান, বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে বিদেশ থেকে প্রায় ১৩ লাখ টন চাল সংগ্রহের পরিকল্পনা করেছে সরকার। এর মধ্যে কার্যাদেশ দেয়া সাড়ে ১০ লাখ টনে মধ্যে প্রায় চার লাখ টন চাল দেশে এসেছে।

রাজনৈতিক সঙ্কটে থাকা মিয়ানমার থেকেও একলাখ টন চাল আমদানির এলসি খুলেছিল সরকার। দেশটিতে সেনা শাসন ফিরে আসায় সেই কার্যাদেশ নিয়ে দেখা দিয়েছিল শঙ্কা।

মাহবুবুর রহমান জানান, মিয়ানমার থেকে চাল কেনার আদেশ সক্রিয় আছে। ইতোমধ্যে সেখান থেকে কিছু চাল দেশে এসেছে। বুধবার চালসহ সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মোট ১৪টি প্রস্তাব উপস্থাপনা হলেও অনুমোদন পেয়েছে আটটি। এর মধ্যে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে যুক্তরাষ্ট্রের এক্সিলারেট এনার্জির কাছ থেকে উন্মুক্ত দরে এলএনজির ১৩তম ও ১৪তম চালান কেনার দর প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়।

১৩তম চালানে ৩৩ লাখ ৬০ হাজার এমএমবিটিইউ এলএনজি কেনা হচ্ছে ৩১৮ কোটি ২৫ লাখ ৯৫ হাজার ৩৪৩ টাকায়। অর্থাৎ প্রতি এমএমবিটিইউর দাম পড়ছে ৯ দশমিক ৫৩ ডলার। ১৪তম চালানে একই পরিমাণ এলএনজির ইউনিট মূল্য পড়ছে ৮ দশমিক ৯৩ ডলার।

back to top