alt

অর্থ-বাণিজ্য

শেয়ারবাজার নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও বিএসইসির বৈঠক, সিদ্ধান্তের বিষয়ে কথা বলছেন না কেউ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মতবিরোধের মধ্যে মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) বৈঠকে বসে অর্থ মন্ত্রণালয়। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবং শেয়ারবাজার কার্যক্রম সমন্বয় ও তদারকি কমিটির আহ্বায়ক মফিজ উদ্দীন আহমেদ এতে সভাপতিত্ব করেন। প্রতীক্ষিত এই বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বিএসইসির প্রতিনিধিরা অংশ নেন। সকাল ১১টায় শুরু হওয়া এই বৈঠক চলে প্রায় আড়াই ঘণ্টা। তবে বৈঠকে কি বিষয়ে আলোচনা হয়েছে এবং কি ধরনের সিদ্ধান্ত এসেছে, তা নিয়ে কেউ কোনও কথা বলেননি।

বৈঠক শেষে অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দীন আহমেদের কক্ষ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকরা বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমানের কাছে বৈঠকের বিষয়ে জানতে চান। এ সময় তিনি বলেন, ‘বৈঠকের বিষয়ে নাহিদ ভাই (আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম সচিব ড. নাহিদ হোসেন) কথা বলবেন।’

এরপর সাংবাদিকরা যুগ্ম সচিব নাহিদ হোসেন এবং অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দীন আহমেদের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে তারা কথা বলতে চাননি। তাদের পক্ষ থেকে যুগ্ম সচিব নাহিদ হোসেন এবং বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, ‘বৈঠকে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।’

অবশ্য বৈঠকে কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে এবং কী ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে সে বিষয়ে কেউ কোনও কথা বলেননি।

এদিকে কয়েক মাস ধরে দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের মতো বিভিন্ন ইস্যুতে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে শেয়ারবাজারে। দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থার বিরোধ প্রকাশ্য রূপ নেয়ায় টানা আট কার্যদিবস দরপতন হয় শেয়ারবাজারে।

এ পরিস্থিতিতে ৩০ নভেম্বর বৈঠকে বসে এই দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বৈঠক শেষে বিএসইসি কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘শেয়ারবাজারের অদাবিকৃত ডিভিডেন্ড নিয়ে গঠিত স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডের ব্যাপারে একমত বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে বিষয়টি নিয়ে কিছু আইনগত অস্পষ্টতা রয়েছে। স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডের বিষয়ে কিছু আইনগত অস্পষ্টতা রয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে কথা হয়েছে। বিএসইসি-বাংলাদেশ ব্যাংক উভয়পক্ষ এ বিষয়ে আন্তরিক। আমাদের কারও সঙ্গে কারও কোনও মতবিরোধ নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘বৈঠকে আমার মনে হয়েছে শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বাংলাদেশ ব্যাংক খুবই আন্তরিক। যে কারণে তারা বন্ডে বিনিয়োগকে বিনিয়োগ সীমার বাহিরে রাখার অঙ্গীকার করেছেন। এছাড়া বিনিয়োগ সীমা গণনায় বাজার দরের পরিবর্তে কস্ট প্রাইসকে বিবেচনায় নেয়ার যে দীর্ঘদিনের চাহিদা রয়েছে। সেটাও তারা সমাধান করবেন। এ জন্য যা করণীয় তারা তাই করবেন।’

সাধারণ বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনারা বাজার নিয়ে হতাশ হবেন না। বাজার ভালো করার জন্য আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আমরা উভয় রেগুলেটরি বডি ভালো বাজারের জন্য যা যা করা দরকার তা করে যাবো।’

বিএসইসির পক্ষ থেকে এমন বক্তব্য আসার পর ১ ডিসেম্বর শেয়ারবাজারে বড় উত্থান হয়। ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক একদিনে বেড়ে যায় ১৪৩ পয়েন্ট। তবে সন্ধ্যার দিকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, বৈঠকে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়, শেয়ারবাজারে তফসিলি ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়ে বিএসইসির প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

এতে আরও বলা হয়, ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১ এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান ১৯৯৩-এ শেয়ারবাজারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগের বিষয়ে বিদ্যমান কতিপয় আইনি সীমাবদ্ধতার বিষয়ে বিএসইসির প্রতিনিধিদলকে স্পষ্ট করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু সভার পরে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের প্রতিনিধির বরাত দিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে ওই সভার কতিপয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের যে সংবাদ প্রচার করা হয়েছে, তা সঠিক নয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর একেএম সাজেদুর রহমান খানের সভাপতিত্বে বিএসইসির সঙ্গে পূর্ব নির্ধারিত এ সভা কেন্দ্রীয় ব্যাংক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিএসইসির উদ্যোগে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড গঠনের ফলে তফসিলি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন এবং পুঞ্জিভূত লোকসান বিদ্যমান থাকলেও সংশ্লিষ্ট বছরের মুনাফা হতে নগদ লভ্যাংশ বিতরণের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

এছাড়া সভায় ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১ এর ৩৫(১) (গ) ধারা ও ২২ ধারা এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন ১৯৯৩ এর ১০ ধারার বিষয়গুলো ব্যাখ্যা করা হয়। এক্ষেত্রে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অদাবিকৃত তহবিল স্থানান্তর এবং পুঞ্জিভূত লোকসান থাকা সত্ত্বেও নগদ লভ্যাংশ দেয়া আইনসম্মত নয় বলে অভিহিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে বিএসইসির নির্দেশনায় প্রয়োজনীয় সংশোধন আনতে অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

নতুন বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে এক বছর সময় চায় ব্যাংক মালিকরা

ছবি

প্রত্যাশা অনুযায়ী ক্রেতা আসছে না, বাণিজ্য মেলায় টিকিট বিক্রি কম

প্রাক-বাজেট আলোচনা শুরু ৬ ফেব্রুয়ারি

আগামী বছরই উৎপাদনে যাচ্ছে জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল

ব্যাংকে সব নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

তিন সপ্তাহ পর শেয়ারবাজারে পতন, মূলধন কমলো ২ হাজার ৩শ’ কোটি টাকা

ছবি

ঘুরে দাঁড়িয়েছে শিল্প-অবকাঠামো খাত, বৈশ্বিক ইস্পাত উৎপাদনে বড় উত্থান

ছবি

জেএমআই হসপিটালের আইপিওর আবেদন শুরু ২৭ ফেব্রুয়ারি

ছবি

শ্রীলঙ্কায় বেক্সিমকো ফার্মার বিনিয়োগের পথ সহজ হলো

ছবি

সাশ্রয়ী দামের ফাস্ট চার্জিং স্মার্টফোন ভিশন ৩

আরও ১২৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা গ্রামীণফোনের

ব্লক মার্কেটে ৩০ কোটি টাকার লেনদেন

খারাপ পরিস্থিতিতেও চলবে ব্যাংকে লেনদেন

ছবি

বিদেশে বিনিয়োগের সুযোগ দিয়ে বিধিমালা জারি

সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন

বাজেট প্রস্তাব চেয়েছে এনবিআর

ছবি

অর্থবছর শেষে মাথাপিছু আয় হবে দুই হাজার ৭৮৫ ডলার

ডিএসইতে সূচক বাড়লেও সিএসইতে পতন

কঠোর আইনের মাধ্যমে অর্থপাচার রোধ করেছে দ.কোরিয়া, বাংলাদেশেও দরকার

কিউকমে আটকে থাকা টাকা ফেরত পেতে শুরু করেছে গ্রাহকরা

ছবি

ব্যাংকারদের বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে সময় চায় মালিকপক্ষ

এটিএম বুথ ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ে নগদ টাকা বাড়ানোর নির্দেশ

বাস্তবায়ন হচ্ছে না বেসরকারি ব্যাংকের নতুন বেতন

পেপারবিহীন যুগে ডিএসই

পাঁচ ব্যাংকের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

ডিএসইতে সূচক বাড়লেও সিএসইতে পতন

ছবি

এবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর উদ্যোগ

আদালত মনোনীত ফার্ম দিয়ে ইভ্যালির অডিট করানো যাবে

অদক্ষতার অজুহাতে পদত্যাগে বাধ্য করা যাবে না, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ

ফ্রিজ, এসি আমদানিতে স্ট্যান্ডার্ড এনার্জি রেটিং আরোপের দাবি

ইউনিয়ন ব্যাংকের শেয়ার লেনদেন শুরু

বাণিজ্য মেলা বন্ধের সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি

ছবি

অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত ব্যাংককর্মীকে পদত্যাগে বাধ্য করা যাবে না

ছবি

করোনা মোকাবিলায় সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ

মূল্য সংশোধন শেষে ঘুরে দাঁড়িয়েছে পুঁজিবাজার

কিউকম গ্রাহকদের আটকে থাকা অর্থ ফেরত দেয়া শুরু

tab

অর্থ-বাণিজ্য

শেয়ারবাজার নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও বিএসইসির বৈঠক, সিদ্ধান্তের বিষয়ে কথা বলছেন না কেউ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মতবিরোধের মধ্যে মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) বৈঠকে বসে অর্থ মন্ত্রণালয়। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবং শেয়ারবাজার কার্যক্রম সমন্বয় ও তদারকি কমিটির আহ্বায়ক মফিজ উদ্দীন আহমেদ এতে সভাপতিত্ব করেন। প্রতীক্ষিত এই বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বিএসইসির প্রতিনিধিরা অংশ নেন। সকাল ১১টায় শুরু হওয়া এই বৈঠক চলে প্রায় আড়াই ঘণ্টা। তবে বৈঠকে কি বিষয়ে আলোচনা হয়েছে এবং কি ধরনের সিদ্ধান্ত এসেছে, তা নিয়ে কেউ কোনও কথা বলেননি।

বৈঠক শেষে অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দীন আহমেদের কক্ষ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকরা বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমানের কাছে বৈঠকের বিষয়ে জানতে চান। এ সময় তিনি বলেন, ‘বৈঠকের বিষয়ে নাহিদ ভাই (আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম সচিব ড. নাহিদ হোসেন) কথা বলবেন।’

এরপর সাংবাদিকরা যুগ্ম সচিব নাহিদ হোসেন এবং অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দীন আহমেদের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে তারা কথা বলতে চাননি। তাদের পক্ষ থেকে যুগ্ম সচিব নাহিদ হোসেন এবং বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, ‘বৈঠকে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।’

অবশ্য বৈঠকে কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে এবং কী ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে সে বিষয়ে কেউ কোনও কথা বলেননি।

এদিকে কয়েক মাস ধরে দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের মতো বিভিন্ন ইস্যুতে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে শেয়ারবাজারে। দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থার বিরোধ প্রকাশ্য রূপ নেয়ায় টানা আট কার্যদিবস দরপতন হয় শেয়ারবাজারে।

এ পরিস্থিতিতে ৩০ নভেম্বর বৈঠকে বসে এই দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বৈঠক শেষে বিএসইসি কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘শেয়ারবাজারের অদাবিকৃত ডিভিডেন্ড নিয়ে গঠিত স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডের ব্যাপারে একমত বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে বিষয়টি নিয়ে কিছু আইনগত অস্পষ্টতা রয়েছে। স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডের বিষয়ে কিছু আইনগত অস্পষ্টতা রয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে কথা হয়েছে। বিএসইসি-বাংলাদেশ ব্যাংক উভয়পক্ষ এ বিষয়ে আন্তরিক। আমাদের কারও সঙ্গে কারও কোনও মতবিরোধ নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘বৈঠকে আমার মনে হয়েছে শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বাংলাদেশ ব্যাংক খুবই আন্তরিক। যে কারণে তারা বন্ডে বিনিয়োগকে বিনিয়োগ সীমার বাহিরে রাখার অঙ্গীকার করেছেন। এছাড়া বিনিয়োগ সীমা গণনায় বাজার দরের পরিবর্তে কস্ট প্রাইসকে বিবেচনায় নেয়ার যে দীর্ঘদিনের চাহিদা রয়েছে। সেটাও তারা সমাধান করবেন। এ জন্য যা করণীয় তারা তাই করবেন।’

সাধারণ বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনারা বাজার নিয়ে হতাশ হবেন না। বাজার ভালো করার জন্য আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আমরা উভয় রেগুলেটরি বডি ভালো বাজারের জন্য যা যা করা দরকার তা করে যাবো।’

বিএসইসির পক্ষ থেকে এমন বক্তব্য আসার পর ১ ডিসেম্বর শেয়ারবাজারে বড় উত্থান হয়। ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক একদিনে বেড়ে যায় ১৪৩ পয়েন্ট। তবে সন্ধ্যার দিকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, বৈঠকে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়, শেয়ারবাজারে তফসিলি ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়ে বিএসইসির প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

এতে আরও বলা হয়, ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১ এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান ১৯৯৩-এ শেয়ারবাজারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগের বিষয়ে বিদ্যমান কতিপয় আইনি সীমাবদ্ধতার বিষয়ে বিএসইসির প্রতিনিধিদলকে স্পষ্ট করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু সভার পরে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের প্রতিনিধির বরাত দিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে ওই সভার কতিপয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের যে সংবাদ প্রচার করা হয়েছে, তা সঠিক নয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর একেএম সাজেদুর রহমান খানের সভাপতিত্বে বিএসইসির সঙ্গে পূর্ব নির্ধারিত এ সভা কেন্দ্রীয় ব্যাংক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিএসইসির উদ্যোগে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড গঠনের ফলে তফসিলি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন এবং পুঞ্জিভূত লোকসান বিদ্যমান থাকলেও সংশ্লিষ্ট বছরের মুনাফা হতে নগদ লভ্যাংশ বিতরণের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

এছাড়া সভায় ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১ এর ৩৫(১) (গ) ধারা ও ২২ ধারা এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন ১৯৯৩ এর ১০ ধারার বিষয়গুলো ব্যাখ্যা করা হয়। এক্ষেত্রে ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অদাবিকৃত তহবিল স্থানান্তর এবং পুঞ্জিভূত লোকসান থাকা সত্ত্বেও নগদ লভ্যাংশ দেয়া আইনসম্মত নয় বলে অভিহিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে বিএসইসির নির্দেশনায় প্রয়োজনীয় সংশোধন আনতে অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

back to top