alt

অর্থ-বাণিজ্য

আইনি জটিলতায় শিল্পনীতির সুবিধা নিতে পারছেন না উদ্যোক্তারা : এফবিসিসিআই

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২

জাতীয় শিল্পনীতি ২০২১ প্রণয়ন করতে যাচ্ছে সরকার। কিন্তু আইনি জটিলতার কারণে বর্তমান নীতিতে থাকা অনেক সুবিধার সুফল নিতে পারছেন না উদ্যোক্তারা। এমন অবস্থায় আগামী শিল্পনীতির আইনি ভিত্তি থাকা প্রয়োজন বলে মনে করেন এফবিসিসিআই’র শিল্প ও শিল্পনীতি বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) এফবিসিসিআই কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কমিটির প্রথম সভায় এসব কথা বলেন বক্তারা। তারা অভিযোগ করেন, দেশে বিদ্যমান বিভিন্ন নীতি একে অন্যের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এ কারণে নানা ক্ষেত্রে নীতি সুবিধা বঞ্চিত হতে হচ্ছে উদ্যোক্তাদের। ফলে স্থানীয় ও বিদেশি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ব্যাহত হচ্ছে শিল্পায়ন।

বৈঠকে এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ও শিল্প ও শিল্পনীতি বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির ডিরেক্টর-ইনচার্জ মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বলেন, ‘শিল্পনীতি বাস্তবায়নে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় থাকা জরুরি। এছাড়াও অর্থ, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রণালয়কে বিশেষায়িত করা প্রয়োজন। তিনি অভিযোগ করেন, বিসিক শিল্পনগরীতে কোন সেবা না পেলেও সার্ভিস চার্জ গুনতে হয় উদ্যোক্তাদের। সংশ্লিষ্ট শিল্পমালিকদের সঙ্গে আলোচনা না করেই কখনো কখনো এ চার্জ ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ বাড়ানো হচ্ছে। বিসিকের বিভিন্ন শিল্পনগরীতে জমির উচ্চমূল্যের কারণে শিল্পায়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।’

বিভিন্ন দেশ তাদের শিল্পের সুরক্ষা দিতে বিদেশি পণ্যে অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্কসহ নানা রকম বিধি নিষেধ আরোপ করে। বাংলাদেশকেও স্থানীয় শিল্প সুরক্ষায় এসব পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু। বৈঠকে স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদক ও রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি শামীম আহমেদ বলেন, অর্থনীতিতে ৫০ শতাংশের বেশি অবদান রাখে সেবাখাত। কিন্তু শিল্পনীতির খসড়া এ খাতকে যথাযথভাবে মূল্যায়ন করা হয়নি। অর্থনীতির বিকাশে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখলেও শিল্পনীতিতে তার উল্লেখ নেই। বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ক কর্তৃপক্ষের নীতি ও শিল্পনীতির মধ্যে অনেক অসামঞ্জস্য থাকায় বিদেশি বিনিয়োগকারীরা নিরুৎসাহীত হচ্ছেন বলে জানান তিনি।

জাতীয় শিল্পনীতি ২০২১ এর খসড়ার ওপরে আলোচনায় স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা বলেন, বিভিন্ন নীতির মধ্যে সমন্বয়হীনতা রয়েছে। শিল্পনীতিকে সর্বোচ্চ নীতি হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। যাতে অন্য কোন নীতি সাংঘর্ষিক হলে শিল্পনীতির বিধান অনুযায়ী উদ্যোক্তারা সুবিধা গ্রহণ করতে পারেন। নতুন শিল্পনীতিতে এলডিসি পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা, রপ্তানি পণ্যের বৈচিত্রকরণ, দক্ষ জনশক্তি তৈরি, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার ও এসএমই খাতকে গুরুত্ব দেয়া উচিত বলে মনে করেন তারা।

টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে বিভিন্ন দেশ সার্কুলার অর্থনীতির দিকে হাঁটছে এবং এ বিষয়ে এফবিসিসিআইও কাজ করছে। আগামী শিল্প নীতিতে সার্কুলার অর্থনীতি, ও লজিস্টিকস কে শিল্প হিসেবে ঘোষণা দিয়ে তা অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানান বক্তারা। নতুন নীতিতে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের সংজ্ঞা নির্ধারণে কর্মীর সংখ্যাকে হিসাব না করে টার্নওভার ও মূলধনের পরিমাণকে বিবেচনায় নেয়ার আহ্বান করেন স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা। এছাড়াও শিল্পের বিকাশে জমির সহজলভ্যতা ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণের নিশ্চয়তা চেয়েছেন উদ্যোক্তারা।

ব্যবসায়ীরা বলেন, ‘২২৭ টি পণ্য দেশে উৎপাদন করতে বিএসটিআই’র মান সনদ লাগে। অথচ আমদানির বেলায় এই মানসনদ লাগে মাত্র ৫৫টি পণ্যের। এই বৈষম্যের সুযোগ নিয়ে অনেক নিম্নমানের বিদেশি পণ্য দেশীয় বাজার দখল করেছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

দেশে শিল্প স্থাপনে ৩০টি সনদ লাগে, যা প্রতিবছর নবায়ন করতে হয়। অথচ ভিয়েতনামে এ সংখ্যা মাত্র ৫টি এবং নবায়ন করার কোন বিধান নেই। দেশি বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বাংলাদেশের সনদের সংখ্যা ৫টিতে নামিয়ে আনা এবং নবায়ন করার বিধান বাতিলের সুপারিশ আসে বৈঠকে।’

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব (নীতি) মো. সেলিম উল্লাহ খসড়া শিল্পনীতির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

ছবি

মূল্যস্ফীতি ও ডলারের দাম বৃদ্ধি ব্যাংক খাতে প্রধান দুই সমস্যা : ফজলে কবির

ছবি

ভোগ্যপণ্যের বাজার অস্থিতিশীল না করার আহ্বান এফবিসিসিআই নেতার

স্পেনের আলমেরিয়ার কৃষি মডেল দেশে প্রয়োগ করতে চান টিপু মুনশি

ছবি

২৬ প্রতিষ্ঠান পাচ্ছে জাতীয় উৎপাদনশীলতা পুরস্কার

স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে অবণ্টিত বোনাস শেয়ার প্রদান ৪ শতাংশ

ছবি

বড় দুই চ্যালেঞ্জে ব্যাংক খাত : গভর্নর

আজ শনিবার কিছু ব্যাংক খোলা থাকবে

ছবি

সবজির বাজার চড়া, বেড়েছে আটার দাম

ঋণের শর্ত সহজ করার দাবি নারী উদ্যোক্তাদের

ছবি

বাংলাদেশী উদ্ভাবন চালু হলো ইয়েমেনে

জাতীয় প্রেসক্লাবে পাঁচ দফা দাবিতে বিড়ি শ্রমিক সমাবেশ

ওয়েবওএস টিভির লাইসেন্সড ওইএম ম্যানুফ্যাকচারার হলো ওয়ালটন

অফিসিয়াল ফেইসবুক চালু করল বিএসইসি

পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানা এখন ১৬১

বাংলাদেশে খাদ্য সংরক্ষণ খাতে বিনিয়োগে করতে চায় সার্বিয়া

সার্কিট ব্রেকারের জন্য পতন ঠেকলো শেয়ারবাজারে

রেমিট্যান্সে পাঁচ শতাংশ প্রণোদনা দেয়ার প্রস্তাব

ছবি

পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনতে বিশেষ ব্যবস্থা থাকবে বাজেটে

ছবি

সোনার দাম কমলো ভরিতে ২৯১৬ টাকা

ছবি

ডলারের একক দর বেঁধে দিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

সূচক বেড়ে চলছে লেনদেন

ছবি

রাজস্ব আদায়ে ১০ মাসে ৩১ শতাংশ পিছিয়ে এনবিআর

পতনের বৃত্তেই ঘুরপাক খাচ্ছে শেয়ারবাজার

ছবি

আনারসের পাতা থেকে তৈরি হচ্ছে সুতা; রপ্তানি হচ্ছে নেদারল্যান্ডসে

বাংলাদেশের শেয়ারবাজারে ব্রোকারেজ ব্যবসায় আসছে শ্রীলঙ্কান কোম্পানি

অফিসিয়াল ফেইসবুক পেজ খুলবে বিএসইসি

বহুজাতিক কোম্পানির ‘চক্রান্ত’ প্রতিহত করতে বিড়ি শ্রমিকদের সমাবেশ

ছবি

বাংলাদেশের মান-সম্মান বিশ্বে বেড়েছে: অর্থমন্ত্রী

বিক্রয়চাপে ২৫৩ প্রতিষ্ঠানের দর পতন

অনিয়ম ও জালিয়াতির মাধ্যমে নেয়া ঋণে সুদ মওকুফ নয়

ছবি

বৈদেশিক মুদ্রায় চাপ কমাতে শতাধিক বিলাস পণ্যে শুল্কারোপ

একদিন পরই ফের পতন শেয়ারবাজারে

ছবি

১০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে ফার্স্ট লিড সিকিউরিটিজ

ব্যবসা-বাণিজ্য নতুন সম্ভাবনা খুঁজতে পশ্চিমবঙ্গ সফরে ডিসিসিআই প্রতিনিধিদল

দেশে প্রথম ‘কিচেন অ্যান্ড বাথ এক্সপো’ শুরু ২ জুন

সূচক বাড়লেও লেনদেনে ধীরগতি

tab

অর্থ-বাণিজ্য

আইনি জটিলতায় শিল্পনীতির সুবিধা নিতে পারছেন না উদ্যোক্তারা : এফবিসিসিআই

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২

জাতীয় শিল্পনীতি ২০২১ প্রণয়ন করতে যাচ্ছে সরকার। কিন্তু আইনি জটিলতার কারণে বর্তমান নীতিতে থাকা অনেক সুবিধার সুফল নিতে পারছেন না উদ্যোক্তারা। এমন অবস্থায় আগামী শিল্পনীতির আইনি ভিত্তি থাকা প্রয়োজন বলে মনে করেন এফবিসিসিআই’র শিল্প ও শিল্পনীতি বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) এফবিসিসিআই কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কমিটির প্রথম সভায় এসব কথা বলেন বক্তারা। তারা অভিযোগ করেন, দেশে বিদ্যমান বিভিন্ন নীতি একে অন্যের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এ কারণে নানা ক্ষেত্রে নীতি সুবিধা বঞ্চিত হতে হচ্ছে উদ্যোক্তাদের। ফলে স্থানীয় ও বিদেশি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ব্যাহত হচ্ছে শিল্পায়ন।

বৈঠকে এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ও শিল্প ও শিল্পনীতি বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির ডিরেক্টর-ইনচার্জ মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বলেন, ‘শিল্পনীতি বাস্তবায়নে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় থাকা জরুরি। এছাড়াও অর্থ, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রণালয়কে বিশেষায়িত করা প্রয়োজন। তিনি অভিযোগ করেন, বিসিক শিল্পনগরীতে কোন সেবা না পেলেও সার্ভিস চার্জ গুনতে হয় উদ্যোক্তাদের। সংশ্লিষ্ট শিল্পমালিকদের সঙ্গে আলোচনা না করেই কখনো কখনো এ চার্জ ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ বাড়ানো হচ্ছে। বিসিকের বিভিন্ন শিল্পনগরীতে জমির উচ্চমূল্যের কারণে শিল্পায়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।’

বিভিন্ন দেশ তাদের শিল্পের সুরক্ষা দিতে বিদেশি পণ্যে অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্কসহ নানা রকম বিধি নিষেধ আরোপ করে। বাংলাদেশকেও স্থানীয় শিল্প সুরক্ষায় এসব পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু। বৈঠকে স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদক ও রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি শামীম আহমেদ বলেন, অর্থনীতিতে ৫০ শতাংশের বেশি অবদান রাখে সেবাখাত। কিন্তু শিল্পনীতির খসড়া এ খাতকে যথাযথভাবে মূল্যায়ন করা হয়নি। অর্থনীতির বিকাশে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখলেও শিল্পনীতিতে তার উল্লেখ নেই। বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ক কর্তৃপক্ষের নীতি ও শিল্পনীতির মধ্যে অনেক অসামঞ্জস্য থাকায় বিদেশি বিনিয়োগকারীরা নিরুৎসাহীত হচ্ছেন বলে জানান তিনি।

জাতীয় শিল্পনীতি ২০২১ এর খসড়ার ওপরে আলোচনায় স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা বলেন, বিভিন্ন নীতির মধ্যে সমন্বয়হীনতা রয়েছে। শিল্পনীতিকে সর্বোচ্চ নীতি হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। যাতে অন্য কোন নীতি সাংঘর্ষিক হলে শিল্পনীতির বিধান অনুযায়ী উদ্যোক্তারা সুবিধা গ্রহণ করতে পারেন। নতুন শিল্পনীতিতে এলডিসি পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা, রপ্তানি পণ্যের বৈচিত্রকরণ, দক্ষ জনশক্তি তৈরি, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার ও এসএমই খাতকে গুরুত্ব দেয়া উচিত বলে মনে করেন তারা।

টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে বিভিন্ন দেশ সার্কুলার অর্থনীতির দিকে হাঁটছে এবং এ বিষয়ে এফবিসিসিআইও কাজ করছে। আগামী শিল্প নীতিতে সার্কুলার অর্থনীতি, ও লজিস্টিকস কে শিল্প হিসেবে ঘোষণা দিয়ে তা অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানান বক্তারা। নতুন নীতিতে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের সংজ্ঞা নির্ধারণে কর্মীর সংখ্যাকে হিসাব না করে টার্নওভার ও মূলধনের পরিমাণকে বিবেচনায় নেয়ার আহ্বান করেন স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা। এছাড়াও শিল্পের বিকাশে জমির সহজলভ্যতা ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণের নিশ্চয়তা চেয়েছেন উদ্যোক্তারা।

ব্যবসায়ীরা বলেন, ‘২২৭ টি পণ্য দেশে উৎপাদন করতে বিএসটিআই’র মান সনদ লাগে। অথচ আমদানির বেলায় এই মানসনদ লাগে মাত্র ৫৫টি পণ্যের। এই বৈষম্যের সুযোগ নিয়ে অনেক নিম্নমানের বিদেশি পণ্য দেশীয় বাজার দখল করেছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

দেশে শিল্প স্থাপনে ৩০টি সনদ লাগে, যা প্রতিবছর নবায়ন করতে হয়। অথচ ভিয়েতনামে এ সংখ্যা মাত্র ৫টি এবং নবায়ন করার কোন বিধান নেই। দেশি বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বাংলাদেশের সনদের সংখ্যা ৫টিতে নামিয়ে আনা এবং নবায়ন করার বিধান বাতিলের সুপারিশ আসে বৈঠকে।’

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব (নীতি) মো. সেলিম উল্লাহ খসড়া শিল্পনীতির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

back to top