alt

অর্থ-বাণিজ্য

রিজার্ভ কমা ভয়ের কিছু নয়, ‘কমফোর্ট জোনে’ বাংলাদেশ: গভর্নর

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ১৯ জুন ২০২২

দেশের অর্থনীতিতে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও ডলারের বিনিময় হারকে এখনকার চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেছেন, রিজার্ভ কমে আসায় ‘ভয়ের কিছু নেই’, বাংলাদেশ স্বস্তিদায়ক অবস্থানেই আছে।

শনিবার ‘বাংলাদেশে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসী কার্যে অর্থায়ন প্রতিরোধে বিএফআইইউর ২০ বছর’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তেব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে এ সেমিনারের আয়োজন করে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

গভর্নর বলেন, “আমাদের সামনে অর্থনীতিতে নতুন দুটি চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও ডলার এক্সচেঞ্জ রেট- একসঙ্গে এসেছে।’’

শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক দুর্দশার প্রেক্ষাপটে সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ এখনও ‘কমফোর্ট জোনে’ (স্বস্তিদায়ক অবস্থানে) রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘‘আমরা সারপ্লাসে (অতিরিক্ত) রয়েছি। রিজার্ভ কমে আসছে; এটি কিন্তু ভয়ের কোনো বিষয় না। আগে আরও বেশি ছিল, কিন্তু এটা কমে এসেছে। এটা ভয়ের বিষয় না।“

তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে ব্যাংকারদের সতর্ক থাকার পরামরর্শ দিয়ে ফজলে কবির বলেন, ‘‘গত অর্থবছরে (২০২০-২১) আমরা ডলার বেশি ক্রয় করেছি। এবার কিন্ত সেল করছি। সার, তেল, খাদ্যসহ কয়েকটি পণ্য আমদানিতে সরকারকে সাপোর্ট দিতে আমদানিতে ডলার বেশি ব্যবহৃত হয়েছে।’’

এজন্য রিজার্র্ভের উপর একটু চাপ পড়েছে বলেও জানান তিনি।

চলতি অর্থবছরের শুরু থেকে উচ্চ আমদানি ব্যয়ের চাপে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ কমে আসছে। বাংলাদেশের বর্তমান রিজার্ভ ৪১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। ২০২১ সালের অগাস্টে রিজার্ভ সর্বোচ্চ ৪৮ বিলিয়নের কিছুটা উপরে ছিল।

আমদানি ব্যয় বাড়তে থাকায় চাহিদার বিপরীতে সরবরাহ সংকটে ডলারের বিপরীতে টাকা মান হারাচ্ছে দ্রুত। ২০২১ সালের জুনে ৮৪ টাকা ৮০ পয়সায় থাকা প্রতি ডলার এখন বিনিময় হচ্ছে ৯২ টাকা ৮৫ পয়সায়।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এর মানদণ্ডে কোনো দেশের তিন মাসের আমদানি দায় মেটানোর মত বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থাকা মানে হচ্ছে তার পরিশোধ সক্ষমতা ভালো অবস্থানে রয়েছে।

সেই দিকে ইঙ্গিত করে গভর্নর বলেন, ‘‘আমাদের রিজার্ভ এখন ৪১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। তিন মাসের আমদানি দায় পরিশোধ করার মত রিজার্ভ থাকা মানেই হলো আমরা ভালো জায়গায় রয়েছি।

‘‘প্রতি মাসে সর্বোচ্চ হিসাবেও সাত বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন হয় আমদানি দায় মেটাতে। আর সরকারের কিছু দায়, সেবা পরিশোধ সব মিলিয়ে তিন মাসে সর্বোচ্চ ২৬ বিলিয়ন ডলারের প্রয়োজন হয়।’’

সেমিনারে আর্থিক খাতের প্রতিটি বিষয়ে ‘কমপ্লায়েন্স’ থাকার ওপর গুরুত্বারোপ করেন ফজলে কবির।

তিনি বলেন, “কমপ্লায়েন্স না হওয়ার ক্ষতি এর খরচের চেয়ে বেশি। লক্ষ্য রাখতে হবে অপরাধীরা যেন সক্রিয় না হয়ে উঠে।“

মানি লন্ডারিং আইনে সাইবার ও জুয়া সংক্রান্ত অপরাধ যুক্ত নেই জানিয়ে তিনি এ দুটি বিষয়কে আইনে যুক্ত করতে বিএফআইইউকে পরামর্শ দেন।

মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসটেন্স (এমএলএ) আরও সহজীকরণ করা বা সংশোধন করার বিষয়েও নজর দেওয়ার কথা বলেন তিনি।

সিলেটের বন্যা প্রসঙ্গে গভর্নর বলেন, “এখন ওই এলাকা থেকে ঋণের অর্থ আদায়ের কোনো প্রশ্নই আসে না। তাদের আরও নতুন ঋণ দেন। বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক দেখবে।’’

কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইতোমধ্যে ব্যাংকের সিএসআর তহবিল থেকে বন্যার্তদের ব্যয়ের জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে বলে জানান তিনি।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অর্থ মন্ত্রনালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ সবাইকে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার আহ্বান জানান। প্রণোদনা বাস্তবায়নে ব্যাংকগুলো ‘যথেষ্ট’ সহায়তা করেছে বলেও মনে করেন তিনি।

বিএফআইইউ প্রধান মাসুদ বিশ্বাস সভাপতিত্বে সেমিনারে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ (এবিবি) এর চেয়ারম্যান ও ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আরএফ হোসেন বলেন, ‘‘বিএফআইইউ এখন অনেক বড় পরিসরে কাজ করছে। এটি আনন্দের। তাদের মাধ্যমে ব্যাংকেও অনেক কর্মকর্তা প্রশিক্ষণ পেয়েছেন। এর সুফল ব্যাংকিং খাত পাচ্ছে।’’

রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম বলেন, ‘‘এখন ডলারের দর বেড়েছে। সামনে ঈদ রেমিটেন্স যেভাবে বাড়ার কথা, সেভাবে বাড়ছে না। আমরা মনে করি ঈদকে ঘিরে আরও বাড়বে। এজন্য খরচের বিষয়ে নীতি সহায়তা দিতে পারে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।’’

ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরফান আলী বলেন, ‘‘বৈষম্য কমাতে হলে সবাইকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনতে হবে। সকল লেনদেন যদি ব্যাংকের মাধ্যমে হয়, তাহলে অবৈধ অর্থের পরিমাণ কমে যাবে। উন্নয়নের সুফল সবাই পাবে।’’

সিটি ব্যাংকের ব্যবস্তাপনা পরিচালক মাসরুর আরেফিন বলেন, ‘‘মানি লন্ডারিংয়ের আওতায় এখনও সাইবার অপরাধ ও ই কমার্স খাতটি আসেনি। এটিও একটি বড় জগত আর্থিক অপরাধের।’’

ছবি

চাল আমদানির অনুমতি পাচ্ছে ৯৫ প্রতিষ্ঠান

শীর্ষ কোম্পানিগুলোর লেনদেনের দাপট কমেছে

ছবি

ব্যাংক মাস্কাট থেকে ৪৫ মিলিয়ন ডলার ঋণ পেল সিটি ব্যাংক

বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট হলেন রাইজার

ছবি

বন্যার কারণে নিত্যপণ্য ও সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী বিপাকে সাধারণ মানুষ

ছবি

বাণিজ্য ঘাটতি বাড়তে পারে ৩৭ বিলিয়ন ডলার পর্যন্ত

ছবি

‘ক্ষুদ্র শিল্পই অর্থনীতির মেরুদন্ড’

সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা ফিরলো শেয়ারবাজারে

নতুন ৩৩ খাদ্য স্থাপনাকে গ্রেডিং দিল বিএফএসএ

ছবি

আন্তর্জাতিক বাজারে কমলো জ্বালানি তেলের দাম

ছবি

নতুন অর্থবছরের বাজেট পাস, কাল থেকে কার্যকর

খাদ্য খাতের ১২ কোম্পানির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে

ছবি

ক্ষতিকর তামাক ছেড়ে ভুট্টা চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা

আগ্রহের শীর্ষে মেঘনা ইন্স্যুরেন্স

কৃষকদের বিশেষ প্রণোদনার মেয়াদ বাড়ল

গ্রামীণফোনের ৭ কোম্পানির শেয়ারে ক্রেতা নেই

সূচকের সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনও

অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে কারিগরি শিক্ষা

শনিবার ব্যাংক খোলা থাকবে

ছবি

কোরবানির চামড়া ক্রয়-বিক্রয়ে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা গ্রহণের নির্দেশ

ছবি

বিদ্যুৎ খাতে ৫১ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক

ছবি

মূল্যস্ফীতির চাপ সামাল দিতে ‘সংকোচনমুখী’ মুদ্রানীতি ঘোষণা

ছবি

বাংলাদেশকে ৭৫ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক

ছবি

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমলে এখানে হুট করে কমানো যায় না : বাণিজ্য সচিব

বাংলাদেশ-নেপাল বাণিজ্য সম্প্রসারণে ১.০৩ বিলিয়ন ডলার ঋণ বিশ্বব্যাংকের

সূচক বাড়লেও লেনদেন কমেছে শেয়ারবাজারে

ছবি

র‌্যাবের বহরে প্রগতির পাজেরো জীপ

ছবি

লিফট উৎপাদন শিল্পে সুরক্ষা দেয়া সরকারের ‘সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত’

ছবি

শুরুতে ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

জুনে ২৩ দিনে কমলো রেমিট্যান্স, তিন মাসের মধ্যে সবচেয়ে কম

সামান্য উত্থান শেয়ারবাজারে, সূচক, লেনদেন, দর বেড়েছে

নিম্নস্তরের সিগারেটের দাম না বাড়ালে বিড়ির অস্তিত্ব থাকবে না : বিড়ি শ্রমিক ইউনিয়ন

ছবি

ওয়ালটন হেডকোয়ার্টারে ওয়ার্ল্ড রেফ্রিজারেশন ডে উদ্যাপন

ছবি

ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক বাড়াতে এলজি ও র‌্যাংস-এর চুক্তি স্বাক্ষর

ছবি

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতায় আরলা ফুডস বাংলাদেশ

ছবি

টেকসই অর্থায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

tab

অর্থ-বাণিজ্য

রিজার্ভ কমা ভয়ের কিছু নয়, ‘কমফোর্ট জোনে’ বাংলাদেশ: গভর্নর

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

রোববার, ১৯ জুন ২০২২

দেশের অর্থনীতিতে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও ডলারের বিনিময় হারকে এখনকার চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেছেন, রিজার্ভ কমে আসায় ‘ভয়ের কিছু নেই’, বাংলাদেশ স্বস্তিদায়ক অবস্থানেই আছে।

শনিবার ‘বাংলাদেশে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসী কার্যে অর্থায়ন প্রতিরোধে বিএফআইইউর ২০ বছর’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তেব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে এ সেমিনারের আয়োজন করে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

গভর্নর বলেন, “আমাদের সামনে অর্থনীতিতে নতুন দুটি চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও ডলার এক্সচেঞ্জ রেট- একসঙ্গে এসেছে।’’

শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক দুর্দশার প্রেক্ষাপটে সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ এখনও ‘কমফোর্ট জোনে’ (স্বস্তিদায়ক অবস্থানে) রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘‘আমরা সারপ্লাসে (অতিরিক্ত) রয়েছি। রিজার্ভ কমে আসছে; এটি কিন্তু ভয়ের কোনো বিষয় না। আগে আরও বেশি ছিল, কিন্তু এটা কমে এসেছে। এটা ভয়ের বিষয় না।“

তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে ব্যাংকারদের সতর্ক থাকার পরামরর্শ দিয়ে ফজলে কবির বলেন, ‘‘গত অর্থবছরে (২০২০-২১) আমরা ডলার বেশি ক্রয় করেছি। এবার কিন্ত সেল করছি। সার, তেল, খাদ্যসহ কয়েকটি পণ্য আমদানিতে সরকারকে সাপোর্ট দিতে আমদানিতে ডলার বেশি ব্যবহৃত হয়েছে।’’

এজন্য রিজার্র্ভের উপর একটু চাপ পড়েছে বলেও জানান তিনি।

চলতি অর্থবছরের শুরু থেকে উচ্চ আমদানি ব্যয়ের চাপে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ কমে আসছে। বাংলাদেশের বর্তমান রিজার্ভ ৪১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। ২০২১ সালের অগাস্টে রিজার্ভ সর্বোচ্চ ৪৮ বিলিয়নের কিছুটা উপরে ছিল।

আমদানি ব্যয় বাড়তে থাকায় চাহিদার বিপরীতে সরবরাহ সংকটে ডলারের বিপরীতে টাকা মান হারাচ্ছে দ্রুত। ২০২১ সালের জুনে ৮৪ টাকা ৮০ পয়সায় থাকা প্রতি ডলার এখন বিনিময় হচ্ছে ৯২ টাকা ৮৫ পয়সায়।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এর মানদণ্ডে কোনো দেশের তিন মাসের আমদানি দায় মেটানোর মত বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থাকা মানে হচ্ছে তার পরিশোধ সক্ষমতা ভালো অবস্থানে রয়েছে।

সেই দিকে ইঙ্গিত করে গভর্নর বলেন, ‘‘আমাদের রিজার্ভ এখন ৪১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। তিন মাসের আমদানি দায় পরিশোধ করার মত রিজার্ভ থাকা মানেই হলো আমরা ভালো জায়গায় রয়েছি।

‘‘প্রতি মাসে সর্বোচ্চ হিসাবেও সাত বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন হয় আমদানি দায় মেটাতে। আর সরকারের কিছু দায়, সেবা পরিশোধ সব মিলিয়ে তিন মাসে সর্বোচ্চ ২৬ বিলিয়ন ডলারের প্রয়োজন হয়।’’

সেমিনারে আর্থিক খাতের প্রতিটি বিষয়ে ‘কমপ্লায়েন্স’ থাকার ওপর গুরুত্বারোপ করেন ফজলে কবির।

তিনি বলেন, “কমপ্লায়েন্স না হওয়ার ক্ষতি এর খরচের চেয়ে বেশি। লক্ষ্য রাখতে হবে অপরাধীরা যেন সক্রিয় না হয়ে উঠে।“

মানি লন্ডারিং আইনে সাইবার ও জুয়া সংক্রান্ত অপরাধ যুক্ত নেই জানিয়ে তিনি এ দুটি বিষয়কে আইনে যুক্ত করতে বিএফআইইউকে পরামর্শ দেন।

মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসটেন্স (এমএলএ) আরও সহজীকরণ করা বা সংশোধন করার বিষয়েও নজর দেওয়ার কথা বলেন তিনি।

সিলেটের বন্যা প্রসঙ্গে গভর্নর বলেন, “এখন ওই এলাকা থেকে ঋণের অর্থ আদায়ের কোনো প্রশ্নই আসে না। তাদের আরও নতুন ঋণ দেন। বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক দেখবে।’’

কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইতোমধ্যে ব্যাংকের সিএসআর তহবিল থেকে বন্যার্তদের ব্যয়ের জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে বলে জানান তিনি।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অর্থ মন্ত্রনালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ সবাইকে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার আহ্বান জানান। প্রণোদনা বাস্তবায়নে ব্যাংকগুলো ‘যথেষ্ট’ সহায়তা করেছে বলেও মনে করেন তিনি।

বিএফআইইউ প্রধান মাসুদ বিশ্বাস সভাপতিত্বে সেমিনারে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ (এবিবি) এর চেয়ারম্যান ও ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আরএফ হোসেন বলেন, ‘‘বিএফআইইউ এখন অনেক বড় পরিসরে কাজ করছে। এটি আনন্দের। তাদের মাধ্যমে ব্যাংকেও অনেক কর্মকর্তা প্রশিক্ষণ পেয়েছেন। এর সুফল ব্যাংকিং খাত পাচ্ছে।’’

রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম বলেন, ‘‘এখন ডলারের দর বেড়েছে। সামনে ঈদ রেমিটেন্স যেভাবে বাড়ার কথা, সেভাবে বাড়ছে না। আমরা মনে করি ঈদকে ঘিরে আরও বাড়বে। এজন্য খরচের বিষয়ে নীতি সহায়তা দিতে পারে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।’’

ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরফান আলী বলেন, ‘‘বৈষম্য কমাতে হলে সবাইকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনতে হবে। সকল লেনদেন যদি ব্যাংকের মাধ্যমে হয়, তাহলে অবৈধ অর্থের পরিমাণ কমে যাবে। উন্নয়নের সুফল সবাই পাবে।’’

সিটি ব্যাংকের ব্যবস্তাপনা পরিচালক মাসরুর আরেফিন বলেন, ‘‘মানি লন্ডারিংয়ের আওতায় এখনও সাইবার অপরাধ ও ই কমার্স খাতটি আসেনি। এটিও একটি বড় জগত আর্থিক অপরাধের।’’

back to top