alt

অর্থ-বাণিজ্য

করমুক্ত আয়সীমা ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর আহ্বান এমসিসিআইর

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ১৯ জুন ২০২২

ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী ব্যবসায়ী সংগঠন মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই)। রোববার (১৯ জুন) বাজেট পরবর্তী এক আলোচনায় সংগঠনটির সভাপতি এই আহ্বান জানান।

আলোচনায় তিনি বলেন, ‘যদিও করোনা সংক্রমন ও ইউক্রেন যুদ্ধের কথা বিবেচনা করে সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা করা হয়েছে, তবুও বর্তমান চলমান বন্য অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা বিচেনা করে এর আকার আরও বৃদ্ধিও প্রস্তাব করছি। এছাড়া মূল্যস্ফীতির কথা বিবেচনা করে ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা ৩ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪ লাখ টাকা করার প্রস্তাব করছি।’

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, ‘আগামী বাজেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ আমরা মহামারী এবং পুনরুদ্ধারের মধ্যে একটি ক্রান্তিকালীন পর্যায়ে আছি। গত দুই বছরে মহামারীর মাঝখানে জাতীয় বাজেট কেমন হতে পারে সে সম্পর্কে আমাদের কিছু অভিজ্ঞতা হয়েছে। এমসিসিআই প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিফলন হিসাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টির প্রতিশ্রুতির জন্য সরকারকে সাধুবাদ। সরকার তালিকাভুক্ত এবং অ-তালিকাভুক্ত উভয় কোম্পানির জন্য করপোরেট করের হার কমিয়েছে। এতে আমরা খুশি। তবে এই নিম্ন হারের জন্য নির্ধারিত শর্তগুলো বেশিরভাগ কোম্পানির জন্য পূরণ করা কঠিন হতে পারে। সরকার কিছু ক্ষেত্রে ট্যাক্স-ডিডাকশন-এ- সোর্স এর হার কমানোর বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং পারকুইজিট থ্রেশহোল্ডও বাড়িয়েছে।’

রপ্তানিমুখি শিল্পের আয়কর হারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য আয়কর হার যৌক্তিককরণ করা হয়েছে। যেহেতু উভয়ই বন্ডেড সুবিধা নিচ্ছে সেহেতু উৎপাদনকারী ইউনিটগুলোর মধ্যে উপ-কন্ট্রাক্টের অধীনে পণ্য সরবরাহের ওপর ভ্যাট ছাড়ের অনুমতি দেয়ার জন্য আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। এটা সব রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য প্রযোজ্য হওয়া উচিত।’

ডিজিটাল মুদ্রার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডিজিটাল মুদ্রার ওপর একটি গবেষণা জন্য বাজেটে বলা হয়েছে এবং ডিজিটাল ব্যাংক চালু করার উপায় খোঁজাকে সময়োপযোগী বলে মনে হচ্ছে। আমরা আনন্দিত, সরকার আমাদের দাবির প্রতি মনোযোগ দিয়েছে এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই বাজেটের অনেক ক্ষেত্রেই ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের চাহিদার দিক থেকে উন্নতির জন্য অনেক জায়গা রয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী বরাদ্দ এমন একটি ক্ষেত্র। হ্যাঁ, বরাদ্দ বেড়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও করোনা ভাইরাসের কথা বিবেচনা করে চলতি অর্থবছরের থেকে ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকা থেকে এর বরাদ্দ ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা করা হয়েছে। তারপরও বন্যার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ যা আমরা এই মুহূর্তে অতিক্রম করছি তাও দেশের জন্য আরেকটি চ্যালেঞ্জ হবে। অতএব আমরা বর্তমান আকার থেকে একটি যুক্তিসংগত পরিমাণে সামাজিক সুরক্ষা নেট বাজেট বাড়ানোর পরামর্শ দিচ্ছি।’

ব্যক্তিগত আয়কর সীমার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমার আকার একই রকম থেকে গেছে। আমরা ভেবেছিলাম, এটি বাড়ানো হবে। মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ হাজার ৮২৪ হওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করে, আমরা বিশ্বাস করি ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা ৪ লাখ টাকায় উন্নীত করা উচিত। সরকার একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ট্যাক্স প্রদানের মাধ্যমে কোন প্রশ্ন ছাড়াই কালো টাকা সাদা করার অনুমতি দেয়। এ ধরনের কর্মকান্ড সবসময় সৎ উদ্যোক্তা ও নাগরিকদের নিরুৎসাহিত করে।’

অনুষ্ঠানে আরও জানানো হয়, প্রস্তাবিত বাজেট পর্যবেক্ষণ করে চেম্বার আহ্বান জানাচ্ছে, প্রথমত, ন্যূনতম টার্নওভার ট্যাক্স অপসারণ করা উচিত কারণ এটি ডাবল ট্যাক্সেশনের দিকে পরিচালিত করে। দ্বিতীয়ত, নির্মাণ, অবকাঠামো ইত্যাদির মতো পরিষেবা যা কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে, তাদের কর-কাটা-অ্যাট-সোর্স (টিডিএস) হার কমানো উচিত। এই টিডিএস বর্তমান পরিস্থিতিতে পণ্য সরবরাহের টিডিএস স্তরে বজায় রাখা যেতে পারে। রপ্তানি নীতি ২০২১-২০২৪ অনুযায়ী, ২০২৪ অর্থবছরের মধ্যে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮০ বিলিয়ন ডলার। তবুও বর্তমান রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল স্তর মাত্র ৭.৫ বিলিয়ন। ৮০ বিলিয়ন রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে, ইডিএফ কমপক্ষে ১০ বিলিয়নে উন্নীত করা উচিত এবং সব রপ্তানিকারকদের কাছে অ্যাক্সেসযোগ্য করা উচিত। আমরা এখনো অনেক যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে ট্যাক্সের আওতার বাইরে দেখতে পাচ্ছি, যার কারণে করদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো আরও বেশি করে করের বোঝা হয়ে পড়ছে। এমসিসিআই বিশ্বাস করে, এটি দ্রুত সমাধান করা উচিত।

আলোচনা অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম, গবেষণা সংস্থা পিআরআইয়ের চেয়ারম্যান জায়েদী সাত্তার, পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘যখন বাংলাদেশ উন্নয়ন হচ্ছে তখন কিছু গবেষণা সংস্থা ও মিডিয়া ইতিবাচক বিষয়গুলো তুলে না ধরে নেতিবাচক বিষয়গুলো তুলে ধরছে। এগুলো ঠিক না। পাঁচমাস রেমিট্যান্স বেড়ে এক মাস কমলে সেই এক মাসকেই অতিরঞ্জিত করে তুলে ধরা হয়। অথচ আগের পাঁচ মাসের কোন খবর নেই। একইভাবে রিজার্ভ কমলেই হইচই পড়ে যায়। যখন বাড়ে তখন আর কোন নাম কথা নেই।’

আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘রাজস্ব আহরণে বাংলাদেশের অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। নতুন আইনে রাজস্ব কর্মকর্তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে ব্যবসায়ীদের ভোগান্তি আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এসব ভোগান্তি দূর করতে দ্রুত অটোমেশনে যাওয়া দরকার আমাদের।’

অনুষ্ঠানে এমসিসিআইয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

ছবি

সরকারের ইঙ্গিতের মধ্যেই তড়িঘড়ি করে ভোজ্যতেলের দাম কমালো ব্যবসায়ীরা

ছবি

এলডিসি গ্রাজুয়েশনের পরও কয়েক বছর বাজার সুবিধা প্রাপ্তির আশা করছি

ডন গ্লোবালের হাত ধরে চালু হতে যাচ্ছে প্রথম ইটিএফ

বড় পতন শেয়ারবাজারে, লেনদেন নেমেছে এক মাস আগের অবস্থানে

সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের জন্য এফবিসিসিআই’র ত্রাণ

ছবি

লিটারে ৬ টাকা কমল সয়াবিন তেলের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম দুদিনের মধ্যে কমতে পারে : বাণিজ্য সচিব

ছবি

পদ্মা সেতু উদ্বোধন : বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালো বিশ্বব্যাংক

ভোজ্যতেলের দাম কমানোর দাবি ক্যাবের

বেসিক বেতন ২০ হাজার টাকা চায় গার্মেন্ট শ্রমিকরা

সাপ্তাহিক লেনদেনের ২৮ শতাংশ ১০ কোম্পানির শেয়ারে

ছবি

ডুয়্যাল কারেন্সি মাস্টার কার্ড নিয়ে এলো ইসলামী ব্যাংক

শেষ হলো চতুর্থ ঢাকা কমার্শিয়াল অটোমোটিভ শো

ঢাকায় তিন দিনব্যাপী বাইক শো শুরু

‘শেয়ারবাজার থেকে মূলধন তুললে ব্যবসা পরিচালনা সহজ হবে’

ছবি

দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম সোয়েটার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ডিএসএসএল

ছবি

বিশ্ববাজারে কমেছে তেলের দাম, দেশে সমন্বয়ের দাবি

ছবি

ঊর্ধ্বমুখী আলু, ঝাঁজ বেড়েছে পেঁয়াজের

বন্ড ছাড়বে মালেক স্পিনিং

ছবি

পাকিস্তানের অর্থনীতি আমাদের চেয়ে ৪০ গুণ নিচে : বাণিজ্যমন্ত্রী

ব্যাংকে মুক্তিযোদ্ধা-বয়স্কদের দ্রুত সেবা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা

দর পতনের শীর্ষে অ্যাপেক্স ট্যানারি

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সূচক সামান্য বাড়লো

আগ্রহের শীর্ষে মেঘনা ইন্স্যুরেন্স

মেরিকোর লেনদেন চালু রোববার

ছবি

শিল্প খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ৩৩.৭৫%

রাশিয়া : চীন-ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য পুনর্বিন্যাস করছে

ছবি

আইডিয়া এবং বিইউপি: সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

দেশে কোটিপতিদের সংখ্যা বাড়ছে

পতনের বৃত্ত থেকে উত্থানে পুঁজিবাজার

ভবন নির্মাণে অস্বাভাবিক ব্যয়, আছিয়া সি ফুডসকে শোকজ

নাভানা ফার্মাসিটিক্যালসের বিডিং শুরু ৪ জুলাই

ছবি

মুদ্রানীতি আসছে ৩০ জুন

ওয়ান ব্যাংকের ৪০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন

ছবি

চড়া দামে গোখাদ্য কিনে ঈদে পর্যাপ্ত দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় চাঁদপুরের খামারিরা

ছবি

ই-ক্যাব নির্বাচন: আবারও সভাপতি শমী কায়সার, তমাল সাধারণ সম্পাদক

tab

অর্থ-বাণিজ্য

করমুক্ত আয়সীমা ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর আহ্বান এমসিসিআইর

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

রোববার, ১৯ জুন ২০২২

ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী ব্যবসায়ী সংগঠন মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই)। রোববার (১৯ জুন) বাজেট পরবর্তী এক আলোচনায় সংগঠনটির সভাপতি এই আহ্বান জানান।

আলোচনায় তিনি বলেন, ‘যদিও করোনা সংক্রমন ও ইউক্রেন যুদ্ধের কথা বিবেচনা করে সামাজিক সুরক্ষা খাতে বরাদ্দ ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা করা হয়েছে, তবুও বর্তমান চলমান বন্য অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা বিচেনা করে এর আকার আরও বৃদ্ধিও প্রস্তাব করছি। এছাড়া মূল্যস্ফীতির কথা বিবেচনা করে ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা ৩ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪ লাখ টাকা করার প্রস্তাব করছি।’

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, ‘আগামী বাজেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ আমরা মহামারী এবং পুনরুদ্ধারের মধ্যে একটি ক্রান্তিকালীন পর্যায়ে আছি। গত দুই বছরে মহামারীর মাঝখানে জাতীয় বাজেট কেমন হতে পারে সে সম্পর্কে আমাদের কিছু অভিজ্ঞতা হয়েছে। এমসিসিআই প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিফলন হিসাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টির প্রতিশ্রুতির জন্য সরকারকে সাধুবাদ। সরকার তালিকাভুক্ত এবং অ-তালিকাভুক্ত উভয় কোম্পানির জন্য করপোরেট করের হার কমিয়েছে। এতে আমরা খুশি। তবে এই নিম্ন হারের জন্য নির্ধারিত শর্তগুলো বেশিরভাগ কোম্পানির জন্য পূরণ করা কঠিন হতে পারে। সরকার কিছু ক্ষেত্রে ট্যাক্স-ডিডাকশন-এ- সোর্স এর হার কমানোর বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং পারকুইজিট থ্রেশহোল্ডও বাড়িয়েছে।’

রপ্তানিমুখি শিল্পের আয়কর হারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য আয়কর হার যৌক্তিককরণ করা হয়েছে। যেহেতু উভয়ই বন্ডেড সুবিধা নিচ্ছে সেহেতু উৎপাদনকারী ইউনিটগুলোর মধ্যে উপ-কন্ট্রাক্টের অধীনে পণ্য সরবরাহের ওপর ভ্যাট ছাড়ের অনুমতি দেয়ার জন্য আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। এটা সব রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য প্রযোজ্য হওয়া উচিত।’

ডিজিটাল মুদ্রার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডিজিটাল মুদ্রার ওপর একটি গবেষণা জন্য বাজেটে বলা হয়েছে এবং ডিজিটাল ব্যাংক চালু করার উপায় খোঁজাকে সময়োপযোগী বলে মনে হচ্ছে। আমরা আনন্দিত, সরকার আমাদের দাবির প্রতি মনোযোগ দিয়েছে এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই বাজেটের অনেক ক্ষেত্রেই ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের চাহিদার দিক থেকে উন্নতির জন্য অনেক জায়গা রয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী বরাদ্দ এমন একটি ক্ষেত্র। হ্যাঁ, বরাদ্দ বেড়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও করোনা ভাইরাসের কথা বিবেচনা করে চলতি অর্থবছরের থেকে ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকা থেকে এর বরাদ্দ ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা করা হয়েছে। তারপরও বন্যার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ যা আমরা এই মুহূর্তে অতিক্রম করছি তাও দেশের জন্য আরেকটি চ্যালেঞ্জ হবে। অতএব আমরা বর্তমান আকার থেকে একটি যুক্তিসংগত পরিমাণে সামাজিক সুরক্ষা নেট বাজেট বাড়ানোর পরামর্শ দিচ্ছি।’

ব্যক্তিগত আয়কর সীমার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমার আকার একই রকম থেকে গেছে। আমরা ভেবেছিলাম, এটি বাড়ানো হবে। মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ হাজার ৮২৪ হওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করে, আমরা বিশ্বাস করি ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা ৪ লাখ টাকায় উন্নীত করা উচিত। সরকার একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ট্যাক্স প্রদানের মাধ্যমে কোন প্রশ্ন ছাড়াই কালো টাকা সাদা করার অনুমতি দেয়। এ ধরনের কর্মকান্ড সবসময় সৎ উদ্যোক্তা ও নাগরিকদের নিরুৎসাহিত করে।’

অনুষ্ঠানে আরও জানানো হয়, প্রস্তাবিত বাজেট পর্যবেক্ষণ করে চেম্বার আহ্বান জানাচ্ছে, প্রথমত, ন্যূনতম টার্নওভার ট্যাক্স অপসারণ করা উচিত কারণ এটি ডাবল ট্যাক্সেশনের দিকে পরিচালিত করে। দ্বিতীয়ত, নির্মাণ, অবকাঠামো ইত্যাদির মতো পরিষেবা যা কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে, তাদের কর-কাটা-অ্যাট-সোর্স (টিডিএস) হার কমানো উচিত। এই টিডিএস বর্তমান পরিস্থিতিতে পণ্য সরবরাহের টিডিএস স্তরে বজায় রাখা যেতে পারে। রপ্তানি নীতি ২০২১-২০২৪ অনুযায়ী, ২০২৪ অর্থবছরের মধ্যে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮০ বিলিয়ন ডলার। তবুও বর্তমান রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল স্তর মাত্র ৭.৫ বিলিয়ন। ৮০ বিলিয়ন রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে, ইডিএফ কমপক্ষে ১০ বিলিয়নে উন্নীত করা উচিত এবং সব রপ্তানিকারকদের কাছে অ্যাক্সেসযোগ্য করা উচিত। আমরা এখনো অনেক যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে ট্যাক্সের আওতার বাইরে দেখতে পাচ্ছি, যার কারণে করদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো আরও বেশি করে করের বোঝা হয়ে পড়ছে। এমসিসিআই বিশ্বাস করে, এটি দ্রুত সমাধান করা উচিত।

আলোচনা অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম, গবেষণা সংস্থা পিআরআইয়ের চেয়ারম্যান জায়েদী সাত্তার, পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘যখন বাংলাদেশ উন্নয়ন হচ্ছে তখন কিছু গবেষণা সংস্থা ও মিডিয়া ইতিবাচক বিষয়গুলো তুলে না ধরে নেতিবাচক বিষয়গুলো তুলে ধরছে। এগুলো ঠিক না। পাঁচমাস রেমিট্যান্স বেড়ে এক মাস কমলে সেই এক মাসকেই অতিরঞ্জিত করে তুলে ধরা হয়। অথচ আগের পাঁচ মাসের কোন খবর নেই। একইভাবে রিজার্ভ কমলেই হইচই পড়ে যায়। যখন বাড়ে তখন আর কোন নাম কথা নেই।’

আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘রাজস্ব আহরণে বাংলাদেশের অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। নতুন আইনে রাজস্ব কর্মকর্তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে ব্যবসায়ীদের ভোগান্তি আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এসব ভোগান্তি দূর করতে দ্রুত অটোমেশনে যাওয়া দরকার আমাদের।’

অনুষ্ঠানে এমসিসিআইয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

back to top