alt

অর্থ-বাণিজ্য

বাড়েনি রেমিট্যান্স প্রবাহ : ১৬ দিনে এলো ৯৬ কোটি ডলার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : সোমবার, ২০ জুন ২০২২

বিভিন্ন ছাড় ও নানা সুবিধা দেওয়ার পরও আশানুরূপভাবে বাড়ছে না রেমিট্যান্স প্রবাহ। চলতি জুনের প্রথম ১৬ দিনে ৯৬ কো‌টি ৪১ লাখ ( ৯৬৪ মিলিয়ন) মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছে বাংলাদেশে। দেশীয় মুদ্রায় (প্র‌তি ডলার ৯৩ টাকা ধ‌রে) যার পরিমাণ ৮ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। চলমান ধারা অব্যাহত থাকলে মাসের শেষে প্রবাসী আয়ের পরিমাণ ১৮০ কোটি ডলার হবে।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যাংকের চেয়ে খোলা বাজারে ডলারের দামের ব্যবধান বেশি থাকে। তখন বৈধ চ্যানেলের চেয়ে হুন্ডিতে রেমিট্যান্স বেশি আসে। বর্তমানে এক ডলার রেমিট্যান্সের বিপরীতে ব্যাংক ৯৩-৯৪ টাকা দিচ্ছে। সঙ্গে যোগ হচ্ছে সরকারের আড়াই শতাংশ প্রণোদনা। সব মিলিয়ে গ্রাহক ৯৫ থেকে ৯৬ টাকা পান।

কিন্তু খোলা বাজারে ডলার ৯৭ থেকে ৯৮ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এর মানে ব্যাংকিং চ্যানেলের চেয়ে ভিন্ন পথে রেমিট্যান্স আসলে বেশি টাকা পাওয়া যাচ্ছে। যার কারণে বৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রবাহ কম। তাই ব্যাংকের সঙ্গে খোলা বাজারের ডলারের রেটের ব্যবধান না কমলে প্রবাসী আয় বাড়ানো কঠিন হবে।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম বলছেন, সব সময় ঈদের আগে বেশি রেমিট্যান্স আসে। সামনে কোরবানির ঈদ। আশা করছি প্রবাসী আয়ের প্রবাহ বাড়বে।

এদিকে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ব্যাংকারদের সঙ্গে আলোচনা করে মাসের শুরুতে মার্কিন ডলারের রেট বাণিজ্যিক ব্যাংকের হাতে ছেড়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন প্রতিযোগিতামূলক দর নির্ধারণ করছে ব্যাংকগুলো।

এর আগে অবাধে যতো খুশি ততো রেমিট্যান্স পাঠানোর পথ সহজ করে দিয়ে গত ২৩ মে সার্কুলার জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ফলে এখন পাঁচ হাজার ডলারের ওপর বা ৫ লাখ টাকার বেশি রেমিট্যান্স আসলেও কোনো কাগজপত্র ছাড়াই প্রণোদনা পাচ্ছেন প্রবাসীরা। আগে পাঁচ হাজার ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠাতে বৈধ কাগজপত্র জমা দেওয়া বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু তারপরও রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়েনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সবশেষ তথ্য বলছে, জুনের প্রথম ১৬ দিনে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ১৬ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ৭৭ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৫১ লাখ মার্কিন ডলার। আর বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে এক কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার।

চলতি মাসের প্রথম ১৬ দিনে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ১৯ কোটি ৫৭ লাখ ডলার। এরপর ডাচ্–বাংলা ব্যাংক ৮ কোটি ২১ লাখ, অগ্রণী ব্যাংকে ৬ কোটি ৯২ লাখ ও সিটি ব্যাংক ৬ কোটি ১৪ লাখ, সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৫ কোটি ১৩ লাখ ডলার প্রবাসী আয়।

আলোচিত সময়ে সরকারি বিডিবিএল, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, পুলিশের কমিউনিটি ব্যাংক বিদেশি ব্যাংক আল-ফালাহ, হাবিব ব্যাংক ও ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার মাধ্যমে কোনো রেমিট্যান্স আসেনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, গত মে মাসে ১৮৮ কোটি ৫৪ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এ অংক আগের মাসের চেয়ে প্রায় ১২ কোটি ৫৫ লাখ ডলার কম। এপ্রিলে রেমিট্যান্স এসেছিল ২০১ কোটি ৮ লাখ ডলার।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ১১ মাসে (জুলাই-মে) দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ৯১৯ কোটি ডলার ৪৪ লাখ ডলার; বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ১ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৮৭ কোটি ১৫ লাখ, আগস্টে ১৮১ কোটি, সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ, অক্টোবরে ১৬৪ কোটি ৬৮ লাখ, নভেম্বর ১৫৫ কোটি ৩৭ লাখ, ডিসেম্বরে ১৬৩ কোটি এবং জানুয়ারিতে এসেছে ১৭০ কোটি ৪৫ লাখ ডলার। ফেব্রুয়ারিতে আসে ১৪৯ কোটি ৪৪ লাখ, মার্চে পাঠিয়েছিল ১৮৫ কোটি ৯৭ লাখ, এপ্রিলে ২০১ কোটি ৮ লাখ, মে মাসে ১৮৮ কোটি ৫৪ লাখ ডলার এসেছে।

গত ২০২০-২১ অর্থবছরের পুরো সময়ে রেমিট্যান্সের উল্লম্ফন ছিল। ওই অর্থবছরে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ২ হাজার ৪৭৮ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা, যা তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ৩৬ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের ১২ মাসের মধ্যে সাত মাসেই ২০০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে দেশে।

বৈদেশিক মুদ্রার সংকট নিরসনে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ডলারের বিপরীতে টাকার মান ধারাবাহিকভাবে কমাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলার কিনতে খরচ করতে হচ্ছে ৯২ টাকা ৮০ পয়সা। অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংক সরকারি আমদানি বিল মেটাতে এই দরে ব্যাংকগুলোর কাছে ডলার বিক্রি করছে। নিয়ম অনুযায়ী এটাই ডলারের আনুষ্ঠানিক দর।

তবে বিভিন্ন ব্যাংক ও কার্ব মার্কেটে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আজ ব্যাংকগুলো আমদানি বিলের জন্য নিচ্ছে ৯৪ থেকে ৯৫ টাকা, নগদ ডলার বিক্রি করছে ৯৬ থেকে ৯৭ টাকায়। আর ব্যাংকের বাইরে খোলাবাজার বা কার্ব মার্কেটে ডলার বিক্রি হচ্ছে ৯৭ থেকে ৯৮ টাকায়।

ছবি

সরকারের ইঙ্গিতের মধ্যেই তড়িঘড়ি করে ভোজ্যতেলের দাম কমালো ব্যবসায়ীরা

ছবি

এলডিসি গ্রাজুয়েশনের পরও কয়েক বছর বাজার সুবিধা প্রাপ্তির আশা করছি

ডন গ্লোবালের হাত ধরে চালু হতে যাচ্ছে প্রথম ইটিএফ

বড় পতন শেয়ারবাজারে, লেনদেন নেমেছে এক মাস আগের অবস্থানে

সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের জন্য এফবিসিসিআই’র ত্রাণ

ছবি

লিটারে ৬ টাকা কমল সয়াবিন তেলের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম দুদিনের মধ্যে কমতে পারে : বাণিজ্য সচিব

ছবি

পদ্মা সেতু উদ্বোধন : বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালো বিশ্বব্যাংক

ভোজ্যতেলের দাম কমানোর দাবি ক্যাবের

বেসিক বেতন ২০ হাজার টাকা চায় গার্মেন্ট শ্রমিকরা

সাপ্তাহিক লেনদেনের ২৮ শতাংশ ১০ কোম্পানির শেয়ারে

ছবি

ডুয়্যাল কারেন্সি মাস্টার কার্ড নিয়ে এলো ইসলামী ব্যাংক

শেষ হলো চতুর্থ ঢাকা কমার্শিয়াল অটোমোটিভ শো

ঢাকায় তিন দিনব্যাপী বাইক শো শুরু

‘শেয়ারবাজার থেকে মূলধন তুললে ব্যবসা পরিচালনা সহজ হবে’

ছবি

দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম সোয়েটার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ডিএসএসএল

ছবি

বিশ্ববাজারে কমেছে তেলের দাম, দেশে সমন্বয়ের দাবি

ছবি

ঊর্ধ্বমুখী আলু, ঝাঁজ বেড়েছে পেঁয়াজের

বন্ড ছাড়বে মালেক স্পিনিং

ছবি

পাকিস্তানের অর্থনীতি আমাদের চেয়ে ৪০ গুণ নিচে : বাণিজ্যমন্ত্রী

ব্যাংকে মুক্তিযোদ্ধা-বয়স্কদের দ্রুত সেবা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা

দর পতনের শীর্ষে অ্যাপেক্স ট্যানারি

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সূচক সামান্য বাড়লো

আগ্রহের শীর্ষে মেঘনা ইন্স্যুরেন্স

মেরিকোর লেনদেন চালু রোববার

ছবি

শিল্প খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ৩৩.৭৫%

রাশিয়া : চীন-ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য পুনর্বিন্যাস করছে

ছবি

আইডিয়া এবং বিইউপি: সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

দেশে কোটিপতিদের সংখ্যা বাড়ছে

পতনের বৃত্ত থেকে উত্থানে পুঁজিবাজার

ভবন নির্মাণে অস্বাভাবিক ব্যয়, আছিয়া সি ফুডসকে শোকজ

নাভানা ফার্মাসিটিক্যালসের বিডিং শুরু ৪ জুলাই

ছবি

মুদ্রানীতি আসছে ৩০ জুন

ওয়ান ব্যাংকের ৪০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন

ছবি

চড়া দামে গোখাদ্য কিনে ঈদে পর্যাপ্ত দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় চাঁদপুরের খামারিরা

ছবি

ই-ক্যাব নির্বাচন: আবারও সভাপতি শমী কায়সার, তমাল সাধারণ সম্পাদক

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বাড়েনি রেমিট্যান্স প্রবাহ : ১৬ দিনে এলো ৯৬ কোটি ডলার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

সোমবার, ২০ জুন ২০২২

বিভিন্ন ছাড় ও নানা সুবিধা দেওয়ার পরও আশানুরূপভাবে বাড়ছে না রেমিট্যান্স প্রবাহ। চলতি জুনের প্রথম ১৬ দিনে ৯৬ কো‌টি ৪১ লাখ ( ৯৬৪ মিলিয়ন) মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছে বাংলাদেশে। দেশীয় মুদ্রায় (প্র‌তি ডলার ৯৩ টাকা ধ‌রে) যার পরিমাণ ৮ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। চলমান ধারা অব্যাহত থাকলে মাসের শেষে প্রবাসী আয়ের পরিমাণ ১৮০ কোটি ডলার হবে।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যাংকের চেয়ে খোলা বাজারে ডলারের দামের ব্যবধান বেশি থাকে। তখন বৈধ চ্যানেলের চেয়ে হুন্ডিতে রেমিট্যান্স বেশি আসে। বর্তমানে এক ডলার রেমিট্যান্সের বিপরীতে ব্যাংক ৯৩-৯৪ টাকা দিচ্ছে। সঙ্গে যোগ হচ্ছে সরকারের আড়াই শতাংশ প্রণোদনা। সব মিলিয়ে গ্রাহক ৯৫ থেকে ৯৬ টাকা পান।

কিন্তু খোলা বাজারে ডলার ৯৭ থেকে ৯৮ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এর মানে ব্যাংকিং চ্যানেলের চেয়ে ভিন্ন পথে রেমিট্যান্স আসলে বেশি টাকা পাওয়া যাচ্ছে। যার কারণে বৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রবাহ কম। তাই ব্যাংকের সঙ্গে খোলা বাজারের ডলারের রেটের ব্যবধান না কমলে প্রবাসী আয় বাড়ানো কঠিন হবে।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম বলছেন, সব সময় ঈদের আগে বেশি রেমিট্যান্স আসে। সামনে কোরবানির ঈদ। আশা করছি প্রবাসী আয়ের প্রবাহ বাড়বে।

এদিকে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ব্যাংকারদের সঙ্গে আলোচনা করে মাসের শুরুতে মার্কিন ডলারের রেট বাণিজ্যিক ব্যাংকের হাতে ছেড়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন প্রতিযোগিতামূলক দর নির্ধারণ করছে ব্যাংকগুলো।

এর আগে অবাধে যতো খুশি ততো রেমিট্যান্স পাঠানোর পথ সহজ করে দিয়ে গত ২৩ মে সার্কুলার জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ফলে এখন পাঁচ হাজার ডলারের ওপর বা ৫ লাখ টাকার বেশি রেমিট্যান্স আসলেও কোনো কাগজপত্র ছাড়াই প্রণোদনা পাচ্ছেন প্রবাসীরা। আগে পাঁচ হাজার ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠাতে বৈধ কাগজপত্র জমা দেওয়া বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু তারপরও রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়েনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সবশেষ তথ্য বলছে, জুনের প্রথম ১৬ দিনে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ১৬ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ৭৭ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৫১ লাখ মার্কিন ডলার। আর বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে এক কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার।

চলতি মাসের প্রথম ১৬ দিনে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ১৯ কোটি ৫৭ লাখ ডলার। এরপর ডাচ্–বাংলা ব্যাংক ৮ কোটি ২১ লাখ, অগ্রণী ব্যাংকে ৬ কোটি ৯২ লাখ ও সিটি ব্যাংক ৬ কোটি ১৪ লাখ, সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৫ কোটি ১৩ লাখ ডলার প্রবাসী আয়।

আলোচিত সময়ে সরকারি বিডিবিএল, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, পুলিশের কমিউনিটি ব্যাংক বিদেশি ব্যাংক আল-ফালাহ, হাবিব ব্যাংক ও ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার মাধ্যমে কোনো রেমিট্যান্স আসেনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, গত মে মাসে ১৮৮ কোটি ৫৪ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এ অংক আগের মাসের চেয়ে প্রায় ১২ কোটি ৫৫ লাখ ডলার কম। এপ্রিলে রেমিট্যান্স এসেছিল ২০১ কোটি ৮ লাখ ডলার।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ১১ মাসে (জুলাই-মে) দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ৯১৯ কোটি ডলার ৪৪ লাখ ডলার; বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ১ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৮৭ কোটি ১৫ লাখ, আগস্টে ১৮১ কোটি, সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ, অক্টোবরে ১৬৪ কোটি ৬৮ লাখ, নভেম্বর ১৫৫ কোটি ৩৭ লাখ, ডিসেম্বরে ১৬৩ কোটি এবং জানুয়ারিতে এসেছে ১৭০ কোটি ৪৫ লাখ ডলার। ফেব্রুয়ারিতে আসে ১৪৯ কোটি ৪৪ লাখ, মার্চে পাঠিয়েছিল ১৮৫ কোটি ৯৭ লাখ, এপ্রিলে ২০১ কোটি ৮ লাখ, মে মাসে ১৮৮ কোটি ৫৪ লাখ ডলার এসেছে।

গত ২০২০-২১ অর্থবছরের পুরো সময়ে রেমিট্যান্সের উল্লম্ফন ছিল। ওই অর্থবছরে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ২ হাজার ৪৭৮ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা, যা তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ৩৬ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের ১২ মাসের মধ্যে সাত মাসেই ২০০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে দেশে।

বৈদেশিক মুদ্রার সংকট নিরসনে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ডলারের বিপরীতে টাকার মান ধারাবাহিকভাবে কমাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলার কিনতে খরচ করতে হচ্ছে ৯২ টাকা ৮০ পয়সা। অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংক সরকারি আমদানি বিল মেটাতে এই দরে ব্যাংকগুলোর কাছে ডলার বিক্রি করছে। নিয়ম অনুযায়ী এটাই ডলারের আনুষ্ঠানিক দর।

তবে বিভিন্ন ব্যাংক ও কার্ব মার্কেটে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আজ ব্যাংকগুলো আমদানি বিলের জন্য নিচ্ছে ৯৪ থেকে ৯৫ টাকা, নগদ ডলার বিক্রি করছে ৯৬ থেকে ৯৭ টাকায়। আর ব্যাংকের বাইরে খোলাবাজার বা কার্ব মার্কেটে ডলার বিক্রি হচ্ছে ৯৭ থেকে ৯৮ টাকায়।

back to top