alt

অর্থ-বাণিজ্য

চলতি হিসাবের ভারসাম্য ও বাণিজ্য ঘাটতিতে রেকর্ড

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : মঙ্গলবার, ০২ আগস্ট ২০২২

ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ঘাটতি নিয়ে শেষ হলো ২০২১-২২ অর্থবছর। এই বছরে দু’টি বড় রেকর্ড হয়েছে। এ সময় বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অফ পেমেন্ট) ঘাটতি অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক ৭০ বিলিয়ন (১ হাজার ৮৭০ কোটি) ডলার। আগের অর্থবছর অর্থাৎ ২০২০-২১ অর্থবছরে এই সূচক মাত্র ৪ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন (৪৫৭ কোটি ৫০ লাখ) ডলার ঘাটতি ছিল। আর বাণিজ্য ঘাটতিও সবচেয়ে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

করোনা সংকটের ধাক্কা কাটতে না কাটতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হয়। এতে বিশ্ব অর্থনীতিতে জ্বালানি তেল, খাদ্যপণ্য, জাহাজ ভাড়াসহ সব ধরনের পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কারণে আমদানি ব্যয় অস্বাভাবিক বেড়ে যায়। সে কারণেই অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ সূচক বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক ৭০ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, গত ২০২১-২২ অর্থবছর শুরুই হয়েছিল লেনদেনের ভারসাম্যে ঘাটতি নিয়ে। প্রথম তিন মাসে অর্থাৎ জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে এই ঘাটতির পরিমাণ ছিল ২৩১ কোটি ৪০ লাখ (২.৩১ বিলিয়ন) ডলার। চার মাস শেষে (জুলাই-অক্টোবর) তা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৭৭ কোটি ডলার। এভাবে আমদানি ব্যয় বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রতি মাসেই বেড়েছে ব্যালান্স অফ পেমেন্টের ঘাটতি।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ‘আমদানি বৃদ্ধির কারণে বৈদেশিক লেনদেনে এই বিশাল ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এ কথা ঠিক যে, আমদানি বাড়ার একটা ভালো দিকও আছে। দেশে বিনিয়োগ বাড়ে কর্মসংস্থান হয়। অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার হয়। তবে ব্যালান্স অফ পেমেন্টে প্রায় ১৯ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি সত্যিই উদ্বেগের, চিন্তার বিষয়।’

কয়েকবছর পর ২০২০-২১ অর্থবছরে সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যে ঘাটতিতে পড়ে বাংলাদেশ। প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ওই বছর। তার আগে ৯ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত নিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে উদ্বৃত্ত ছিল ৩১৬ কোটি ৯০ লাখ ডলার।

গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে দেশে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে। এরপর থেকেই আমদানিতে জোয়ার বইছে। আর এতে আমদানি-রপ্তানির মধ্যে ব্যবধানও চূড়ায় উঠতে শুরু করে। গত ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার। এ ক্ষেত্রেও রেকর্ড হয়েছে। এর আগে কখনই এত বাণিজ্য ঘাটতির মুখে পড়েনি দেশ। ২০২০-২১ অর্থবছরে এই ঘাটতি ছিল ২৩ দশমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের ৮২ দশমিক ৫০ বিলিয়ন ডলারের বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি করেছে বাংলাদেশ। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৩৬ শতাংশ বেশি। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৬০ দশমিক ৬৮ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি হয়েছিল। অন্যদিকে গত অর্থবছরে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে ৪৯ দশমিক ২৪ বিলিয়ন ডলার আয় করেছেন রপ্তানিকারকরা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৩৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেশি। এ হিসাবেই ২০২১-২২ অর্থবছরে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার।

সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যেও (ওভারঅল ব্যালেন্স) ঘাটতির মুখে পড়েছে বাংলাদেশ। গত অর্থবছরের এই ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৩৮ বিলিয়ন ডলার। অথচ ২০২০-২১ অর্থবছরে এই উদ্বৃত্ত ছিল ৯ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলার।

তবে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) এখনও বড় উদ্বৃত্ত ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে এই উদ্বৃত্ত দাঁড়িয়েছে ১৩ দশমিক ৬৬ বিলিয়ন ডলার। আগের অর্থবছরের ১৪ দশমিক শূন্য ৬ বিলিয়ন ডলারের উদ্বৃত্ত ছিল। নিয়মিত আমদানি-রপ্তানিসহ অন্য আয়-ব্যয় চলতি হিসাবের অন্তর্ভুক্ত। এই হিসাব উদ্বৃত্ত থাকার অর্থ হলো নিয়মিত লেনদেনে দেশকে কোন ঋণ করতে হচ্ছে না। আর ঘাটতি থাকলে সরকারকে ঋণ নিয়ে তা পূরণ করতে হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে আরও দেখা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ৮৭ বিলিয়ন ডলার। আগের অর্থবছরে এই ঘাটতি ছিল ৩ দশমিক শূন্য ২ বিলিয়ন ডলার। মূলত বিমা, ভ্রমণ ইত্যাদি খাতের আয়-ব্যয় হিসাব করে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি পরিমাপ করা হয়।

গত অর্থবছরে ২১ দশমিক শূন্য তিন বিলিয়ন ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ কম। ২০২০-২১ অর্থবছরে এসেছিল ২৪ দশুমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলার।

ছবি

তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা ঢাকা ওয়াসার কর্মীদের ‘পারফরম্যান্স বোনাসে’

৯ ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি ১৮ হাজার ৯৩১ কোটি টাকা

ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য ‘ক্লাস্টার’ ঋণের নীতিমালা অনুমোদন

আন্তর্জাতিক ট্রেড ফাইন্যান্স ব্যাংক-এর অ্যাওয়ার্ড জিতলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

বড় উত্থানে লেনদেন ছাড়ালো হাজার কোটি টাকা

একনেকে ছয় প্রকল্প অনুমোদন

ছবি

লভ্যাংশ কমেছে যেসব মিউচ্যুয়াল ফান্ডে

নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির সুযোগ নিচ্ছে একটি মহল : বাণিজ্যমন্ত্রী

ছবি

‘নগদ’ পাঁচ ক্যাটাগরিতে জিতলো ক্রিয়েটিভ কমিউনিকেশন অ্যাওয়ার্ড-২০২২

ছবি

সোনালী, রূপালী, অগ্রণী ব্যাংকে নতুন এমডি

তেল ও ডলারের দাম : রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়ে সংশয়

৯১ শতাংশ এসএমই উদ্যোক্তা ব্যাংক ঋণ পায় না

টানা পতনের পর সামান্য উত্থানে শেয়ারবাজার

রাশিয়া থেকে গম আমদানির বাধা কাটলো

এশিয়ার দেশগুলোকে ডিজিটাল মুদ্রা আনার আহ্বান আতিউর রহমানের

রাশিয়া থেকে তেল নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি: ভারত তথ্য গোপন করায় উদ্বেগ যুক্তরাষ্ট্রের

ছবি

সিটিও ফোরাম ইনোভেশন হ্যাকাথন ২০২২ এর নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু

ডলার কেনাবেচায় অনুমোদিত শাখা বাড়াচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক

ছবি

ব্যাংকের শাখায় শাখায় বেচাকেনা হবে নগদ ডলার

ছবি

খোলা সয়াবিন পামঅয়েল ও ডিমে বাড়ল ২৫ টাকা

ছবি

সবার জন্য অর্থনৈতিক সুযোগঃ ইউএনডিপি, গ্রামীণফোন ও বিডার যৌথ কর্মসূচি

ছবি

৫ বছর মেয়াদী ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু এবং নবায়ন করার আহবান

ছবি

মাইক্রোসফটের পার্টনার অ্যাওয়ার্ড জিতেছে ইজেনারেশন

ছবি

এবার চালের দামে আগুন, বস্তায় বেড়েছে ২০০-২৫০ টাকা

অকটেনে লাভ লিটার ২৫ টাকা, ডিজেলে লোকসান ৬ টাকা,

ক্যাম্পে ২ রোহিঙ্গা নেতা হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩, নিরাপত্তা জোরদার

উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য নয়, কৌশলগত কারণে বাড়াতে হয়েছে তেলের দাম

ছবি

বাংলাদেশে মাইক্রোসফট নিয়ে এলো ‘স্টার্টআপস ফাউন্ডার্স হাব’

রেমিট্যান্সে ঊর্ধ্বগতি, সাত দিনেই ৫৫ কোটি ডলার

ফের বড় পতন শেয়ারবাজারে, একদিনে হারালো ৭৮ পয়েন্ট

বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে, গরিব মানুষের দুঃসময় কেটে যাবে : অর্থমন্ত্রী

তামাবিল হয়ে কলকাতার পণ্য গেলাে মেঘালয়ে

ছবি

তেল বিক্রি করে বিপিসির লাভ ১২৬৪ কোটি টাকা : সিপিডি

ছবি

আইএমএফের কাছে শুরুতে ‘দেড় বিলিয়ন ডলার’ ঋণ চায় বাংলাদেশ

ছবি

জ্বালানি তেলের উত্তাপ রাজধানীর সবজির বাজারে

ছবি

দেশীয় স্টার্টআপে ৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ পরিকল্পনার কথা জানালেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

tab

অর্থ-বাণিজ্য

চলতি হিসাবের ভারসাম্য ও বাণিজ্য ঘাটতিতে রেকর্ড

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

মঙ্গলবার, ০২ আগস্ট ২০২২

ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ঘাটতি নিয়ে শেষ হলো ২০২১-২২ অর্থবছর। এই বছরে দু’টি বড় রেকর্ড হয়েছে। এ সময় বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অফ পেমেন্ট) ঘাটতি অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক ৭০ বিলিয়ন (১ হাজার ৮৭০ কোটি) ডলার। আগের অর্থবছর অর্থাৎ ২০২০-২১ অর্থবছরে এই সূচক মাত্র ৪ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন (৪৫৭ কোটি ৫০ লাখ) ডলার ঘাটতি ছিল। আর বাণিজ্য ঘাটতিও সবচেয়ে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

করোনা সংকটের ধাক্কা কাটতে না কাটতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হয়। এতে বিশ্ব অর্থনীতিতে জ্বালানি তেল, খাদ্যপণ্য, জাহাজ ভাড়াসহ সব ধরনের পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কারণে আমদানি ব্যয় অস্বাভাবিক বেড়ে যায়। সে কারণেই অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ সূচক বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক ৭০ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, গত ২০২১-২২ অর্থবছর শুরুই হয়েছিল লেনদেনের ভারসাম্যে ঘাটতি নিয়ে। প্রথম তিন মাসে অর্থাৎ জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে এই ঘাটতির পরিমাণ ছিল ২৩১ কোটি ৪০ লাখ (২.৩১ বিলিয়ন) ডলার। চার মাস শেষে (জুলাই-অক্টোবর) তা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৭৭ কোটি ডলার। এভাবে আমদানি ব্যয় বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রতি মাসেই বেড়েছে ব্যালান্স অফ পেমেন্টের ঘাটতি।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ‘আমদানি বৃদ্ধির কারণে বৈদেশিক লেনদেনে এই বিশাল ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এ কথা ঠিক যে, আমদানি বাড়ার একটা ভালো দিকও আছে। দেশে বিনিয়োগ বাড়ে কর্মসংস্থান হয়। অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার হয়। তবে ব্যালান্স অফ পেমেন্টে প্রায় ১৯ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি সত্যিই উদ্বেগের, চিন্তার বিষয়।’

কয়েকবছর পর ২০২০-২১ অর্থবছরে সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যে ঘাটতিতে পড়ে বাংলাদেশ। প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি নিয়ে শেষ হয়েছিল ওই বছর। তার আগে ৯ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলারের বড় উদ্বৃত্ত নিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে উদ্বৃত্ত ছিল ৩১৬ কোটি ৯০ লাখ ডলার।

গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে দেশে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে। এরপর থেকেই আমদানিতে জোয়ার বইছে। আর এতে আমদানি-রপ্তানির মধ্যে ব্যবধানও চূড়ায় উঠতে শুরু করে। গত ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার। এ ক্ষেত্রেও রেকর্ড হয়েছে। এর আগে কখনই এত বাণিজ্য ঘাটতির মুখে পড়েনি দেশ। ২০২০-২১ অর্থবছরে এই ঘাটতি ছিল ২৩ দশমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের ৮২ দশমিক ৫০ বিলিয়ন ডলারের বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি করেছে বাংলাদেশ। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৩৬ শতাংশ বেশি। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৬০ দশমিক ৬৮ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি হয়েছিল। অন্যদিকে গত অর্থবছরে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে ৪৯ দশমিক ২৪ বিলিয়ন ডলার আয় করেছেন রপ্তানিকারকরা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৩৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেশি। এ হিসাবেই ২০২১-২২ অর্থবছরে পণ্য বাণিজ্যে সার্বিক ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার।

সামগ্রিক লেনদেন ভারসাম্যেও (ওভারঅল ব্যালেন্স) ঘাটতির মুখে পড়েছে বাংলাদেশ। গত অর্থবছরের এই ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৩৮ বিলিয়ন ডলার। অথচ ২০২০-২১ অর্থবছরে এই উদ্বৃত্ত ছিল ৯ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলার।

তবে আর্থিক হিসাবে (ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট) এখনও বড় উদ্বৃত্ত ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে এই উদ্বৃত্ত দাঁড়িয়েছে ১৩ দশমিক ৬৬ বিলিয়ন ডলার। আগের অর্থবছরের ১৪ দশমিক শূন্য ৬ বিলিয়ন ডলারের উদ্বৃত্ত ছিল। নিয়মিত আমদানি-রপ্তানিসহ অন্য আয়-ব্যয় চলতি হিসাবের অন্তর্ভুক্ত। এই হিসাব উদ্বৃত্ত থাকার অর্থ হলো নিয়মিত লেনদেনে দেশকে কোন ঋণ করতে হচ্ছে না। আর ঘাটতি থাকলে সরকারকে ঋণ নিয়ে তা পূরণ করতে হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে আরও দেখা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ৮৭ বিলিয়ন ডলার। আগের অর্থবছরে এই ঘাটতি ছিল ৩ দশমিক শূন্য ২ বিলিয়ন ডলার। মূলত বিমা, ভ্রমণ ইত্যাদি খাতের আয়-ব্যয় হিসাব করে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি পরিমাপ করা হয়।

গত অর্থবছরে ২১ দশমিক শূন্য তিন বিলিয়ন ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ কম। ২০২০-২১ অর্থবছরে এসেছিল ২৪ দশুমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলার।

back to top