alt

অর্থ-বাণিজ্য

ফের বাড়লো ডলারের দাম, খোলা বাজারে ১১৫ টাকা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

ফের বাড়লো ডলারের দাম। সোমবার (৮ আগস্ট) খোলাবাজারে ডলারের দাম ১১৫ টাকা পেরিয়ে গেছে। সোমবার দুপুরে কার্ব মার্কেটে প্রতি ডলার রেকর্ড ১১৫ টাকা ৬০ পয়সায় বিক্রি হয়েছে। তারপরও চাহিদা অনুযায়ী ডলার মিলছে না। দেশে মুদ্রাবাজারের ইতিহাসে এক দিনে ডলারের বিপরীতে টাকার মানের এতটা অবমূল্যায়ন হয়নি। এর আগে ২৭ জুলাই খোলাবাজারে ডলারের সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ১১২ টাকা।

সোমবার প্রতি ডলার ১০৮ থেকে ১১০ টাকা দরে খোলাবাজারে বেচাকেনা শুরু হয়। সেখান থেকে বাড়তে বাড়তে তা ১১৫ টাকা ছাড়িয়ে যায়। খোলাবাজারের সঙ্গে ব্যাংকের আমদানি, রপ্তানি ও রেমিট্যান্সেও ডলারের দর অনেক বেড়েছে। খোলাবাজার থেকে যে কেউ ডলার কিনতে পারেন। ব্যাংক থেকে কিনতে পাসপোর্ট এনডোর্সমেন্ট করতে হয়। যে কারণে অনেকে এখন খোলাবাজার থেকে ডলার কিনে শেয়ারবাজারের মতো বিনিয়োগ করছেন, যা অবৈধ।

খোলা বাজারের ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে ডলারের সংকট। চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত ডলার নেই। অনেকে ডলার কিনে ধরে রাখতে চাইছে। এ জন্য লাগামহীন দর বাড়ছে। তাই ব্যাংকের মতো খোলাবাজারেও ডলারের সংকট দেখা দিয়েছে। প্রবাসীদের দেশে আসা কমেছে, বিদেশি পর্যটকও কম আসছেন। এ কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ কমে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের বিপরীতে টাকার মান বেশ কিছুদিন ধরেই টানা কমছে। সোমবার আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে বাংলাদেশি মুদ্রা টাকার বিপরীতে ডলারের দর আরও ২৫ পয়সা বৃদ্ধি পায়। প্রতি ডলার ৯৪ টাকা ৭০ পয়সায় বিক্রি হয়েছে। অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছ থেকে ব্যাংকগুলো এই দরে ডলার কিনেছে।

এর আগে করোনা মহামারীর কারণে ২০২০-২১ অর্থবছরজুড়ে আমদানি কমে গিয়েছিল। তবে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি বাড়ছিল। সে কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ বেড়ে যায়। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর বাড়তে শুরু করে আমদানি। এছাড়া রপ্তানি বাড়লেও কমতে থাকে রেমিট্যান্স। এতে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভও কমতে থাকে। এতে বাজারে ডলারের চাহিদা ও দাম দুটোই বাড়তে থাকে। এই খাতের ব্যবসায়িরা বলছেন, এর আগে কখনো চাহিদা এতোটা বাড়েনি।

এভাবে ডলারের দাম বাড়তে থাকায় বাজার স্বাভাবিক রাখতে ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০২১-২২ অর্থবছরে রিজার্ভ থেকে ৭৬২ কোটি ডলার বিক্রি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনই রিজার্ভ থেকে এক অর্থবছরে এত ডলার বিক্রি করা হয়নি। আর এর বিপরীতে বাজার থেকে ৭০ হাজার কোটি টাকার মতো তুলে নেয়া হয়। অথচ তার আগের অর্থবছরে (২০২০-২১) বাজারে ডলারের সরবরাহ বাড়ায় দর ধরে রাখতে রেকর্ড প্রায় ৮ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সেই ধারাবাহিকতায় চাহিদা মেটাতে নতুন অর্থবছরেও (২০২২-২৩) ডলার বিক্রি অব্যাহত রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ের ২৫ দিনেই প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপরও বাজারে ডলার সংকট কাটছে না।

বানিজ্য মন্ত্রণালয় মনআরও ৯ মাস ভোজ্যতেলে ভ্যাট মওকুফ চায়

চিনির দাম বৃদ্ধি করতে চায় ব্যবসায়ীরা

ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা জানালেন, বাংলাদেশে উদ্যোক্তাদের ভোগান্তির শেষ নেই

ছবি

বিদ্যুতের দাম বাড়ছে, ঘোষণা আগামী সপ্তাহে

ছবি

কমলো রপ্তানি আয়, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে মূল্যস্ফীতির প্রভাব

ছবি

বিএমসিসিআই প্রতিনিধিদলের সাথে মালয়েশিয়ার পেনাং রাজ্যের গভর্নরের বৈঠক

ছবি

৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স

ছবি

রিজার্ভ চুরি: তদন্ত কর্মকর্তাকে আদালতে তলব

ছবি

রপ্তানিতে যুদ্ধের ধাক্কা, সেপ্টেম্বরে কমেছে ৬.২৫ শতাংশ

ছবি

১২ কেজি এলপিজির দাম কমলো ৩৫ টাকা

ছবি

১০ মিউচ্যুয়াল ফান্ডের নগদ লভ্যাংশ প্রেরণ

ছবি

উঠে গেল ভোজ্যতেলের ভ্যাট মওকুফ সুবিধা

ছবি

ইউরোপে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৪৫ শতাংশ

ছবি

আগস্টে সঞ্চয়পত্র বিক্রি মাত্র আট কোটি টাকার

বড় অঙ্কের লেনদেন মাত্র ১০ কোম্পানির শেয়ারে

ছবি

নীতি সহায়তা পেলে কম দামে মাংস, ডিম সরবরাহ সম্ভব : এফবিসিসিআই

নানা চ্যালেঞ্জের মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি ‘স্থিতিশীল’ থাকবে

ছবি

বাজার মূলধন কমলো তিন হাজার কোটি টাকা

ছবি

বিনিয়োগ বাড়াতে বাংলাদেশকে আরও পরিচিত করার আহ্বান ঢাকা চেম্বারের

বিশ্বজুড়ে মন্দার আশঙ্কা, ঝুঁকি ৯৮ দশমিক এক শতাংশ

আড়াই হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন হারিয়েছে শেয়ারবাজার

আরও এক লাখ টন চাল আমদানির অনুমতি দিতে চিঠি

সহযোগী প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিতেও সুদ মওকুফে অনুমোদন লাগবে

ছবি

শীত আসার আগে বাজার গরম

ছবি

১০০০ নারী উদ্যোক্তা পেল আইডিয়া প্রকল্প থেকে ৫ কোটি টাকার অনুদান

বড় ধরনের সমস্যায় বেশিরভাগ নতুন জীবন বীমা খাত

ছবি

কলড্রপের জন্য টকটাইম দেয়া শুরু করেছে গ্রামীণফোন

ছবি

ভোক্তা অধিদপ্তরের অভিযানে ৯ লাখ টাকা জরিমানা

এসবিএসি ব্যাংকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উদ্যাপন

সূচকের সামান্য উত্থান, অর্ধেক শেয়ারের দর অপরিবর্তিত

১৪৬২ কোটি টাকা ঋণ দেবে বিশ্বব্যাংক

ছবি

মানি লন্ডারিং রোধে বিএফআইইউ ও সিআইডির বৈঠক

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বৈদেশিক মুদ্রার সুদহার বাড়ালো বাংলাদেশ ব্যাংক

ছবি

মূল্যস্ফীতির লাগাম টানতে বাড়ল রেপো সুদহার

ছবি

হিলি স্থলবন্দর : টানা ৮ দিন আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

ছবি

রপ্তানি ও প্রবাসী আয় বাড়ায় স্বস্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

tab

অর্থ-বাণিজ্য

ফের বাড়লো ডলারের দাম, খোলা বাজারে ১১৫ টাকা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

ফের বাড়লো ডলারের দাম। সোমবার (৮ আগস্ট) খোলাবাজারে ডলারের দাম ১১৫ টাকা পেরিয়ে গেছে। সোমবার দুপুরে কার্ব মার্কেটে প্রতি ডলার রেকর্ড ১১৫ টাকা ৬০ পয়সায় বিক্রি হয়েছে। তারপরও চাহিদা অনুযায়ী ডলার মিলছে না। দেশে মুদ্রাবাজারের ইতিহাসে এক দিনে ডলারের বিপরীতে টাকার মানের এতটা অবমূল্যায়ন হয়নি। এর আগে ২৭ জুলাই খোলাবাজারে ডলারের সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ১১২ টাকা।

সোমবার প্রতি ডলার ১০৮ থেকে ১১০ টাকা দরে খোলাবাজারে বেচাকেনা শুরু হয়। সেখান থেকে বাড়তে বাড়তে তা ১১৫ টাকা ছাড়িয়ে যায়। খোলাবাজারের সঙ্গে ব্যাংকের আমদানি, রপ্তানি ও রেমিট্যান্সেও ডলারের দর অনেক বেড়েছে। খোলাবাজার থেকে যে কেউ ডলার কিনতে পারেন। ব্যাংক থেকে কিনতে পাসপোর্ট এনডোর্সমেন্ট করতে হয়। যে কারণে অনেকে এখন খোলাবাজার থেকে ডলার কিনে শেয়ারবাজারের মতো বিনিয়োগ করছেন, যা অবৈধ।

খোলা বাজারের ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে ডলারের সংকট। চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত ডলার নেই। অনেকে ডলার কিনে ধরে রাখতে চাইছে। এ জন্য লাগামহীন দর বাড়ছে। তাই ব্যাংকের মতো খোলাবাজারেও ডলারের সংকট দেখা দিয়েছে। প্রবাসীদের দেশে আসা কমেছে, বিদেশি পর্যটকও কম আসছেন। এ কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ কমে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের বিপরীতে টাকার মান বেশ কিছুদিন ধরেই টানা কমছে। সোমবার আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে বাংলাদেশি মুদ্রা টাকার বিপরীতে ডলারের দর আরও ২৫ পয়সা বৃদ্ধি পায়। প্রতি ডলার ৯৪ টাকা ৭০ পয়সায় বিক্রি হয়েছে। অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছ থেকে ব্যাংকগুলো এই দরে ডলার কিনেছে।

এর আগে করোনা মহামারীর কারণে ২০২০-২১ অর্থবছরজুড়ে আমদানি কমে গিয়েছিল। তবে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি বাড়ছিল। সে কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ বেড়ে যায়। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর বাড়তে শুরু করে আমদানি। এছাড়া রপ্তানি বাড়লেও কমতে থাকে রেমিট্যান্স। এতে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভও কমতে থাকে। এতে বাজারে ডলারের চাহিদা ও দাম দুটোই বাড়তে থাকে। এই খাতের ব্যবসায়িরা বলছেন, এর আগে কখনো চাহিদা এতোটা বাড়েনি।

এভাবে ডলারের দাম বাড়তে থাকায় বাজার স্বাভাবিক রাখতে ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০২১-২২ অর্থবছরে রিজার্ভ থেকে ৭৬২ কোটি ডলার বিক্রি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনই রিজার্ভ থেকে এক অর্থবছরে এত ডলার বিক্রি করা হয়নি। আর এর বিপরীতে বাজার থেকে ৭০ হাজার কোটি টাকার মতো তুলে নেয়া হয়। অথচ তার আগের অর্থবছরে (২০২০-২১) বাজারে ডলারের সরবরাহ বাড়ায় দর ধরে রাখতে রেকর্ড প্রায় ৮ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সেই ধারাবাহিকতায় চাহিদা মেটাতে নতুন অর্থবছরেও (২০২২-২৩) ডলার বিক্রি অব্যাহত রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ের ২৫ দিনেই প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপরও বাজারে ডলার সংকট কাটছে না।

back to top