alt

অর্থ-বাণিজ্য

ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্য : রুপি ও টাকায় লেনদেন করতে চায় স্টেট ব্যাংক ইন্ডিয়া

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

ভারতের শীর্ষ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক স্টেট ব্যাংক ইন্ডিয়া (এসবিআই) বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক লেনদেনে মার্কিন ডলার ও প্রভাবশালী অন্যান্য মুদ্রা ব্যবহার না করতে সেই দেশের রপ্তানিকারকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে। এসব মুদ্রার পরিবর্তে ভারতীয় রুপি ও বাংলাদেশি টাকায় লেনদেন করতে রপ্তানিকারকদের অনুরোধ জানিয়েছে ব্যাংকটি। সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এসবিআই সম্প্রতি তাদের বিভিন্ন শাখায় পাঠানো এক নির্দেশনায় বলেছে, আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি ও সাম্প্রতিক সময়ে ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে বাংলাদেশে আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। ফলে দেশটি এখন বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতির আশঙ্কায় রয়েছে।

তা ছাড়া রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানি ও খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি বড় উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চলতি বছর বিশ্বজুড়ে ডলারের দর ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তাতে বাংলাদেশের মতো ভারতও বিপাকে পড়েছে। কমছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ও ভারতের মতো কিছু দেশ ডলারের পরিবর্তে অন্য মুদ্রায় বাণিজ্যের চিন্তা করছে। সেই চিন্তা থেকেই বাংলাদেশের সঙ্গে লেনদেনে ডলার ও অন্যান্য বৈদেশিক মুদ্রার ব্যবহার কমানোর কথা ভাবা হচ্ছে বলে এসবিআইয়ের নির্দেশনায় বলা হয়।

এসবিআইয়ের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে রয়টার্সকে জানান, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে লেনদেনে ঝুঁকি বৃদ্ধি করতে চাচ্ছে না এসবিআই। বর্তমানে বাংলাদেশের আমদানিকারকদের কাছে আমাদের পাওনা প্রায় ৫০ কোটি ডলার। বাংলাদেশের অর্থনীতি-সংক্রান্ত নানা খবরের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এটা আর খুব বেশি বাড়তে দেওয়া যাবে না। প্রয়োজনে কমিয়ে আনা হবে।’

এদিকে রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই) গত জুলাইয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে রুপির ব্যবহারের বিষয়ে একটি নির্দেশনা জারি করেছে। এতে বলা হয়, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে, বিশেষ করে রপ্তানিতে গতি আনতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এসবিআইয়ের নির্দেশনার বিষয়ে আইওএন এক্সচেঞ্জ (ইন্ডিয়া) লিমিটেডের ভাইস প্রেসিডেন্ট এম জে শেখ জানান, বাংলাদেশের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য করে। ১০ বছর ধরে তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান আইওএন এক্সচেঞ্জ (বাংলাদেশ) এ দেশে কাজ করছে। এম জে শেখ বলেন, দুই-তিন বছর ধরে ভারত এই ব্যবস্থায় বাণিজ্যের জন্য বাংলাদেশকে বলছিল। তবে বাংলাদেশ রাজি হয়নি। করোনা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি কিছুটা সংকুচিত হয়েছে। টাকার অবমূল্যায়ন হয়েছে। ডলারের রিজার্ভ কমেছে বেশ কয়েক শ কোটি ডলার। এ অবস্থায় বাংলাদেশ পরীক্ষামূলকভাবে রুপি-টাকায় বাণিজ্য করে দেখতে পারে, এতে অর্থনীতির লাভ হচ্ছে কি না।

ভারতের সঙ্গে আমদানি-রপ্তানির কত ডলারের পরিবর্তে রুপি-টাকায় করা যাবে, তা প্রশ্নসাপেক্ষ। কারণ, বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা ১৯৯ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি করে ভারতে। তার বিপরীতে ভারত থেকে আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৬১৯ কোটি ডলারের পণ্য। তাতে দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যঘাটতি ১ হাজার ৪২০ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে।

এ বিষয়ে ভারত-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (আইবিসিসিআই) সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ বলেন, ‘আমরা যে পরিমাণ অর্থের পণ্য রপ্তানি করি, সমপরিমাণ অর্থের পণ্য যদি রুপিতে আমদানি করা যায়, তাহলেও কিছু ডলার বাঁচবে।’

এসবিআইয়ের নির্দেশনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ডলার-সংকটের শুরু থেকেই আমরা রুপি ও টাকায় লেনদেন করার দাবি করে আসছিলাম। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর সফরের সময়েও এ বিষয়ে কথা হয়েছে। মঙ্গলবার এসবিআইয়ের ঢাকা কার্যালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা হয়েছে।

ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এসবিআইয়ের নির্দেশনার বিষয়টি কার্যকরের আগে আরবিআইতে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে মতামত আসার পরই রুপি-টাকায় লেনদেন শুরু হতে পারে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকেরও অনুমোদন লাগবে।’

ছবি

শীতের শুরুতেই বাজার গরম

ছবি

ইভ্যালির দেনা প্রায় ৪০০ কোটি টাকা: শামীমা নাসরিন

ছবি

পরীক্ষামূলকভাবে সরকারি সিকিউরিটিজের লেনদেন শুরু ১০ অক্টোবর

ছবি

জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬.১ শতাংশ: বিশ্ব ব্যাংক

মিউচ্যুয়াল ফান্ডে দারুণ বিনিয়োগ

খুব সহজেই ইভ্যালিতে বিনিয়োগ আসা সম্ভব : শামীমা নাসরিন

সূচক বাড়লেও টাকার পরিমাণে লেনদেন কমেছে

ছবি

টাকা এক জায়গায় বিনিয়োগ করবেন না : ড. রুমানা ইসলাম

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে এনবিআর-এর পাওনা প্রায় ৪৬৮ কোটি টাকা

ছবি

তেল উৎপাদন কমানোর সিদ্ধান্ত: দাম বাড়বে

সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ১ শতাংশে নেমেছে

ছবি

ডিজেলের দর পুনর্নির্ধারণের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে বিজিএমইএর চিঠি

ছবি

সেপ্টেম্বরে ইএফডিতে ভ্যাট এলো ৩০ কোটি টাকা

শীঘ্রই ঘুরে দাঁড়াবে রপ্তানি আয় : পরিকল্পনামন্ত্রী

আইপিওতে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ

ছবি

আইপিওতে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছে ডিএসই

কিশোরগঞ্জে মাসব্যাপী বাণিজ্যমেলা উদ্বোধন

ছবি

দুই মাসে বাণিজ্য ঘাটতি ৪৫৫ কোটি ৫০ লাখ ডলার

রেগুলেটর হিসেবে আমাদের কাজই ক্যাপিটাল মার্কেটকে সহায়তা করা : গভর্নর

সূচকের পতন, লেনদেনও কমেছে

স্বীকৃতি পেল আরও দুটি কারখানা, সবুজ কারখানার শীর্ষে বাংলাদেশ

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমল ১৪ টাকা

ছবি

রবির নতুন সিইও রাজীব শেঠি

ভোজ্য তেলে ভ্যাট মওকুফ : আরো ৯ মাস চায় বানিজ্য মন্ত্রনালয়

চিনির দাম বাড়াতে চায় ব্যবসায়ীরা

ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা জানালেন, বাংলাদেশে উদ্যোক্তাদের ভোগান্তির শেষ নেই

ছবি

বিদ্যুতের দাম বাড়ছে, ঘোষণা আগামী সপ্তাহে

ছবি

কমলো রপ্তানি আয়, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে মূল্যস্ফীতির প্রভাব

ছবি

বিএমসিসিআই প্রতিনিধিদলের সাথে মালয়েশিয়ার পেনাং রাজ্যের গভর্নরের বৈঠক

ছবি

৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স

ছবি

রিজার্ভ চুরি: তদন্ত কর্মকর্তাকে আদালতে তলব

ছবি

রপ্তানিতে যুদ্ধের ধাক্কা, সেপ্টেম্বরে কমেছে ৬.২৫ শতাংশ

ছবি

১২ কেজি এলপিজির দাম কমলো ৩৫ টাকা

ছবি

১০ মিউচ্যুয়াল ফান্ডের নগদ লভ্যাংশ প্রেরণ

ছবি

উঠে গেল ভোজ্যতেলের ভ্যাট মওকুফ সুবিধা

ছবি

ইউরোপে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৪৫ শতাংশ

tab

অর্থ-বাণিজ্য

ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্য : রুপি ও টাকায় লেনদেন করতে চায় স্টেট ব্যাংক ইন্ডিয়া

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

ভারতের শীর্ষ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক স্টেট ব্যাংক ইন্ডিয়া (এসবিআই) বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক লেনদেনে মার্কিন ডলার ও প্রভাবশালী অন্যান্য মুদ্রা ব্যবহার না করতে সেই দেশের রপ্তানিকারকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে। এসব মুদ্রার পরিবর্তে ভারতীয় রুপি ও বাংলাদেশি টাকায় লেনদেন করতে রপ্তানিকারকদের অনুরোধ জানিয়েছে ব্যাংকটি। সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এসবিআই সম্প্রতি তাদের বিভিন্ন শাখায় পাঠানো এক নির্দেশনায় বলেছে, আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি ও সাম্প্রতিক সময়ে ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে বাংলাদেশে আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। ফলে দেশটি এখন বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতির আশঙ্কায় রয়েছে।

তা ছাড়া রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানি ও খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি বড় উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চলতি বছর বিশ্বজুড়ে ডলারের দর ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তাতে বাংলাদেশের মতো ভারতও বিপাকে পড়েছে। কমছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ও ভারতের মতো কিছু দেশ ডলারের পরিবর্তে অন্য মুদ্রায় বাণিজ্যের চিন্তা করছে। সেই চিন্তা থেকেই বাংলাদেশের সঙ্গে লেনদেনে ডলার ও অন্যান্য বৈদেশিক মুদ্রার ব্যবহার কমানোর কথা ভাবা হচ্ছে বলে এসবিআইয়ের নির্দেশনায় বলা হয়।

এসবিআইয়ের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে রয়টার্সকে জানান, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে লেনদেনে ঝুঁকি বৃদ্ধি করতে চাচ্ছে না এসবিআই। বর্তমানে বাংলাদেশের আমদানিকারকদের কাছে আমাদের পাওনা প্রায় ৫০ কোটি ডলার। বাংলাদেশের অর্থনীতি-সংক্রান্ত নানা খবরের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এটা আর খুব বেশি বাড়তে দেওয়া যাবে না। প্রয়োজনে কমিয়ে আনা হবে।’

এদিকে রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই) গত জুলাইয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে রুপির ব্যবহারের বিষয়ে একটি নির্দেশনা জারি করেছে। এতে বলা হয়, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে, বিশেষ করে রপ্তানিতে গতি আনতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এসবিআইয়ের নির্দেশনার বিষয়ে আইওএন এক্সচেঞ্জ (ইন্ডিয়া) লিমিটেডের ভাইস প্রেসিডেন্ট এম জে শেখ জানান, বাংলাদেশের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য করে। ১০ বছর ধরে তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান আইওএন এক্সচেঞ্জ (বাংলাদেশ) এ দেশে কাজ করছে। এম জে শেখ বলেন, দুই-তিন বছর ধরে ভারত এই ব্যবস্থায় বাণিজ্যের জন্য বাংলাদেশকে বলছিল। তবে বাংলাদেশ রাজি হয়নি। করোনা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি কিছুটা সংকুচিত হয়েছে। টাকার অবমূল্যায়ন হয়েছে। ডলারের রিজার্ভ কমেছে বেশ কয়েক শ কোটি ডলার। এ অবস্থায় বাংলাদেশ পরীক্ষামূলকভাবে রুপি-টাকায় বাণিজ্য করে দেখতে পারে, এতে অর্থনীতির লাভ হচ্ছে কি না।

ভারতের সঙ্গে আমদানি-রপ্তানির কত ডলারের পরিবর্তে রুপি-টাকায় করা যাবে, তা প্রশ্নসাপেক্ষ। কারণ, বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা ১৯৯ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি করে ভারতে। তার বিপরীতে ভারত থেকে আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৬১৯ কোটি ডলারের পণ্য। তাতে দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যঘাটতি ১ হাজার ৪২০ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে।

এ বিষয়ে ভারত-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (আইবিসিসিআই) সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ বলেন, ‘আমরা যে পরিমাণ অর্থের পণ্য রপ্তানি করি, সমপরিমাণ অর্থের পণ্য যদি রুপিতে আমদানি করা যায়, তাহলেও কিছু ডলার বাঁচবে।’

এসবিআইয়ের নির্দেশনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ডলার-সংকটের শুরু থেকেই আমরা রুপি ও টাকায় লেনদেন করার দাবি করে আসছিলাম। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর সফরের সময়েও এ বিষয়ে কথা হয়েছে। মঙ্গলবার এসবিআইয়ের ঢাকা কার্যালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা হয়েছে।

ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এসবিআইয়ের নির্দেশনার বিষয়টি কার্যকরের আগে আরবিআইতে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে মতামত আসার পরই রুপি-টাকায় লেনদেন শুরু হতে পারে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকেরও অনুমোদন লাগবে।’

back to top