alt

অর্থ-বাণিজ্য

বন্দরে আটকা চালের জাহাজ ছাড়ের কথা ভাবছে ভারত

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

চলতি মাসের শুরুতে চাল রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর ভারতের বিভিন্ন বন্দরে আটকা পড়েছে বিপুল পরিমাণ চাল। এতে রপ্তানিকারকরা যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন, ঠিক তেমনি সরবরাহ নিয়ে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে আমদানিকারক দেশগুলো। এ পরিস্থিতিতে বেশকিছু চালবাহী কার্গো ছাড়ের অনুমতি দেয়ার কথা ভাবছে ভারত। দেশটির সরকারি একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ তথ্য জানিয়েছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সরবরাহ বাড়াতে এবং ঊর্ধ্বমুখী দাম নিয়ন্ত্রণে আনার লক্ষ্যে ভারত ভাঙা চাল রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করে। পাশাপাশি অন্য চালের ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ রপ্তানি শুল্ক আরোপ করা হয়। এমন সিদ্ধান্তে অসন্তোষ দেখা দেয় ক্রেতাদের মধ্যে। তারা অতিমাত্রার এ শুল্ক পরিশোধে অস্বীকৃতি জানান। ফলে ভারতের বন্দরগুলোয় আটকা পড়ে প্রায় ১০ লাখ টন চাল।

ভারতের রপ্তানিকারকরা এরই মধ্যে দেশটির সরকারের কাছে বন্দরে আটকে থাকা শতভাগ ভাঙা চাল রপ্তানির অনুমতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি বন্দরে আটকে থাকা সাদা চাল ২০ শতাংশ রপ্তানি শুল্ক ছাড়াই জাহাজীকরণের অনুমতি চেয়েছেন তারা। রপ্তানিকারকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়গুলো পর্যালোচনা করছে সরকার। যথাযথ প্রক্রিয়া শেষে রপ্তানির অনুমতি আসতে পারে।

বন্দরগুলোয় আটকা পড়ার পর থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত অন্তত ২০টি জাহাজ ছয় লাখ টন চাল বোঝাইয়ের অপেক্ষায় আছে। এতে বিক্রেতাদের ক্ষতিপূরণ চার্জ দিতে হচ্ছে। অন্যদিকে আরও চার লাখ টন চাল বন্দরের গুদামগুলোয় এবং কন্টেইনার ফ্রেইট স্টেশনে আটকা পড়ে আছে।

ভারতের কৃষি মন্ত্রণালয়ের দেয়া হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, বৃষ্টি কম হওয়ার কারণে কিছু রাজ্যে চলমান খরিফ মৌসুমে ধানের আবাদ ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ কমে প্রায় ৩৮৪ লাখ হেক্টরে নেমে এসেছে। তাই দেশটির সরকার রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিশ্বের ৩০০ কোটিরও বেশি মানুষের প্রধান খাদ্যশস্য চাল। ২০০৭ সাল ভারত যখন চাল রপ্তানি নিষিদ্ধ করে তখন বিশ্ববাজারে এর দাম নতুন উচ্চতায় পৌঁছায়। সেই সময় প্রতি টন চালের দাম বেড়ে প্রায় ১ হাজার ডলারে দাঁড়ায়। বিশ্বে চীনের পর চালের প্রধান ভোক্তা দেশও ভারত। বৈশ্বিক বাণিজ্যের প্রায় ৪০ শতাংশেরও বেশি চালের মার্কেট শেয়ার রয়েছে ভারতের। অভ্যন্তরীণ উচ্চ মজুদ আর স্থানীয় বাজারে কম দামের কারণে গত দুই বছর ব্যাপক ছাড়ে চাল বিক্রি করেছে ভারত যা এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক দরিদ্র দেশকে গমের দামের ঊর্ধ্বগতির সঙ্গেই করতে সাহায্য করেছে। বিশ্বের ১৫০টিরও বেশি দেশে চাল রপ্তানি করে ভারত। দেশটির চালান হ্রাস পেলে বিশ্বজুড়ে খাদ্য মূল্যস্ফীতি দেখা দেবে।

ছবি

ইভ্যালির দেনা প্রায় ৪০০ কোটি টাকা: শামীমা নাসরিন

ছবি

পরীক্ষামূলকভাবে সরকারি সিকিউরিটিজের লেনদেন শুরু ১০ অক্টোবর

ছবি

জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬.১ শতাংশ: বিশ্ব ব্যাংক

মিউচ্যুয়াল ফান্ডে দারুণ বিনিয়োগ

খুব সহজেই ইভ্যালিতে বিনিয়োগ আসা সম্ভব : শামীমা নাসরিন

সূচক বাড়লেও টাকার পরিমাণে লেনদেন কমেছে

ছবি

টাকা এক জায়গায় বিনিয়োগ করবেন না : ড. রুমানা ইসলাম

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে এনবিআর-এর পাওনা প্রায় ৪৬৮ কোটি টাকা

ছবি

তেল উৎপাদন কমানোর সিদ্ধান্ত: দাম বাড়বে

সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ১ শতাংশে নেমেছে

ছবি

ডিজেলের দর পুনর্নির্ধারণের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে বিজিএমইএর চিঠি

ছবি

সেপ্টেম্বরে ইএফডিতে ভ্যাট এলো ৩০ কোটি টাকা

শীঘ্রই ঘুরে দাঁড়াবে রপ্তানি আয় : পরিকল্পনামন্ত্রী

আইপিওতে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ

ছবি

আইপিওতে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছে ডিএসই

কিশোরগঞ্জে মাসব্যাপী বাণিজ্যমেলা উদ্বোধন

ছবি

দুই মাসে বাণিজ্য ঘাটতি ৪৫৫ কোটি ৫০ লাখ ডলার

রেগুলেটর হিসেবে আমাদের কাজই ক্যাপিটাল মার্কেটকে সহায়তা করা : গভর্নর

সূচকের পতন, লেনদেনও কমেছে

স্বীকৃতি পেল আরও দুটি কারখানা, সবুজ কারখানার শীর্ষে বাংলাদেশ

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমল ১৪ টাকা

ছবি

রবির নতুন সিইও রাজীব শেঠি

ভোজ্য তেলে ভ্যাট মওকুফ : আরো ৯ মাস চায় বানিজ্য মন্ত্রনালয়

চিনির দাম বাড়াতে চায় ব্যবসায়ীরা

ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা জানালেন, বাংলাদেশে উদ্যোক্তাদের ভোগান্তির শেষ নেই

ছবি

বিদ্যুতের দাম বাড়ছে, ঘোষণা আগামী সপ্তাহে

ছবি

কমলো রপ্তানি আয়, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে মূল্যস্ফীতির প্রভাব

ছবি

বিএমসিসিআই প্রতিনিধিদলের সাথে মালয়েশিয়ার পেনাং রাজ্যের গভর্নরের বৈঠক

ছবি

৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন রেমিট্যান্স

ছবি

রিজার্ভ চুরি: তদন্ত কর্মকর্তাকে আদালতে তলব

ছবি

রপ্তানিতে যুদ্ধের ধাক্কা, সেপ্টেম্বরে কমেছে ৬.২৫ শতাংশ

ছবি

১২ কেজি এলপিজির দাম কমলো ৩৫ টাকা

ছবি

১০ মিউচ্যুয়াল ফান্ডের নগদ লভ্যাংশ প্রেরণ

ছবি

উঠে গেল ভোজ্যতেলের ভ্যাট মওকুফ সুবিধা

ছবি

ইউরোপে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৪৫ শতাংশ

ছবি

আগস্টে সঞ্চয়পত্র বিক্রি মাত্র আট কোটি টাকার

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বন্দরে আটকা চালের জাহাজ ছাড়ের কথা ভাবছে ভারত

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

চলতি মাসের শুরুতে চাল রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর ভারতের বিভিন্ন বন্দরে আটকা পড়েছে বিপুল পরিমাণ চাল। এতে রপ্তানিকারকরা যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন, ঠিক তেমনি সরবরাহ নিয়ে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে আমদানিকারক দেশগুলো। এ পরিস্থিতিতে বেশকিছু চালবাহী কার্গো ছাড়ের অনুমতি দেয়ার কথা ভাবছে ভারত। দেশটির সরকারি একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ তথ্য জানিয়েছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সরবরাহ বাড়াতে এবং ঊর্ধ্বমুখী দাম নিয়ন্ত্রণে আনার লক্ষ্যে ভারত ভাঙা চাল রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করে। পাশাপাশি অন্য চালের ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ রপ্তানি শুল্ক আরোপ করা হয়। এমন সিদ্ধান্তে অসন্তোষ দেখা দেয় ক্রেতাদের মধ্যে। তারা অতিমাত্রার এ শুল্ক পরিশোধে অস্বীকৃতি জানান। ফলে ভারতের বন্দরগুলোয় আটকা পড়ে প্রায় ১০ লাখ টন চাল।

ভারতের রপ্তানিকারকরা এরই মধ্যে দেশটির সরকারের কাছে বন্দরে আটকে থাকা শতভাগ ভাঙা চাল রপ্তানির অনুমতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি বন্দরে আটকে থাকা সাদা চাল ২০ শতাংশ রপ্তানি শুল্ক ছাড়াই জাহাজীকরণের অনুমতি চেয়েছেন তারা। রপ্তানিকারকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়গুলো পর্যালোচনা করছে সরকার। যথাযথ প্রক্রিয়া শেষে রপ্তানির অনুমতি আসতে পারে।

বন্দরগুলোয় আটকা পড়ার পর থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত অন্তত ২০টি জাহাজ ছয় লাখ টন চাল বোঝাইয়ের অপেক্ষায় আছে। এতে বিক্রেতাদের ক্ষতিপূরণ চার্জ দিতে হচ্ছে। অন্যদিকে আরও চার লাখ টন চাল বন্দরের গুদামগুলোয় এবং কন্টেইনার ফ্রেইট স্টেশনে আটকা পড়ে আছে।

ভারতের কৃষি মন্ত্রণালয়ের দেয়া হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, বৃষ্টি কম হওয়ার কারণে কিছু রাজ্যে চলমান খরিফ মৌসুমে ধানের আবাদ ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ কমে প্রায় ৩৮৪ লাখ হেক্টরে নেমে এসেছে। তাই দেশটির সরকার রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিশ্বের ৩০০ কোটিরও বেশি মানুষের প্রধান খাদ্যশস্য চাল। ২০০৭ সাল ভারত যখন চাল রপ্তানি নিষিদ্ধ করে তখন বিশ্ববাজারে এর দাম নতুন উচ্চতায় পৌঁছায়। সেই সময় প্রতি টন চালের দাম বেড়ে প্রায় ১ হাজার ডলারে দাঁড়ায়। বিশ্বে চীনের পর চালের প্রধান ভোক্তা দেশও ভারত। বৈশ্বিক বাণিজ্যের প্রায় ৪০ শতাংশেরও বেশি চালের মার্কেট শেয়ার রয়েছে ভারতের। অভ্যন্তরীণ উচ্চ মজুদ আর স্থানীয় বাজারে কম দামের কারণে গত দুই বছর ব্যাপক ছাড়ে চাল বিক্রি করেছে ভারত যা এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক দরিদ্র দেশকে গমের দামের ঊর্ধ্বগতির সঙ্গেই করতে সাহায্য করেছে। বিশ্বের ১৫০টিরও বেশি দেশে চাল রপ্তানি করে ভারত। দেশটির চালান হ্রাস পেলে বিশ্বজুড়ে খাদ্য মূল্যস্ফীতি দেখা দেবে।

back to top