alt

অর্থ-বাণিজ্য

বিশ্বজুড়ে মন্দার আশঙ্কা, ঝুঁকি ৯৮ দশমিক এক শতাংশ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

বিশ্বজুড়ে রেকর্ড উচ্চতায় মূল্যস্ফীতির চাপ। পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগ্রাসীভাবে সুদের হার বাড়াচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো। এখনও অব্যাহত রয়েছে কোভিডজনিত প্রতিবন্ধকতা। পাশাপাশি ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিপর্যস্ত অবস্থা পার করছে বিশ্ব অর্থনীতি। এ অবস্থায় আগামী বছর বৈশ্বিক অর্থনীতি মন্দায় পড়তে যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছে একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান। সিএনএন।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নেড ডেভিস রিসার্চের একটি সম্ভাব্যতা মডেল অনুসারে বর্তমানে বিশ্বজুড়ে মন্দার ঝুঁকি ৯৮ দশমিক ১ শতাংশ। এর আগে শুধু গুরুতর অর্থনৈতিক মন্দার সময় মডেলটিতে এত বেশি ঝুঁকির হার ছিল। সর্বশেষ ২০২০ এবং ২০০৮-০৯ সালে বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকটের সময় ঝুঁকির এমন স্তর ছিল।

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির অর্থনীতিবিদরা একটি প্রতিবেদনে লিখেছেন, ২০২৩ সালে কিছু সময়ের জন্য একটি গুরুতর অর্থনৈতিক মন্দার ঝুঁকি বাড়ছে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে অর্থনীতিবিদ ও বিনিয়োগকারীরা আরও বেশি ঝুঁকি নিয়ে সতর্ক করছেন।

এর আগে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের জরিপে ৭০ শতাংশ অর্থনীতিবিদ বৈশ্বিক মন্দার অন্ত্যত কিছুটা ঝুঁকি বিবেচনা করছেন। অর্থনীতিবিদরা তাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস কমিয়ে দিচ্ছেন এবং মনে করছেন, মূল্যস্ফীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রকৃত আয় চলতি বছর এবং পরবর্তী সময়ে কমতে থাকবে।

ক্রমবর্ধমান খাদ্য ও জ্বালানির দামের পরিপ্রেক্ষিতে উদ্বেগ রয়েছে, জীবনযাত্রার উচ্চব্যয় পারিবারিক আর্থিক পরিস্থিতিতে অস্থিরতার কারণ হতে পারে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের জরিপে অর্থনীতিবিদদের ৭৯ শতাংশ আশঙ্কা করছেন, ক্রমবর্ধমান দাম নিম্নআয়ের অর্থনীতির পরিবারগুলোয় সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টি করবে। তবে উন্নত অর্থনীতির ক্ষেত্রে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ২০ শতাংশ অর্থনীতিবিদ। এ অবস্থায় বিনিয়োগকারীরা আরও উদ্বিগ্ন হচ্ছে। পুঁজিবাজারগুলোয় নিম্নমুখী প্রবণতা দেখা দিয়েছে।

সম্প্রতি বিলিয়নিয়ার বিনিয়োগকারী স্ট্যানলি ড্রুকেনমিলার একটি সামিটে বলেন, আগামী বছর আরও কঠিন হতে চলেছে। ২০২৩ সালে মন্দা না হলে আমি হতবাক হয়ে যাব।

বর্তমানে চলমান সংকটের কারণে মার্কিন নাগরিকদের পারিবারিক সম্পদও কমে গিয়েছে। চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে তাদের সম্পদে রেকর্ড পতন হয়েছে। এক্ষেত্রে রিয়েল এস্টেট খাতের সম্পদের মূল্যমান হ্রাসও ভূমিকা রেখেছে বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। তিন মাসের ব্যবধানে যুক্তরাষ্ট্রের পারিবারিক সম্পদ ৬ লাখ ১০ হাজার কোটি ডলার কমেছে। এ পতনের পরিমাণ মহামারী শুরুর পর বিপর্যস্ত পরিস্থিতির চেয়েও বেশি। ফেডারেল রিজার্ভ জানিয়েছে, জুনের শেষে মোট পারিবারিক সম্পদ ১৪৩ লাখ ৮০ হাজার কোটি ডলারে নেমেছে। মার্চের শেষে এ সম্পদের পরিমাণ ছিল ১৪৯ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলার। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয় প্রান্তিকের মতো দেশটির পারিবারিক সম্পদে পতন হলো।

এমনকি মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারাও স্বীকার করেছেন, মন্দার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি রয়েছে। তার পরও ইতিবাচক ইঙ্গিতও রয়েছে। বিশ্বের করে বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতিতে। মার্কিন শ্রমবাজার ঐতিহাসিকভাবে শক্তিশালী রয়ে গিয়েছে। দেশটিতে বেকারত্ব হার ১৯৬৯ সালের পর থেকে সর্বনিম্ন স্তরের কাছাকাছি রয়েছে। ভোক্তারা এখনো অর্থ ব্যয় করে চলেছেন এবং করপোরেট মুনাফাও শক্তিশালী পর্যায়ে রয়েছে।

চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় আগামী মাসগুলোয় যুক্তরাষ্ট্রে মূল্যস্ফীতির চাপ কমে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। কয়েক মাস ধরে দেশটির মূল্যস্ফীতি ৪০ বছরের সর্বোচ্চ উচ্চতায় রয়েছে। নেড ডেভিসের গবেষকরা বলছে, ‘মন্দার ঝুঁকি বাড়লেও মার্কিন অর্থনীতিতে এখনও মন্দার পরিস্থিতি দেখা যায়নি। আমাদের কাছেও চূড়ান্ত প্রমাণ নেই যে বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি বর্তমানে মন্দার মধ্যে রয়েছে।’

ছবি

বিনিয়োগ প্রতিযোগিতা ক্যাপিটালাইজার ২০২২ এর বিজয়ী দলের নাম ঘোষণা

ছবি

বিমানের নতুন এমডি শফিউল আজিম

চাল আমদানিতে শুল্ক সুবিধার মেয়াদ বাড়লো আরও তিন মাস

ওয়ালটন নিয়ে এলো ৮ জিবি র‌্যামের ‘প্রিমো আর টেন’

ছবি

শিল্প আমদানি সহজ করতে ৫ হাজার কোটি টাকার ‘গ্রিন ট্রান্সফরমেশন ফান্ড’

ডিএসইর লেনদেন ফের তিনশ’ কোটি টাকার নিচে

ছবি

ই-রিটার্ন জমার সংখ্যা সন্তোষজনক নয়

ছবি

১০৭ টাকার রেমিট্যান্সের দর মানছে না কয়েকটি ব্যাংক

ছবি

দুই দিনে ৫টি ইসলামী ব্যাংক টাকা ধার নিয়েছে ৫ হাজার ২৫০ কোটি টাকা

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের অধিকতর শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকারের আহবান

কৃষিঋণ : লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে পিছিয়ে, তবে গতবারের চেয়ে বেশি

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি ৫১ শতাংশ বেড়েছে

২০ কোটি ডলার ঋণ দিলো এডিবি

সূচক বাড়লেও লেনদেন তিনশ’ কোটি টাকার নিচে

ইসলামী ব্যাংকগুলোকে তারল্য সুবিধা দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নে কাজ করছে বেসরকারি খাত : এফবিসিসিআই

ছবি

বেনামি ঋণ আর অর্থ পাচারে খাদের কিনারে ব্যাংকিং খাত: টিআইবি

ছবি

নভেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার কিছুটা কমে ৮.৮৫ শতাংশ: পরিকল্পনামন্ত্রী

ছবি

ভারত থেকে ২২১১ টন পেঁয়াজ আমদানি করেছে টিসিবি

ছবি

চিনির লুকোচুরি, বেশি দামে কোথাও কোথাও পাওয়া যায়

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নতুন মুখপাত্র মেজবাউল হক

ছবি

রমজান মাসে পণ্যের যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণ করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দেড় বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রত্যাশা স্পেশাল ইকনমিক জোনে

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নতুন মুখপাত্র মেজবাউল হক

বেপজায় চীনা কোম্পানির ৪০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ

সূচকের সঙ্গে লেনদেনও তলানিতে

ছবি

স্বর্ণের দামে রেকর্ড, ভরি ছাড়ালো ৮৭ হাজার

বস্ত্রখাতে অবদান রাখায় পুরস্কার পাচ্ছে ১০ প্রতিষ্ঠান

কোম্পানিকে টিকে থাকতে দরকার গুড ম্যানেজমেন্ট : বিএসইসি চেয়ারম্যান

বস্ত্র খাতে পুরস্কার পাচ্ছে ১০ প্রতিষ্ঠান

ছবি

‘বস্ত্রখাতে কর্মরত ৫০ লাখের মধ্যে ৮০ ভাগই নারী’

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রফতানি বেড়েছে ৫১ শতাংশ

ছবি

তিন ব্যাংকের ঋণরে অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ হাইকোর্টের

ছবি

আতঙ্কে ব্যাংক থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা তুলেছেন গ্রাহকরা : মুখ্য সচিব

ছবি

দশ মাসে রেমিট্যান্স কমেছে ৮৫ কোটি ৬৭ লাখ ডলার

খাতভিত্তিক লেনদেনের শীর্ষে আইটি খাত

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বিশ্বজুড়ে মন্দার আশঙ্কা, ঝুঁকি ৯৮ দশমিক এক শতাংশ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

বিশ্বজুড়ে রেকর্ড উচ্চতায় মূল্যস্ফীতির চাপ। পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগ্রাসীভাবে সুদের হার বাড়াচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো। এখনও অব্যাহত রয়েছে কোভিডজনিত প্রতিবন্ধকতা। পাশাপাশি ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিপর্যস্ত অবস্থা পার করছে বিশ্ব অর্থনীতি। এ অবস্থায় আগামী বছর বৈশ্বিক অর্থনীতি মন্দায় পড়তে যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছে একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান। সিএনএন।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নেড ডেভিস রিসার্চের একটি সম্ভাব্যতা মডেল অনুসারে বর্তমানে বিশ্বজুড়ে মন্দার ঝুঁকি ৯৮ দশমিক ১ শতাংশ। এর আগে শুধু গুরুতর অর্থনৈতিক মন্দার সময় মডেলটিতে এত বেশি ঝুঁকির হার ছিল। সর্বশেষ ২০২০ এবং ২০০৮-০৯ সালে বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকটের সময় ঝুঁকির এমন স্তর ছিল।

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির অর্থনীতিবিদরা একটি প্রতিবেদনে লিখেছেন, ২০২৩ সালে কিছু সময়ের জন্য একটি গুরুতর অর্থনৈতিক মন্দার ঝুঁকি বাড়ছে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে অর্থনীতিবিদ ও বিনিয়োগকারীরা আরও বেশি ঝুঁকি নিয়ে সতর্ক করছেন।

এর আগে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের জরিপে ৭০ শতাংশ অর্থনীতিবিদ বৈশ্বিক মন্দার অন্ত্যত কিছুটা ঝুঁকি বিবেচনা করছেন। অর্থনীতিবিদরা তাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস কমিয়ে দিচ্ছেন এবং মনে করছেন, মূল্যস্ফীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রকৃত আয় চলতি বছর এবং পরবর্তী সময়ে কমতে থাকবে।

ক্রমবর্ধমান খাদ্য ও জ্বালানির দামের পরিপ্রেক্ষিতে উদ্বেগ রয়েছে, জীবনযাত্রার উচ্চব্যয় পারিবারিক আর্থিক পরিস্থিতিতে অস্থিরতার কারণ হতে পারে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের জরিপে অর্থনীতিবিদদের ৭৯ শতাংশ আশঙ্কা করছেন, ক্রমবর্ধমান দাম নিম্নআয়ের অর্থনীতির পরিবারগুলোয় সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টি করবে। তবে উন্নত অর্থনীতির ক্ষেত্রে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ২০ শতাংশ অর্থনীতিবিদ। এ অবস্থায় বিনিয়োগকারীরা আরও উদ্বিগ্ন হচ্ছে। পুঁজিবাজারগুলোয় নিম্নমুখী প্রবণতা দেখা দিয়েছে।

সম্প্রতি বিলিয়নিয়ার বিনিয়োগকারী স্ট্যানলি ড্রুকেনমিলার একটি সামিটে বলেন, আগামী বছর আরও কঠিন হতে চলেছে। ২০২৩ সালে মন্দা না হলে আমি হতবাক হয়ে যাব।

বর্তমানে চলমান সংকটের কারণে মার্কিন নাগরিকদের পারিবারিক সম্পদও কমে গিয়েছে। চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে তাদের সম্পদে রেকর্ড পতন হয়েছে। এক্ষেত্রে রিয়েল এস্টেট খাতের সম্পদের মূল্যমান হ্রাসও ভূমিকা রেখেছে বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। তিন মাসের ব্যবধানে যুক্তরাষ্ট্রের পারিবারিক সম্পদ ৬ লাখ ১০ হাজার কোটি ডলার কমেছে। এ পতনের পরিমাণ মহামারী শুরুর পর বিপর্যস্ত পরিস্থিতির চেয়েও বেশি। ফেডারেল রিজার্ভ জানিয়েছে, জুনের শেষে মোট পারিবারিক সম্পদ ১৪৩ লাখ ৮০ হাজার কোটি ডলারে নেমেছে। মার্চের শেষে এ সম্পদের পরিমাণ ছিল ১৪৯ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলার। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয় প্রান্তিকের মতো দেশটির পারিবারিক সম্পদে পতন হলো।

এমনকি মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারাও স্বীকার করেছেন, মন্দার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি রয়েছে। তার পরও ইতিবাচক ইঙ্গিতও রয়েছে। বিশ্বের করে বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতিতে। মার্কিন শ্রমবাজার ঐতিহাসিকভাবে শক্তিশালী রয়ে গিয়েছে। দেশটিতে বেকারত্ব হার ১৯৬৯ সালের পর থেকে সর্বনিম্ন স্তরের কাছাকাছি রয়েছে। ভোক্তারা এখনো অর্থ ব্যয় করে চলেছেন এবং করপোরেট মুনাফাও শক্তিশালী পর্যায়ে রয়েছে।

চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় আগামী মাসগুলোয় যুক্তরাষ্ট্রে মূল্যস্ফীতির চাপ কমে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। কয়েক মাস ধরে দেশটির মূল্যস্ফীতি ৪০ বছরের সর্বোচ্চ উচ্চতায় রয়েছে। নেড ডেভিসের গবেষকরা বলছে, ‘মন্দার ঝুঁকি বাড়লেও মার্কিন অর্থনীতিতে এখনও মন্দার পরিস্থিতি দেখা যায়নি। আমাদের কাছেও চূড়ান্ত প্রমাণ নেই যে বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি বর্তমানে মন্দার মধ্যে রয়েছে।’

back to top