alt

অর্থ-বাণিজ্য

বাংলাদেশি ডেনিম সবার শীর্ষে, যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানিতে ৪২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২

তৈরি পোশাক খাতে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর ডেনিমে অবস্থান সবার শীর্ষে। সাশ্রয়ী দাম আর গুণগত মান ভালো হওয়ায় এখানকার ডেনিমের কদর বিশ্বজুড়ে। সে সুবাদে চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডেনিম রপ্তানি করেছে ৭৪ কোটি ডলারের। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তা ৪২ শতাংশ বেশি।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস ডিপার্টমেন্ট অফ কমার্সের অফিস অফ টেক্সটাইল অ্যান্ড অ্যাপারেল (অটেক্সা) সম্প্রতি এই হালনাগাদ পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। অটেক্সার তথ্য থেকে জানা যায়, গত বছরের প্রথম ৯ মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডেনিম রপ্তানি করেছিল ৫২ কোটি ডলারের। চলতি বছরের একই সময়ে দেশটিতে রপ্তানি হয়েছে ৭৩ দশমিক ৮ কোটি ডলারের ডেনিম পণ্য। এর মাধ্যমে আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে চলতি বছরে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ৪২ শতাংশ।

বাংলাদেশের পরই যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম রপ্তানিতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মেক্সিকো। চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে দেশটি রপ্তানি করেছে ৫৬ দশমিক ১ কোটি ডলার। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ৪৭ কোটি ডলার। এতে এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৮ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম রপ্তানিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান। দেশটি এ সময়ে ডেনিম রপ্তানি করেছে ৩৭ দশমিক ৬ কোটি ডলার। আগের বছরের একই সময়ে তা ছিল ২৭ দশমিক ৫ কোটি ডলার। এতে এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩৬ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

যুক্তরাষ্ট্রে ডেনিম রপ্তানিতে এরপর যথাক্রমে রয়েছে ভিয়েতনাম, চীন, মিসর ও কম্বোডিয়া। দেশগুলো এ সময়ে রপ্তানি করেছে ৩৪ কোটি ৮০ লাখ, ২৯ কোটি ১০ লাখ, ১৭ কোটি ৮ লাখ ও ১৬ কোটি ৮০ লাখ ডলার। এতে দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি হয়েছে যথাক্রমে ২৫ শতাংশ, ৬ শতাংশ, ৬০ দশমিক ৩০ শতাংশ ও ৪৭ দশমিক ৪০ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরিচালক ও মুখপাত্র মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম পোশাকের ক্ষেত্রে বরাবরই বাংলাদেশের অবস্থান ভালো ছিল। এখনও ভালো। করোনার প্রভাব ও ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে সামগ্রী ব্যবসা খারাপ হলেও ডেনিম পোশাক রপ্তানিতে ৪২ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি হয়েছে। তবে জ্বালানি বিশেষ করে গ্যাস সংকটের কারণে অক্টোবর ও নভেম্বর মাসের প্রবৃদ্ধিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।’

গার্মেন্টস ব্যবসায়ীরা জানান, তিন কারণে বাংলাদেশের ডেনিম পণ্য এখন বিশ্বসেরা। এর প্রথম কারণ হচ্ছে, ডেনিম ফেব্রিকসের কাঁচামাল বাংলাদেশে উৎপাদন হয়। ফলে দাম কম। দ্বিতীয় কারণ হলো, অভিনব ডিজাইন এবং সৃজনশীল ডেনিম পোশাক প্রস্তুত করতে বাংলাদেশের নৈপুণ্য এবং তৃতীয় কারণ হচ্ছে বাংলাদেশের ডেনিমের কারখানাগুলো অত্যাধুনিক এবং ওয়াশিংয়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ উৎকৃষ্ট। ফলে উৎপাদিত পণ্যের ফিনিশিং হয় আকর্ষণীয়।

ডেনিম নামের বিশেষ কাপড় দিয়ে তৈরি পোশাকের নাম জিনস। শুরুতে ডেনিম কাপড়ে তৈরি প্যান্টকে জিনস বলা হতো। এখন জিনস শব্দটি এতোই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে, অনেকে ডেনিম কাপড়কেই জিনস নামে চেনেন। আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তার কারণে প্যান্টের পাশাপাশি ডেনিম কাপড় দিয়ে এখন ছেলে ও মেয়েদের শার্ট ও জ্যাকেট, পাঞ্জাবি, মেয়েদের টপস, বাচ্চাদের পোশাক তৈরি হচ্ছে সমানতালে। ফ্যাশনসচেতন মানুষের হাতব্যাগ, কাঁধে ঝোলানোর ব্যাগ, ল্যাপটপ ব্যাগ, এমনকি পায়ের জুতায়ও স্থান করে নিয়েছে ডেনিম কাপড়। ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশেও এই পোশাক রপ্তানিতে এখন শীর্ষস্থানে বাংলাদেশ।

ছবি

আমিরাতেই প্রাণের পণ্য তৈরি করবে ইমার্জিং ওয়ার্ল্ড

ছবি

বাড়তি দরে রেমিট্যান্স সংগ্রহে ব্যাংকগুলোকে বাফেদার সতর্কতা

ছবি

কাস্টমস দিবসে ‘সার্টিফিকেট অব মেরিট’ পেলেন ১৭ কর্মকর্তা

ছবি

গুগলের শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আসছে জনপ্রিয় চ্যাটজিপিটি

ছবি

শুরু হলো ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা ২০২৩

সূচক বেড়েছে, তবে কমেছে লেনদেন

২৮ জানুয়ারি পিপিবির পোল্ট্রি কনভেনশন ও মেলা

ছবি

বাংলাদেশ ও কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ৩ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলার

ছবি

শেয়ারদর বৃদ্ধির শীর্ষে ইস্টার্ন হাউজিং

ছবি

বাড়ল চিনির দাম, ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর

ছবি

সিএসইর ৭ স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ

ছবি

জনশক্তি রপ্তানি দ্বিগুণ, তবু কমল রেমিট্যান্স

ছবি

৯ মাসে ঋণ আদায়ের চেয়ে অবলোপন দ্বিগুণ

ছবি

‘দ্রব্যমূল্য কমাতে শুল্ক ছাড়’ দৃষ্টিভঙ্গির বদল চায় এনবিআর

ছবি

লক্ষ্যের ধারে-কাছেও যেতে পারছে না বিদেশি বিনিয়োগ

ছবি

সাত মাসেই ৮৫০ কোটি ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

এলসি খোলার জটিলতায় বিপাকে খুলনার ব্যবসায়ীরা

রোজায় নিত্যপণ্যের দাম বাড়ালে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ

তৈরি পোশাক কেনা বাড়ানো ও উপযুক্ত দাম নিশ্চিতের আহ্বান

বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভাইয়া অ্যাপারেলসের বিনিয়োগ

গ্রিন ফ্যাক্টরির প্লাটিনাম সনদ পেল আমানত শাহ

টানা ৩ দিন উত্থান শেয়ারবাজারে

ছবি

ঢাকা ত্যাগ করেছেন বিশ্বব্যাংক এমডি

ছবি

টানা ২৬ দিন ডলারের বিপরীতে পাকিস্তানি রুপির দরপতন

ছবি

মেট্রোরেলঃ চালু হলো পল্লবী স্টেশন, ৭ মিনিটে আগারগাঁও

ছবি

ডলার বিক্রিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন রেকর্ড

বিপিজিএমইএর ১৫তম প্লাস্টিক মেলা ২২ ফেব্রুয়ারি

শেয়ারবাজারে উত্থান

ছবি

ফেয়ার গ্রুপের তৈরি হুন্দাই এসইউভি মিলবে ৯ লাখ টাকা কমে

রমজানে পণ্য সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহায়তা চায় ডিসিসিআই

এআই খাতে বিনিয়োগ ক্রমেই বাড়ছে, বাড়ছে কর্মী ছাঁটাই

ছবি

উদ্যোক্তাদের প্রযুক্তি সেবা দিচ্ছে সিস্টেমআই

১০ কোটি টাকার ওপরে ঋণ দিতে পারবে না ন্যাশনাল ব্যাংক : কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

ফেব্রুয়ারিতে সাবমেরিন ক্যাবলে বিদ্যুৎ যাচ্ছে কুতুবদিয়া দ্বীপে

ছবি

ফেব্রুয়ারির প্রথম দিনেই শুরু হচ্ছে অমর একুশে বইমেলা

ছবি

ডিজিটাল অভিযাত্রায় বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে: বিশ্ব ব্যাংক

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বাংলাদেশি ডেনিম সবার শীর্ষে, যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানিতে ৪২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২

তৈরি পোশাক খাতে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর ডেনিমে অবস্থান সবার শীর্ষে। সাশ্রয়ী দাম আর গুণগত মান ভালো হওয়ায় এখানকার ডেনিমের কদর বিশ্বজুড়ে। সে সুবাদে চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডেনিম রপ্তানি করেছে ৭৪ কোটি ডলারের। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তা ৪২ শতাংশ বেশি।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস ডিপার্টমেন্ট অফ কমার্সের অফিস অফ টেক্সটাইল অ্যান্ড অ্যাপারেল (অটেক্সা) সম্প্রতি এই হালনাগাদ পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। অটেক্সার তথ্য থেকে জানা যায়, গত বছরের প্রথম ৯ মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডেনিম রপ্তানি করেছিল ৫২ কোটি ডলারের। চলতি বছরের একই সময়ে দেশটিতে রপ্তানি হয়েছে ৭৩ দশমিক ৮ কোটি ডলারের ডেনিম পণ্য। এর মাধ্যমে আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে চলতি বছরে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ৪২ শতাংশ।

বাংলাদেশের পরই যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম রপ্তানিতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মেক্সিকো। চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে দেশটি রপ্তানি করেছে ৫৬ দশমিক ১ কোটি ডলার। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ৪৭ কোটি ডলার। এতে এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৮ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম রপ্তানিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান। দেশটি এ সময়ে ডেনিম রপ্তানি করেছে ৩৭ দশমিক ৬ কোটি ডলার। আগের বছরের একই সময়ে তা ছিল ২৭ দশমিক ৫ কোটি ডলার। এতে এ বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩৬ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

যুক্তরাষ্ট্রে ডেনিম রপ্তানিতে এরপর যথাক্রমে রয়েছে ভিয়েতনাম, চীন, মিসর ও কম্বোডিয়া। দেশগুলো এ সময়ে রপ্তানি করেছে ৩৪ কোটি ৮০ লাখ, ২৯ কোটি ১০ লাখ, ১৭ কোটি ৮ লাখ ও ১৬ কোটি ৮০ লাখ ডলার। এতে দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি হয়েছে যথাক্রমে ২৫ শতাংশ, ৬ শতাংশ, ৬০ দশমিক ৩০ শতাংশ ও ৪৭ দশমিক ৪০ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরিচালক ও মুখপাত্র মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ডেনিম পোশাকের ক্ষেত্রে বরাবরই বাংলাদেশের অবস্থান ভালো ছিল। এখনও ভালো। করোনার প্রভাব ও ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে সামগ্রী ব্যবসা খারাপ হলেও ডেনিম পোশাক রপ্তানিতে ৪২ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি হয়েছে। তবে জ্বালানি বিশেষ করে গ্যাস সংকটের কারণে অক্টোবর ও নভেম্বর মাসের প্রবৃদ্ধিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।’

গার্মেন্টস ব্যবসায়ীরা জানান, তিন কারণে বাংলাদেশের ডেনিম পণ্য এখন বিশ্বসেরা। এর প্রথম কারণ হচ্ছে, ডেনিম ফেব্রিকসের কাঁচামাল বাংলাদেশে উৎপাদন হয়। ফলে দাম কম। দ্বিতীয় কারণ হলো, অভিনব ডিজাইন এবং সৃজনশীল ডেনিম পোশাক প্রস্তুত করতে বাংলাদেশের নৈপুণ্য এবং তৃতীয় কারণ হচ্ছে বাংলাদেশের ডেনিমের কারখানাগুলো অত্যাধুনিক এবং ওয়াশিংয়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ উৎকৃষ্ট। ফলে উৎপাদিত পণ্যের ফিনিশিং হয় আকর্ষণীয়।

ডেনিম নামের বিশেষ কাপড় দিয়ে তৈরি পোশাকের নাম জিনস। শুরুতে ডেনিম কাপড়ে তৈরি প্যান্টকে জিনস বলা হতো। এখন জিনস শব্দটি এতোই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে, অনেকে ডেনিম কাপড়কেই জিনস নামে চেনেন। আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তার কারণে প্যান্টের পাশাপাশি ডেনিম কাপড় দিয়ে এখন ছেলে ও মেয়েদের শার্ট ও জ্যাকেট, পাঞ্জাবি, মেয়েদের টপস, বাচ্চাদের পোশাক তৈরি হচ্ছে সমানতালে। ফ্যাশনসচেতন মানুষের হাতব্যাগ, কাঁধে ঝোলানোর ব্যাগ, ল্যাপটপ ব্যাগ, এমনকি পায়ের জুতায়ও স্থান করে নিয়েছে ডেনিম কাপড়। ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশেও এই পোশাক রপ্তানিতে এখন শীর্ষস্থানে বাংলাদেশ।

back to top