alt

অর্থ-বাণিজ্য

বিয়ানীবাজারে চলছে প্রোডাকশন টেস্ট, এরপরই গ্যাস সরবরাহ

প্রতিনিধি, সিলেট : : সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২

চলছে প্রোডাকশন টেস্ট। এই কাজটুকু শেষ হলেই যে কোন মুহূর্তে শুরু হবে সিলেটের বিয়ানীবাজার গ্যাসক্ষেত্রের ১ নম্বর কূপ থেকে জাতীয় সঞ্চালন লাইনে গ্যাস সরবরাহ।

গ্যাস উত্তোলন ও সরবরাহের চূড়ান্ত পর্ব ফাইনাল প্রোডাকশন টেস্ট রোববার (২৭ নভেম্বর) রাত থেকে শুরু হয়েছে। জানিয়েছেন সিলেট গ্যাস ফিল্ড লিমিটেডের (এসজিএফএল) মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আব্দুল জলিল প্রামানিক।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন (বাপেক্স) কর্তৃপক্ষ জানায়, বর্তমানে কূপের ৩ হাজার ২৫৪ মিটার গভীরে ৭০ বিলিয়ন ঘনফুটের বেশি গ্যাস মজুত আছে। গ্যাসের চাপ পরীক্ষার পর দেখা গেছে, কূপটি দৈনিক ১০ থেকে ১২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করতে সক্ষম। তবে কারিগরি বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে দৈনিক আট মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এতে দৈনিক ১২৫ থেকে ১৩০ ব্যারেল কনডেন্স গ্যাস পাওয়া যাবে বলেও আশাবাদী কর্তৃপক্ষ। পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকা বিয়ানীবাজারের ১ নং কূপ গত সেপ্টেম্বরে খনন কাজ শুরু করে বাপেক্স।

এসজিএফএল মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) বলেন, রোববার বিকেলে আমরা পরীক্ষামূলক সব কাজ সম্পন্ন করেছি। গ্যাসের চাপ পরীক্ষার (টেস্টিং) কাজ শেষে চূড়ান্ত পর্যায়ে জাতীয় গ্রিডে গ্যাস সরবরাহের জন্য কারিগরি সব প্রস্ততি সম্পন্ন হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে যে কোন মুহূর্তে কূপ থেকে সঞ্চালন লাইনে গ্যাস সরবরাহ শুরু হবে। এই কূপ থেকে প্রতিদিন ৮ মিলিয়ন গ্যাস গ্রিড লাইনে সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।

বিয়ানীবাজার গ্যাসক্ষেত্রটি এসজিএফএল আওতাধীন। এই গ্যাসক্ষেত্রের ২ নম্বর কূপ থেকে দৈনিক ৭ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় সঞ্চালন লাইনে সরবরাহ হচ্ছে।

এসজিএফএল সূত্রে জানা গেছে, বিয়ানীবাজার গ্যাস ফিল্ডের ১ নম্বর কূপ থেকে ১৯৯১ সালে গ্যাস তোলা শুরু হয়। ২০১৪ সালে তা বন্ধ হয়ে যায়। ২০১৬ সালে আবার উত্তোলন শুরু হলেও ওই বছরের শেষ দিকে আবারও তা বন্ধ হয়ে যায়। ২০১৭ সালের শুরু থেকেই কূপটি পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। এরপর বাপেক্স ওই কূপে অনুসন্ধানকাজ চালিয়ে গ্যাসের মজুত পায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ১০ সেপ্টেম্বর ওই কূপে নতুন করে পুনঃখননকাজ (ওয়ার্ক ওভার) শুরু হয়। পুণঃখনন শেষে গত ১০ নভেম্বর থেকে কূপে গ্যাসের মজুদের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। এরপর গ্যাসের চাপ পরীক্ষা শেষে কূপ থেকে দ্রুত জাতীয় সঞ্চালন লাইনে গ্যাস দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করা হয়।

এসজিএফএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, বর্তমানে এই কূপের ৩ হাজার ২৫৪ মিটার গভীরে ৭০ বিলিয়ন ঘনফুটের বেশি গ্যাস মজুত আছে। গ্যাসের চাপ পরীক্ষার পর দেখা গেছে কূপটি দৈনিক ১০ থেকে ১২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করতে সক্ষম। তবে কারিগরি বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে দৈনিক আট মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এতে দৈনিক ১২৫ থেকে ১৩০ ব্যারেল কনডেন্স গ্যাস পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ছবি

আমিরাতেই প্রাণের পণ্য তৈরি করবে ইমার্জিং ওয়ার্ল্ড

ছবি

বাড়তি দরে রেমিট্যান্স সংগ্রহে ব্যাংকগুলোকে বাফেদার সতর্কতা

ছবি

কাস্টমস দিবসে ‘সার্টিফিকেট অব মেরিট’ পেলেন ১৭ কর্মকর্তা

ছবি

গুগলের শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আসছে জনপ্রিয় চ্যাটজিপিটি

ছবি

শুরু হলো ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা ২০২৩

সূচক বেড়েছে, তবে কমেছে লেনদেন

২৮ জানুয়ারি পিপিবির পোল্ট্রি কনভেনশন ও মেলা

ছবি

বাংলাদেশ ও কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ৩ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলার

ছবি

শেয়ারদর বৃদ্ধির শীর্ষে ইস্টার্ন হাউজিং

ছবি

বাড়ল চিনির দাম, ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর

ছবি

সিএসইর ৭ স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ

ছবি

জনশক্তি রপ্তানি দ্বিগুণ, তবু কমল রেমিট্যান্স

ছবি

৯ মাসে ঋণ আদায়ের চেয়ে অবলোপন দ্বিগুণ

ছবি

‘দ্রব্যমূল্য কমাতে শুল্ক ছাড়’ দৃষ্টিভঙ্গির বদল চায় এনবিআর

ছবি

লক্ষ্যের ধারে-কাছেও যেতে পারছে না বিদেশি বিনিয়োগ

ছবি

সাত মাসেই ৮৫০ কোটি ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

এলসি খোলার জটিলতায় বিপাকে খুলনার ব্যবসায়ীরা

রোজায় নিত্যপণ্যের দাম বাড়ালে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ

তৈরি পোশাক কেনা বাড়ানো ও উপযুক্ত দাম নিশ্চিতের আহ্বান

বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভাইয়া অ্যাপারেলসের বিনিয়োগ

গ্রিন ফ্যাক্টরির প্লাটিনাম সনদ পেল আমানত শাহ

টানা ৩ দিন উত্থান শেয়ারবাজারে

ছবি

ঢাকা ত্যাগ করেছেন বিশ্বব্যাংক এমডি

ছবি

টানা ২৬ দিন ডলারের বিপরীতে পাকিস্তানি রুপির দরপতন

ছবি

মেট্রোরেলঃ চালু হলো পল্লবী স্টেশন, ৭ মিনিটে আগারগাঁও

ছবি

ডলার বিক্রিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন রেকর্ড

বিপিজিএমইএর ১৫তম প্লাস্টিক মেলা ২২ ফেব্রুয়ারি

শেয়ারবাজারে উত্থান

ছবি

ফেয়ার গ্রুপের তৈরি হুন্দাই এসইউভি মিলবে ৯ লাখ টাকা কমে

রমজানে পণ্য সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহায়তা চায় ডিসিসিআই

এআই খাতে বিনিয়োগ ক্রমেই বাড়ছে, বাড়ছে কর্মী ছাঁটাই

ছবি

উদ্যোক্তাদের প্রযুক্তি সেবা দিচ্ছে সিস্টেমআই

১০ কোটি টাকার ওপরে ঋণ দিতে পারবে না ন্যাশনাল ব্যাংক : কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

ফেব্রুয়ারিতে সাবমেরিন ক্যাবলে বিদ্যুৎ যাচ্ছে কুতুবদিয়া দ্বীপে

ছবি

ফেব্রুয়ারির প্রথম দিনেই শুরু হচ্ছে অমর একুশে বইমেলা

ছবি

ডিজিটাল অভিযাত্রায় বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে: বিশ্ব ব্যাংক

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বিয়ানীবাজারে চলছে প্রোডাকশন টেস্ট, এরপরই গ্যাস সরবরাহ

প্রতিনিধি, সিলেট :

সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২

চলছে প্রোডাকশন টেস্ট। এই কাজটুকু শেষ হলেই যে কোন মুহূর্তে শুরু হবে সিলেটের বিয়ানীবাজার গ্যাসক্ষেত্রের ১ নম্বর কূপ থেকে জাতীয় সঞ্চালন লাইনে গ্যাস সরবরাহ।

গ্যাস উত্তোলন ও সরবরাহের চূড়ান্ত পর্ব ফাইনাল প্রোডাকশন টেস্ট রোববার (২৭ নভেম্বর) রাত থেকে শুরু হয়েছে। জানিয়েছেন সিলেট গ্যাস ফিল্ড লিমিটেডের (এসজিএফএল) মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আব্দুল জলিল প্রামানিক।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন (বাপেক্স) কর্তৃপক্ষ জানায়, বর্তমানে কূপের ৩ হাজার ২৫৪ মিটার গভীরে ৭০ বিলিয়ন ঘনফুটের বেশি গ্যাস মজুত আছে। গ্যাসের চাপ পরীক্ষার পর দেখা গেছে, কূপটি দৈনিক ১০ থেকে ১২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করতে সক্ষম। তবে কারিগরি বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে দৈনিক আট মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এতে দৈনিক ১২৫ থেকে ১৩০ ব্যারেল কনডেন্স গ্যাস পাওয়া যাবে বলেও আশাবাদী কর্তৃপক্ষ। পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকা বিয়ানীবাজারের ১ নং কূপ গত সেপ্টেম্বরে খনন কাজ শুরু করে বাপেক্স।

এসজিএফএল মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) বলেন, রোববার বিকেলে আমরা পরীক্ষামূলক সব কাজ সম্পন্ন করেছি। গ্যাসের চাপ পরীক্ষার (টেস্টিং) কাজ শেষে চূড়ান্ত পর্যায়ে জাতীয় গ্রিডে গ্যাস সরবরাহের জন্য কারিগরি সব প্রস্ততি সম্পন্ন হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে যে কোন মুহূর্তে কূপ থেকে সঞ্চালন লাইনে গ্যাস সরবরাহ শুরু হবে। এই কূপ থেকে প্রতিদিন ৮ মিলিয়ন গ্যাস গ্রিড লাইনে সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।

বিয়ানীবাজার গ্যাসক্ষেত্রটি এসজিএফএল আওতাধীন। এই গ্যাসক্ষেত্রের ২ নম্বর কূপ থেকে দৈনিক ৭ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় সঞ্চালন লাইনে সরবরাহ হচ্ছে।

এসজিএফএল সূত্রে জানা গেছে, বিয়ানীবাজার গ্যাস ফিল্ডের ১ নম্বর কূপ থেকে ১৯৯১ সালে গ্যাস তোলা শুরু হয়। ২০১৪ সালে তা বন্ধ হয়ে যায়। ২০১৬ সালে আবার উত্তোলন শুরু হলেও ওই বছরের শেষ দিকে আবারও তা বন্ধ হয়ে যায়। ২০১৭ সালের শুরু থেকেই কূপটি পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। এরপর বাপেক্স ওই কূপে অনুসন্ধানকাজ চালিয়ে গ্যাসের মজুত পায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ১০ সেপ্টেম্বর ওই কূপে নতুন করে পুনঃখননকাজ (ওয়ার্ক ওভার) শুরু হয়। পুণঃখনন শেষে গত ১০ নভেম্বর থেকে কূপে গ্যাসের মজুদের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। এরপর গ্যাসের চাপ পরীক্ষা শেষে কূপ থেকে দ্রুত জাতীয় সঞ্চালন লাইনে গ্যাস দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করা হয়।

এসজিএফএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, বর্তমানে এই কূপের ৩ হাজার ২৫৪ মিটার গভীরে ৭০ বিলিয়ন ঘনফুটের বেশি গ্যাস মজুত আছে। গ্যাসের চাপ পরীক্ষার পর দেখা গেছে কূপটি দৈনিক ১০ থেকে ১২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করতে সক্ষম। তবে কারিগরি বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে দৈনিক আট মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এতে দৈনিক ১২৫ থেকে ১৩০ ব্যারেল কনডেন্স গ্যাস পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

back to top