alt

অর্থ-বাণিজ্য

দশ মাসে রেমিট্যান্স কমেছে ৮৫ কোটি ৬৭ লাখ ডলার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

রেমিট্যান্স কমায় সার্বিক অর্থনীতিতে চোখ রাঙাচ্ছে ডলার সংকট। সংকট কাটাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ নিলেও রেমিট্যান্স বাড়ছে না। এতে ব্যাপকহারে চাপ বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে। চলতি বছরের প্রথম দশ মাসে (জানুয়ারি-নভেম্বর) ১ হাজার ৯৫৮ কোটি ৫১ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এর পরিমাণ ৮৫ কোটি ৬৭ লাখ ডলার কম। ২০২১ সালের (জানুয়ারি-নভেম্বর) পর্যন্ত রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ৪৪ কোটি ১৮ লাখ ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকের রেমিট্যান্সের সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্যে এ চিত্র ওঠে এসেছে।

বছরের শুরু থেকেই রেমিট্যান্সের নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি বজায় ছিল। তবে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) ২০০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠায় প্রবসীরা। প্রবাসী আয়ের এই উর্ধ্বগতি ধারা পরবর্তী মাসগুলোতে আর দেখা যায়নি। গত সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে ১৫২ কোটি ডলারের আশেপাশে রেমিট্যান্স পাঠায় প্রবাসীরা। এরপরে সদ্য গত নভেম্বরে আগের দুই মাসের তুলনায় রেমিট্যান্স কিছুটা বৃদ্ধি পায়। মাসটিতে প্রবাসীরা ১৫৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স পাঠায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে (জুলাই-নভেম্বর) রেমিট্যান্স এসেছে ৮৭৯ কোটি ৩০ লাখ ডলার। বিপরীতে গত অর্থবছরের একই সময়ে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিল ৮৬০ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। সে তুলনায় প্রথম পাঁচ মাসে ১৮ কোটি ৪১ লাখ ডলার রেমিট্যান্স বেড়েছে।

জানা যায়, রেমিট্যান্সের পাশাপাশি রপ্তানি আয়েও বড় ধাক্কা লেগেছে। এসব কারণে ডলার সংকট ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। দেশের অনেক ব্যাংকে ঋণপত্রের (এলসি) দায় মেটানোর মতো কোনো ডলার নেই। আমদানি দায় পরিশোধ করতে গিয়ে ঘাটতিতে পড়েছে এসব ব্যাংক। রেমিট্যান্স (প্রবাস আয়) ও রপ্তানি আয় থেকে আসা ডলার দিয়েও নিজেদের আমদানি দায় এবং গ্রাহকদের বিদেশি ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। এ কারণে আমদানির নতুন এলসি খোলা কমিয়ে দিয়েছে ব্যাংকগুলো।

এর আগে ২০২১-২২ অর্থবছরে ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে দেশে ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ (২১ দশমিক ৩ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। এটি তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৫ দশমিক ১১ শতাংশ কম। ২০২০-২১ অর্থবছরে দুই হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ (২৪ দশমিক ৭৭ বিলিয়ন) ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন বিভিন্ন দেশে বসবাসরত বাংলাদেশি প্রবাসীরা।

বাণিজ্য মেলায় রপ্তানি আদেশ ৩০০ কোটি টাকা

আইএমএফের ঋণ প্রাপ্তি, দেশের অর্থনীতির সক্ষমতার প্রকাশ : অর্থমন্ত্রী

দেশে অটোরিকশা উৎপাদন শুরু করছে রানার

গ্রামীণফোনের ৯৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা

রাজধানীতে স্বর্র্ণালঙ্কার মেলা শুরু ৯ ফেব্রুয়ারি

ছবি

বাণিজ্য মেলা শেষ: এবার দর্শনার্থী ৩৫ লাখ, কেনা-বেচা ১০০ কোটি টাকা

ছবি

২৭ দিনে ১৬৭ কোটি ডলার রেমিট্যান্স

ছবি

পুঁজিবাজারের উন্নতি হলে অর্থায়ন সম্ভব: আইএমএফ

ছবি

বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন দিলো আইএমএফ

ছবি

এসআইবিএলের চেয়ারম্যান ও অতিরিক্ত এমডির পদত্যাগ

ছবি

আবার বাড়লো বিদ্যুতের দাম, কাল থেকেই কার্যকর

ছবি

মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলা শেষ হচ্ছে আজ

ছবি

রিজার্ভের অর্থে আর কোনও তহবিল নয়: গভর্নর

ছবি

জালিয়াতি জালিয়াতিই, আদানি অন্যতম ধনী হলেও তা জালিয়াতি: হিনডেনবার্গ

ছবি

কাতারে স্টেডিয়াম তৈরীতে নিহত-আহতদের ক্ষতিপূরণ চেয়ে রুল

ছবি

৫ কোম্পানির দ্বিতীয় প্রান্তিক প্রকাশ

ছবি

আইএমএফ ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন দিতে পারে আজ

ছবি

ন্যাশনাল ব্যাংকে মেহমুদ হোসেনকেই এমডি পদে রাখতে হবে

দেশে ব্যবসায় সবচেয়ে বড় বাধা দুর্নীতি : সিপিডি

পরপর ৪ দিন উত্থানের পর শেয়ারবাজারে পতন

ছবি

এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনের পর বাণিজ্য সহায়তা করবে জাপান : বাণিজ্যমন্ত্রী

ছবি

তৃতীয় শীর্ষ ধনী থেকে সপ্তম স্থানে নেমেছেন আদানি

বাণিজ্য মেলায় ভ্যাট আদায় দেড় কোটি টাকা

ছবি

ব্যাংক খাতের সমন্বিত ও সার্বিক সংস্কার প্রয়োজন: এডিবি কান্ট্রি ডিরেক্টর

ছবি

রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়াতে লন্ডন হাইকমিশনের বিশেষ উদ্যোগ

ছবি

মাসের ব্যবধানে রসুনের দাম বেড়েছে ৩৫ শতাংশ

ছবি

কালি ও কলম পুরস্কার পেলেন যারা

ছবি

দেশে মোটরসাইকেল বিক্রি কমলেও নিবন্ধন বেড়েছে

এবার বাড়ছে না বাণিজ্যমেলার সময়

১০ হাজার কোটি টাকা মূলধন বাড়লো শেয়ারবাজারে

চীনে পূর্ণ মালিকানায় ব্যবসা করতে পারবে বিদেশি আর্থিক প্রতিষ্ঠান

ছবি

সংকটের মধ্যেও আশার আলো, একদিনে রেমিটেন্স এলো ৭ কোটি ডলার

ছবি

পাইকারি বিদ্যুতের দাম ফের বাড়ানোর প্রস্তাব

ছবি

১০ বছরে সর্বনিম্ন এডিপি বাস্তবায়ন

ছবি

নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস চেয়ে সরকারের কাছে বিজিএমইএর চিঠি

ছবি

২০৩০ সালের মধ্যে নবম বৃহত্তম ভোক্তা বাজার হবে বাংলাদেশ : এফবিসিসিআই

tab

অর্থ-বাণিজ্য

দশ মাসে রেমিট্যান্স কমেছে ৮৫ কোটি ৬৭ লাখ ডলার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

রেমিট্যান্স কমায় সার্বিক অর্থনীতিতে চোখ রাঙাচ্ছে ডলার সংকট। সংকট কাটাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ নিলেও রেমিট্যান্স বাড়ছে না। এতে ব্যাপকহারে চাপ বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে। চলতি বছরের প্রথম দশ মাসে (জানুয়ারি-নভেম্বর) ১ হাজার ৯৫৮ কোটি ৫১ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এর পরিমাণ ৮৫ কোটি ৬৭ লাখ ডলার কম। ২০২১ সালের (জানুয়ারি-নভেম্বর) পর্যন্ত রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ৪৪ কোটি ১৮ লাখ ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকের রেমিট্যান্সের সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্যে এ চিত্র ওঠে এসেছে।

বছরের শুরু থেকেই রেমিট্যান্সের নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি বজায় ছিল। তবে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) ২০০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠায় প্রবসীরা। প্রবাসী আয়ের এই উর্ধ্বগতি ধারা পরবর্তী মাসগুলোতে আর দেখা যায়নি। গত সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে ১৫২ কোটি ডলারের আশেপাশে রেমিট্যান্স পাঠায় প্রবাসীরা। এরপরে সদ্য গত নভেম্বরে আগের দুই মাসের তুলনায় রেমিট্যান্স কিছুটা বৃদ্ধি পায়। মাসটিতে প্রবাসীরা ১৫৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স পাঠায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে (জুলাই-নভেম্বর) রেমিট্যান্স এসেছে ৮৭৯ কোটি ৩০ লাখ ডলার। বিপরীতে গত অর্থবছরের একই সময়ে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিল ৮৬০ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। সে তুলনায় প্রথম পাঁচ মাসে ১৮ কোটি ৪১ লাখ ডলার রেমিট্যান্স বেড়েছে।

জানা যায়, রেমিট্যান্সের পাশাপাশি রপ্তানি আয়েও বড় ধাক্কা লেগেছে। এসব কারণে ডলার সংকট ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। দেশের অনেক ব্যাংকে ঋণপত্রের (এলসি) দায় মেটানোর মতো কোনো ডলার নেই। আমদানি দায় পরিশোধ করতে গিয়ে ঘাটতিতে পড়েছে এসব ব্যাংক। রেমিট্যান্স (প্রবাস আয়) ও রপ্তানি আয় থেকে আসা ডলার দিয়েও নিজেদের আমদানি দায় এবং গ্রাহকদের বিদেশি ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। এ কারণে আমদানির নতুন এলসি খোলা কমিয়ে দিয়েছে ব্যাংকগুলো।

এর আগে ২০২১-২২ অর্থবছরে ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে দেশে ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ (২১ দশমিক ৩ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। এটি তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৫ দশমিক ১১ শতাংশ কম। ২০২০-২১ অর্থবছরে দুই হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ (২৪ দশমিক ৭৭ বিলিয়ন) ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন বিভিন্ন দেশে বসবাসরত বাংলাদেশি প্রবাসীরা।

back to top