alt

অর্থ-বাণিজ্য

ই-রিটার্ন জমার সংখ্যা সন্তোষজনক নয়

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

গত ৭ বছরে দেশে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা বেড়েছে ২৮৬ শতাংশ। একই সময়ে রিটার্ন জমা দেয়ার সংখ্যা বেড়েছে ১৩৭ শতাংশ। সে হিসাবে দুই-তৃতীয়াংশ টিআইএনধারীই রিটার্ন জমা দেননি। দেশে নিবন্ধিত করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর টিআইএন বাড়লেও সে অনুযায়ী বাড়ছে না রিটার্ন জমার সংখ্যা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) এক প্রতিবেদনে এমন চিত্র উঠে এসেছে। এনবিআরের প্রতিবেদন অনুযায়ী গত ৭ বছরে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা বেড়েছে ২৮৬ শতাংশ। একই সময়ে রিটার্ন জমা দেয়ার সংখ্যা বেড়েছে ১৩৭ শতাংশ। অর্থাৎ দুই তৃতীয়াংশ রিটার্নই জমা পড়েনি। এনবিআরের সদস্য (করনীতি) ড. সামস উদ্দিন আহমেদের তৈরি করা প্রতিবেদনটি জাতীয় আয়কর দিবসে উপস্থাপন করা হয়েছে।

আইনে আয় থাকুক আর না থাকুক টিআইএন থাকলেই রিটার্ন জমা দেয়া বাধ্যতামূলক করা হলেও প্রত্যাশা অনুযায়ী রিটার্ন জমা পড়ছে না। এনবিআর সূত্র বলেছে টিআইএন থাকলে রিটার্ন জমা দেয়া বাধ্যতামূলক করা হয় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে। তারপর থেকে রিটার্ন জমার সংখ্যা বাড়ছে। তবে এই সংখ্যা এখনও সন্তোষজনক নয়। চলতি বছরে ৩৫ লাখ রিটার্ন জমা পড়বে বলে আশা করছে এনবিআর। আগামী দুই বছরের মধ্যে এই সংখ্যা ৫০ লাখে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয় ২০১৫-১৬ অর্থবছরে নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যা ছিল সাড়ে ১৬ লাখ। এর বিপরীতে ওই বছর রিটার্ন জমা পড়ে প্রায় ১১ লাখ। সবশেষ ২০২১-২২ অর্থবছরে টিআইএনধারীর সংখ্যা ছিল প্রায় ৬৪ লাখ। এর বিপরীতে রিটার্ন জমা পড়েছে ২৫ লাখ ৯১ হাজার। প্রতিবেদনে দেখা যায় ৭ বছরে সংখ্যাগত দিক থেকে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা বেড়েছে ৪৭ লাখ ২২ হাজার। বর্তমানে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা ৮০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। বৃদ্ধির এই হার ২৮৬ শতাংশ। একই সময়ে রিটার্ন জমা দেয়া বেড়েছে ১০ লাখ ৯৩ হাজার বা ১৩৭ শতাংশ।

এনবিআর সূত্র বলেছে, কর-নেট সম্প্রসারণে চলতি বাজেটে নানা ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে যেসব ক্ষেত্রে টিআইএন গ্রহণ বাধ্যতামূলক রয়েছে সেসব ক্ষেত্রসহ ৪০টি খাতে সেবা গ্রহণের সময় রিটার্ন জমার সঙ্গে প্রমাণপত্র দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ফলে রিটার্ন জমার সংখ্যা এবার ৩৫ লাখ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৯০ ভাগ রিটার্ন জমা পড়েছে ব্যক্তিশ্রেণী করদাতা খাতে। মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ হাজার কোম্পানি রিটার্ন জমা দেয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, নিবন্ধিত করদাতার মধ্যে ৬৭ শতাংশ ব্যক্তিকরদাতা, ২৯ শতাংশ বেতনভোগী, ৩ শতাংশ কোম্পানি ও এক শতাংশ ফার্ম। যোগাযোগ করা হলে এনবিআরের সাবেক সদস্য আমিনুর রহমান বলেন ‘সামর্থ্যবানদের মধ্যে বেশিরভাগই করের আওতার বাইরে। এদের আওতায় আনতে হলে প্রয়োজন কর শিক্ষার প্রচার ও করদাতার আস্থা অর্জন করা। আয়কর রিটার্ন দাখিল ও কর পরিশোধ পদ্ধতি অনলাইনের আওতায় আনতে হবে। পাশাপাশি কর আইন আরও সহজ করতে হবে।’

করনেট সম্প্রসারণে পাঁচটি চ্যালেঞ্জের উল্লেখ করেছেন এনবিআরের সদস্য সামস উদ্দিন আহমেদ। এগুলো হচ্ছে নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যার সঙ্গে প্রত্যাশিত রিটার্ন দাখিলকারী করদাতার সংখ্যার অসামঞ্জস্যতা, ডিজিটাল সংযোগ, মানবসম্পদ ও অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ, ডিজিটাল ইকোনমি সম্পর্কে কর্মকর্তাদের ধারণার অভাব, আনুষ্ঠানিক অর্থনীতি ও তথ্যের ঘাটতি ইত্যাদি। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার পাশাপাশি করনেট বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। বর্তমানে আয়করের অংশ এনবিআর সংগৃহীত মোট রাজস্বের ৩৪ শতাংশ এবং জিডিপিতে আয়করের অবদান মাত্র আড়াই শতাংশ।

বাংলাদেশকে উচ্চ আয় এবং উন্নত দেশের কাতারে যেতে ২০৩১ সালে কর-জিডিপি অনুপাত ১৭ শতাংশ এবং ২০৪১ সালে ২১ শতাংশে উন্নীত করার কথা উল্লেখ করা হয় এনবিআরের প্রতিবেদনে। এই লক্ষ্য অর্জন করতে হলে মোট রাজস্বে আয়করের অংশ কমপক্ষে ৭০ শতাংশে উন্নীত করতে হবে বলে জানান ড. সামস উদ্দিন।এ জন্য কয়েকটি পরিকল্পনা নিতে হবে বলে মনে করেন তিনি। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- করের আওতা বৃদ্ধি ও করসেবা সহজ করা, কর বিভাগকে পূর্ণাঙ্গ ডিজিটালাইজ করা, কর আইন সংস্কার, কর বিভাগের সক্ষমতা বাড়ানো এবং কর বিভাগের জন্য দক্ষ মানব সম্পদ সৃষ্টি করা।

বাণিজ্য মেলায় রপ্তানি আদেশ ৩০০ কোটি টাকা

আইএমএফের ঋণ প্রাপ্তি, দেশের অর্থনীতির সক্ষমতার প্রকাশ : অর্থমন্ত্রী

দেশে অটোরিকশা উৎপাদন শুরু করছে রানার

গ্রামীণফোনের ৯৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা

রাজধানীতে স্বর্র্ণালঙ্কার মেলা শুরু ৯ ফেব্রুয়ারি

ছবি

বাণিজ্য মেলা শেষ: এবার দর্শনার্থী ৩৫ লাখ, কেনা-বেচা ১০০ কোটি টাকা

ছবি

২৭ দিনে ১৬৭ কোটি ডলার রেমিট্যান্স

ছবি

পুঁজিবাজারের উন্নতি হলে অর্থায়ন সম্ভব: আইএমএফ

ছবি

বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন দিলো আইএমএফ

ছবি

এসআইবিএলের চেয়ারম্যান ও অতিরিক্ত এমডির পদত্যাগ

ছবি

আবার বাড়লো বিদ্যুতের দাম, কাল থেকেই কার্যকর

ছবি

মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলা শেষ হচ্ছে আজ

ছবি

রিজার্ভের অর্থে আর কোনও তহবিল নয়: গভর্নর

ছবি

জালিয়াতি জালিয়াতিই, আদানি অন্যতম ধনী হলেও তা জালিয়াতি: হিনডেনবার্গ

ছবি

কাতারে স্টেডিয়াম তৈরীতে নিহত-আহতদের ক্ষতিপূরণ চেয়ে রুল

ছবি

৫ কোম্পানির দ্বিতীয় প্রান্তিক প্রকাশ

ছবি

আইএমএফ ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন দিতে পারে আজ

ছবি

ন্যাশনাল ব্যাংকে মেহমুদ হোসেনকেই এমডি পদে রাখতে হবে

দেশে ব্যবসায় সবচেয়ে বড় বাধা দুর্নীতি : সিপিডি

পরপর ৪ দিন উত্থানের পর শেয়ারবাজারে পতন

ছবি

এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনের পর বাণিজ্য সহায়তা করবে জাপান : বাণিজ্যমন্ত্রী

ছবি

তৃতীয় শীর্ষ ধনী থেকে সপ্তম স্থানে নেমেছেন আদানি

বাণিজ্য মেলায় ভ্যাট আদায় দেড় কোটি টাকা

ছবি

ব্যাংক খাতের সমন্বিত ও সার্বিক সংস্কার প্রয়োজন: এডিবি কান্ট্রি ডিরেক্টর

ছবি

রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়াতে লন্ডন হাইকমিশনের বিশেষ উদ্যোগ

ছবি

মাসের ব্যবধানে রসুনের দাম বেড়েছে ৩৫ শতাংশ

ছবি

কালি ও কলম পুরস্কার পেলেন যারা

ছবি

দেশে মোটরসাইকেল বিক্রি কমলেও নিবন্ধন বেড়েছে

এবার বাড়ছে না বাণিজ্যমেলার সময়

১০ হাজার কোটি টাকা মূলধন বাড়লো শেয়ারবাজারে

চীনে পূর্ণ মালিকানায় ব্যবসা করতে পারবে বিদেশি আর্থিক প্রতিষ্ঠান

ছবি

সংকটের মধ্যেও আশার আলো, একদিনে রেমিটেন্স এলো ৭ কোটি ডলার

ছবি

পাইকারি বিদ্যুতের দাম ফের বাড়ানোর প্রস্তাব

ছবি

১০ বছরে সর্বনিম্ন এডিপি বাস্তবায়ন

ছবি

নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস চেয়ে সরকারের কাছে বিজিএমইএর চিঠি

ছবি

২০৩০ সালের মধ্যে নবম বৃহত্তম ভোক্তা বাজার হবে বাংলাদেশ : এফবিসিসিআই

tab

অর্থ-বাণিজ্য

ই-রিটার্ন জমার সংখ্যা সন্তোষজনক নয়

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

গত ৭ বছরে দেশে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা বেড়েছে ২৮৬ শতাংশ। একই সময়ে রিটার্ন জমা দেয়ার সংখ্যা বেড়েছে ১৩৭ শতাংশ। সে হিসাবে দুই-তৃতীয়াংশ টিআইএনধারীই রিটার্ন জমা দেননি। দেশে নিবন্ধিত করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর টিআইএন বাড়লেও সে অনুযায়ী বাড়ছে না রিটার্ন জমার সংখ্যা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) এক প্রতিবেদনে এমন চিত্র উঠে এসেছে। এনবিআরের প্রতিবেদন অনুযায়ী গত ৭ বছরে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা বেড়েছে ২৮৬ শতাংশ। একই সময়ে রিটার্ন জমা দেয়ার সংখ্যা বেড়েছে ১৩৭ শতাংশ। অর্থাৎ দুই তৃতীয়াংশ রিটার্নই জমা পড়েনি। এনবিআরের সদস্য (করনীতি) ড. সামস উদ্দিন আহমেদের তৈরি করা প্রতিবেদনটি জাতীয় আয়কর দিবসে উপস্থাপন করা হয়েছে।

আইনে আয় থাকুক আর না থাকুক টিআইএন থাকলেই রিটার্ন জমা দেয়া বাধ্যতামূলক করা হলেও প্রত্যাশা অনুযায়ী রিটার্ন জমা পড়ছে না। এনবিআর সূত্র বলেছে টিআইএন থাকলে রিটার্ন জমা দেয়া বাধ্যতামূলক করা হয় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে। তারপর থেকে রিটার্ন জমার সংখ্যা বাড়ছে। তবে এই সংখ্যা এখনও সন্তোষজনক নয়। চলতি বছরে ৩৫ লাখ রিটার্ন জমা পড়বে বলে আশা করছে এনবিআর। আগামী দুই বছরের মধ্যে এই সংখ্যা ৫০ লাখে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয় ২০১৫-১৬ অর্থবছরে নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যা ছিল সাড়ে ১৬ লাখ। এর বিপরীতে ওই বছর রিটার্ন জমা পড়ে প্রায় ১১ লাখ। সবশেষ ২০২১-২২ অর্থবছরে টিআইএনধারীর সংখ্যা ছিল প্রায় ৬৪ লাখ। এর বিপরীতে রিটার্ন জমা পড়েছে ২৫ লাখ ৯১ হাজার। প্রতিবেদনে দেখা যায় ৭ বছরে সংখ্যাগত দিক থেকে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা বেড়েছে ৪৭ লাখ ২২ হাজার। বর্তমানে টিআইএন-ধারীর সংখ্যা ৮০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। বৃদ্ধির এই হার ২৮৬ শতাংশ। একই সময়ে রিটার্ন জমা দেয়া বেড়েছে ১০ লাখ ৯৩ হাজার বা ১৩৭ শতাংশ।

এনবিআর সূত্র বলেছে, কর-নেট সম্প্রসারণে চলতি বাজেটে নানা ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে যেসব ক্ষেত্রে টিআইএন গ্রহণ বাধ্যতামূলক রয়েছে সেসব ক্ষেত্রসহ ৪০টি খাতে সেবা গ্রহণের সময় রিটার্ন জমার সঙ্গে প্রমাণপত্র দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ফলে রিটার্ন জমার সংখ্যা এবার ৩৫ লাখ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৯০ ভাগ রিটার্ন জমা পড়েছে ব্যক্তিশ্রেণী করদাতা খাতে। মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ হাজার কোম্পানি রিটার্ন জমা দেয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, নিবন্ধিত করদাতার মধ্যে ৬৭ শতাংশ ব্যক্তিকরদাতা, ২৯ শতাংশ বেতনভোগী, ৩ শতাংশ কোম্পানি ও এক শতাংশ ফার্ম। যোগাযোগ করা হলে এনবিআরের সাবেক সদস্য আমিনুর রহমান বলেন ‘সামর্থ্যবানদের মধ্যে বেশিরভাগই করের আওতার বাইরে। এদের আওতায় আনতে হলে প্রয়োজন কর শিক্ষার প্রচার ও করদাতার আস্থা অর্জন করা। আয়কর রিটার্ন দাখিল ও কর পরিশোধ পদ্ধতি অনলাইনের আওতায় আনতে হবে। পাশাপাশি কর আইন আরও সহজ করতে হবে।’

করনেট সম্প্রসারণে পাঁচটি চ্যালেঞ্জের উল্লেখ করেছেন এনবিআরের সদস্য সামস উদ্দিন আহমেদ। এগুলো হচ্ছে নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যার সঙ্গে প্রত্যাশিত রিটার্ন দাখিলকারী করদাতার সংখ্যার অসামঞ্জস্যতা, ডিজিটাল সংযোগ, মানবসম্পদ ও অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ, ডিজিটাল ইকোনমি সম্পর্কে কর্মকর্তাদের ধারণার অভাব, আনুষ্ঠানিক অর্থনীতি ও তথ্যের ঘাটতি ইত্যাদি। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার পাশাপাশি করনেট বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। বর্তমানে আয়করের অংশ এনবিআর সংগৃহীত মোট রাজস্বের ৩৪ শতাংশ এবং জিডিপিতে আয়করের অবদান মাত্র আড়াই শতাংশ।

বাংলাদেশকে উচ্চ আয় এবং উন্নত দেশের কাতারে যেতে ২০৩১ সালে কর-জিডিপি অনুপাত ১৭ শতাংশ এবং ২০৪১ সালে ২১ শতাংশে উন্নীত করার কথা উল্লেখ করা হয় এনবিআরের প্রতিবেদনে। এই লক্ষ্য অর্জন করতে হলে মোট রাজস্বে আয়করের অংশ কমপক্ষে ৭০ শতাংশে উন্নীত করতে হবে বলে জানান ড. সামস উদ্দিন।এ জন্য কয়েকটি পরিকল্পনা নিতে হবে বলে মনে করেন তিনি। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- করের আওতা বৃদ্ধি ও করসেবা সহজ করা, কর বিভাগকে পূর্ণাঙ্গ ডিজিটালাইজ করা, কর আইন সংস্কার, কর বিভাগের সক্ষমতা বাড়ানো এবং কর বিভাগের জন্য দক্ষ মানব সম্পদ সৃষ্টি করা।

back to top