alt

অর্থ-বাণিজ্য

বাংলাদেশ ও কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ৩ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : বৃহস্পতিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৩

বাংলাদেশ ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের প্রসার রেকর্ড ছুঁয়েছে। ২০২২ সালে উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ তিন বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে। ঢাকায় দক্ষিণ কোরিয়ার দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। কোরিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যাসোসিয়েশনের পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২০২২ সালে বাংলাদেশ-দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল রেকর্ড ৩ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালের চেয়ে যা ৩৮ দশমিক ৭১ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালে এ পরিমাণ ছিল ২ দশশিক ১৮৮ বিলিয়ন ডলার।

২০২২ সালে কোরিয়ায় বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানির পরিমাণ ২২ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়ে ৬৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে। ২০২১ সালে যা ছিল ৫৫২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

২০২২ সালে বাংলাদেশে কোরিয়ার পণ্যের রপ্তানি আগের বছর ২০২১ সালের চেয়ে ৪৪ দশমিক ১ শতাংশ বেড়েছে। ২০২২ সালে বাংলাদেশে ২ দশমিক ৩৫৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের কোরীয় পণ্য রপ্তানি হয়। ২০২১ সালে এ রপ্তানির পরিমাণ ছিল ১ দশমিক ৬৩৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

কোরিয়ায় বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানি শুরু ২০০৭ সালে। ওই বছর প্রথমবারের মতো ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ। এরপর থেকে দেশটিতে বাংলাদেশের রপ্তানির পরিমাণ বেড়ে চলেছে। এরই ধারবাহিকতায় ২০১১ সালে কোরিয়ায় বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানির পরিমাণ ২০০ ও ২০১৩ সালে ৩০০ মিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়।

গত প্রায় এক দশক ধরে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সম্প্রসারণের এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। তবে করোনা মহামারীর কারণে ২০২০ সালে রপ্তানির পরিমাণ ২ দশমিক ৯ শতাংশ কমে ৩৯৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে নেমে আসে। এর পরের বছরই অবশ্য ৫৫২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়ার বাজারে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ওই বছর আগের বছরের তুলনায় রপ্তানি ৪০ দশকি ৪ শতাংশ বৃদ্ধি পায় এবং ২০২২ সালে তা রেকর্ড স্পর্শ করে।

২০২২ সালে দেশটিতে মোট রপ্তানি দাঁড়িয়েছে ৬৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে, যা আগের বছরের তুলনায় ২২ দশমিক ৯ শতাংশ বেশি। বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক, ক্রীড়া সামগ্রী, সৌখিন পণ্য ও ধাতব সামগ্রী কোরিয়ায় সবচেয়ে বেশি রপ্তানি হয়ে থাকে। অন্যদিকে কোরিয়া থেকে মেশিনারি, পেট্রোকেমিক্যাল পণ্য, ইস্পাত ও কীটনাশক পণ্য বাংলাদেশে বেশি রপ্তানি হয়ে থেকে। তবে ২০২২ সালে এসব পণ্য আমদানি কিছুটা হ্রাস পায়।

এর মূল কারণ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ এবং বিদেশি পণ্য আমদানিতে সরকারের বিধিনিষেধ। দু’দেশের বাণিজ্য প্রসারের এ ধারায় ঢাকায় নিযুক্ত কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি বলেছেন, ২০২৩ সালে কোরিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি হচ্ছে। করোনা ও যুদ্ধের ফলে সৃষ্ট বৈশ্বিক অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পরস্পরকে সহায়তার মাধ্যমে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদার হবে। ২০০৮ সাল থেকে আগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য নীতির সুযোগ পেয়ে কোরিয়ার বাজারে ৯৫ শতাংশ বাংলাদেশি পণ্য শুল্ক ও কোটামুক্তভাবে রপ্তানি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

ছবি

এ বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.৭%: আইএমএফ

ছবি

একীভূতকরণ প্রক্রিয়ায় থাকা ব্যাংক চাইলে সরে যেতে পারবে, তবে শর্তসাপেক্ষে : কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

পণ্যের দাম ঠিক রাখতে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে : প্রতিমন্ত্রী

ছবি

একীভূত ব্যাংক : পাঁচটির বাইরে আপাতত আর না

ছবি

ঈদে মানুষের মাঝে স্বস্তি দেখেছি : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বিশ্ব ব্যাংকের চেয়ে বেশি দেখছে এডিবি

ছবি

মার্চে দেশে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৯.৮১ শতাংশ

ছবি

ঈদের আগে পাঁচ দিনে দেশে এলো ৪৬ কোটি ডলার

ছবি

শিল্পাঞ্চলের বাইরের কারখানায় গ্যাস-বিদ্যুৎ আর নয়, পাবেনা ঋণও

এবার ঈদে পর্যটন খাত চাঙ্গা হওয়ার আশা

ছবি

জাতীয় লজিস্টিক নীতির খসড়ার অনুমোদন

সোনালীতে একীভূত হচ্ছে বিডিবিএল

ছবি

সোনার দাম আবার বাড়লো, ভরি ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৭৩ টাকা

ছবি

সিটি ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হচ্ছে রাষ্ট্রীয় বেসিক ব্যাংক

ছবি

বিজিএমইএর দায়িত্ব নিলেন এস এম মান্নান কচি

ছবি

বাজার মূলধন কিছুটা বাড়লো, তবু লাখ কোটি টাকার ওপরে ক্ষতি

ছবি

নতুন বিদেশী ঋণ নিয়ে পুরনো ঋণ শোধ করছে সরকার : সিপিডি

ছবি

ব্যাংক একীভুতকরনে নীতিমালা জারি

রাষ্ট্রীয় চার ব্যাংক একীভূত হয়ে হবে দুই

ছবি

এবার একীভূত হচ্ছে ‘সোনালীর সাথে বিডিবিএল’ ও ‘কৃষির সাথে রাকাব’

ছবি

শেয়ার প্রতি ১ পয়সা লভ্যাংশ দেবে একমি পেস্টিসাইড

এসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানী লিমিটেডের কর্মীদের জন্য মেটলাইফের বীমা সুরক্ষা

গাজীপুরে এক বছরে ট্রাফিক পুলিশের ৫ কোটি টাকা রাজস্ব আয়

ছবি

প্রবৃদ্ধি কমে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হবে: বিশ্বব্যাংক

ছবি

সিএসআর ফান্ডের আওতায় কৃষকদের আর্থিক সহযোগিতা করল সাউথইস্ট ব্যাংক

ছবি

ডেমরায় বাস গ্যারেজে আগুন

ছবি

নিত্যপণ্যের দাম বাড়লেও সেইহারে বাড়েনি তামাকপণ্যের দাম

ছবি

প্রকাশ্যে ঘুষ নেওয়া সেই ভূমি অফিস কর্মী সাময়িক বরখাস্ত

ব্যাংক ঋণের সুদহার আরও বাড়লো

ছবি

বেক্সিমকোর ২ হাজার ৬২৫ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন দিলো বিএসইসি

শ্রমিকের অধিকার সুরক্ষিত রাখতে কাজ করব : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

ছবি

ঈদে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট বাড়াল বিমান

ছবি

ডিজেল-কেরোসিনের দাম লিটারে ২.২৫ টাকা কমলো

ছবি

ফেনীতে টপটেন মার্ট উদ্বোধন করলেন তামিম

ছবি

উচ্চ খেলাপি ঋণ আর্থিক খাতের জন্য বিরাট হুমকি : বাংলাদেশ ব্যাংক

ছবি

শেয়ারবাজারে পতন : ফ্লোর প্রাইস, আতঙ্ক না জুয়া

tab

অর্থ-বাণিজ্য

বাংলাদেশ ও কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ৩ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বৃহস্পতিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৩

বাংলাদেশ ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের প্রসার রেকর্ড ছুঁয়েছে। ২০২২ সালে উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ তিন বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে। ঢাকায় দক্ষিণ কোরিয়ার দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। কোরিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যাসোসিয়েশনের পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২০২২ সালে বাংলাদেশ-দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল রেকর্ড ৩ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালের চেয়ে যা ৩৮ দশমিক ৭১ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালে এ পরিমাণ ছিল ২ দশশিক ১৮৮ বিলিয়ন ডলার।

২০২২ সালে কোরিয়ায় বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানির পরিমাণ ২২ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়ে ৬৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে। ২০২১ সালে যা ছিল ৫৫২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

২০২২ সালে বাংলাদেশে কোরিয়ার পণ্যের রপ্তানি আগের বছর ২০২১ সালের চেয়ে ৪৪ দশমিক ১ শতাংশ বেড়েছে। ২০২২ সালে বাংলাদেশে ২ দশমিক ৩৫৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের কোরীয় পণ্য রপ্তানি হয়। ২০২১ সালে এ রপ্তানির পরিমাণ ছিল ১ দশমিক ৬৩৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

কোরিয়ায় বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানি শুরু ২০০৭ সালে। ওই বছর প্রথমবারের মতো ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ। এরপর থেকে দেশটিতে বাংলাদেশের রপ্তানির পরিমাণ বেড়ে চলেছে। এরই ধারবাহিকতায় ২০১১ সালে কোরিয়ায় বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানির পরিমাণ ২০০ ও ২০১৩ সালে ৩০০ মিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়।

গত প্রায় এক দশক ধরে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সম্প্রসারণের এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। তবে করোনা মহামারীর কারণে ২০২০ সালে রপ্তানির পরিমাণ ২ দশমিক ৯ শতাংশ কমে ৩৯৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে নেমে আসে। এর পরের বছরই অবশ্য ৫৫২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়ার বাজারে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ওই বছর আগের বছরের তুলনায় রপ্তানি ৪০ দশকি ৪ শতাংশ বৃদ্ধি পায় এবং ২০২২ সালে তা রেকর্ড স্পর্শ করে।

২০২২ সালে দেশটিতে মোট রপ্তানি দাঁড়িয়েছে ৬৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে, যা আগের বছরের তুলনায় ২২ দশমিক ৯ শতাংশ বেশি। বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক, ক্রীড়া সামগ্রী, সৌখিন পণ্য ও ধাতব সামগ্রী কোরিয়ায় সবচেয়ে বেশি রপ্তানি হয়ে থাকে। অন্যদিকে কোরিয়া থেকে মেশিনারি, পেট্রোকেমিক্যাল পণ্য, ইস্পাত ও কীটনাশক পণ্য বাংলাদেশে বেশি রপ্তানি হয়ে থেকে। তবে ২০২২ সালে এসব পণ্য আমদানি কিছুটা হ্রাস পায়।

এর মূল কারণ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ এবং বিদেশি পণ্য আমদানিতে সরকারের বিধিনিষেধ। দু’দেশের বাণিজ্য প্রসারের এ ধারায় ঢাকায় নিযুক্ত কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি বলেছেন, ২০২৩ সালে কোরিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি হচ্ছে। করোনা ও যুদ্ধের ফলে সৃষ্ট বৈশ্বিক অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পরস্পরকে সহায়তার মাধ্যমে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদার হবে। ২০০৮ সাল থেকে আগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য নীতির সুযোগ পেয়ে কোরিয়ার বাজারে ৯৫ শতাংশ বাংলাদেশি পণ্য শুল্ক ও কোটামুক্তভাবে রপ্তানি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

back to top