alt

অর্থ-বাণিজ্য

রমজান সামনে : অস্থির বাজার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩

আর মাত্র এক সপ্তাহ বাকি রমজানের। তাই রমজান সামনে রেখে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বাজারে। ছোলা, অ্যাঙ্কর ডাল, বেসন ও ট্যাং থেকে শুরু করে চিনি, তেল, আটা-ময়দার দাম আগের চেয়ে অনেকটাই বেশি। বাজার অস্থির থাকায় দরিদ্র ও নিম্নবিত্তের মানুষ বাজার করছেন কাটছাঁট করে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, গত সপ্তাহে ৯০-৯৫ টাকায় বিক্রি হওয়া ছোলা এখন ৯৫-১০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে ১১৫-১২০ টাকায়। ভালো মানের মসুর ডাল ১৫০ টাকা, খেসারি ডাল ৮০-৯০ টাকা, অ্যাঙ্করের বেসন ৭৫-৮৫ টাকা এবং বুটের বেসন বিক্রি হচ্ছে ১০০-১১০ টাকায়। তবে পণ্যের দাম বাড়ার পেছনে খুচরা ব্যবসায়ীদের কোন হাত নেই বলে জানান তারা।

বেসরকারি চাকরিজীবী আবদুল্লাহ যুবায়ের স্বাদ বলেন, ‘আগে রোজা এলে একসঙ্গে দুই কেজি গরুর মাংস, কয়েকটা মুরগি দু-চার কেজি বড় মাছ কিনতাম, আজ শুধু একটা ব্রয়লার মুরগি কিনলাম (২৫০ টাকা কেজি দরে) ৩৬০ টাকায়। এবার মাছের দামও বেশি, গরু-খাসির কথা তো চিন্তাই করতে পারি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেখেন একপোয়া কাঁচা মরিচ আজ কিনলাম ৩০ টাকা দিয়ে, আর ২টা লেবু কিনলাম ৩০ টাকা দিয়ে। রোজা শুরু হলে এসব খাবারের দাম যে কোথায় গিয়ে দাড়াবে।’

অমিত কুমার ভদ্র। রাজধানীর মিরপুরের পশ্চিম শেওড়াপাড়ায় আপন ছোট ভাইয়ের মেসে উঠেছেন। বর্তমানে একটি টিউশনি করে মাসে সাড়ে তিন হাজার টাকা পান। মেসে থাকতে দুই বেলা খাইতে কম করে হলেও মাসে ছয় হাজার টাকা লাগে। এরপরও বাইরে চলতে আরও খরচ হয়। বাড়ির অবস্থা বেশি ভালো না। কাছের পরিচিতজন, আত্মীয়-স্বজনের কাছে ধার-দেনা, সহযোগিতা নিতে হচ্ছে। ছোট ভাইয়ের পড়া এখনও শেষ হয়নি। ছোট ভাই শান্ত ভদ্রও একটি বেসরকারি বিশ^ব্যিালয়ের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। দুই ভাই মিলে একই মেসের আটজনের বাজার করতে এসেছেন রাজধানীর মিরপুর শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড কাঁচা বাজারে।

বাজারের বিষয়ে জানতে চাইলে অমিত কুমার ভদ্র সংবাদকে বলেন, ‘আগে প্রতি সপ্তাহে মেসে মাছ মাংস কেনা হতো। বাজারে সবকিছুর দাম বাড়ার কারণে এখন মাঝেমধ্যে কেনা হয়। দুই সপ্তাহ পর আজ মেসে দুইশ’ পঞ্চাশ টাকা দরে দেড় কেজি ব্রয়লার মাংস কিনলাম। আগের মতো তেমন খাইতে পারি না। দেশি মুরগি নিতে গেলে ভয় লাগে কারণ ছয় থেকে সাড়ে ছয়শ’ টাকা কেজি, খাসিও সাড়ে এগারোশ’ টাকা কেজি। ব্যাচেলর লাইফ মানে ডিম দিয়াই চলতাছে ডাল দিয়াই চলতাছে। ’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার দেখা অনেক ছাত্র খরচ বাঁচানোর জন্য সেন্টার পয়েন্ট থেকে সরে গিয়ে জিঞ্জিরা, কেরানীগঞ্জের দিকে মেস ভাড়া করছে।’

দামের বিষয়ে জানতে চাইলে শেওরাপাড়া কাঁচা বাজারের মায়ের দোয়া চিকেন হাউজের প্রোপাইটর মো. সবুজ মিয়া সংবাদকে বলেন, ‘ ব্রয়লার মুরগির দাম কমেনি। আজকেও কেজি (একদাম) ২৫০ টাকা, সোনালি (একদাম) ৩৫০ এবং হাঁস ৪৫০ টাকায় বিক্রি করছি। দাম বাড়বে না কমবে বলতে পারছি না।’

এই বাজারে গরুর মাংস কিনতে আসা শাহানা আক্তার সংবাদকে বলেন, ‘অনেক দিন ধরে গরুর মাংস খাওয়া হয় না। সামনে রোজা, তাই এ উপলক্ষে আজ আধা সের গরুর মাংস কিনলাম ৭৫০ টাকা কেজি দরে। আগে এক কেজি করে মাংস কিনতাম। আর হয়তো কিনতে পারবো কি না, আর দাম যে কততে দাঁড়াবে।

মিরপুর শেওড়াপাড়া কাঁচা বাজারে ২০ বছর ধরে গরুর মাংসের ব্যবসা করছেন নাজমুল। বেচা-বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সংবাদকে বলেন, ‘মাংসের দাম বাড়ার ফলে বেচা-বিক্রি অধাআধি হচ্ছে। আগে শুক্রবারে দুই আড়াই মণ মাংস বিক্রি করতাম। এখন ৪০ থেকে ৫০ কেজির বেশি মাংস বিক্রি হয় না।’

কারওয়ান বাজারে এসে গরুর মাংস বিক্রেতা হাজী মোহাম্মদ টিপু সুলতানের কাছে বেচা-বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সংবাদকে বলেন, ‘আগে একাই একটা গরু কাটতাম এখন দুইজন মিলে একটা গরু কাটি। আজ গরুর মাংসের কেজি ৭৫০ টাকায় বিক্রি করছি। তবে ৮০০ টাকা হতে বাধ্য। জিনিসপত্র যেভাবে দাম বাড়ছে ও বাড়তাছে প্রত্যেকটা মানুষ পেরেশানির মধ্যে আছে টেনশন আছে।

এই বাজারে চাষের পাঙ্গাস মাছও বিক্রি হচ্ছে কেজি ২৫০ টাকায়। এছাড়া চাষের কই ৩০০ টাকা, তেলাপিয়া ২৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

এই বাজারের সবজি বিক্রেতা রফিক মিয়া বলেন, ‘বাজার প্রায় সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে দশ থেকে ত্রিশ টাকা।’

সবজির বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজার, মান ও জাত ভেদে বেগুন ৫০ থেকে ৮০ টাকা, সজনে কেজি ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা, বরবটি ৮০ থেকে ১০০ টাকা, কচুর লতি ৮০ থেকে ১২০ টাকা, করলা ৮০ থেকে ১২০ টাকা, ঢেঁড়শ ৬০ থেকে ৮০ টাকা, লাউ পিস ৫০ থেকে ৭০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ইফতারে শরবত বানানোর উপকরণ লেবু রমজানের আগেই বিক্রি হচ্ছে হালি ৪০ থেকে ৭০ টাকায়।

মাছ-মাংসের মতো রোজার আগে বেড়ে গেছে সবজির দামও। ক্রেতা-বিক্রেতারা বলছেন, সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি সবজিতে অন্তত ১০-২০ টাকা বেড়েছে। নতুন সবজির দাম বেড়েছে বেশি।

ভোক্তা পর্যায়ে কৃষিপণ্যের দাম আকাশচুম্বি হলেও কৃষক এর সুফল পাচ্ছে না। শুক্রবার (১৭ মার্চ) রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার চতরা বাজারে নিজের উৎপাদিত পণ্য বেগুন ২০০ টাকা মণ বিক্রি করেছেন সাদিক হোসেন। ওই বাজার থেকেই রাজধানীতে আসার পর সেই বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা থেকে ৮০ টাকা কেজি।

ওই বাজারে রাশেদুল ইসলাম নামে একজন কৃষক কাঁচা মরিচ নিয়ে এসেছিলেন। তিনি ৪০ কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি করেছেন ২৫০০ টাকা দরে (৬২ টাকা কেজি)। অথচ ঢাকায় শুক্রবার কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১২০ টাকা কেজি।

জানা গেছে, কৃষকের খেত থেকে পাইকারি বাজার, পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে সবজির দামের আকাশ-পাতাল ব্যবধান। কৃষক পর্যায় থেকে প্রায় দ্বিগুণেরও বেশি দামে পাইকারি বাজারে সবজি বেচাকেনা হচ্ছে। আবার পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে দাম বেড়ে যাচ্ছে দ্বিগুণ। এতে কৃষকের হাত থেকে পাইকারি বাজারে আসতে সবজির দাম বাড়ে প্রায় চারগুণ।

কৃষকের উৎপাদিত প্রতিটি পণ্য ভোক্তা পর্যায়ে পৌঁছাতে তিন থেকে কয়েকবার হাত বদল হয়। প্রত্যেক হাত বদলের সময়ই উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়ে যায় পণ্যের দাম। কৃষকের কাছ থেকে ব্যাপারি, ব্যাপারির কাছ থেকে পাইকার, পাইকারের কাছ থেকে সর্বশেষ খুচরা দোকানির কাছে পৌঁছায় এসব কাঁচা পণ্য।

কৃষক যদি কোন পণ্যের দাম পান ১০ টাকা, তবে ভোক্তাকে তা কিনতে হয় কমপক্ষে ৩০ টাকা বা আরও বেশি দামে। অজুহাত হিসেবে দেখানো হয় পরিবহন আর জ্বালানির খরচ বৃদ্ধিকে। হাত বদলে সবজির দাম আবার কয়েক গুণ দাম বেড়ে যায়। তবে দাম বাড়লেও কিছু যায় আসে না চাষিদের। লাভের টাকার পুরোটাই ঢুকছে মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের পকেটে, বলে জানা চাষিরা।

কারওয়ান বাজারে সবজি বিক্রেতা মনির হোসেন সংবাদকে বলেন, ‘আমদানি বাড়লে দাম কম, আমদানি নাই তো দাম বাড়ে।’

আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে চাল-ডাল-তেল-চিনি-আটা-ময়দা। শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়। তিনি বলেন, ‘রমজান উপলক্ষে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা বাজার নিয়ন্ত্রণে মাঠে কাজ করছে। আমরা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে নিত্যপণ্যের বাজার, বিশেষ করে রমজানকেন্দ্রিক পণ্যের মূল্য ও সরবরাহ ঠিক আছে কি না তা দেশব্যাপী যাচাই করছি। কারওয়ান বাজারের মুদি ও মুরগির বাজার তদারকি করা হয়েছে। তদারকিতে দেখা গেছে, রমজানকেন্দ্রিক যেসব পণ্য রয়েছে যেমন ছোলা, চালের দাম কমেছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

ছবি

এ বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.৭%: আইএমএফ

ছবি

একীভূতকরণ প্রক্রিয়ায় থাকা ব্যাংক চাইলে সরে যেতে পারবে, তবে শর্তসাপেক্ষে : কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

পণ্যের দাম ঠিক রাখতে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে : প্রতিমন্ত্রী

ছবি

একীভূত ব্যাংক : পাঁচটির বাইরে আপাতত আর না

ছবি

ঈদে মানুষের মাঝে স্বস্তি দেখেছি : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বিশ্ব ব্যাংকের চেয়ে বেশি দেখছে এডিবি

ছবি

মার্চে দেশে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৯.৮১ শতাংশ

ছবি

ঈদের আগে পাঁচ দিনে দেশে এলো ৪৬ কোটি ডলার

ছবি

শিল্পাঞ্চলের বাইরের কারখানায় গ্যাস-বিদ্যুৎ আর নয়, পাবেনা ঋণও

এবার ঈদে পর্যটন খাত চাঙ্গা হওয়ার আশা

ছবি

জাতীয় লজিস্টিক নীতির খসড়ার অনুমোদন

সোনালীতে একীভূত হচ্ছে বিডিবিএল

ছবি

সোনার দাম আবার বাড়লো, ভরি ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৭৩ টাকা

ছবি

সিটি ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হচ্ছে রাষ্ট্রীয় বেসিক ব্যাংক

ছবি

বিজিএমইএর দায়িত্ব নিলেন এস এম মান্নান কচি

ছবি

বাজার মূলধন কিছুটা বাড়লো, তবু লাখ কোটি টাকার ওপরে ক্ষতি

ছবি

নতুন বিদেশী ঋণ নিয়ে পুরনো ঋণ শোধ করছে সরকার : সিপিডি

ছবি

ব্যাংক একীভুতকরনে নীতিমালা জারি

রাষ্ট্রীয় চার ব্যাংক একীভূত হয়ে হবে দুই

ছবি

এবার একীভূত হচ্ছে ‘সোনালীর সাথে বিডিবিএল’ ও ‘কৃষির সাথে রাকাব’

ছবি

শেয়ার প্রতি ১ পয়সা লভ্যাংশ দেবে একমি পেস্টিসাইড

এসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানী লিমিটেডের কর্মীদের জন্য মেটলাইফের বীমা সুরক্ষা

গাজীপুরে এক বছরে ট্রাফিক পুলিশের ৫ কোটি টাকা রাজস্ব আয়

ছবি

প্রবৃদ্ধি কমে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হবে: বিশ্বব্যাংক

ছবি

সিএসআর ফান্ডের আওতায় কৃষকদের আর্থিক সহযোগিতা করল সাউথইস্ট ব্যাংক

ছবি

ডেমরায় বাস গ্যারেজে আগুন

ছবি

নিত্যপণ্যের দাম বাড়লেও সেইহারে বাড়েনি তামাকপণ্যের দাম

ছবি

প্রকাশ্যে ঘুষ নেওয়া সেই ভূমি অফিস কর্মী সাময়িক বরখাস্ত

ব্যাংক ঋণের সুদহার আরও বাড়লো

ছবি

বেক্সিমকোর ২ হাজার ৬২৫ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন দিলো বিএসইসি

শ্রমিকের অধিকার সুরক্ষিত রাখতে কাজ করব : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

ছবি

ঈদে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট বাড়াল বিমান

ছবি

ডিজেল-কেরোসিনের দাম লিটারে ২.২৫ টাকা কমলো

ছবি

ফেনীতে টপটেন মার্ট উদ্বোধন করলেন তামিম

ছবি

উচ্চ খেলাপি ঋণ আর্থিক খাতের জন্য বিরাট হুমকি : বাংলাদেশ ব্যাংক

ছবি

শেয়ারবাজারে পতন : ফ্লোর প্রাইস, আতঙ্ক না জুয়া

tab

অর্থ-বাণিজ্য

রমজান সামনে : অস্থির বাজার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩

আর মাত্র এক সপ্তাহ বাকি রমজানের। তাই রমজান সামনে রেখে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বাজারে। ছোলা, অ্যাঙ্কর ডাল, বেসন ও ট্যাং থেকে শুরু করে চিনি, তেল, আটা-ময়দার দাম আগের চেয়ে অনেকটাই বেশি। বাজার অস্থির থাকায় দরিদ্র ও নিম্নবিত্তের মানুষ বাজার করছেন কাটছাঁট করে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, গত সপ্তাহে ৯০-৯৫ টাকায় বিক্রি হওয়া ছোলা এখন ৯৫-১০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে ১১৫-১২০ টাকায়। ভালো মানের মসুর ডাল ১৫০ টাকা, খেসারি ডাল ৮০-৯০ টাকা, অ্যাঙ্করের বেসন ৭৫-৮৫ টাকা এবং বুটের বেসন বিক্রি হচ্ছে ১০০-১১০ টাকায়। তবে পণ্যের দাম বাড়ার পেছনে খুচরা ব্যবসায়ীদের কোন হাত নেই বলে জানান তারা।

বেসরকারি চাকরিজীবী আবদুল্লাহ যুবায়ের স্বাদ বলেন, ‘আগে রোজা এলে একসঙ্গে দুই কেজি গরুর মাংস, কয়েকটা মুরগি দু-চার কেজি বড় মাছ কিনতাম, আজ শুধু একটা ব্রয়লার মুরগি কিনলাম (২৫০ টাকা কেজি দরে) ৩৬০ টাকায়। এবার মাছের দামও বেশি, গরু-খাসির কথা তো চিন্তাই করতে পারি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেখেন একপোয়া কাঁচা মরিচ আজ কিনলাম ৩০ টাকা দিয়ে, আর ২টা লেবু কিনলাম ৩০ টাকা দিয়ে। রোজা শুরু হলে এসব খাবারের দাম যে কোথায় গিয়ে দাড়াবে।’

অমিত কুমার ভদ্র। রাজধানীর মিরপুরের পশ্চিম শেওড়াপাড়ায় আপন ছোট ভাইয়ের মেসে উঠেছেন। বর্তমানে একটি টিউশনি করে মাসে সাড়ে তিন হাজার টাকা পান। মেসে থাকতে দুই বেলা খাইতে কম করে হলেও মাসে ছয় হাজার টাকা লাগে। এরপরও বাইরে চলতে আরও খরচ হয়। বাড়ির অবস্থা বেশি ভালো না। কাছের পরিচিতজন, আত্মীয়-স্বজনের কাছে ধার-দেনা, সহযোগিতা নিতে হচ্ছে। ছোট ভাইয়ের পড়া এখনও শেষ হয়নি। ছোট ভাই শান্ত ভদ্রও একটি বেসরকারি বিশ^ব্যিালয়ের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। দুই ভাই মিলে একই মেসের আটজনের বাজার করতে এসেছেন রাজধানীর মিরপুর শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড কাঁচা বাজারে।

বাজারের বিষয়ে জানতে চাইলে অমিত কুমার ভদ্র সংবাদকে বলেন, ‘আগে প্রতি সপ্তাহে মেসে মাছ মাংস কেনা হতো। বাজারে সবকিছুর দাম বাড়ার কারণে এখন মাঝেমধ্যে কেনা হয়। দুই সপ্তাহ পর আজ মেসে দুইশ’ পঞ্চাশ টাকা দরে দেড় কেজি ব্রয়লার মাংস কিনলাম। আগের মতো তেমন খাইতে পারি না। দেশি মুরগি নিতে গেলে ভয় লাগে কারণ ছয় থেকে সাড়ে ছয়শ’ টাকা কেজি, খাসিও সাড়ে এগারোশ’ টাকা কেজি। ব্যাচেলর লাইফ মানে ডিম দিয়াই চলতাছে ডাল দিয়াই চলতাছে। ’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার দেখা অনেক ছাত্র খরচ বাঁচানোর জন্য সেন্টার পয়েন্ট থেকে সরে গিয়ে জিঞ্জিরা, কেরানীগঞ্জের দিকে মেস ভাড়া করছে।’

দামের বিষয়ে জানতে চাইলে শেওরাপাড়া কাঁচা বাজারের মায়ের দোয়া চিকেন হাউজের প্রোপাইটর মো. সবুজ মিয়া সংবাদকে বলেন, ‘ ব্রয়লার মুরগির দাম কমেনি। আজকেও কেজি (একদাম) ২৫০ টাকা, সোনালি (একদাম) ৩৫০ এবং হাঁস ৪৫০ টাকায় বিক্রি করছি। দাম বাড়বে না কমবে বলতে পারছি না।’

এই বাজারে গরুর মাংস কিনতে আসা শাহানা আক্তার সংবাদকে বলেন, ‘অনেক দিন ধরে গরুর মাংস খাওয়া হয় না। সামনে রোজা, তাই এ উপলক্ষে আজ আধা সের গরুর মাংস কিনলাম ৭৫০ টাকা কেজি দরে। আগে এক কেজি করে মাংস কিনতাম। আর হয়তো কিনতে পারবো কি না, আর দাম যে কততে দাঁড়াবে।

মিরপুর শেওড়াপাড়া কাঁচা বাজারে ২০ বছর ধরে গরুর মাংসের ব্যবসা করছেন নাজমুল। বেচা-বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সংবাদকে বলেন, ‘মাংসের দাম বাড়ার ফলে বেচা-বিক্রি অধাআধি হচ্ছে। আগে শুক্রবারে দুই আড়াই মণ মাংস বিক্রি করতাম। এখন ৪০ থেকে ৫০ কেজির বেশি মাংস বিক্রি হয় না।’

কারওয়ান বাজারে এসে গরুর মাংস বিক্রেতা হাজী মোহাম্মদ টিপু সুলতানের কাছে বেচা-বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সংবাদকে বলেন, ‘আগে একাই একটা গরু কাটতাম এখন দুইজন মিলে একটা গরু কাটি। আজ গরুর মাংসের কেজি ৭৫০ টাকায় বিক্রি করছি। তবে ৮০০ টাকা হতে বাধ্য। জিনিসপত্র যেভাবে দাম বাড়ছে ও বাড়তাছে প্রত্যেকটা মানুষ পেরেশানির মধ্যে আছে টেনশন আছে।

এই বাজারে চাষের পাঙ্গাস মাছও বিক্রি হচ্ছে কেজি ২৫০ টাকায়। এছাড়া চাষের কই ৩০০ টাকা, তেলাপিয়া ২৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

এই বাজারের সবজি বিক্রেতা রফিক মিয়া বলেন, ‘বাজার প্রায় সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে দশ থেকে ত্রিশ টাকা।’

সবজির বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজার, মান ও জাত ভেদে বেগুন ৫০ থেকে ৮০ টাকা, সজনে কেজি ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা, বরবটি ৮০ থেকে ১০০ টাকা, কচুর লতি ৮০ থেকে ১২০ টাকা, করলা ৮০ থেকে ১২০ টাকা, ঢেঁড়শ ৬০ থেকে ৮০ টাকা, লাউ পিস ৫০ থেকে ৭০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ইফতারে শরবত বানানোর উপকরণ লেবু রমজানের আগেই বিক্রি হচ্ছে হালি ৪০ থেকে ৭০ টাকায়।

মাছ-মাংসের মতো রোজার আগে বেড়ে গেছে সবজির দামও। ক্রেতা-বিক্রেতারা বলছেন, সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি সবজিতে অন্তত ১০-২০ টাকা বেড়েছে। নতুন সবজির দাম বেড়েছে বেশি।

ভোক্তা পর্যায়ে কৃষিপণ্যের দাম আকাশচুম্বি হলেও কৃষক এর সুফল পাচ্ছে না। শুক্রবার (১৭ মার্চ) রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার চতরা বাজারে নিজের উৎপাদিত পণ্য বেগুন ২০০ টাকা মণ বিক্রি করেছেন সাদিক হোসেন। ওই বাজার থেকেই রাজধানীতে আসার পর সেই বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা থেকে ৮০ টাকা কেজি।

ওই বাজারে রাশেদুল ইসলাম নামে একজন কৃষক কাঁচা মরিচ নিয়ে এসেছিলেন। তিনি ৪০ কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি করেছেন ২৫০০ টাকা দরে (৬২ টাকা কেজি)। অথচ ঢাকায় শুক্রবার কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১২০ টাকা কেজি।

জানা গেছে, কৃষকের খেত থেকে পাইকারি বাজার, পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে সবজির দামের আকাশ-পাতাল ব্যবধান। কৃষক পর্যায় থেকে প্রায় দ্বিগুণেরও বেশি দামে পাইকারি বাজারে সবজি বেচাকেনা হচ্ছে। আবার পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে দাম বেড়ে যাচ্ছে দ্বিগুণ। এতে কৃষকের হাত থেকে পাইকারি বাজারে আসতে সবজির দাম বাড়ে প্রায় চারগুণ।

কৃষকের উৎপাদিত প্রতিটি পণ্য ভোক্তা পর্যায়ে পৌঁছাতে তিন থেকে কয়েকবার হাত বদল হয়। প্রত্যেক হাত বদলের সময়ই উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়ে যায় পণ্যের দাম। কৃষকের কাছ থেকে ব্যাপারি, ব্যাপারির কাছ থেকে পাইকার, পাইকারের কাছ থেকে সর্বশেষ খুচরা দোকানির কাছে পৌঁছায় এসব কাঁচা পণ্য।

কৃষক যদি কোন পণ্যের দাম পান ১০ টাকা, তবে ভোক্তাকে তা কিনতে হয় কমপক্ষে ৩০ টাকা বা আরও বেশি দামে। অজুহাত হিসেবে দেখানো হয় পরিবহন আর জ্বালানির খরচ বৃদ্ধিকে। হাত বদলে সবজির দাম আবার কয়েক গুণ দাম বেড়ে যায়। তবে দাম বাড়লেও কিছু যায় আসে না চাষিদের। লাভের টাকার পুরোটাই ঢুকছে মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের পকেটে, বলে জানা চাষিরা।

কারওয়ান বাজারে সবজি বিক্রেতা মনির হোসেন সংবাদকে বলেন, ‘আমদানি বাড়লে দাম কম, আমদানি নাই তো দাম বাড়ে।’

আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে চাল-ডাল-তেল-চিনি-আটা-ময়দা। শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়। তিনি বলেন, ‘রমজান উপলক্ষে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা বাজার নিয়ন্ত্রণে মাঠে কাজ করছে। আমরা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে নিত্যপণ্যের বাজার, বিশেষ করে রমজানকেন্দ্রিক পণ্যের মূল্য ও সরবরাহ ঠিক আছে কি না তা দেশব্যাপী যাচাই করছি। কারওয়ান বাজারের মুদি ও মুরগির বাজার তদারকি করা হয়েছে। তদারকিতে দেখা গেছে, রমজানকেন্দ্রিক যেসব পণ্য রয়েছে যেমন ছোলা, চালের দাম কমেছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

back to top