alt

অর্থ-বাণিজ্য

কার্ডে কমছে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩

দেশে গত বছরের শুরু থেকেই চলছে ডলার সংকট। আমদানি বিল পরিশোধে বাংলাদেশ ব্যাংক রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করছে। এর ফলে রিজার্ভ ধারাবাহিকভাবে কমছে। এসব সংকটের মধ্যেও জানুয়ারি মাসে কার্ডের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন হয়েছে ৬২০ কোটি টাকা। যা এর আগের মাসের চেয়ে ১৯ কোটি টাকা কম। ডিসেম্বরে কার্ডে ৬৩৯ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন হয়েছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়। তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের জানুয়ারিতে মোট ৩৯ হাজার ৭৫৭ কোটি টাকা লেনদেন হয়। এর মধ্যে দেশি মুদ্রায় ৩৯ হাজার ১৩৭ কোটি এবং বৈদেশিক মুদ্রায় ৬২০ কোটি টাকা। দেশে রেমিট্যান্স ও রপ্তানি ভালো থাকায় ২০২১ সালের আগস্টে রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়ায় ৪৮ বিলিয়ন ডলার। ওই বছরের আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক টানা ডলার বিক্রি শুরু করে। আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির ডলার বিক্রি অব্যাহত থাকলেও আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় গত বছর এপ্রিল থেকে ডলারের সংকট তৈরি হয়। এরপর বাংলাদেশ ব্যাংক ধীরে ধীরে দাম ও রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি বাড়াতে থাকায় রিজার্ভ কমতে থাকে। জানা যায়, গত ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩ হাজার ৩৪০ কোটি ডলার। বর্তমানে তা ৩ হাজার কোটি ডলারের আশপাশে নেমে এসেছে। তবে চলতি মাসে প্রবাসী আয়ে কিছুটা ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি লক্ষ্য করা গেছে। এ মাসে প্রথম ২৪ দিনে প্রবাসীরা পাঠিয়েছে ১৫৯ কোটি ৭৫ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম মাস থেকেই কার্ডে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন বাড়ছে। জুলাইয়ে কার্ডে লেনদেন হয় ৪৪০ কোটি টাকা। এরপরের মাসে আগস্টে ৫২০ কোটি টাকা লেনদেন হয়।

অর্থবছরের তৃতীয় মাস সেপ্টেম্বরে লেনদেন হয়েছিল ৫৮৫ কোটি টাকা, অক্টোবরে লেনদেন হয় ৬০৫ কোটি টাকা, নভেম্বরে ৫৭২ কোটি টাকা এবং ডিসেম্বরে ৬৩৯ কোটি টাকার লেনদেন হয়। এরপরে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে কার্ডে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন হয় ৬২০ কোটি টাকা। যা ডিসেম্বর মাসে তুলনায় ১৯ কোটি টাকা কম। দেশের রিজার্ভের পরিমাণ কমতে থাকায় ব্যাংকগুলোতে ডলার সংকট তৈরি হয় ২০২২ সালের এপ্রিল থেকে।

গত ১২ জুলাই প্রথমবারের মতো দেশের খোলাবাজারে ডলার বিক্রি হয় ১০০ টাকায়। এরপরে ক্রমান্বয়ে দাম বাড়লে-কমলেও একই বছরের ১০ আগস্ট ডলারের দাম আরও বেড়ে দাঁড়ায় ১২০ টাকায়। এরপর বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন পদক্ষেপ হাতে নেয়। পরবর্তীতে কিছুটা স্বস্তি ফেরে খোলা বাজারের ডলারের দামে। এক বছরে একটি ক্রেডিট কার্ড দিয়ে সর্বোচ্চ ১২ হাজার ডলার ব্যয় করতে পারবেন একজন গ্রাহক। সেক্ষেত্রে ছোট ছোট ব্যবসায়ীরা একই পরিবারের অধিকাংশ ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে বিদেশ থেকে পণ্য আমদানি করছে।

ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার না করলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

ছবি

মহেশপুরে সবার দৃষ্টি কাড়ছে রশিদের আঙুর বাগান

ছবি

পিছিয়ে গেল রূপপুরের বিদ্যুৎ উৎপাদন

ছবি

শুরু হলো ‘মিরপুর ফার্নিচার ঈদ উৎসব ২০২৪’

ছবি

২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে গ্রাহক বৃদ্ধিতে শীর্ষে বাংলালিংক, বেড়েছে আয়ও

ছবি

এয়ার অ্যাস্ট্রার বনানী সেলস অফিস উদ্বোধন করলেন মৌ

ছবি

সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ভুল তথ্য দিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ছবি

রপ্তানির নতুন বাজার খুঁজছে বরেন্দ্র অঞ্চলের আম

ছবি

আতঙ্কে আমানত তুলে নিচ্ছেন গ্রাহকরা, জানুয়ারিতে কমলো ১৩ হাজার কোটি টাকা

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বারবার নীতি পরিবর্তনে ‘ক্ষতি হচ্ছে’ বললেন ব্যবসায়ীরা

ছবি

বড় বড় খেলাপিরা সাত, আট, নয়বার ঋণ পুনঃ তফসিলের সুযোগ পাচ্ছে: ফরাসউদ্দিন

ছবি

চলতি অর্থবছরের এডিপির ৮ দশমিক ১৬ শতাংশ বেশি

ছবি

অনলাইন কোরবানি হাট চালু করল বেঙ্গল মিট

ছবি

আড়াই শতাংশ কমতে পারে করপোরেট কর

ছবি

ব্রহ্মপুত্র নদে ডুবে এক জেলের মৃত্যু

ছবি

রপ্তানির প্রণোদনা কমালো সরকার

ছবি

বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যে বড় ঘাটতি

ছবি

অর্থনীতিতে চার উদ্বেগ

ছবি

ঢাকায় সেনহাইজার ও নিউম্যান বার্লিন এর পণ্য প্রদর্শনী

ছবি

নতুন করে রিজার্ভ চুরির খবর ভুয়া : বাংলাদেশ ব্যাংক

ছবি

মামলা নয়, সমঝোতায় খেলাপি ঋণ আদায়ে ‘জোর’ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের

ছবি

ড্যাপ এবং ইমারত নির্মাণ বিধিমালায় সংশোধন চান আবাসন খাতের ব্যবসায়ীরা

সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হওয়ার চুক্তি করলো বিডিবিএল

ছবি

সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হওয়ার চুক্তি করল বিডিবিএল

ছবি

বাংলাদেশী উদ্যোক্তাদের লন্ডনে বিজনেস গ্রোথ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ

ছবি

গরম কমলে আমরা বড় আন্দোলনে নামবো : মান্না

ছবি

বেগুনের কেজি ১২০, সোনালি মুরগির দাম উঠেছে ৪২০ টাকায়

ছবি

অর্থনীতির দুই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তিন পদক্ষেপ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের

ছবি

টাকার অবমূল্যায়ন, ডলারের দাম বাড়ল ৭ টাকা

ছবি

সিঙ্গাপুর-কাতার থেকে ১৩৫০ কোটি টাকায় এলএনজি কিনবে সরকার

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংবাদ সম্মেলন বয়কট করলেন সাংবাদিকরা

ছবি

ন্যায্যমূল্যে পণ্য মানুষের কাছে পৌঁছাতে কাজ করছে টিসিবি

ছবি

আধাঘণ্টায় আড়াইশ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে লেনদেন

ছবি

প্রায় ৬ মাস পর পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল ভারত

ছবি

চামড়াখাতে ন্যূনতম মজুরি ২২ হাজার ৭৭৬ টাকার প্রস্তাব সিপিডি’র

ছবি

বাজার মূলধন বাড়লো ৬ হাজার কোটি টাকা

tab

অর্থ-বাণিজ্য

কার্ডে কমছে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩

দেশে গত বছরের শুরু থেকেই চলছে ডলার সংকট। আমদানি বিল পরিশোধে বাংলাদেশ ব্যাংক রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করছে। এর ফলে রিজার্ভ ধারাবাহিকভাবে কমছে। এসব সংকটের মধ্যেও জানুয়ারি মাসে কার্ডের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন হয়েছে ৬২০ কোটি টাকা। যা এর আগের মাসের চেয়ে ১৯ কোটি টাকা কম। ডিসেম্বরে কার্ডে ৬৩৯ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন হয়েছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়। তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের জানুয়ারিতে মোট ৩৯ হাজার ৭৫৭ কোটি টাকা লেনদেন হয়। এর মধ্যে দেশি মুদ্রায় ৩৯ হাজার ১৩৭ কোটি এবং বৈদেশিক মুদ্রায় ৬২০ কোটি টাকা। দেশে রেমিট্যান্স ও রপ্তানি ভালো থাকায় ২০২১ সালের আগস্টে রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়ায় ৪৮ বিলিয়ন ডলার। ওই বছরের আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক টানা ডলার বিক্রি শুরু করে। আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির ডলার বিক্রি অব্যাহত থাকলেও আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় গত বছর এপ্রিল থেকে ডলারের সংকট তৈরি হয়। এরপর বাংলাদেশ ব্যাংক ধীরে ধীরে দাম ও রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি বাড়াতে থাকায় রিজার্ভ কমতে থাকে। জানা যায়, গত ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩ হাজার ৩৪০ কোটি ডলার। বর্তমানে তা ৩ হাজার কোটি ডলারের আশপাশে নেমে এসেছে। তবে চলতি মাসে প্রবাসী আয়ে কিছুটা ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি লক্ষ্য করা গেছে। এ মাসে প্রথম ২৪ দিনে প্রবাসীরা পাঠিয়েছে ১৫৯ কোটি ৭৫ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম মাস থেকেই কার্ডে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন বাড়ছে। জুলাইয়ে কার্ডে লেনদেন হয় ৪৪০ কোটি টাকা। এরপরের মাসে আগস্টে ৫২০ কোটি টাকা লেনদেন হয়।

অর্থবছরের তৃতীয় মাস সেপ্টেম্বরে লেনদেন হয়েছিল ৫৮৫ কোটি টাকা, অক্টোবরে লেনদেন হয় ৬০৫ কোটি টাকা, নভেম্বরে ৫৭২ কোটি টাকা এবং ডিসেম্বরে ৬৩৯ কোটি টাকার লেনদেন হয়। এরপরে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে কার্ডে বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন হয় ৬২০ কোটি টাকা। যা ডিসেম্বর মাসে তুলনায় ১৯ কোটি টাকা কম। দেশের রিজার্ভের পরিমাণ কমতে থাকায় ব্যাংকগুলোতে ডলার সংকট তৈরি হয় ২০২২ সালের এপ্রিল থেকে।

গত ১২ জুলাই প্রথমবারের মতো দেশের খোলাবাজারে ডলার বিক্রি হয় ১০০ টাকায়। এরপরে ক্রমান্বয়ে দাম বাড়লে-কমলেও একই বছরের ১০ আগস্ট ডলারের দাম আরও বেড়ে দাঁড়ায় ১২০ টাকায়। এরপর বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন পদক্ষেপ হাতে নেয়। পরবর্তীতে কিছুটা স্বস্তি ফেরে খোলা বাজারের ডলারের দামে। এক বছরে একটি ক্রেডিট কার্ড দিয়ে সর্বোচ্চ ১২ হাজার ডলার ব্যয় করতে পারবেন একজন গ্রাহক। সেক্ষেত্রে ছোট ছোট ব্যবসায়ীরা একই পরিবারের অধিকাংশ ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে বিদেশ থেকে পণ্য আমদানি করছে।

back to top