alt

অর্থ-বাণিজ্য

এক বছরে ইউরোপ অঞ্চলে বাংলাদেশি পোশাক আমদানি বেড়েছে ৫২ শতাংশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০২৩

দেশের সবচেয়ে বেশি রপ্তানি পণ্য হলো তৈরি পোশাক। রপ্তানির ক্ষেত্রে এই খাতটি ধারাবাহিক অগ্রগতি ধরে রেখেছে। সর্বশেষ ২০২২ সালেও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) ২৭টি দেশ বাংলাদেশ থেকে ২ হাজার ১৮০ কোটি ইউরোর পোশাক আমদানি করেছে। এ হিসাবে শীর্ষ আমদানিকারক চীনের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। আগের বছরের তুলনায় বাংলাদেশি পোশাকপণ্য আমদানি বেড়েছে ৫২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। ইইউর জন্য বাংলাদেশ পোশাক আমদানির দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎস হিসেবে উঠে এলেও আমদানি প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে রয়েছে তৃতীয় স্থানে। ভিয়েতনাম ৫৩ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ ও কম্বোডিয়া ৫২ দশমিক ৭১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে যথাক্রমে প্রথম ও দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। ইউরোপীয় সংস্থা ইউরোস্ট্যাটের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০২২ সালে ইইউ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ৯ হাজার ৮৩৮ কোটি ইউরো মূল্যের পোশাক আমদানি করে, যা ২০২১ সালে ছিল ৭ হাজার ২২২ কোটি ইউরো। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে ইইউর পোশাক আমদানিতে প্রবৃদ্ধির হার ৩৬ দশমিক ২১ শতাংশ।

ইউরোস্ট্যাটের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, গত বছর প্রবৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ থেকে ইইউর দেশগুলো ২ হাজার ১৮০ কোটি ইউরোর পোশাক আমদানি করেছে। আগের বছর করা হয়েছিল ১ হাজার ৪২৯ কোটি ইউরোর পোশাক। অন্যদিকে গত বছর প্রবৃদ্ধিতে এগিয়ে থাকলেও ইইউ বাংলাদেশের তুলনায় ভিয়েতনাম ও কম্বোডিয়া থেকে কম পণ্য আমদানি করেছে।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২১ সালে ভিয়েতনাম থেকে ২৮৬ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক আমদানি করা হয়েছিল। ২০২২ সালে তা বেড়ে হয় ৪৩৮ কোটি ইউরো। একইভাবে কম্বোডিয়া থেকে ইইউর দেশগুলো ২০২১ সালে পোশাক আমদানি করেছিল ২৩৯ কোটি ইউরোর, যা ২০২২ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬৪ কোটি ইউরো।

ইইউর ২৭টি দেশে সবচেয়ে বেশি পোশাক রপ্তানি করে চীন। ২০২২ সালে ৩২ দশমকি শূন্য ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করা চীন রপ্তানি করেছে ২ হাজার ৮৮৮ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক, যা আগের বছর ছিল ২ হাজার ১৮৭ কোটি ইউরো।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) পরিচালক মো. মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘এ পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে চীন আমাদের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগী দেশ। যদিও ইইউতে তৈরি পোশাক রপ্তানির ক্ষেত্রে তুরস্ক তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে, কিন্তু দেশটিকেও আমরা প্রতিযোগী হিসেবেই দেখছি। তবে পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাংলাদেশের গ্রোথ তুলনামূলক অনেক ভালো। গত বছরের প্রথম ছয় মাস রপ্তানি পরিস্থিতি ভালো ছিল।

কভিড-পরবর্তী ওই সময়টায় আমরা অগ্রগতি ধরে রেখেছিলাম। চীন, ভিয়েতনাম ও কম্বোডিয়ায় কোভিডসহ নানা ইস্যুতে অস্থিরতা ছিল। ওই সময়টায় আমরা নির্বিঘ্নে কাজ করতে পারায় অগ্রগতি ভালো হয়েছে। তবে কাঁচামালসহ সবকিছুর মূল্যবৃদ্ধি এবং শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধির ফলে এ গ্রোথের পরও মালিকরা খুব বেশি লাভবান হননি। তবে আমাদের তৈরি পোশাক খাত এগিয়ে যাচ্ছে এটি সত্য।’

প্রবৃদ্ধি প্রসঙ্গে মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘অন্য যেকোন দেশের চেয়ে ক্রেতাদের বাংলাদেশের প্রতি আস্থা বেশি। নতুন নতুন পণ্যের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ভালো করছে। উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির কারণে পণ্যের দামও বেড়েছে, যা প্রবৃদ্ধিতেও যোগ হয়েছে। বর্তমানে ২০২৩ এ আমাদের তৈরি পোশাক খাত কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধির কারণে কিছু অসুবিধার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। আমি আশা করছি, আগামী বছর আমরা আরও ভালো করতে পারব।’

ইউরোস্ট্যাট বলছে, আলোচ্য সময়ে তুরস্ক থেকে ইইউর পোশাক আমদানি ২৩ দশমিক ৫২ শতাংশ বেড়েছে। দেশটি থেকে ২০২২ সালে ১ হাজার ১৩৮ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক আমদানি করা হয়। ভারত থেকে আমদানি বেড়েছে ৩৫ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

গত বছর দেশটি থেকে ৪৬১ কোটি ইউরোর পোশাক আমদানি করেছে ইইউ। একই সময়ে পাকিস্তানে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ৪৩ দশমিক ৯৫ শতাংশ, আমদানি করা হয়েছে ৩৭৬ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক।

ছবি

‘উচ্চ মূল্যস্ফীতি কমানোর পথ খোঁজার তাগিদ’

ছবি

২৪ দিনে দেশে রেমিট্যান্স এলো ১৮ হাজার কোটি টাকা

ছবি

মেঘনা পিইটি ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক হলেন ড. মাশরিক

ছবি

আমদানি নির্ভরতা, সিন্ডিকেটের কারণে জিনিসপত্রের দাম বাড়লেও করের বোঝাটাই সবার কাছে মাথা ব্যথার কারণ

ছবি

রমজানে দ্রব্যমূল্য বাড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সালমান এফ রহমান

ছবি

চড়া দামে আটকা বেশিরভাগ নিত্যপণ্য

ছবি

ভারত: চাল রপ্তানিতে শুল্ক আরোপের মেয়াদ বাড়াল ৩১ মার্চ

ছবি

উৎপাদন খরচ বাড়লেও বাড়েনি বইয়ের দাম

ছবি

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমবে ১০ টাকা

ছবি

অর্থপাচারের ৮০ শতাংশই ব্যাংকিং চ্যানেলে : বিএফআইইউ

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

জিআই পণ্যের তালিকা করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

দেশ-বিদেশে পর্যটক আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে : পর্যটনমন্ত্রী

ছবি

কৃষি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ কমানো, লাভে নেয়াই লক্ষ্য : শওকত আলী খান

ছবি

অস্তিত্বের জন্য বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি সীমাবদ্ধ রাখতে হবে: সাবের হোসেন চৌধুরী

ছবি

ড. ইউনূসের ‘জবরদখলে’র অভিযোগ নিয়ে যা বলল গ্রামীণ ব্যাংক

ছবি

খেজুরের গুড়, মিষ্টি পান ও নকশিকাঁথা পেল জিআই স্বীকৃতি

ছবি

কর নেট বাড়ানোর জন্য ধীরে ধীরে কাজ করছি : এনবিআর চেয়ারম্যান

ছবি

জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ০৭ শতাংশ

ছবি

পার্বত্য চট্রগ্রাম মেলায় বেচাকেনা কম, হতাশ উদ্যোক্তারা

টাকা-ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০ টাকা

ছবি

রমজানে রাজধানীতে ২৫টি স্থানে কম দামে মাংস ও ডিম বিক্রির উদ্যোগ

ছবি

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে টাকা–ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু

ছবি

তালিকাভূক্ত ব্যাংকের মধ্যে সর্বোচ্চ ক্যাশ ফ্লো রূপালী ব্যাংকের

ছবি

পুঁজিবাজারে ২২টি ব্যাংকের ক্যাশ ফ্লো বেড়েছে

ছবি

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির বিশেষ নীরিক্ষায় চমকপ্রদ তথ্য বের হচ্ছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

ছবি

সূচকের উত্থানে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে ফেসবুক পোস্ট সরিয়েছে ভারত: নানক

ছবি

সূচক বেড়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলছে

ছবি

বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ: ঢাকা চেম্বার সভাপতি

ছবি

ছয় মাসে ৪৫৯ কোটি ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি

ছবি

খেজুরের আমদানি শুল্ক আরো কমানোর দাবি ব্যবসায়ীদের

ছবি

পাট খাতের বৈশ্বিক রপ্তানি আয়ের ৭২ শতাংশ এখন বাংলাদেশের দখলে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

তিন মাসে খেলাপি ঋণ কমেছে, তবে ২০২২ সালের হিসেবে এখনও বেশি

ছবি

ভাষা শহীদদের স্মরণে বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণার নির্দেশ পলকের

tab

অর্থ-বাণিজ্য

এক বছরে ইউরোপ অঞ্চলে বাংলাদেশি পোশাক আমদানি বেড়েছে ৫২ শতাংশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০২৩

দেশের সবচেয়ে বেশি রপ্তানি পণ্য হলো তৈরি পোশাক। রপ্তানির ক্ষেত্রে এই খাতটি ধারাবাহিক অগ্রগতি ধরে রেখেছে। সর্বশেষ ২০২২ সালেও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) ২৭টি দেশ বাংলাদেশ থেকে ২ হাজার ১৮০ কোটি ইউরোর পোশাক আমদানি করেছে। এ হিসাবে শীর্ষ আমদানিকারক চীনের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। আগের বছরের তুলনায় বাংলাদেশি পোশাকপণ্য আমদানি বেড়েছে ৫২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। ইইউর জন্য বাংলাদেশ পোশাক আমদানির দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎস হিসেবে উঠে এলেও আমদানি প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে রয়েছে তৃতীয় স্থানে। ভিয়েতনাম ৫৩ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ ও কম্বোডিয়া ৫২ দশমিক ৭১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে যথাক্রমে প্রথম ও দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। ইউরোপীয় সংস্থা ইউরোস্ট্যাটের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০২২ সালে ইইউ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ৯ হাজার ৮৩৮ কোটি ইউরো মূল্যের পোশাক আমদানি করে, যা ২০২১ সালে ছিল ৭ হাজার ২২২ কোটি ইউরো। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে ইইউর পোশাক আমদানিতে প্রবৃদ্ধির হার ৩৬ দশমিক ২১ শতাংশ।

ইউরোস্ট্যাটের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, গত বছর প্রবৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ থেকে ইইউর দেশগুলো ২ হাজার ১৮০ কোটি ইউরোর পোশাক আমদানি করেছে। আগের বছর করা হয়েছিল ১ হাজার ৪২৯ কোটি ইউরোর পোশাক। অন্যদিকে গত বছর প্রবৃদ্ধিতে এগিয়ে থাকলেও ইইউ বাংলাদেশের তুলনায় ভিয়েতনাম ও কম্বোডিয়া থেকে কম পণ্য আমদানি করেছে।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২১ সালে ভিয়েতনাম থেকে ২৮৬ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক আমদানি করা হয়েছিল। ২০২২ সালে তা বেড়ে হয় ৪৩৮ কোটি ইউরো। একইভাবে কম্বোডিয়া থেকে ইইউর দেশগুলো ২০২১ সালে পোশাক আমদানি করেছিল ২৩৯ কোটি ইউরোর, যা ২০২২ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬৪ কোটি ইউরো।

ইইউর ২৭টি দেশে সবচেয়ে বেশি পোশাক রপ্তানি করে চীন। ২০২২ সালে ৩২ দশমকি শূন্য ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করা চীন রপ্তানি করেছে ২ হাজার ৮৮৮ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক, যা আগের বছর ছিল ২ হাজার ১৮৭ কোটি ইউরো।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) পরিচালক মো. মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘এ পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে চীন আমাদের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগী দেশ। যদিও ইইউতে তৈরি পোশাক রপ্তানির ক্ষেত্রে তুরস্ক তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে, কিন্তু দেশটিকেও আমরা প্রতিযোগী হিসেবেই দেখছি। তবে পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাংলাদেশের গ্রোথ তুলনামূলক অনেক ভালো। গত বছরের প্রথম ছয় মাস রপ্তানি পরিস্থিতি ভালো ছিল।

কভিড-পরবর্তী ওই সময়টায় আমরা অগ্রগতি ধরে রেখেছিলাম। চীন, ভিয়েতনাম ও কম্বোডিয়ায় কোভিডসহ নানা ইস্যুতে অস্থিরতা ছিল। ওই সময়টায় আমরা নির্বিঘ্নে কাজ করতে পারায় অগ্রগতি ভালো হয়েছে। তবে কাঁচামালসহ সবকিছুর মূল্যবৃদ্ধি এবং শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধির ফলে এ গ্রোথের পরও মালিকরা খুব বেশি লাভবান হননি। তবে আমাদের তৈরি পোশাক খাত এগিয়ে যাচ্ছে এটি সত্য।’

প্রবৃদ্ধি প্রসঙ্গে মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘অন্য যেকোন দেশের চেয়ে ক্রেতাদের বাংলাদেশের প্রতি আস্থা বেশি। নতুন নতুন পণ্যের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ভালো করছে। উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির কারণে পণ্যের দামও বেড়েছে, যা প্রবৃদ্ধিতেও যোগ হয়েছে। বর্তমানে ২০২৩ এ আমাদের তৈরি পোশাক খাত কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধির কারণে কিছু অসুবিধার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। আমি আশা করছি, আগামী বছর আমরা আরও ভালো করতে পারব।’

ইউরোস্ট্যাট বলছে, আলোচ্য সময়ে তুরস্ক থেকে ইইউর পোশাক আমদানি ২৩ দশমিক ৫২ শতাংশ বেড়েছে। দেশটি থেকে ২০২২ সালে ১ হাজার ১৩৮ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক আমদানি করা হয়। ভারত থেকে আমদানি বেড়েছে ৩৫ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

গত বছর দেশটি থেকে ৪৬১ কোটি ইউরোর পোশাক আমদানি করেছে ইইউ। একই সময়ে পাকিস্তানে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ৪৩ দশমিক ৯৫ শতাংশ, আমদানি করা হয়েছে ৩৭৬ কোটি ইউরোর তৈরি পোশাক।

back to top