alt

নগর-মহানগর

গানের মিছিলকেও ভয় পান?’

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০২৩

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতার দাবিতে লেখক-শিল্পী-সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা ‘গানের মিছিল’ করেন -সংবাদ

মিছিলকারীদের কণ্ঠে ছিল নজরুলের শেকল ভাঙার গান, কারাগারের লৌহ কপাট ভেঙে ফেলার প্রত্যয়। হাতে হাতে থাকা বর্ণিল প্ল্যাকার্ডগুলোতে ছিল ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়ে লেখা বিভিন্ন স্লোগান। কিন্তু মিছিল শুরুর ১০ মিনিটের মাথায় তা আটকে দেয় পুলিশ। এ সময় মিছিলকারীদের বলতে শোনা যায়, ‘আপনারা গানের মিছিলকেও ভয় পান?’

শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে থেকে শুরু হওয়া এই মিছিলটি যাওয়ার কথা ছিল গুলিস্তানের শহীদ নূর হোসেন চত্বর পর্যন্ত। তার আগেই রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনে মিছিলকারীদের আটকে দেয় পুলিশ। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে কর্মসূচি শেষ করেন আয়োজকরা। ‘ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের দাবিতে’ এই মিছিলের আয়োজন করে লেখক-শিল্পী-শিক্ষক-সাংবাদিকদের একটি প্ল্যাটফর্ম।

মিছিলকারীদের আটকে দেয়ার পর পুলিশকে উদ্দেশ্য করে আয়োজকদের বলতে শোনা যায়, এভাবে শান্তিপূর্ণ কোনো কর্মসূচিতে বাধা দেয়াটা সাংবিধানিক অধিকার লঙ্ঘনের সামিল। এভাবে মিছিল আটকে দেয়ার কোনো অধিকার পুলিশের নেই।

এই মিছিলে ছিলেন লেখক-নৃবিজ্ঞানী রেহনুমা আহমেদ। তিনি বলেন, ‘কোনো ধরনের নৈতিক শক্তি কিংবা জনসমর্থন এর কোনোটাই এই সরকারের নেই বলেই তারা এতটা ভয় পায়। আর এই যে পুলিশ ভায়েরা, বোনেরা আমাদের থামালেন, গানের মিছিল নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে দিলেন না, তাতে স্পষ্টই বোঝা যায় যে এরা সিন্ডিকেটের পুলিশ। এরা কোনোভাবেই জনগণের সুরক্ষা কিংবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বলতে যা বোঝায়, সেটার জন্য নিয়োজিত না।’

এর আগে মিছিলের শুরুতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে বলা হয়, আজকের দেশ একটি কারাগারে পরিণত হয়েছে। মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। আমরা চাল-ডালের স্বাধীনতা চাই, আমরা রাস্তায় নিরাপদে হাঁটার স্বাধীনতা চাই, আমরা বাড়িতে পৌঁছানোর স্বাধীনতা চাই। আমরা সংঘাত চাই না, আমরা শান্তি চাই।

মিছিলকারীদের হাতে হাতে থাকা প্ল্যাকার্ডে লেখা স্লোগানগুলো ছিল এ রকম- গণতন্ত্র মুক্তি পাক, ভোটাধিকার আমার মতপ্রকাশেরই অধিকার, আমার কণ্ঠ আমার কলম স্তব্ধ করা যাবে না, কণ্ঠে মেলাও সুর দুঃশাসন হবে দূর ইত্যাদি।

গত ১৩ অক্টোবর একই দাবিতে, একই প্ল্যাটফর্মের আয়োজনে শাহবাগে একটি সাংস্কৃতিক সমাবেশও অনুষ্ঠিত হয়। সেই সমাবেশ থেকে বক্তারা আশঙ্কা ব্যক্ত করে বলেন, ‘গণতন্ত্রহীনতায়’ বাংলাদেশে যে ‘দুর্বিষহ’ অবস্থা তৈরি হয়েছে তাতে আরেকটি ‘ভোটারবিহীন নির্বাচন’ হলে তা দেশকে আরও খারাপ পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যাবে।

ওই সমাবেশে ছিল প্রতিবাদী গান, পথনাটক, মূকাভিনয়, পারফরম্যান্স আর্ট, কবিতা পাঠ ও মুক্ত ক্যানভাসে প্রতিবাদী চিত্রকর্ম অঙ্কনের মতো বিভিন্ন আয়োজন।

ছবি

খারাপ হয়েছে ঢাকার বায়ু

ছবি

নির্বাচনের ফলাফল চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে ইমরানের পিটিআই

ছবি

কিশোর গ্যাংয়ের ৩৮ সদস্য গ্রেপ্তার

ছবি

শাযরেহ হকের দায়ের করা ৩ মামলায় জামিন পেলেন ট্রান্সকম গ্রুপের ৫ কর্মকর্তা

ছবি

শাজরেহ হকের তিন মামলায় অভিযুক্ত মা-বোন-ভাগনে, গ্রেপ্তার ট্রান্সকমের ৫ কর্মকর্তা

ছবি

বইমেলায় জমজমাট শিশুপ্রহর

ছবি

খাল পরিষ্কারের আগে শপথ নিলেন ১৫ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবী

ছবি

বিশ^বিদ্যালয়ে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ কমিটি মনিটর করার দাবি মহিলা পরিষদের

ছবি

পোস্তগোলা সেতুর সংস্কার শুরু, গাড়ি চলছে বিকল্প পথে

‘ঢাকা চাকা’ ও ‘গুলশান চাকা’ ভাড়া ৫ টাকা কমছে

ছবি

ভাষা শহীদদের প্রতি পুনাকের শ্রদ্ধা

ছবি

ঢাকায় পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ২৫

ছবি

ভাষা শহীদদের প্রতি পুনাকের শ্রদ্ধা

ছবি

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আইজিপির শ্রদ্ধা

ছবি

রাজধানীতে দুটি বাসের মাঝে পড়ে পথচারী নিহত

ছবি

ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানালেন শেখ তাপস

ছবি

৫ বছরেও শেষ হয়নি চুড়িহাট্রায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার বিচার

ছবি

রাজধানীতে পুলিশ কর্মকর্তার বাসার ছাদ থেকে পড়ে গৃহকর্মীর মৃত্যু

ছবি

একুশে ফেব্রুয়ারিতে নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই: ডিএমপি পুলিশ কমিশনার

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৪৬

ছবি

মোটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন স্বামী-স্ত্রী, ট্রাকচাপায় স্ত্রী নিহত

ছবি

২১ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ঢাকার যেসব সড়ক বন্ধ থাকবে

ছবি

১০০ শহরের মধ্যে ঢাকার বাতাস সবচেয়ে বেশি অস্বাস্থ্যকর

ছবি

পুলিশ সদস্যদের উচ্চশিক্ষা ও প্রশিক্ষণ নিতে হবে: আইজিপি

ছবি

যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ঘণ্টা খানেক মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ

ছবি

এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের ক্রেইন পড়ল রেললাইনে, ট্রেন বন্ধ ঘণ্টাখানেক

ছবি

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু

ছবি

শনিবার থেকে ৮ মিনিট পরপর চলবে মেট্রোরেল

ছবি

লালবাগে জুতার কারখানায় ও মিরপুর বাগানবাড়ি বস্তিতে আগুন

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৩৪

ছবি

সিগন্যাল সিস্টেমে ত্রুটি: মেট্রোরেল চলাচলে বিঘ্ন

ছবি

গৃহকর্মী প্রীতির মৃত্যু: বিচার না পেলে ‘বৃহত্তর’ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

ছবি

মৃত মানুষের দান করা কিডনিতে সুস্থ পপি

ছবি

মুক্তিপণ পাওয়ার পরও হত্যা, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

ছবি

রিটের বিষয়ে শুনানি ও আদেশ আজ

ছবি

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

tab

নগর-মহানগর

গানের মিছিলকেও ভয় পান?’

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতার দাবিতে লেখক-শিল্পী-সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা ‘গানের মিছিল’ করেন -সংবাদ

শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০২৩

মিছিলকারীদের কণ্ঠে ছিল নজরুলের শেকল ভাঙার গান, কারাগারের লৌহ কপাট ভেঙে ফেলার প্রত্যয়। হাতে হাতে থাকা বর্ণিল প্ল্যাকার্ডগুলোতে ছিল ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়ে লেখা বিভিন্ন স্লোগান। কিন্তু মিছিল শুরুর ১০ মিনিটের মাথায় তা আটকে দেয় পুলিশ। এ সময় মিছিলকারীদের বলতে শোনা যায়, ‘আপনারা গানের মিছিলকেও ভয় পান?’

শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে থেকে শুরু হওয়া এই মিছিলটি যাওয়ার কথা ছিল গুলিস্তানের শহীদ নূর হোসেন চত্বর পর্যন্ত। তার আগেই রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনে মিছিলকারীদের আটকে দেয় পুলিশ। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে কর্মসূচি শেষ করেন আয়োজকরা। ‘ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের দাবিতে’ এই মিছিলের আয়োজন করে লেখক-শিল্পী-শিক্ষক-সাংবাদিকদের একটি প্ল্যাটফর্ম।

মিছিলকারীদের আটকে দেয়ার পর পুলিশকে উদ্দেশ্য করে আয়োজকদের বলতে শোনা যায়, এভাবে শান্তিপূর্ণ কোনো কর্মসূচিতে বাধা দেয়াটা সাংবিধানিক অধিকার লঙ্ঘনের সামিল। এভাবে মিছিল আটকে দেয়ার কোনো অধিকার পুলিশের নেই।

এই মিছিলে ছিলেন লেখক-নৃবিজ্ঞানী রেহনুমা আহমেদ। তিনি বলেন, ‘কোনো ধরনের নৈতিক শক্তি কিংবা জনসমর্থন এর কোনোটাই এই সরকারের নেই বলেই তারা এতটা ভয় পায়। আর এই যে পুলিশ ভায়েরা, বোনেরা আমাদের থামালেন, গানের মিছিল নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে দিলেন না, তাতে স্পষ্টই বোঝা যায় যে এরা সিন্ডিকেটের পুলিশ। এরা কোনোভাবেই জনগণের সুরক্ষা কিংবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বলতে যা বোঝায়, সেটার জন্য নিয়োজিত না।’

এর আগে মিছিলের শুরুতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে বলা হয়, আজকের দেশ একটি কারাগারে পরিণত হয়েছে। মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। আমরা চাল-ডালের স্বাধীনতা চাই, আমরা রাস্তায় নিরাপদে হাঁটার স্বাধীনতা চাই, আমরা বাড়িতে পৌঁছানোর স্বাধীনতা চাই। আমরা সংঘাত চাই না, আমরা শান্তি চাই।

মিছিলকারীদের হাতে হাতে থাকা প্ল্যাকার্ডে লেখা স্লোগানগুলো ছিল এ রকম- গণতন্ত্র মুক্তি পাক, ভোটাধিকার আমার মতপ্রকাশেরই অধিকার, আমার কণ্ঠ আমার কলম স্তব্ধ করা যাবে না, কণ্ঠে মেলাও সুর দুঃশাসন হবে দূর ইত্যাদি।

গত ১৩ অক্টোবর একই দাবিতে, একই প্ল্যাটফর্মের আয়োজনে শাহবাগে একটি সাংস্কৃতিক সমাবেশও অনুষ্ঠিত হয়। সেই সমাবেশ থেকে বক্তারা আশঙ্কা ব্যক্ত করে বলেন, ‘গণতন্ত্রহীনতায়’ বাংলাদেশে যে ‘দুর্বিষহ’ অবস্থা তৈরি হয়েছে তাতে আরেকটি ‘ভোটারবিহীন নির্বাচন’ হলে তা দেশকে আরও খারাপ পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যাবে।

ওই সমাবেশে ছিল প্রতিবাদী গান, পথনাটক, মূকাভিনয়, পারফরম্যান্স আর্ট, কবিতা পাঠ ও মুক্ত ক্যানভাসে প্রতিবাদী চিত্রকর্ম অঙ্কনের মতো বিভিন্ন আয়োজন।

back to top