alt

নগর-মহানগর

বীরঙ্গনা সম্মিলনে- ‘বেদনাবিধুর ইতিহাসের নাম বীরাঙ্গনা’

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

মুক্তিযুদ্ধের ৫২ বছর পরেও একাত্তরের বীরঙ্গনারা পাকিস্তান সেনার ভয়ঙ্কর অত্যাচারের কথা ভুলতে পারছেন না। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বীরত্বগাঁথার কথা বলা হলেও বীরঙ্গনাদের কথা উহ্য থাকে। এই শব্দটি গালির মতো হয়ে গেছে। বীরঙ্গনা একটি বেদনাবিধুর ইতিহাসের নাম হলেও আজো তাদের সঠিক মূল্যায়ন হয় নাই - এমন নানা অভিযোগের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বীরঙ্গনাদের নিয়ে সম্মিলন ‘মোরা আকাশের মত বাধাহীন’ কর্মসূচি।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা বীরঙ্গনারা বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে যেভাবে বলা হয়, তাদের জন্য যতো সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়, সেভাবে বীরঙ্গনাদের দেখা হয় না। তাদের আজো মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে তাদের কষ্টের কথা বলতে গিয়ে অনেকই কেঁদে ফেলেন।

ইতিহাসের পাতায় বীরঙ্গনাদের আনার দাবি জানিয়ে নারী পক্ষের সদস্য ও ‘৭১ এর যে নারীদের ভুলেছি’ প্রকল্পের সমন্বয়কারী ফিরদৌস আজিম বলেন, সরকারের গেজেটে সব বীরাঙ্গনাকে অন্তর্ভুক্ত করা দরকার। নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধে বীরঙ্গনাদের অবদানের বিষয়ে সঠিকভাবে জানতে পারছে না। কয়েক লাখ নারী মুক্তিযুদ্ধে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন, শুধু এতটুকুই বলা হয়। কিন্তু তাদের বিষয়ে বিস্তারিত কিছুই জানানো হয় না।

গতকাল নারীপক্ষের ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে ‘মোরা আকাশের মত বাধাহীন’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুদিন ব্যাপী আয়োজিত সম্মিলনের আয়োজন করে সাভার গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের পিএইচএ ভবন মিলনায়তনে।

ফিরদৌস বলেন, আমাদের পাঠ্যবইয়ে বীরঙ্গনা বিষয়টি নেই বললেই চলে। আমরা শুধু বীরগাঁথা, বীরত্বগাঁথা দেখি। তাই সরকার হয়তো বীরাঙ্গনার বদলে নারী মুক্তিযোদ্ধা শব্দটি ব্যবহার করতে চাইছে। কিন্তু আমরা চাই বীরাঙ্গনা নামটি থাক। তাদের ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানানো খুব দরকার।

তিনি বলেন, এই কর্মসূচীর আওতায় ১০০ বীরঙ্গনাদের নিয়ে কাজ করছে। এখন তাদের কার্যক্রমে ৫৪ জন বীরাঙ্গনা যুক্ত আছেন। তাদের মধ্যে ২০ জন মারা গেছেন। বাকিরা সরকারে মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত হয়েছেন। যারা এখন পর্যন্ত তালিকাভুক্ত হতে পারেনি তাদের অবস্থা খুবই খারাপ।

নারীপক্ষের সভানেত্রী গীতা দাস বলেন, ‘মোরা আকাশের মত বাধাহীন’ এই শিরোনাম দিয়ে আমরা ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করেছি। এর মধ্যে বীরাঙ্গনা সম্মিলন একটি। এখানে ১৩টি জেলার ৩৮ বীরাঙ্গনা বোনরা এখানে সামিল হয়েছেন। গেজেটভুক্ত হতে না পারায় মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া সম্মানী এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন না, এমন ৪৬ জন বীরাঙ্গনাকে মাসিক আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে নারীপক্ষ।

২১শে পদক প্রাপ্ত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কাওসার চৌধুরী বলেন, বীরাঙ্গনারা ১৯৭২ সালের পর পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী দ্বারা ধর্ষণের শিকার হওয়ার কথা প্রকাশ করতে চাননি। এর পরবর্তী সময়ে সামাজিকভাবে এই বিষয়গুলো আরও জটিল হতে থাকে। এমন একটা পশ্চাৎপদ সময়ে আমরা বসবাস করি সেখানে নারীদের এমন একটা চোখে দেখা হয়, তার উপর পাকিস্তানি সেনাদের দ্বারা ধর্ষণের শিকার নারীদের আমরা কতোটা সম্মানের চোখে দেখবো, কতটা সম্মান করবো, সেটা বড় ঘটনা হয়ে দাঁড়ায়। সে জায়গায় সমাজ তাদের স্বীকৃতি দেয়নি। এই ভয়ে বীরাঙ্গনারা নিজেকে প্রকাশ করেননি।

খুলনা থেকে আসা বীরঙ্গনা রঞ্জিতা বলেন, ‘আমরা রাস্তা চিনি না, পথ চিনি না। কাগজপত্র নিয়ে দৌঁড়াতে জানি না। তাই স্বীকৃতিও পাচ্ছি না। কুড়িগ্রাম থেকে আসা বীরঙ্গনা মোছা. আবিরন বলেন, ‘৯ সাল থাকি কাগজপত্র নিয়া দৌড়াওছি। কারো, কারোটা হইসে। মোরটা (আমারটা) হয় নাই’।

সম্মিলনে অতিথি হিসেবে অংশ নেওয়া সাবেক সচিব রীতি ইব্রাহিম বলেন, বীরাঙ্গনাদের অনেকেই মারা গেছেন। যারা বেঁচে আছেন, তাদেরও আমরা যথাযথভাবে স্বীকৃতি দিতে পারছি না।

সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন গবেষক ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা শবনম আজীম, চলচ্চিত্র নিমার্তা শবনম ফেরদৌসী, আমি বীরাঙ্গনা বলছি বইয়ের রচয়িতা ড. নীলিমা ইব্রাহিমের মেয়ে রিতি ইব্রহিম আহসান। এ ছাড়াও গবেষক ও নাট্যব্যক্তিত্ব কাউসার চৌধুরী প্রমুখ।

ঢাবি চারুকলার বকুলতলায় গান-নাচ-আবৃত্তিতে চৈত্রসংক্রান্তি উদ্‌যাপন

ছবি

ঢাকায় এসেছে ইসরায়েলের ফ্লাইট, বেবিচকের ব্যাখা

ছবি

বর্ষবরণের অপেক্ষায় রমনা

ছবি

যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ওপর গাড়িতে আগুন লাগে জানান পুলিশ

লঞ্চের দড়ি ছিঁড়ে ৫ জনের মৃত্যু : আসামিদের তিন দিনের রিমান্ড

ছবি

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ওপর প্রাইভেট কারে আগুন

রাজধানীর শাহজাদপুরে বুথের নিরাপত্তা প্রহরীকে হত্যা

ছবি

যাত্রীদের পিটুনিতে হয়নি চালক-সহকারীর মৃত্যু, হেলপার গল্প সাজিয়েছে বলছে পুলিশ

ছবি

ঈদের দিন বন্ধ থাকবে মেট্রোরেল

ছবি

মেট্রোরেলের পিলারে বাসের ধাক্কা

ছবি

কেএনএফের তৎপরতা নিয়ে ঢাকায় কোনো শঙ্কা নেই: ডিএমপি কমিশনার

ছবি

আবাসিক হোটেল থেকে নির্মাতা সোহানুর রহমানের মেয়ের মরদেহ উদ্ধার

কেটলির শর্টসার্কিট থেকে লিকেজের গ্যাসে বিস্তার

ছবি

জনগণের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক করতে পুলিশের সব ইউনিট একযোগে কাজ করছে : আইজিপি

ছবি

কমলাপুর স্টেশনে বেড়েছে যাত্রীর চাপ, টিকেট ছাড়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

ছবি

ঈদে ঢাকা ছাড়ার আগে নগরবাসীকে ডিএমপির ১৪ পরামর্শ

ছবি

আগামী দিনে সদরঘাট আরও ফিটফাট হবে : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

ছবি

মেট্রোরেলে ভ্যাট, ঘোষণা কে দিলো ‘জানেন না’ ওবায়দুল কাদের

ছবি

পর্নোগ্রাফির উদ্দেশ্যে ধর্ষণের ভিডিও করা হয় : পুলিশ

এডিস মশা : ডাবের খোসাসহ পরিত্যক্ত দ্রব্যাদি কিনবে ঢাকা উত্তর সিটি

ছবি

মেট্রোরেলের ভাড়া বাড়ছেে, ১৫% ভ্যাট বসানোর সিদ্ধান্ত

ঈদ যাত্রায় টার্মিনালের বাইরে যাত্রী ওঠানামা নয়: ট্রাফিক পুলিশ

ছবি

তেলবাহী লরি উল্টে আগুন : দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু

ছবি

ডেমরায় ১৪ বাসে আগুন নিয়ে রহস্য

ছবি

দেশে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নাজুক : মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান

ছবি

‘বৈষম্যহীন সমাজ বিনির্মাণে তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে’

ছবি

তেলের লরি উল্টে আগুনে দগ্ধদের কেউ শংকামুক্ত নন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

সাভারে তেলের লরি উল্টে আগুনে দগ্ধ ৪ জনের অবস্থা গুরুতর

ধর্ষণ:যত বড় হোক, নাম যেন তদন্তে আসে’

ছবি

মার্চ মাসে ২৪৫জন নারী ও কন্যা নির্যাতিত: মহিলা পরিষদ

ছবি

ফুটপাতসহ বিপণি বিতানগুলোতে জমে উঠেছে ঈদ কেনাকাটা

ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর গলায় ফাঁস

ছবি

বিদ্যুতের তারে পলিথিন, মেট্রোরেল বন্ধ এক ঘণ্টা

ছবি

নববর্ষের অনুষ্ঠান সন্ধ্যায় শেষের নির্দেশনা প্রত্যাহারের দাবি সাংস্কৃতিক জোটের

ছবি

মালাকারটোলা গণহত্যায় নিহতদের শহীদের মর্যাদা দেয়ার দাবি

ছবি

কারওয়ান বাজার থেকে ডিএনসিসির কার্যালয় স্থানান্তর শুরু

tab

নগর-মহানগর

বীরঙ্গনা সম্মিলনে- ‘বেদনাবিধুর ইতিহাসের নাম বীরাঙ্গনা’

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

মুক্তিযুদ্ধের ৫২ বছর পরেও একাত্তরের বীরঙ্গনারা পাকিস্তান সেনার ভয়ঙ্কর অত্যাচারের কথা ভুলতে পারছেন না। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বীরত্বগাঁথার কথা বলা হলেও বীরঙ্গনাদের কথা উহ্য থাকে। এই শব্দটি গালির মতো হয়ে গেছে। বীরঙ্গনা একটি বেদনাবিধুর ইতিহাসের নাম হলেও আজো তাদের সঠিক মূল্যায়ন হয় নাই - এমন নানা অভিযোগের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বীরঙ্গনাদের নিয়ে সম্মিলন ‘মোরা আকাশের মত বাধাহীন’ কর্মসূচি।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা বীরঙ্গনারা বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে যেভাবে বলা হয়, তাদের জন্য যতো সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়, সেভাবে বীরঙ্গনাদের দেখা হয় না। তাদের আজো মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে তাদের কষ্টের কথা বলতে গিয়ে অনেকই কেঁদে ফেলেন।

ইতিহাসের পাতায় বীরঙ্গনাদের আনার দাবি জানিয়ে নারী পক্ষের সদস্য ও ‘৭১ এর যে নারীদের ভুলেছি’ প্রকল্পের সমন্বয়কারী ফিরদৌস আজিম বলেন, সরকারের গেজেটে সব বীরাঙ্গনাকে অন্তর্ভুক্ত করা দরকার। নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধে বীরঙ্গনাদের অবদানের বিষয়ে সঠিকভাবে জানতে পারছে না। কয়েক লাখ নারী মুক্তিযুদ্ধে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন, শুধু এতটুকুই বলা হয়। কিন্তু তাদের বিষয়ে বিস্তারিত কিছুই জানানো হয় না।

গতকাল নারীপক্ষের ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে ‘মোরা আকাশের মত বাধাহীন’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুদিন ব্যাপী আয়োজিত সম্মিলনের আয়োজন করে সাভার গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের পিএইচএ ভবন মিলনায়তনে।

ফিরদৌস বলেন, আমাদের পাঠ্যবইয়ে বীরঙ্গনা বিষয়টি নেই বললেই চলে। আমরা শুধু বীরগাঁথা, বীরত্বগাঁথা দেখি। তাই সরকার হয়তো বীরাঙ্গনার বদলে নারী মুক্তিযোদ্ধা শব্দটি ব্যবহার করতে চাইছে। কিন্তু আমরা চাই বীরাঙ্গনা নামটি থাক। তাদের ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানানো খুব দরকার।

তিনি বলেন, এই কর্মসূচীর আওতায় ১০০ বীরঙ্গনাদের নিয়ে কাজ করছে। এখন তাদের কার্যক্রমে ৫৪ জন বীরাঙ্গনা যুক্ত আছেন। তাদের মধ্যে ২০ জন মারা গেছেন। বাকিরা সরকারে মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত হয়েছেন। যারা এখন পর্যন্ত তালিকাভুক্ত হতে পারেনি তাদের অবস্থা খুবই খারাপ।

নারীপক্ষের সভানেত্রী গীতা দাস বলেন, ‘মোরা আকাশের মত বাধাহীন’ এই শিরোনাম দিয়ে আমরা ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করেছি। এর মধ্যে বীরাঙ্গনা সম্মিলন একটি। এখানে ১৩টি জেলার ৩৮ বীরাঙ্গনা বোনরা এখানে সামিল হয়েছেন। গেজেটভুক্ত হতে না পারায় মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া সম্মানী এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন না, এমন ৪৬ জন বীরাঙ্গনাকে মাসিক আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে নারীপক্ষ।

২১শে পদক প্রাপ্ত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কাওসার চৌধুরী বলেন, বীরাঙ্গনারা ১৯৭২ সালের পর পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী দ্বারা ধর্ষণের শিকার হওয়ার কথা প্রকাশ করতে চাননি। এর পরবর্তী সময়ে সামাজিকভাবে এই বিষয়গুলো আরও জটিল হতে থাকে। এমন একটা পশ্চাৎপদ সময়ে আমরা বসবাস করি সেখানে নারীদের এমন একটা চোখে দেখা হয়, তার উপর পাকিস্তানি সেনাদের দ্বারা ধর্ষণের শিকার নারীদের আমরা কতোটা সম্মানের চোখে দেখবো, কতটা সম্মান করবো, সেটা বড় ঘটনা হয়ে দাঁড়ায়। সে জায়গায় সমাজ তাদের স্বীকৃতি দেয়নি। এই ভয়ে বীরাঙ্গনারা নিজেকে প্রকাশ করেননি।

খুলনা থেকে আসা বীরঙ্গনা রঞ্জিতা বলেন, ‘আমরা রাস্তা চিনি না, পথ চিনি না। কাগজপত্র নিয়ে দৌঁড়াতে জানি না। তাই স্বীকৃতিও পাচ্ছি না। কুড়িগ্রাম থেকে আসা বীরঙ্গনা মোছা. আবিরন বলেন, ‘৯ সাল থাকি কাগজপত্র নিয়া দৌড়াওছি। কারো, কারোটা হইসে। মোরটা (আমারটা) হয় নাই’।

সম্মিলনে অতিথি হিসেবে অংশ নেওয়া সাবেক সচিব রীতি ইব্রাহিম বলেন, বীরাঙ্গনাদের অনেকেই মারা গেছেন। যারা বেঁচে আছেন, তাদেরও আমরা যথাযথভাবে স্বীকৃতি দিতে পারছি না।

সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন গবেষক ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা শবনম আজীম, চলচ্চিত্র নিমার্তা শবনম ফেরদৌসী, আমি বীরাঙ্গনা বলছি বইয়ের রচয়িতা ড. নীলিমা ইব্রাহিমের মেয়ে রিতি ইব্রহিম আহসান। এ ছাড়াও গবেষক ও নাট্যব্যক্তিত্ব কাউসার চৌধুরী প্রমুখ।

back to top