alt

নগর-মহানগর

গাজায় গণহত্যার প্রতিবাদে নারী ও শিশু সংহতি সমাবেশ

গাজাবাসীর আর্তনাদ-কান্না, সারা বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের আর্তনাদ : সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

অনতিবিলম্বে যুদ্ধবিরতির দাবি

খালেদ মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : শুক্রবার, ০৩ মে ২০২৪

গাজায় গণহত্যার প্রতিবাদে নারী ও শিশু সংহতি সমাবেশের আয়োজন করেছে ফিলিস্তিনি সংহতি কমিটি বাংলাদেশ। শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ফিলিস্তিনি সংহতি কমিটি বাংলাদেশের সদস্য হারুন অর রশীদের সঞ্চালনায় সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, গাজাবাসীর যে আর্তনাদ-কান্না, সেটি সারা বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের আর্তনাদ। হিটলার নরপশুর থেকে অধম ছিল। কিন্তু তার অনুশোচনা ছিল। সেজন্য সে আত্মহত্যা করেছে। আজকে পৃথিবীতে নব্য হিটলারের দেখা দিয়েছে। রাশিয়ায় পুতিন, ইরাক ইঙ্গ-মার্কিন হামলায় জর্জ বুশ আর গাজা গণহত্যায় নেতানিয়াহু নব্য হিটলারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে।

তিনি বলেন, ছোট হিটলাদের অনুশোচনা নেই। তারা আর আত্মহত্যা করে না। বরং দর্পের সহিত ঘুরে বেড়ায়। তাদের কোনো বিষন্নতা নেই, আত্মোপলব্ধি নেই। হিটলারের বন্ধু ছিল গোয়েবলস। সে হিটলারের সকল মিথ্যাকে সত্য হিসেবে প্রচার করতো। এখনো নব্য গোয়েবলস বিদ্যমান আছে। তারা গাজার সহিংসতাকে যুদ্ধ হিসেবে দেখাতে চাইছে। অথচ এটি কোনো যুদ্ধ নয়, বরং নির্লজ্জ ও বিভৎস গণহত্যা।

“আজকের এ সংহতি সমাবেশ শুধু সমবেদনা নয়, এটি আমাদের পূর্ণ সমর্থন। এটি আমাদেরও যুদ্ধ। এ সংগ্রাম সেসব পুঁজিবাদী-সাম্রাজ্যবাদী ব্যবস্থার বিরুদ্ধে, যেখান থেকে হিটলার জন্ম নেয়। এ যুদ্ধে পরাজয়ের কোনো স্থান নেই। এর পরাজয় মানে সভ্যতার মৃত্যু, মানুষ ও মানবতার মৃত্যু। ”

তিনি আরো বলেন, আমেরিকায় ছাত্ররা আবার রাস্তায় নেমে এসেছে। ভিয়েতনামে যুদ্ধের সময় এইরকম ছাত্র বিপ্লব আমরা দেখেছিলাম। তারপরে ছাত্র বিপ্লব হারিয়ে গেছে। কেন হারিয়ে গেল? হারিয়ে গেল দুই কারণে। তার একটা কারণ হলো, সমাজতন্ত্রীদের পতন হলো, সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে গেল। সমাজতন্ত্রী ছাত্ররা পুজিবাদের দিকে ঝুঁকে পড়ল। আরেকটা কারণ হলো, পুঁজিবাদীরা আরো দক্ষতা অর্জন করল, মানুষকে আরো চেপে ধরল। ফলে প্রতিবাদ করার যে শক্তি সেটি শেষ হয়ে গেছে।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন ভাসানী নারী মুক্তি কেন্দ্রের আহ্বায়ক সোনিয়া আকতার, কমিউনিস্ট পার্টির নারী সেলের আহ্বায়ক লক্ষী চক্রবর্তী, নারী সংহতির সভাপতি শ্যামলী শিল, নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি সীমা দত্ত, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি রেখা চৌধুরী, শ্রমজীবী নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি বহ্নিশিখা জামালী, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সভাপতি সম্পা বসু প্রমুখ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সামিনা লুৎফা মিত্রা বলেন, শুধু ফিলিস্তিনে নির্যাতন-নিপীড়ন-গণহত্যা চলছে না, পৃথিবীর নানা দেশে দেশে এরূপ নিপীড়ন চলছে। আমাদের সেসবের জন্যও প্রতিবাদ জানাতে হবে।

মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি রেখা চৌধুরী বলেন, যেকোনো যুদ্ধ ও সহিংসতায় নারী ও শিশুরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। গাজায় ইসরাইলি দখললদার বাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত ৩৫০০০ এর বেশি নারী-শিশু ও সাধারণ নাগরিক হত্যার শিকার হয়েছে।

শ্রমজীবী নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি বহ্নিশিখা জামালী বলেন, আজ মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী শক্তির ভন্ডামীর মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। ফিলিস্তিনি বীর জনতার প্রতি আমাদের সমর্থন আছে, থাকবে। শুধু ফিলিস্তিন না, নিপীড়নের বিরুদ্ধে , সারা বিশ্বই আমাদের যুদ্ধক্ষেত্র।

গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু বলেন, গাজায় হাসপাতাল-মসজিদ-আশ্রয়কেন্দ্রেও দখলদাররা হামলা চালিয়েছে। ঈদের দিনেও হামলা করতে ছাড়েনি। ৭৫ বছর ধরে জায়নবাদীদের বিরুদ্ধে যে লড়াই চলছে সেটি চলমান থাকবে। এটি কোনো ধর্মের বিরুদ্ধে লড়াই না।

সমাবেশে সামনের সারিতে শিশুরা ফিলিস্তিনের সংহতির পক্ষে চিত্রাঙ্কন করেন। এছাড়া সংহতি জানিয়ে কবিতা আবৃত্তি ও গান পরিবেশন করা হয়। এসময় ‘ইজরায়েলি গণহত্যার বিরুদ্ধে বিশ্ব বিবেক এক হও’, ‘সাম্রাজ্যবাদ মানবতার শত্রু’, ‘গাজায় গণহত্যা বন্ধ করো’ ইত্যাদি প্ল্যাকার্ড নিয়ে নারী ও শিশুরা সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। সমাবেশ শেষে একটি মিছিল কাটাবন মোড়, শাহবাগ, টিএসসি প্রদক্ষিণ করে আবার শাহবাগে এসে শেষ হয়।

ছবি

বসুন্ধরায় এসি বিস্ফোরণ: দগ্ধ চারজনের তিনজনেরই মারা গেছেন

ছবি

ফাঁকা বাজারেও একই দাম

ছবি

কোরবানির পশুতে ‘ভরে’ গেছে হাট, ‘জমেনি’ বিক্রি

ছবি

মেট্রোরেলে ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১

ছবি

ঈদের পর নতুন সূচিতে চলবে মেট্রোরেল

ছবি

বসুন্ধরায় এসি বিস্ফোরণ: তিন বছরের এক শিশুর মৃত্যু

ছবি

দোষী সাব্যস্ত হলে ড. ইউনূসের যাবজ্জীবনও হতে পারে : দুদক আইনজীবী

ছবি

কোরবানির পশুর বর্জ্য ৬ ঘণ্টায় সরাবে ডিএনিসিসি : মেয়র

ছবি

২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ : মেয়র তাপস

ছবি

গণমাধ্যমের ভূমিকা বিষয়ক সেমিনারে ‘নেই’ সাংবাদিক

ছবি

দুর্ঘটনা ও বিমানবন্দরে প্রবেশে গাড়ির চাপ, সড়কে তীব্র যানজট

ছবি

প্রতিরক্ষা খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা কর‌তে চায় ইইউ

ছবি

মনিপুরের মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা দলের ওপর বিদ্রোহীদের হামলা

রাজধানীতে মাদকসহ গ্রেপ্তার ৩২

ছবি

পুতিন ইউক্রেনে থেমে থাকবেন না, হুঁশিয়ারি বাইডেনের

ছবি

স্থগিত ১৯ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে

ছবি

ঢাকার ফিলিস্তিন দূতাবাসের সামনে সহকর্মীর গুলিতে পুলিশ নিহত

ছবি

কোরবানি সামনে রেখে রাজধানীতে সক্রিয় জাল নোট চক্র

ছবি

পানি ও জ্বালানির মূল্য সমন্বয়ের আহবান

ছবি

হানিফ ফ্লাইওভারে মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যুবক নিহত

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২২

ছবি

র‌্যাবের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব নিলেন হারুন

ছবি

স্থানান্তরিত হচ্ছে শাহবাগ থানা

ছবি

নগর দরিদ্রদের জন্য রাজউকের কোন পরিকল্পনা নেই : অধ্যাপক নজরুল ইসলাম

ছবি

ভাটারায় জাপান প্রবাসী যুবকের মরদেহ উদ্ধার

ছবি

এমপি আনার হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলকে চিঠি দিয়েছে পুলিশ

ছবি

গার্মেন্টস শ্রমিকদের টিসিবির কার্ড দেয়ার সুপারিশ

ছবি

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের শেয়ার হস্তান্তরে স্থিতাবস্থার মেয়াদ বাড়লো

ছবি

বাড্ডায় গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, নিহত ১

ছবি

শাহজালাল বিমানবন্দরে ২ কেজি সোনা উদ্ধার, কেবিন ক্রু গ্রেপ্তার

ঢাকার ১৫ শতাংশ বাড়িতে পাওয়া গেছে এডিস মশার লার্ভা

ছবি

ঢাকা, চট্টগ্রামে ঝড়-বৃষ্টি-জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

ছবি

সাবেক আইজিপি বেনজীরের আরও সম্পদ জব্দের নির্দেশ: আদালত

ছবি

বিদ্যুৎ বিভ্রাট কাটিয়ে মেট্রোরেল চলাচল চালু

ছবি

বৈদ্যুতিক বিভ্রাটে বন্ধ মেট্রোরেল

ছবি

ঢাকায় ছুরিকাঘাতে এক যুবক নিহত

tab

নগর-মহানগর

গাজায় গণহত্যার প্রতিবাদে নারী ও শিশু সংহতি সমাবেশ

গাজাবাসীর আর্তনাদ-কান্না, সারা বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের আর্তনাদ : সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

অনতিবিলম্বে যুদ্ধবিরতির দাবি

খালেদ মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

শুক্রবার, ০৩ মে ২০২৪

গাজায় গণহত্যার প্রতিবাদে নারী ও শিশু সংহতি সমাবেশের আয়োজন করেছে ফিলিস্তিনি সংহতি কমিটি বাংলাদেশ। শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ফিলিস্তিনি সংহতি কমিটি বাংলাদেশের সদস্য হারুন অর রশীদের সঞ্চালনায় সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, গাজাবাসীর যে আর্তনাদ-কান্না, সেটি সারা বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের আর্তনাদ। হিটলার নরপশুর থেকে অধম ছিল। কিন্তু তার অনুশোচনা ছিল। সেজন্য সে আত্মহত্যা করেছে। আজকে পৃথিবীতে নব্য হিটলারের দেখা দিয়েছে। রাশিয়ায় পুতিন, ইরাক ইঙ্গ-মার্কিন হামলায় জর্জ বুশ আর গাজা গণহত্যায় নেতানিয়াহু নব্য হিটলারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে।

তিনি বলেন, ছোট হিটলাদের অনুশোচনা নেই। তারা আর আত্মহত্যা করে না। বরং দর্পের সহিত ঘুরে বেড়ায়। তাদের কোনো বিষন্নতা নেই, আত্মোপলব্ধি নেই। হিটলারের বন্ধু ছিল গোয়েবলস। সে হিটলারের সকল মিথ্যাকে সত্য হিসেবে প্রচার করতো। এখনো নব্য গোয়েবলস বিদ্যমান আছে। তারা গাজার সহিংসতাকে যুদ্ধ হিসেবে দেখাতে চাইছে। অথচ এটি কোনো যুদ্ধ নয়, বরং নির্লজ্জ ও বিভৎস গণহত্যা।

“আজকের এ সংহতি সমাবেশ শুধু সমবেদনা নয়, এটি আমাদের পূর্ণ সমর্থন। এটি আমাদেরও যুদ্ধ। এ সংগ্রাম সেসব পুঁজিবাদী-সাম্রাজ্যবাদী ব্যবস্থার বিরুদ্ধে, যেখান থেকে হিটলার জন্ম নেয়। এ যুদ্ধে পরাজয়ের কোনো স্থান নেই। এর পরাজয় মানে সভ্যতার মৃত্যু, মানুষ ও মানবতার মৃত্যু। ”

তিনি আরো বলেন, আমেরিকায় ছাত্ররা আবার রাস্তায় নেমে এসেছে। ভিয়েতনামে যুদ্ধের সময় এইরকম ছাত্র বিপ্লব আমরা দেখেছিলাম। তারপরে ছাত্র বিপ্লব হারিয়ে গেছে। কেন হারিয়ে গেল? হারিয়ে গেল দুই কারণে। তার একটা কারণ হলো, সমাজতন্ত্রীদের পতন হলো, সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে গেল। সমাজতন্ত্রী ছাত্ররা পুজিবাদের দিকে ঝুঁকে পড়ল। আরেকটা কারণ হলো, পুঁজিবাদীরা আরো দক্ষতা অর্জন করল, মানুষকে আরো চেপে ধরল। ফলে প্রতিবাদ করার যে শক্তি সেটি শেষ হয়ে গেছে।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন ভাসানী নারী মুক্তি কেন্দ্রের আহ্বায়ক সোনিয়া আকতার, কমিউনিস্ট পার্টির নারী সেলের আহ্বায়ক লক্ষী চক্রবর্তী, নারী সংহতির সভাপতি শ্যামলী শিল, নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি সীমা দত্ত, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি রেখা চৌধুরী, শ্রমজীবী নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি বহ্নিশিখা জামালী, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সভাপতি সম্পা বসু প্রমুখ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সামিনা লুৎফা মিত্রা বলেন, শুধু ফিলিস্তিনে নির্যাতন-নিপীড়ন-গণহত্যা চলছে না, পৃথিবীর নানা দেশে দেশে এরূপ নিপীড়ন চলছে। আমাদের সেসবের জন্যও প্রতিবাদ জানাতে হবে।

মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি রেখা চৌধুরী বলেন, যেকোনো যুদ্ধ ও সহিংসতায় নারী ও শিশুরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। গাজায় ইসরাইলি দখললদার বাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত ৩৫০০০ এর বেশি নারী-শিশু ও সাধারণ নাগরিক হত্যার শিকার হয়েছে।

শ্রমজীবী নারী মুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি বহ্নিশিখা জামালী বলেন, আজ মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী শক্তির ভন্ডামীর মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। ফিলিস্তিনি বীর জনতার প্রতি আমাদের সমর্থন আছে, থাকবে। শুধু ফিলিস্তিন না, নিপীড়নের বিরুদ্ধে , সারা বিশ্বই আমাদের যুদ্ধক্ষেত্র।

গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু বলেন, গাজায় হাসপাতাল-মসজিদ-আশ্রয়কেন্দ্রেও দখলদাররা হামলা চালিয়েছে। ঈদের দিনেও হামলা করতে ছাড়েনি। ৭৫ বছর ধরে জায়নবাদীদের বিরুদ্ধে যে লড়াই চলছে সেটি চলমান থাকবে। এটি কোনো ধর্মের বিরুদ্ধে লড়াই না।

সমাবেশে সামনের সারিতে শিশুরা ফিলিস্তিনের সংহতির পক্ষে চিত্রাঙ্কন করেন। এছাড়া সংহতি জানিয়ে কবিতা আবৃত্তি ও গান পরিবেশন করা হয়। এসময় ‘ইজরায়েলি গণহত্যার বিরুদ্ধে বিশ্ব বিবেক এক হও’, ‘সাম্রাজ্যবাদ মানবতার শত্রু’, ‘গাজায় গণহত্যা বন্ধ করো’ ইত্যাদি প্ল্যাকার্ড নিয়ে নারী ও শিশুরা সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। সমাবেশ শেষে একটি মিছিল কাটাবন মোড়, শাহবাগ, টিএসসি প্রদক্ষিণ করে আবার শাহবাগে এসে শেষ হয়।

back to top