alt

নগর-মহানগর

ঢাকা, চট্টগ্রামে ঝড়-বৃষ্টি-জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, ঢাকা ও চট্টগ্রাম ব্যুরো : সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে দিনভর বৃষ্টিতে ঢাকা-চট্টগ্রামের অনেক রাস্তা তলিয়ে যায়। এ রকম হাঁটুপানি ছিল দিনভরই-সংবাদ

রিমেলের প্রভাবে কখনো মুষলধার, কখনো হালকা বৃষ্টি আর ঝোড়ো বাতাসের কারণে সোমবার (২৭ মে) সারাদিন চরম দুর্ভোগে কেটেছে ঢাকা ও চট্টগ্রামের জনজীবন। একদিকে বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা, অন্যদিকে যানবাহনের অভাবে সাধারণ জীবনযাত্রা থমকে গিয়েছিল।

ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণ এই দুই নগরীতে সোমবার সকাল থেকে সারাদিন দমকা হাওয়ার সঙ্গে ভারী বৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় পানি জমে মানুষের চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। বৃষ্টির জন্য অনেক বাজার-দোকান খুলতে পারেননি দোকানিরা।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ২৬ মে রোববার রাতে ঘূর্ণিঝড় উপকূলে আঘাত হানার পর সেটি শক্তি হারিয়ে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এর প্রভাবেই ঢাকায় দমকা হাওয়া ও ভারী বৃষ্টি হয়েছে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঢাকায় প্রায় ১৫০ মিলিমিটারের মতো বৃষ্টি হয়েছে। চলতি মৌসুমে ঢাকায় এটাই সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সোমবার ঢাকায় ভোর থেকে সারাদিন দমকা হাওয়া বয়ে যায়। আজ পর্যন্ত থেমে থেমে ঝোড়ো বাতাস বয়ে যাবে বলে আবহাওয়াবিদেরা জানিয়েছেন।

এই ঝড়ের প্রভাবে সারাদেশেই বৃষ্টি হচ্ছে। বিকেল পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে ১৩৮ মিলিমিটার।

বৃষ্টিতে রাজধানী ঢাকার মূল সড়কসহ অনেক অলিগলি হাঁটুপানিতে তলিয়ে যায়। বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। এতে ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ।

পুরনো ঢাকার বংশাল, ধোলাইখাল, নিউমার্কেটসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় অলিগলিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এছাড়া মিরপুরের কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, সায়েদাবাদ, শনিরআখড়া, মোহাম্মদপুর এলাকার বিভিন্ন সড়ক ও অলিগলিতে জলাবদ্ধতার ফলে সড়ক ডুবে গিয়ে সাধারণ মানুষের চলাচলে অসুবিধা সৃষ্টি হয়। একই কারণে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। অনেক জায়গায় দোকানপাট বন্ধ করে অলস সময় পার করেন বিক্রেতারা।

পুরনো ঢাকার বাসিন্দা আবদুস সাত্তার জলবদ্ধতায় পথ চলতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘বর্ষা এলেই সিটি করপোরেশনের মনে পড়ে তাদের উন্নয়ন কাজ করতে হবে। সারা বছর খবর থাকে না। এই এলাকার ড্রেনের কাজ চলছে। এ কারণে পানি কোথাও যেতে পারছে না। তাই অল্প বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা তৈরি হয়ে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে মানুষজনকে।

ঢাকার বিভিন্ন এলাকার মানুষে সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকার এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে জলাবদ্ধতার জন্য ভোগান্তি হয়নি। আগে একাধিকবার বৃষ্টি হওয়ার পরই দেখা গেছে নিউমার্কেট এলাকায় পানি জমে যায়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

এক দোকানদার তার দোকানের সামনে পানি জমে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, এটা কোনো নতুন চিত্র না। বৃষ্টির পানি জমে রাস্তায় হাঁটার অবস্থা নেই। প্রতি বছর এলাকায় জলবদ্ধতা হয়, অথচ এর প্রতিকারের কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় না। আর ভোগান্তি পোহাতে হয় আমাদের।

পল্টনে কথা হয় মতিঝিলগামী এক যাত্রীর সঙ্গে। তিনি মীরপুর থেকে কর্মক্ষেত্রে আসার সময় মেট্রোরেল বন্ধ পাওয়ায় বাসে চড়েই এসেছেন। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বৃষ্টির জন্য সড়কে যানবাহনের সংখ্যা কম। বাসে ভিড়ের জন্য উঠতে না পেরে সিএনজিতে আসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হই। কারণ সিএনজিচালক এত বেশি ভাড়া হাকেন যে তাতে আমার পকেটের টাকায় হবে না। ফলে বাস উঠতে অপেক্ষা করতে হয়েছে এক ঘণ্টা।

শুধু বাস যাত্রী বা দোকানদারই নয় যারা এক স্থান থেকে হেঁটে সামান্য দূরে যেতে চেষ্টা করেছেন তারাও ব্যর্থ হন বিভিন্ন জায়গায় জলাবদ্ধতার কারণে। কোথাও কোথাও প্রায় হাঁটু সমান পানি জমে যেতে দেখা যায়। পায়ের জুতা ভিজিয়ে পথ চলতে হয়েছে অনেক পথচারীকে। জলাবদ্ধতার কারণে অনেক ড্রেনের ময়লা-আবর্জনা সব রাস্তায় উঠে এসেছে। এতে চারদিকে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এসব কারণে ফুটপাথ দিয়ে অনেকের হাঁটাও সম্ভব হয় না।

হেঁটে যাওয়া সম্ভব না হওয়ার বিষয়টি টের পেয়ে স্বল্প দূরতে যেতে অনেক রিকশাচলাক দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করে অভিযোগ অনেক অফিসযাত্রীর।

হিমেল ঝড়ের সময় প্রবল বাতাসে ঢাকার অনেক স্থানে গাছের ডালপালা ভেঙে রাস্তার ওপর পড়ে গেছে। এতেও যানবাহন ও মানুষের চলাফেরায় বিঘœ সৃষ্টি হয়। পুরান ঢাকার জজ কোর্টের সামনে, ভিক্টোরিয়া পার্ক, সূত্রাপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় গাছের ডাল ভেঙে এই সমস্যা সৃষ্টি হতে দেখা গেছে।

বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে সকালে স্কুলে যাওয়ার পথেও বিপদে পড়েন অনেক শিক্ষার্থী। একদিকে যানবাহনের অভাব, অন্যদিকে বেশি ভাড়ার কারণে অনেক অভিভাবক সমস্যায় পড়েন সন্তানকে স্কুলে নিয়ে যেতে। তবে কিছু স্কুল সকালে বৃষ্টি দেখে ফোন জানিয়ে দিয়েছে যে, আজ বন্ধ থাকবে। এতে কিছু শিক্ষার্থী ভোগান্তি থেকে বেঁচে যান।

এদিকে রাজধানীর বৃষ্টির পানি দ্রুত নিষ্কাশনে কাজ করেছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের কর্মচারীরা। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় কোথাও জলাবদ্ধতা হলে বা পানি জমে থাকলে হটলাইনে যোগাযোগ করার (১৬১০৬) আহ্বান জানিয়েছে। ঢাকা দক্ষিন সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৯১টি দল (প্রতি দলে পাঁচ জন কর্মী) মাঠ পর্যায়ে কাজ করেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ।

দুর্ভোগে চট্টগ্রাম নগরবাসী
ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে একটানা ভারী বর্ষণ, তার সঙ্গে জোয়ারের পানি যোগ হয়ে তলিয়ে যায় চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন এলাকা। ঝড়ের ঝাঁপটা খুব একটা না লাগলেও রোববার রাত থেকে তুমুল বৃষ্টি শুরু হয় বন্দরনগরী চট্টগ্রামে, যা অব্যাহত ছিল সোমবার সারাদিন। ভোর থেকে শহরের বিভিন্ন সড়কে পানি উঠতে শুরু করে। ফলে পথে বের হয়ে ভোগান্তিতে পড়েন নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ। বিভিন্ন সড়কে গোড়ালি থেকে কোমর সমান পানি ঠেলে তাদের যাতায়াত করতে হচ্ছে অনেক মানুষকে। ঢাকার মতো চট্টগ্রামেও ২৪ ঘণ্টায় দেড় শতাধিক মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। রোববার রাতে বৃষ্টি শুরুর পর মধ্যরাতে নগরীর কাতালগঞ্জ এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এরপর সোমবার সকাল থেকে নগরীর প্রবর্তক মোড়, চকবাজার, ডিসি রোড, দুই নম্বর গেইটসহ বিভিন্ন এলাকা তলিয়ে যায়। সোমবার দুপুরের মধ্যেই বহদ্দারহাট মোড়, মুরাদপুর, চান্দগাঁও আবাসিক এলাকা, কাপাসগোলা, বাকলিয়া ও হালিশহরের বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে প্রবর্তক মোড়ের অবস্থা বেশি খারাপ দেখা গেছে। এই সড়কে কোমর সমান পানি ঠেলে রিকশা চলেছে, পানির মধ্যেই হেঁটে চলাচলা করেছেন অনেক পথচারী।

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ভারী বৃষ্টিতে ডুবে গেছে চট্টগ্রাম নগরীর বেশিরভাগ এলাকা। ডুবেছে সড়ক, অলি-গলি। জলাবদ্ধতার কারণে সড়কে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক যানজট। পানি ঢুকেছে বাসাবাড়ি, দোকানসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। এতে নগরীর বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

প্রবর্তক মোড়ে অফিসযাত্রী আনিসুর রহমান জানান, সকালে অফিসে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বেরিয়ে দেখি আমাদের এলাকায় পানি। অনেক কষ্টে তা পেরিয়ে সামনের সড়কে আসি। সেখানেও পানি। অন্য এলাকাতেও রাস্তা ডুবেছে। রিকশায় আর হেঁটে অনেক কষ্টে দুই ঘণ্টায় কোনো রকমে অফিসে পৌঁছেছি।

মুরাদপুরের এক বাসিন্দা মিজানুল আলম তার পথ চলার কষ্ট তুলে ধরে বলেন, সকালে বাসা থেকে বের হতে গিয়ে দেখি সড়ক প্রায় হাঁটু সমনা পানিতে ডুবে আছে। এরপর আর বাসা থেকে বের হতে পারিনি।

এদিকে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাবিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মোবারক আলী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, নগরীর বিভিন্ন এলাকা জলমগ্ন হয়ে গেছে। মোহাম্মদপুর, নাজিরপাড়া, বিবিরহাট, জিইসি, ২ নম্বর গেইট, শুলকবহর, চকবাজার, চান্দগাঁও এবং বাকলিয়া এলাকায় জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে।

ভারী বর্ষণে ড্রেন উপচে পানি সড়কের উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে জানিয়ে মোবারক আলী বলেন, যেমন মুরাদপুর এলাকায় কিন্তু ড্রেনে কোনো প্রতিবন্ধকতা নেই। নালা ভরে পানি সড়কের উপর দিয়ে যাচ্ছে। ধারণক্ষমতার বেশি বৃষ্টি হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে অতি ভারী বৃষ্টিতে পাহাড় ধসের আশঙ্কায় নগরীর বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে বসবাসকারী অনেক বাসিন্দাকে রোববার রাতে সরিয়ে নিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন।

মন্ত্রীর বাসার লিফটে কর্মকর্তাকে ‘মারধর’, শাহবাগ থানায় মামলা

ছবি

ঈদযাত্রায় সড়কে যানবাহনের চাপ, ধীরগতি

ছবি

পুলিশকে স্বাধীনভাবে তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে : ডিএমপি

ছবি

কোরবানির বর্জ্য অপসারণে প্রস্তুত ঢাকার দুই সিটি

ছবি

বসুন্ধরায় এসি বিস্ফোরণ: দগ্ধ চারজনের তিনজনেরই মারা গেছেন

ছবি

ফাঁকা বাজারেও একই দাম

ছবি

কোরবানির পশুতে ‘ভরে’ গেছে হাট, ‘জমেনি’ বিক্রি

ছবি

মেট্রোরেলে ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১

ছবি

ঈদের পর নতুন সূচিতে চলবে মেট্রোরেল

ছবি

বসুন্ধরায় এসি বিস্ফোরণ: তিন বছরের এক শিশুর মৃত্যু

ছবি

দোষী সাব্যস্ত হলে ড. ইউনূসের যাবজ্জীবনও হতে পারে : দুদক আইনজীবী

ছবি

কোরবানির পশুর বর্জ্য ৬ ঘণ্টায় সরাবে ডিএনিসিসি : মেয়র

ছবি

২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ : মেয়র তাপস

ছবি

গণমাধ্যমের ভূমিকা বিষয়ক সেমিনারে ‘নেই’ সাংবাদিক

ছবি

দুর্ঘটনা ও বিমানবন্দরে প্রবেশে গাড়ির চাপ, সড়কে তীব্র যানজট

ছবি

প্রতিরক্ষা খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা কর‌তে চায় ইইউ

ছবি

মনিপুরের মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা দলের ওপর বিদ্রোহীদের হামলা

রাজধানীতে মাদকসহ গ্রেপ্তার ৩২

ছবি

পুতিন ইউক্রেনে থেমে থাকবেন না, হুঁশিয়ারি বাইডেনের

ছবি

স্থগিত ১৯ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে

ছবি

ঢাকার ফিলিস্তিন দূতাবাসের সামনে সহকর্মীর গুলিতে পুলিশ নিহত

ছবি

কোরবানি সামনে রেখে রাজধানীতে সক্রিয় জাল নোট চক্র

ছবি

পানি ও জ্বালানির মূল্য সমন্বয়ের আহবান

ছবি

হানিফ ফ্লাইওভারে মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যুবক নিহত

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২২

ছবি

র‌্যাবের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব নিলেন হারুন

ছবি

স্থানান্তরিত হচ্ছে শাহবাগ থানা

ছবি

নগর দরিদ্রদের জন্য রাজউকের কোন পরিকল্পনা নেই : অধ্যাপক নজরুল ইসলাম

ছবি

ভাটারায় জাপান প্রবাসী যুবকের মরদেহ উদ্ধার

ছবি

এমপি আনার হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলকে চিঠি দিয়েছে পুলিশ

ছবি

গার্মেন্টস শ্রমিকদের টিসিবির কার্ড দেয়ার সুপারিশ

ছবি

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের শেয়ার হস্তান্তরে স্থিতাবস্থার মেয়াদ বাড়লো

ছবি

বাড্ডায় গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, নিহত ১

ছবি

শাহজালাল বিমানবন্দরে ২ কেজি সোনা উদ্ধার, কেবিন ক্রু গ্রেপ্তার

ঢাকার ১৫ শতাংশ বাড়িতে পাওয়া গেছে এডিস মশার লার্ভা

ছবি

সাবেক আইজিপি বেনজীরের আরও সম্পদ জব্দের নির্দেশ: আদালত

tab

নগর-মহানগর

ঢাকা, চট্টগ্রামে ঝড়-বৃষ্টি-জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, ঢাকা ও চট্টগ্রাম ব্যুরো

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে দিনভর বৃষ্টিতে ঢাকা-চট্টগ্রামের অনেক রাস্তা তলিয়ে যায়। এ রকম হাঁটুপানি ছিল দিনভরই-সংবাদ

সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

রিমেলের প্রভাবে কখনো মুষলধার, কখনো হালকা বৃষ্টি আর ঝোড়ো বাতাসের কারণে সোমবার (২৭ মে) সারাদিন চরম দুর্ভোগে কেটেছে ঢাকা ও চট্টগ্রামের জনজীবন। একদিকে বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা, অন্যদিকে যানবাহনের অভাবে সাধারণ জীবনযাত্রা থমকে গিয়েছিল।

ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণ এই দুই নগরীতে সোমবার সকাল থেকে সারাদিন দমকা হাওয়ার সঙ্গে ভারী বৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় পানি জমে মানুষের চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। বৃষ্টির জন্য অনেক বাজার-দোকান খুলতে পারেননি দোকানিরা।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ২৬ মে রোববার রাতে ঘূর্ণিঝড় উপকূলে আঘাত হানার পর সেটি শক্তি হারিয়ে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এর প্রভাবেই ঢাকায় দমকা হাওয়া ও ভারী বৃষ্টি হয়েছে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঢাকায় প্রায় ১৫০ মিলিমিটারের মতো বৃষ্টি হয়েছে। চলতি মৌসুমে ঢাকায় এটাই সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সোমবার ঢাকায় ভোর থেকে সারাদিন দমকা হাওয়া বয়ে যায়। আজ পর্যন্ত থেমে থেমে ঝোড়ো বাতাস বয়ে যাবে বলে আবহাওয়াবিদেরা জানিয়েছেন।

এই ঝড়ের প্রভাবে সারাদেশেই বৃষ্টি হচ্ছে। বিকেল পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে ১৩৮ মিলিমিটার।

বৃষ্টিতে রাজধানী ঢাকার মূল সড়কসহ অনেক অলিগলি হাঁটুপানিতে তলিয়ে যায়। বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। এতে ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ।

পুরনো ঢাকার বংশাল, ধোলাইখাল, নিউমার্কেটসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় অলিগলিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এছাড়া মিরপুরের কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, সায়েদাবাদ, শনিরআখড়া, মোহাম্মদপুর এলাকার বিভিন্ন সড়ক ও অলিগলিতে জলাবদ্ধতার ফলে সড়ক ডুবে গিয়ে সাধারণ মানুষের চলাচলে অসুবিধা সৃষ্টি হয়। একই কারণে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। অনেক জায়গায় দোকানপাট বন্ধ করে অলস সময় পার করেন বিক্রেতারা।

পুরনো ঢাকার বাসিন্দা আবদুস সাত্তার জলবদ্ধতায় পথ চলতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘বর্ষা এলেই সিটি করপোরেশনের মনে পড়ে তাদের উন্নয়ন কাজ করতে হবে। সারা বছর খবর থাকে না। এই এলাকার ড্রেনের কাজ চলছে। এ কারণে পানি কোথাও যেতে পারছে না। তাই অল্প বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা তৈরি হয়ে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে মানুষজনকে।

ঢাকার বিভিন্ন এলাকার মানুষে সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকার এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে জলাবদ্ধতার জন্য ভোগান্তি হয়নি। আগে একাধিকবার বৃষ্টি হওয়ার পরই দেখা গেছে নিউমার্কেট এলাকায় পানি জমে যায়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

এক দোকানদার তার দোকানের সামনে পানি জমে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, এটা কোনো নতুন চিত্র না। বৃষ্টির পানি জমে রাস্তায় হাঁটার অবস্থা নেই। প্রতি বছর এলাকায় জলবদ্ধতা হয়, অথচ এর প্রতিকারের কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় না। আর ভোগান্তি পোহাতে হয় আমাদের।

পল্টনে কথা হয় মতিঝিলগামী এক যাত্রীর সঙ্গে। তিনি মীরপুর থেকে কর্মক্ষেত্রে আসার সময় মেট্রোরেল বন্ধ পাওয়ায় বাসে চড়েই এসেছেন। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বৃষ্টির জন্য সড়কে যানবাহনের সংখ্যা কম। বাসে ভিড়ের জন্য উঠতে না পেরে সিএনজিতে আসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হই। কারণ সিএনজিচালক এত বেশি ভাড়া হাকেন যে তাতে আমার পকেটের টাকায় হবে না। ফলে বাস উঠতে অপেক্ষা করতে হয়েছে এক ঘণ্টা।

শুধু বাস যাত্রী বা দোকানদারই নয় যারা এক স্থান থেকে হেঁটে সামান্য দূরে যেতে চেষ্টা করেছেন তারাও ব্যর্থ হন বিভিন্ন জায়গায় জলাবদ্ধতার কারণে। কোথাও কোথাও প্রায় হাঁটু সমান পানি জমে যেতে দেখা যায়। পায়ের জুতা ভিজিয়ে পথ চলতে হয়েছে অনেক পথচারীকে। জলাবদ্ধতার কারণে অনেক ড্রেনের ময়লা-আবর্জনা সব রাস্তায় উঠে এসেছে। এতে চারদিকে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এসব কারণে ফুটপাথ দিয়ে অনেকের হাঁটাও সম্ভব হয় না।

হেঁটে যাওয়া সম্ভব না হওয়ার বিষয়টি টের পেয়ে স্বল্প দূরতে যেতে অনেক রিকশাচলাক দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করে অভিযোগ অনেক অফিসযাত্রীর।

হিমেল ঝড়ের সময় প্রবল বাতাসে ঢাকার অনেক স্থানে গাছের ডালপালা ভেঙে রাস্তার ওপর পড়ে গেছে। এতেও যানবাহন ও মানুষের চলাফেরায় বিঘœ সৃষ্টি হয়। পুরান ঢাকার জজ কোর্টের সামনে, ভিক্টোরিয়া পার্ক, সূত্রাপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় গাছের ডাল ভেঙে এই সমস্যা সৃষ্টি হতে দেখা গেছে।

বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে সকালে স্কুলে যাওয়ার পথেও বিপদে পড়েন অনেক শিক্ষার্থী। একদিকে যানবাহনের অভাব, অন্যদিকে বেশি ভাড়ার কারণে অনেক অভিভাবক সমস্যায় পড়েন সন্তানকে স্কুলে নিয়ে যেতে। তবে কিছু স্কুল সকালে বৃষ্টি দেখে ফোন জানিয়ে দিয়েছে যে, আজ বন্ধ থাকবে। এতে কিছু শিক্ষার্থী ভোগান্তি থেকে বেঁচে যান।

এদিকে রাজধানীর বৃষ্টির পানি দ্রুত নিষ্কাশনে কাজ করেছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের কর্মচারীরা। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় কোথাও জলাবদ্ধতা হলে বা পানি জমে থাকলে হটলাইনে যোগাযোগ করার (১৬১০৬) আহ্বান জানিয়েছে। ঢাকা দক্ষিন সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৯১টি দল (প্রতি দলে পাঁচ জন কর্মী) মাঠ পর্যায়ে কাজ করেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ।

দুর্ভোগে চট্টগ্রাম নগরবাসী
ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে একটানা ভারী বর্ষণ, তার সঙ্গে জোয়ারের পানি যোগ হয়ে তলিয়ে যায় চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন এলাকা। ঝড়ের ঝাঁপটা খুব একটা না লাগলেও রোববার রাত থেকে তুমুল বৃষ্টি শুরু হয় বন্দরনগরী চট্টগ্রামে, যা অব্যাহত ছিল সোমবার সারাদিন। ভোর থেকে শহরের বিভিন্ন সড়কে পানি উঠতে শুরু করে। ফলে পথে বের হয়ে ভোগান্তিতে পড়েন নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ। বিভিন্ন সড়কে গোড়ালি থেকে কোমর সমান পানি ঠেলে তাদের যাতায়াত করতে হচ্ছে অনেক মানুষকে। ঢাকার মতো চট্টগ্রামেও ২৪ ঘণ্টায় দেড় শতাধিক মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। রোববার রাতে বৃষ্টি শুরুর পর মধ্যরাতে নগরীর কাতালগঞ্জ এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এরপর সোমবার সকাল থেকে নগরীর প্রবর্তক মোড়, চকবাজার, ডিসি রোড, দুই নম্বর গেইটসহ বিভিন্ন এলাকা তলিয়ে যায়। সোমবার দুপুরের মধ্যেই বহদ্দারহাট মোড়, মুরাদপুর, চান্দগাঁও আবাসিক এলাকা, কাপাসগোলা, বাকলিয়া ও হালিশহরের বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে প্রবর্তক মোড়ের অবস্থা বেশি খারাপ দেখা গেছে। এই সড়কে কোমর সমান পানি ঠেলে রিকশা চলেছে, পানির মধ্যেই হেঁটে চলাচলা করেছেন অনেক পথচারী।

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ভারী বৃষ্টিতে ডুবে গেছে চট্টগ্রাম নগরীর বেশিরভাগ এলাকা। ডুবেছে সড়ক, অলি-গলি। জলাবদ্ধতার কারণে সড়কে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক যানজট। পানি ঢুকেছে বাসাবাড়ি, দোকানসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। এতে নগরীর বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

প্রবর্তক মোড়ে অফিসযাত্রী আনিসুর রহমান জানান, সকালে অফিসে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বেরিয়ে দেখি আমাদের এলাকায় পানি। অনেক কষ্টে তা পেরিয়ে সামনের সড়কে আসি। সেখানেও পানি। অন্য এলাকাতেও রাস্তা ডুবেছে। রিকশায় আর হেঁটে অনেক কষ্টে দুই ঘণ্টায় কোনো রকমে অফিসে পৌঁছেছি।

মুরাদপুরের এক বাসিন্দা মিজানুল আলম তার পথ চলার কষ্ট তুলে ধরে বলেন, সকালে বাসা থেকে বের হতে গিয়ে দেখি সড়ক প্রায় হাঁটু সমনা পানিতে ডুবে আছে। এরপর আর বাসা থেকে বের হতে পারিনি।

এদিকে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাবিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মোবারক আলী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, নগরীর বিভিন্ন এলাকা জলমগ্ন হয়ে গেছে। মোহাম্মদপুর, নাজিরপাড়া, বিবিরহাট, জিইসি, ২ নম্বর গেইট, শুলকবহর, চকবাজার, চান্দগাঁও এবং বাকলিয়া এলাকায় জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে।

ভারী বর্ষণে ড্রেন উপচে পানি সড়কের উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে জানিয়ে মোবারক আলী বলেন, যেমন মুরাদপুর এলাকায় কিন্তু ড্রেনে কোনো প্রতিবন্ধকতা নেই। নালা ভরে পানি সড়কের উপর দিয়ে যাচ্ছে। ধারণক্ষমতার বেশি বৃষ্টি হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে অতি ভারী বৃষ্টিতে পাহাড় ধসের আশঙ্কায় নগরীর বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে বসবাসকারী অনেক বাসিন্দাকে রোববার রাতে সরিয়ে নিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন।

back to top