alt

নগর-মহানগর

ফাঁকা বাজারেও একই দাম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

ঈদের ছুটিতে রাজধানী থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন পথে লাখ লাখ মানুষ প্রিয়জনের টানে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছেন। ঢাকাও কয়েকদিনে অনেকটা ফাঁকা। তারপরও রাজধানির বাজারগুলোতে নিত্যপণ্যের দামে প্রভাব পড়েনি। ঈদকে সামনে রেখে বেড়েছে চাল-মসুর ডাল-সয়াবিনতেল-ব্রয়লার মুরগি-ডিম, পেঁয়াজ-আদা-রসুন-ধনে-দারুচিনি-এলাচ-তেজপাতা, শসা-গাজর-টমেটোর দাম। বিক্রেতারাও বলছেন দাম বৃদ্ধির কারণে বিক্রি কমেছে, সদাই কিনছেন অল্প।

শুক্রবার রাজধানীর কয়েক বাজার পর্যবেক্ষণ করে এমন চিত্রই পাওয়া গেছে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ঈদকে সামনে রেখে আরেক দফা বেড়েছে দেশি আদার দাম। কেজিতে ৫০ থেকে ৭০ টাকা বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩২০ টাকায়। কাঁচা মরিচের কেজি ২০০ টাকা ছেড়েছে। দেশি পেঁয়াজের কেজি শতকের ঘর ছুঁই ছুঁই করছে, বাজার ভেদে বিক্রি ৯০ থেকে ৯৫ টাকায়। দেশি রসুনও বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে ২৫০ টাকায়।

শ্যামলী কাঁচা বাজারের বিক্রেতা কামাল উদ্দিন বলেন, ‘তিন দিন আগে দেশি আদা বিক্রি করেছিলাম কেজি ২৫০ থেকে ২৭০ টাকায়। সেই আদা আজ (গতকাল) ৩২০ টাকা বিক্রি করছি।’

গরম মসলার বাজার এমনিতেই গরম। তার ওপর খুচরা বাজারে খুচরায় ২০ থেকে ১০০ গ্রাম মসলা কিনতে আরও বাড়তি টাকা গুনে ঘামতে হচ্ছে ক্রেতাদের। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খুচরায় ৫০ গ্রাম সাদা এলাচ বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকায় আর ১০০ গ্রাম জিরা বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। অনুরূপ অন্যান্য মসলার ক্ষেত্রেও।

কারওয়ান বাজারেই ভালোমানের সাদা এলাচ বিক্রি হচ্ছে কেজি ৪ হাজার ২০০ টাকায়। ওই বাজারে মানভেদে কালো এলাচ কেজি ৩ হাজার ২০০ থেকে ৩ হাজার ৪শ’ টাকা, জিরা কেজি ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, লং ১৬৫০ থেকে ১৮০০ টাকা, দারুচিনি, ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা, গোল মরিচ ১৩৫০ থেকে ১৪০০ টাকায়।

গরম মসলার দরদাম ও বেচা বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে রাজধানী কারওয়ান বাজারের মেসার্স সোহাগ জেনারেল স্টোরের স্বত্বাধিকারী মো. সোহাগ সংবাদকে বলেন, ‘কাস্টমার তেমন নাই এর থেকে রোজার ঈদে ভালো বেচাকেনা হইছে। মসলার দাম বেশি, কাস্টমার আসি বলে ২০ গ্রাম দেন, ২৫ গ্রাম দেন, ২০ টাকার দেন, ৫০ টাকার দেন, এটা কিছু হইলো।’

‘একমাস আগেও আমরা সাদা এলাচ কিনেছিলাম কেজি ২৩৫০ টাকায়। এখন একই এলাচ কিনতেই পড়ছে কেজি ৩৪০০ টাকায়,’ বলে জানান সোহাগ।

এক প্রশ্নের জবাবে একই বাজারের মুদি দোকান মায়ের দোয়া স্টোরের বিক্রয় কর্মী মো. বাবলু মিয়া সংবাদকে বলেন, ‘গত বছর কোরবানির ঈদের থেকে বেচাবিক্রি কম। দাম আর বাড়বো কোথা থাকি, যা বাড়ার তা তো একমাস আগেই বাড়ছে।’

মসলার দাম বৃদ্ধির চিত্র সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) গতকালের বাজারদরের তালিকা পাওয়া যায়। এতে দেখা যায়, আদা, রসুন, পেঁয়াজ, ধনে, দারুচিনি, এলাচ ও তেজপাতার দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।

এছাড়া চাল সয়াবিন তেল, মসুর ডাল ব্রয়লার মুরগি ও ডিমের দামও বেড়েছে। তবে আটা হলুদ লবঙ্গের দাম কমেছে বলেও জানায় সরকারি সংস্থাটি ।

বাজারে বেড়েছে ফার্মের মুরগির বাদামি ডিমের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে হালিতে ৫ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে খুচরা বাজারে এক হালি ডিম বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। আর ১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৭০ টাকায়।

বাড়তি দামে বিক্রি হয়েছে গরুর মাংস। বাজারভেদে কেজি ৭৮০ থেকে ৮০০ টাকায়। এছাড়া খাসির মাংস ১ হাজার ২০০ টাকা। সোনালি মুরগি ৩০০ ৬০ থেকে ৭০ টাকা আর ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২২০ টাকায়।

কারওয়ান বাজারের মাংস বিক্রেতা হাফিজ মুহাম্মদ টিপু সুলতান সংবাদকে বলেন, ‘আমার জীবনেও এত কম বেচাবিক্রি দেখিনি। আগের কোরবানির ঈদে ১০-১২ দিন ধুম-ধারাক্কা বেচাকেনা করতাম ।’

‘আগামীকাল (আজ), পরশু বেচা বিক্রি ভালো হতে পারে,’ আশা টিপু সুলতানের।

ঈদকে সামনে রেখে বেড়েছে শশা-টমেটো-গাজরের দাম। অন্যান্য সবজিও বাড়তি দামে স্থির। প্রায় সবজির কেজি কেজি ৫০ টাকার ওপর।

কারওয়ান বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. আল-আমিন সংবাদকে বলেন, ‘শশা, টমেটো, গাজরের দাম বাড়ছে। হাইব্রিড শশা কেজি ১০০ টাকা দিনাজপুরের টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা, আমদানি গাজর ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা আর কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা ।’

‘এ কয়দিন এসব পণ্যের দাম আরও বাড়তে থাকবে,’ বলে জানান আল-আমিন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) মূল্যস্ফীতির সর্বশেষ তথ্যমতে, দেশে সার্বিক মূল্যস্ফীতি চলতি বছরের মে মাসে ৯ দশমিক ৮৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এপ্রিলে এটি ছিল ৯ দশমিক ৭৪ শতাংশ। আর খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ১০ দশমিক ৭৬ শতাংশে পোঁছেছে। এপ্রিলে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ছিলো ১০ দশমিক ২২ শতাংশ।

২০২২ সালের জুন থেকে ২০২৩ সালের মে পর্যন্ত ১ বছরে গড় মূল্যস্ফীতি ছিল ৮ দশমিক ৮৪ শতাংশ। ২০২৩-২৪ সালের একই সময়ে এটি বড় লাফ দিয়ে গড়ে ৯ দশমিক ৭৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

ছবি

স্বাভাবিকতার পথে নগরজীবন

ছবি

কোটা সংস্কার আন্দোলনের ‘শাটডাউন’ কর্মসূচিতে রামপুরায় বিটিভি ভবনে অগ্নিকাণ্ড

ছবি

বাড্ডায় কোটা সংস্কার আন্দোলনে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ, একজন নিহত

ছবি

মেট্রোরেলের মিরপুর অংশে চলাচল বন্ধ

ছবি

বাড্ডায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর থেকে পুলিশের রাবার বুলেট ও ছররা গুলিতে আহত অনেকে

ছবি

উত্তাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, যান চলাচল বন্ধ

ছবি

মিরপুর-১০ রণক্ষেত্র, আ.লীগের সমাবেশ পণ্ড

ছবি

রামপুরা পুলিশ বক্সে আগুন, সড়কে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

ছবি

সংঘর্ষে রণক্ষেত্র যাত্রাবাড়ী-শনির আখড়া

ছবি

সহিংসতা পরিহার করুনঃ পুলিশ সদর দপ্তর

ছবি

ঢাকার শনির আখড়ায় পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগ, শিশুসহ ৬ জন গুলিবিদ্ধ

ছবি

ঢাকায় কোটা সংঘর্ষে নিহত ২ঃ পুলিশ বলছে দায় আন্দোলনকারীদের

ছবি

আজ গায়েবানা জানাজা ও কফিন মিছিল কর্মসূচি

ছবি

সায়েন্সল্যাবে কলেজ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

ছবি

"তাণ্ডবের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পুলিশের মোতায়েন"

ছবি

"কোটা আন্দোলন: ঢাকা মেডিকেলের সামনে সংঘর্ষ ও হাত বোমা বিস্ফোরণ"

রাজধানীতে গ্যাস সংকট, চুলা জ্বলে না বাসাবাড়িতে

ছবি

ডিএনসিসির চিঠি, ‘আতঙ্কে’ গরুর খামারিরা

ছবি

চার দফা দাবিতে রাজধানীতে হরিজন সম্প্রদায়ের বিক্ষোভ সমাবেশ

ছবি

প্রবল বর্ষণে রাজধানীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে চার শ্রমজীবীর মৃত্যু

৫ বছর পড়ে আছে ৩৮ কোটির সিজেএম ভবন

ছবি

কোটাবিরোধী আন্দোলন: শিক্ষার্থীদের নামে পুলিশের মামলা

ছবি

সকাল থেকে ঝুম বৃষ্টি, ভাসছে ঢাকা

ছবি

বেবিচক এর মাঠ পর্যায়ের কার্যালয়সমূহের সাথে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর অনু্ষ্ঠান

ছবি

‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগানে উত্তাল শাহবাগ, পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে দিল শিক্ষার্থীরা

ছবি

আত্মসাত মামলা: ইউনূসের আবেদনের রায় ২১ জুলাই

ছবি

এসি নষ্ট, আকাশে ৩৭ মিনিট উড়ে ঢাকায় ফিরল বিমান

ছবি

কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে হরিজনদের ওপর হামলার অভিযোগ

ছবি

বাংলাদেশ এগ্রিকালচার রিপোর্টার্স ফোরামের নেতৃত্বে সবুজ-কাওসার

ছবি

বিসিএস ও মেডিকেল প্রশ্নফাঁসকারীদের বিচার চায় জবি শিক্ষার্থীরা

ছবি

কোটা : ঢাবির পর এবার জবি শিক্ষার্থীদের জিরো পয়েন্ট অবরোধ

ছবি

বাংলা ব্লকেডে’ অচল সড়ক, মেট্রোতে উপচেপড়া ভিড়

ছবি

কোটা : স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ আপিল বিভাগের

ছবি

আজও ‘বাংলা ব্লকেড’, তীব্র যানজটের মুখে পড়বে নগরবাসী

ছবি

সাহারা খাতুনের রাজনীতি অনুকরণীয়: মতিয়া চৌধুরী

ছবি

আড়াই ঘন্টা পর জিরো পয়েন্ট ছাড়লো জবির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা

tab

নগর-মহানগর

ফাঁকা বাজারেও একই দাম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

ঈদের ছুটিতে রাজধানী থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন পথে লাখ লাখ মানুষ প্রিয়জনের টানে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছেন। ঢাকাও কয়েকদিনে অনেকটা ফাঁকা। তারপরও রাজধানির বাজারগুলোতে নিত্যপণ্যের দামে প্রভাব পড়েনি। ঈদকে সামনে রেখে বেড়েছে চাল-মসুর ডাল-সয়াবিনতেল-ব্রয়লার মুরগি-ডিম, পেঁয়াজ-আদা-রসুন-ধনে-দারুচিনি-এলাচ-তেজপাতা, শসা-গাজর-টমেটোর দাম। বিক্রেতারাও বলছেন দাম বৃদ্ধির কারণে বিক্রি কমেছে, সদাই কিনছেন অল্প।

শুক্রবার রাজধানীর কয়েক বাজার পর্যবেক্ষণ করে এমন চিত্রই পাওয়া গেছে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ঈদকে সামনে রেখে আরেক দফা বেড়েছে দেশি আদার দাম। কেজিতে ৫০ থেকে ৭০ টাকা বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩২০ টাকায়। কাঁচা মরিচের কেজি ২০০ টাকা ছেড়েছে। দেশি পেঁয়াজের কেজি শতকের ঘর ছুঁই ছুঁই করছে, বাজার ভেদে বিক্রি ৯০ থেকে ৯৫ টাকায়। দেশি রসুনও বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে ২৫০ টাকায়।

শ্যামলী কাঁচা বাজারের বিক্রেতা কামাল উদ্দিন বলেন, ‘তিন দিন আগে দেশি আদা বিক্রি করেছিলাম কেজি ২৫০ থেকে ২৭০ টাকায়। সেই আদা আজ (গতকাল) ৩২০ টাকা বিক্রি করছি।’

গরম মসলার বাজার এমনিতেই গরম। তার ওপর খুচরা বাজারে খুচরায় ২০ থেকে ১০০ গ্রাম মসলা কিনতে আরও বাড়তি টাকা গুনে ঘামতে হচ্ছে ক্রেতাদের। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খুচরায় ৫০ গ্রাম সাদা এলাচ বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকায় আর ১০০ গ্রাম জিরা বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। অনুরূপ অন্যান্য মসলার ক্ষেত্রেও।

কারওয়ান বাজারেই ভালোমানের সাদা এলাচ বিক্রি হচ্ছে কেজি ৪ হাজার ২০০ টাকায়। ওই বাজারে মানভেদে কালো এলাচ কেজি ৩ হাজার ২০০ থেকে ৩ হাজার ৪শ’ টাকা, জিরা কেজি ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, লং ১৬৫০ থেকে ১৮০০ টাকা, দারুচিনি, ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা, গোল মরিচ ১৩৫০ থেকে ১৪০০ টাকায়।

গরম মসলার দরদাম ও বেচা বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে রাজধানী কারওয়ান বাজারের মেসার্স সোহাগ জেনারেল স্টোরের স্বত্বাধিকারী মো. সোহাগ সংবাদকে বলেন, ‘কাস্টমার তেমন নাই এর থেকে রোজার ঈদে ভালো বেচাকেনা হইছে। মসলার দাম বেশি, কাস্টমার আসি বলে ২০ গ্রাম দেন, ২৫ গ্রাম দেন, ২০ টাকার দেন, ৫০ টাকার দেন, এটা কিছু হইলো।’

‘একমাস আগেও আমরা সাদা এলাচ কিনেছিলাম কেজি ২৩৫০ টাকায়। এখন একই এলাচ কিনতেই পড়ছে কেজি ৩৪০০ টাকায়,’ বলে জানান সোহাগ।

এক প্রশ্নের জবাবে একই বাজারের মুদি দোকান মায়ের দোয়া স্টোরের বিক্রয় কর্মী মো. বাবলু মিয়া সংবাদকে বলেন, ‘গত বছর কোরবানির ঈদের থেকে বেচাবিক্রি কম। দাম আর বাড়বো কোথা থাকি, যা বাড়ার তা তো একমাস আগেই বাড়ছে।’

মসলার দাম বৃদ্ধির চিত্র সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) গতকালের বাজারদরের তালিকা পাওয়া যায়। এতে দেখা যায়, আদা, রসুন, পেঁয়াজ, ধনে, দারুচিনি, এলাচ ও তেজপাতার দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।

এছাড়া চাল সয়াবিন তেল, মসুর ডাল ব্রয়লার মুরগি ও ডিমের দামও বেড়েছে। তবে আটা হলুদ লবঙ্গের দাম কমেছে বলেও জানায় সরকারি সংস্থাটি ।

বাজারে বেড়েছে ফার্মের মুরগির বাদামি ডিমের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে হালিতে ৫ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে খুচরা বাজারে এক হালি ডিম বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। আর ১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৭০ টাকায়।

বাড়তি দামে বিক্রি হয়েছে গরুর মাংস। বাজারভেদে কেজি ৭৮০ থেকে ৮০০ টাকায়। এছাড়া খাসির মাংস ১ হাজার ২০০ টাকা। সোনালি মুরগি ৩০০ ৬০ থেকে ৭০ টাকা আর ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২২০ টাকায়।

কারওয়ান বাজারের মাংস বিক্রেতা হাফিজ মুহাম্মদ টিপু সুলতান সংবাদকে বলেন, ‘আমার জীবনেও এত কম বেচাবিক্রি দেখিনি। আগের কোরবানির ঈদে ১০-১২ দিন ধুম-ধারাক্কা বেচাকেনা করতাম ।’

‘আগামীকাল (আজ), পরশু বেচা বিক্রি ভালো হতে পারে,’ আশা টিপু সুলতানের।

ঈদকে সামনে রেখে বেড়েছে শশা-টমেটো-গাজরের দাম। অন্যান্য সবজিও বাড়তি দামে স্থির। প্রায় সবজির কেজি কেজি ৫০ টাকার ওপর।

কারওয়ান বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. আল-আমিন সংবাদকে বলেন, ‘শশা, টমেটো, গাজরের দাম বাড়ছে। হাইব্রিড শশা কেজি ১০০ টাকা দিনাজপুরের টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা, আমদানি গাজর ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা আর কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা ।’

‘এ কয়দিন এসব পণ্যের দাম আরও বাড়তে থাকবে,’ বলে জানান আল-আমিন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) মূল্যস্ফীতির সর্বশেষ তথ্যমতে, দেশে সার্বিক মূল্যস্ফীতি চলতি বছরের মে মাসে ৯ দশমিক ৮৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এপ্রিলে এটি ছিল ৯ দশমিক ৭৪ শতাংশ। আর খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ১০ দশমিক ৭৬ শতাংশে পোঁছেছে। এপ্রিলে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ছিলো ১০ দশমিক ২২ শতাংশ।

২০২২ সালের জুন থেকে ২০২৩ সালের মে পর্যন্ত ১ বছরে গড় মূল্যস্ফীতি ছিল ৮ দশমিক ৮৪ শতাংশ। ২০২৩-২৪ সালের একই সময়ে এটি বড় লাফ দিয়ে গড়ে ৯ দশমিক ৭৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

back to top