alt

নগর-মহানগর

ঈদযাত্রায় সড়কে যানবাহনের চাপ, ধীরগতি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : রোববার, ১৬ জুন ২০২৪

ঈদুল আজহাকে ঘিরে শেষ মুহূর্তের যাত্রা করছেন নগরবাসী। বিগত কয়েকদিনের মতো শনিবারও সড়ক, রেল ও নৌপথে ঘরমুখী মানুষের স্রোত অব্যাহত ছিল। অনেকে আবার ভোগান্তি এড়িয়ে দ্রুত গৌন্তব্যে পৌঁছাতে চেপে বসছেন উড়োজাহাজেও।

ঈদযাত্রায় কয়েকদিনের মতো শনিবারও সড়কে যানবাহনের চাপ ছিল তীব্র। এদিনও বিভিন্ন মহাসড়কে যানবাহন চলেছে ধীরগতিতে। কোথাও কোথাও দেখা দেয় যানজটও। তবে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বড় যানজটের খবর পাওয়া যায়নি। কাল ঈদ উপলক্ষে স্বাভাবিকভাবেই আজও সড়কে ঘরে ফেরা মানুষের ঢল থাকবে। এতে যানবাহনের অতিরিক্ত চাপে যানজটের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তবে আগেরদিনের মতো শনিবারও রেল ও লঞ্চের ঈদযাত্রা ছিল ‘স্বস্তির’। তুলনামূলকভাবে এদিন চাপ বেশি হলেও সব ট্রেন ‘নির্ধারিত সময়ে’ ছেড়ে যাওয়ায় যাত্রীদের ভোগান্তি পৌহাতে হয়নি বলে রেল কর্তৃপক্ষ বলছে। আর পর্যাপ্ত লঞ্চ থাকায় যাত্রীরা ‘আরামে’ যাত্রা শুরু করতে পারছেন বলে লঞ্চ সংশ্লিষ্টরা বলছেন।

ট্রেনের আগাম টিকেট দেয়ায় যাত্রার আগে টিকেটের জন্য ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে না যাত্রীদের। পর্যাপ্ত ব্যবস্থা থাকায় স্বাচ্ছন্দে যেতে পারছেন লঞ্চ যাত্রীরা। তবে সড়ক যাত্রায় টিকেটের জন্য ভোগান্তি পৌহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। আবার যারা টিকেট পাচ্ছেন তারা অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করছেন। যাত্রীরা বলছেন, টিকেট সংকট ও বেশি ভাড়ার কারণে অনেকে খোলা ট্রাক বা বিকল্প উপায়ে যাত্রা করতে বাধ্য হচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ থাকলেও গতকাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তেমন কোনো যানজট হয়নি। ফলে এই পথে স্বস্তিতে বাড়ি ফিরতে পারছেন যাত্রীরা। তবে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে ধীরগতি দেখা দেয়। বিশেষ করে এই মহাসড়কের কাঁচপুর সেতু থেকে ভুলতা চৌরাস্তা পর্যন্ত যানবাহনের চাপ ছিল বেশি। এই পথে আগেরদিন তীব্র যানজট দেখা দিলেও গতকাল দুপুরের পর পর্যন্ত যানজট ছিল না। তবে বিকেল থেকে যানজট তৈরির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কেও গতকাল যানবাহন ধীরগতিতে চললেও বিকেল পর্যন্ত যানজটের খবর পাওয়া যায়নি। তবে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে এদিন ভোর থেকেই বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপ্রান্ত থেকে টাঙ্গাইলের এলাঙ্গা পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটারজুড়ে থেমে থেমে যানজট শুরু হয়। মূলত প?রিবহ?নের চাপের কার?ণে আগেরদিন রাতে দীর্ঘ সময় বঙ্গবন্ধু সেতু?তে টোল আদায় বন্ধ রাখায় ওই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। তবে পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে কিছুটা জট তৈরি হলেও এই পথে যানজট নেই।

টিকেট সংকট, বাড়তি ভাড়া আদায়

গতকাল ভোর থেকেই রাজধানীর বাস টার্মিনালগুলোতে মানুষের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। দুপুরের পর মানুষের ভিড়ে তিল ধরার জায়গা ছিল না। একই অবস্থা ছিল বিকেলেও। তবে যত যাত্রী ভিড় জমাচ্ছেন, সেই তুলনায় যানবাহন ছিল না।

টার্মিনালের বিভিন্ন পরিবহন কাউন্টারগুলো ঘুরে দেখা যায়, আগাত টিকেট প্রত্যাশী যাত্রীরা টিকেটের জন্য দরদাম করছেন। যদিও দূরপাল্লার এসব পরিবহনের টিকেটের দাম নির্দিষ্ট থাকার কথা। বেশ কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করেন, তাদের কাছে টিকেটের প্রকৃত মূল্য থেকে ২০০-৩০০ টাকা বেশি হাঁকাচ্ছেন কাউন্টারের কর্মীরা। এতে অনেকে বাধ্য হয়ে টিকেট নিচ্ছেন আবার অনেকে বিকল্প পথ ধরছেন।

ঢাকা-ফরিদপুর রুটের সাউদিয়া পরিবহনের ভাড়া এখন ৮০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। যদিও অন্য সময়ে এই পরিবহনে ভাড়া ৫০০ টাকা। তাছাড়া এই গাড়ি সাতক্ষীরা পর্যন্ত যায়। কেউ ফরিদপুর পর্যন্ত যেতেও একই ভাড়া নিচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।

ঢাকা-বরিশাল রুটে পটুয়াখালী পর্যন্ত মিজান পরিবহনের অন্য সময় ভাড়া ৪৫০ থেকে ৬০০ টাকা। তবে এখন ৮০০ থেকে ১০০০ টাকায় টিকেট বিক্রি করছে। ঢাকা-লক্ষ্মীপুর রুটের ইকোনো বাসের আগের ভাড়া ৫০০ টাকা, যা এখন ৭৫০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। সায়েদাবাদে ইকোনো কাউন্টারের ম্যানেজার পিন্টু দাবি করেন, ঈদের কারণে ‘মালিকের নির্দেশনা অনুযায়ী’ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

গাবতলী বাস টার্মিনালে খুলনার যাত্রী আয়মান বলেন, তিনি এসে দেখেন খুলনার কোনো বাসেই সিট খালি নেই। ফলে যশোরগামী বাসের টিকেট খুঁজতে হয়। কিন্তু টিকেটের দাম ১৫০ থেকে ২০০ টাকা বেশি চাইছে কাউন্টারগুলো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কাউন্টার মাস্টার দাবি করেন, তারা কোনো বাড়তি ভাড়া নিচ্ছেন না। যেহেতু তাদের কাছে টিকেট নেই, তাই অনেক কষ্টে তার ব্যবস্থা করে দিলে যাত্রীরা খুশি হয়ে বকশিশ দিচ্ছেন।

ছবি

স্বাভাবিকতার পথে নগরজীবন

ছবি

কোটা সংস্কার আন্দোলনের ‘শাটডাউন’ কর্মসূচিতে রামপুরায় বিটিভি ভবনে অগ্নিকাণ্ড

ছবি

বাড্ডায় কোটা সংস্কার আন্দোলনে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ, একজন নিহত

ছবি

মেট্রোরেলের মিরপুর অংশে চলাচল বন্ধ

ছবি

বাড্ডায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর থেকে পুলিশের রাবার বুলেট ও ছররা গুলিতে আহত অনেকে

ছবি

উত্তাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, যান চলাচল বন্ধ

ছবি

মিরপুর-১০ রণক্ষেত্র, আ.লীগের সমাবেশ পণ্ড

ছবি

রামপুরা পুলিশ বক্সে আগুন, সড়কে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

ছবি

সংঘর্ষে রণক্ষেত্র যাত্রাবাড়ী-শনির আখড়া

ছবি

সহিংসতা পরিহার করুনঃ পুলিশ সদর দপ্তর

ছবি

ঢাকার শনির আখড়ায় পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগ, শিশুসহ ৬ জন গুলিবিদ্ধ

ছবি

ঢাকায় কোটা সংঘর্ষে নিহত ২ঃ পুলিশ বলছে দায় আন্দোলনকারীদের

ছবি

আজ গায়েবানা জানাজা ও কফিন মিছিল কর্মসূচি

ছবি

সায়েন্সল্যাবে কলেজ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

ছবি

"তাণ্ডবের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পুলিশের মোতায়েন"

ছবি

"কোটা আন্দোলন: ঢাকা মেডিকেলের সামনে সংঘর্ষ ও হাত বোমা বিস্ফোরণ"

রাজধানীতে গ্যাস সংকট, চুলা জ্বলে না বাসাবাড়িতে

ছবি

ডিএনসিসির চিঠি, ‘আতঙ্কে’ গরুর খামারিরা

ছবি

চার দফা দাবিতে রাজধানীতে হরিজন সম্প্রদায়ের বিক্ষোভ সমাবেশ

ছবি

প্রবল বর্ষণে রাজধানীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে চার শ্রমজীবীর মৃত্যু

৫ বছর পড়ে আছে ৩৮ কোটির সিজেএম ভবন

ছবি

কোটাবিরোধী আন্দোলন: শিক্ষার্থীদের নামে পুলিশের মামলা

ছবি

সকাল থেকে ঝুম বৃষ্টি, ভাসছে ঢাকা

ছবি

বেবিচক এর মাঠ পর্যায়ের কার্যালয়সমূহের সাথে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর অনু্ষ্ঠান

ছবি

‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগানে উত্তাল শাহবাগ, পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে দিল শিক্ষার্থীরা

ছবি

আত্মসাত মামলা: ইউনূসের আবেদনের রায় ২১ জুলাই

ছবি

এসি নষ্ট, আকাশে ৩৭ মিনিট উড়ে ঢাকায় ফিরল বিমান

ছবি

কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে হরিজনদের ওপর হামলার অভিযোগ

ছবি

বাংলাদেশ এগ্রিকালচার রিপোর্টার্স ফোরামের নেতৃত্বে সবুজ-কাওসার

ছবি

বিসিএস ও মেডিকেল প্রশ্নফাঁসকারীদের বিচার চায় জবি শিক্ষার্থীরা

ছবি

কোটা : ঢাবির পর এবার জবি শিক্ষার্থীদের জিরো পয়েন্ট অবরোধ

ছবি

বাংলা ব্লকেডে’ অচল সড়ক, মেট্রোতে উপচেপড়া ভিড়

ছবি

কোটা : স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ আপিল বিভাগের

ছবি

আজও ‘বাংলা ব্লকেড’, তীব্র যানজটের মুখে পড়বে নগরবাসী

ছবি

সাহারা খাতুনের রাজনীতি অনুকরণীয়: মতিয়া চৌধুরী

ছবি

আড়াই ঘন্টা পর জিরো পয়েন্ট ছাড়লো জবির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা

tab

নগর-মহানগর

ঈদযাত্রায় সড়কে যানবাহনের চাপ, ধীরগতি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

রোববার, ১৬ জুন ২০২৪

ঈদুল আজহাকে ঘিরে শেষ মুহূর্তের যাত্রা করছেন নগরবাসী। বিগত কয়েকদিনের মতো শনিবারও সড়ক, রেল ও নৌপথে ঘরমুখী মানুষের স্রোত অব্যাহত ছিল। অনেকে আবার ভোগান্তি এড়িয়ে দ্রুত গৌন্তব্যে পৌঁছাতে চেপে বসছেন উড়োজাহাজেও।

ঈদযাত্রায় কয়েকদিনের মতো শনিবারও সড়কে যানবাহনের চাপ ছিল তীব্র। এদিনও বিভিন্ন মহাসড়কে যানবাহন চলেছে ধীরগতিতে। কোথাও কোথাও দেখা দেয় যানজটও। তবে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বড় যানজটের খবর পাওয়া যায়নি। কাল ঈদ উপলক্ষে স্বাভাবিকভাবেই আজও সড়কে ঘরে ফেরা মানুষের ঢল থাকবে। এতে যানবাহনের অতিরিক্ত চাপে যানজটের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তবে আগেরদিনের মতো শনিবারও রেল ও লঞ্চের ঈদযাত্রা ছিল ‘স্বস্তির’। তুলনামূলকভাবে এদিন চাপ বেশি হলেও সব ট্রেন ‘নির্ধারিত সময়ে’ ছেড়ে যাওয়ায় যাত্রীদের ভোগান্তি পৌহাতে হয়নি বলে রেল কর্তৃপক্ষ বলছে। আর পর্যাপ্ত লঞ্চ থাকায় যাত্রীরা ‘আরামে’ যাত্রা শুরু করতে পারছেন বলে লঞ্চ সংশ্লিষ্টরা বলছেন।

ট্রেনের আগাম টিকেট দেয়ায় যাত্রার আগে টিকেটের জন্য ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে না যাত্রীদের। পর্যাপ্ত ব্যবস্থা থাকায় স্বাচ্ছন্দে যেতে পারছেন লঞ্চ যাত্রীরা। তবে সড়ক যাত্রায় টিকেটের জন্য ভোগান্তি পৌহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। আবার যারা টিকেট পাচ্ছেন তারা অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করছেন। যাত্রীরা বলছেন, টিকেট সংকট ও বেশি ভাড়ার কারণে অনেকে খোলা ট্রাক বা বিকল্প উপায়ে যাত্রা করতে বাধ্য হচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ থাকলেও গতকাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তেমন কোনো যানজট হয়নি। ফলে এই পথে স্বস্তিতে বাড়ি ফিরতে পারছেন যাত্রীরা। তবে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে ধীরগতি দেখা দেয়। বিশেষ করে এই মহাসড়কের কাঁচপুর সেতু থেকে ভুলতা চৌরাস্তা পর্যন্ত যানবাহনের চাপ ছিল বেশি। এই পথে আগেরদিন তীব্র যানজট দেখা দিলেও গতকাল দুপুরের পর পর্যন্ত যানজট ছিল না। তবে বিকেল থেকে যানজট তৈরির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কেও গতকাল যানবাহন ধীরগতিতে চললেও বিকেল পর্যন্ত যানজটের খবর পাওয়া যায়নি। তবে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে এদিন ভোর থেকেই বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপ্রান্ত থেকে টাঙ্গাইলের এলাঙ্গা পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটারজুড়ে থেমে থেমে যানজট শুরু হয়। মূলত প?রিবহ?নের চাপের কার?ণে আগেরদিন রাতে দীর্ঘ সময় বঙ্গবন্ধু সেতু?তে টোল আদায় বন্ধ রাখায় ওই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। তবে পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে কিছুটা জট তৈরি হলেও এই পথে যানজট নেই।

টিকেট সংকট, বাড়তি ভাড়া আদায়

গতকাল ভোর থেকেই রাজধানীর বাস টার্মিনালগুলোতে মানুষের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। দুপুরের পর মানুষের ভিড়ে তিল ধরার জায়গা ছিল না। একই অবস্থা ছিল বিকেলেও। তবে যত যাত্রী ভিড় জমাচ্ছেন, সেই তুলনায় যানবাহন ছিল না।

টার্মিনালের বিভিন্ন পরিবহন কাউন্টারগুলো ঘুরে দেখা যায়, আগাত টিকেট প্রত্যাশী যাত্রীরা টিকেটের জন্য দরদাম করছেন। যদিও দূরপাল্লার এসব পরিবহনের টিকেটের দাম নির্দিষ্ট থাকার কথা। বেশ কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করেন, তাদের কাছে টিকেটের প্রকৃত মূল্য থেকে ২০০-৩০০ টাকা বেশি হাঁকাচ্ছেন কাউন্টারের কর্মীরা। এতে অনেকে বাধ্য হয়ে টিকেট নিচ্ছেন আবার অনেকে বিকল্প পথ ধরছেন।

ঢাকা-ফরিদপুর রুটের সাউদিয়া পরিবহনের ভাড়া এখন ৮০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। যদিও অন্য সময়ে এই পরিবহনে ভাড়া ৫০০ টাকা। তাছাড়া এই গাড়ি সাতক্ষীরা পর্যন্ত যায়। কেউ ফরিদপুর পর্যন্ত যেতেও একই ভাড়া নিচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।

ঢাকা-বরিশাল রুটে পটুয়াখালী পর্যন্ত মিজান পরিবহনের অন্য সময় ভাড়া ৪৫০ থেকে ৬০০ টাকা। তবে এখন ৮০০ থেকে ১০০০ টাকায় টিকেট বিক্রি করছে। ঢাকা-লক্ষ্মীপুর রুটের ইকোনো বাসের আগের ভাড়া ৫০০ টাকা, যা এখন ৭৫০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। সায়েদাবাদে ইকোনো কাউন্টারের ম্যানেজার পিন্টু দাবি করেন, ঈদের কারণে ‘মালিকের নির্দেশনা অনুযায়ী’ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

গাবতলী বাস টার্মিনালে খুলনার যাত্রী আয়মান বলেন, তিনি এসে দেখেন খুলনার কোনো বাসেই সিট খালি নেই। ফলে যশোরগামী বাসের টিকেট খুঁজতে হয়। কিন্তু টিকেটের দাম ১৫০ থেকে ২০০ টাকা বেশি চাইছে কাউন্টারগুলো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কাউন্টার মাস্টার দাবি করেন, তারা কোনো বাড়তি ভাড়া নিচ্ছেন না। যেহেতু তাদের কাছে টিকেট নেই, তাই অনেক কষ্টে তার ব্যবস্থা করে দিলে যাত্রীরা খুশি হয়ে বকশিশ দিচ্ছেন।

back to top