alt

নগর-মহানগর

ছুটির ফাঁদে ব্যবসা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল ২০২২

সাধারণ সময়ে রাজধানীর বায়তুল মোকররমে শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) গম গম করতে থাকে ক্রেতা-বিক্রেতার সোরগোলে। আজ ছিল শুক্রবার, তারওপর একবারে ঈদ আসন্ন। সেই হিসেবে উপচেপড়া ভিড় থাকার কথা থাকলেও দেখা যায় উল্টো চিত্র। অলস সময় পার করছেন বায়তুল মোকাররম ও তার আশপাশের মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।

শিশুদের তৈরি পোশাকের দোকানি শাহাজাহান ভূঁইয়া হতাশ সুরে বলেন, ‘ ছুটি ব্যবসা খাইয়া ফেলছে। একসঙ্গে এত ছুটি। ঢাকা ছাড়ছে মানুষ। কেনাকাটার চাইতে বাড়ি যাওয়া জরুরি।’

প্রায় ৩০ বছর ধরে বায়তুল মোকাররমের ফুটপাতে ব্যবসা করে আসছেন শাহাজাহান। তিনি বলেন, ‘এবার ব্যবসা ভালো হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ব্যবসা হয় নাই। একসঙ্গে ছুটি পরছে অনেক। ছুটি পাইলেই কেউ আর ঢাকায় থাকতে চায় না। আর আমাদের ফুটপাত দোকানের মূল কাস্টমার ঢাকার বাইরের মানুষ। তারা না থাকলে ব্যবসাও থাকে না।’

শাহজাহান বলেন, ‘আমাদের এখানে শুক্রবারই ঈদের মতো ব্যবসা হয়। আইজকা একে শুক্রবার তারওপর ঈদ। আপনে দেখেন মানুষজন আছে (?) মানুষের হাতে টাকা পয়সা নাই বুঝছেন।’

কথা বলার ফাঁকে দেবাশীষ রায় নামের একজন ক্রেতা ছেলে বাচ্চার পোশাক পছন্দ করে দাম মেটালেন। একটা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন দেবাশীষ। বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) অফিস ছুটির পর গ্রামের বাড়ি ভোলা যাওয়ার কথা থাকলেও অতিরিক্ত জানজটের ভয়ে যাননি। তিনি বলেন, ‘এত গরমে এত কষ্ট করে বাড়ি যাওয়ার ইচ্ছা ছিল না। কিন্তু এতদিন ছুটি। ঢাকায় কিছু করার নেই।’

৫ বছর আর ২ বছর বয়সী ২ ছেলের জন্য দুটো ড্রেস কিনে দাম মেটাতে মেটাতে দেবাশীষ বলেন, আমার চারপাশের সবাই মুসলিম। সবাই নতুন পোশাক পরবে আমার ছেলেরা বাদ যাবে কেন। আর ওই যে সবাই বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার।’

দু’জন কম বয়সী যুবক বাচ্চাদের দুটো রোদ চশমা নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ ধরে দরদাম করছিলেন। এক পর্যায়ে বিক্রেতা কিছু দাম কমালেন আর বিক্রেতা বাড়িয়ে দুটো লাল রঙের বাচ্চাদের রোদ চশমা কিনে নিলেন। বেশ খুশি হয়ে একজন ব্যগে পুড়লেন চশমার প্যাকেট। কার জন্য চশমা কিনলেন জানতে চাইলে বলেন, ‘বোনের দুই ছেলের জন্য।’

এখনো লেখাপড়া করেন, বেশি কিছু কিনতে পারবেন না জানিয়ে তারা বলেন, ‘এই চশমা দুই বছর আগেও ৩০ থেকে ৪০ টাকায় পাওয়া যেত এখন ১২০ টাকায় কিনলাম।’ তাদের কথার সঙ্গে সায় দিয়ে বিক্রেতা ফুল মিয়া বলেন, ‘আগে আমিও বিক্রি করছি এই দামে। কিন্তু এখন পারি না।’

ফুল মিয়া বলেন, ‘স্বাধীনতার ১৭ দিন পর থেকে এই বায়তুল মোকাররমে ব্যবসা করছি। ব্যবসায় লাভ-লস থাকবে। কিন্তু দুই বছর করোনার পর ভাবছিলাম ভালো ব্যবসা করবো। কিন্তু তা আর হইলো না। চীন থেকে সময়মতো মাল আসে না বলে পাইকাররা ঠিকমতো মালামাল সাপ্লাই দিতে পারে না। আবার সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে। আমাদেরও তো চলতে হবে।’

ঈদের দুই তিন দিন আগে থেকে কসমেটিকস, জুয়েলারি, জুতা, টুপি, আতরের দোকানে ভিড় বাড়তে থাকে। কিন্তু শুক্রবার বায়তুল মোকাররম, স্টেডিয়াম, গুলিস্তান ও আশপাশের বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায়, ঈদে যেমন ক্রেতা সমাগম হওয়ার কথা এবার তেমন নাই।

ইমিটেশন জুয়েলারির ব্যবসায়ী আল-আমিনও সন্তুষ্ট নন ঈদ ব্যবসায়। তিনিও একই কথা বলে সংবাদকে জানান, ‘সারামাস টুকটাক ব্যবস হইছে। ঈদে যেমন জমজমাট হয় তেমন হয় নাই। এই দুইদিনও ভালো ব্যবসা হবে না জানি। টুকটাক যা হবে তাই নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে।’

মতিঝিলে একটা করপোরেট অফিসে কাজ করেন আবদুল আলীম। বাসা ভাড়া নিয়ে রামপুরায় থাকনে। আজ রাতের ট্রেনে যাবেন দিনাজপুর। স্ত্রীকে নিয়ে টুকিটাকি সামান্য কিছু ঈদ উপহার কিনতে এসেছেন বাবা মা ও ভাই বোনদের জন্য।

আলীম বলেন, ‘করোনার সময় বেতন কমিয়ে ফেলেছে, তা আর বাড়েনি। কিন্তু অন্য সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে। বাড়ি ভাড়া থেকে শুরু করে দৈনন্দিন সবকিছুর। ইচ্ছে থাকলেও উপায় নেই আত্মীয়-স্বজনদের জন্য অনেক উপহার নেয়ার। যা প্রয়োজন তাই কিনছি।’

ফুটপাতে ক্রোকারিজ সামগ্রীর পসরা নিয়ে বসেছেন জাহিদুল ইসলাম সৈকত। একদাম, ১০০ টাকার দোকান। যা কিনবেন তাই ১০০ টাকা। তার কাছে জানতে চাইলে নতুন কিছু বলতে পারলেন না। ঈদে যে হৈচৈ হওয়ার কথা তা নেই জানিয়ে তিনি সংবাদকে বলেন, ‘ঈদের আগের তিন দিন কথা বলার সময় পায় না ব্যবসায়ীরা। তারা এখন অলস বসে আছে।’

ব্যবসা খারাপ হওয়ার কারণ হিসেবে তিনিও বলেন দীর্ঘ ছুটির কথা। সৈকত আরও বলেন, ‘মানুষের হাতে এখন টাকা পয়সা কম। সবাই এখন যা দরকার তাই কেনাকাটা করেন। ঈদে ব্যবসা না হলে ঈদের পর কি হবে তাই ভাবতেছি।’

ছবি

ভোক্তা অধিকার বিভাগ চায় ক্যাব

কারাগারেই যেতে হলো হাজী সেলিমকে

ছবি

হাজী সেলিমের সংসদ সদস্য পদ বহাল থাকা নিয়ে প্রশ্ন

ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ান শিক্ষা মেলা

মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য প্রদর্শনী চলছে জাতীয় জাদুঘরে

ছবি

“আইইবি’তে কৃতি প্রকৌশলীদের আজীবন ও মরণোত্তর সম্মাননা প্রদান এবং ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত”

ছবি

বিদ্যুতের দাম না বাড়িয়ে ভর্তুকির পরামর্শ এফবিসিসিআইয়ের

ছবি

ডিএমপির মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৭২, মামলা ৫৬

ছবি

শনিবার গ্যাস থাকবে না রাজধানীর যেসব এলাকায়

ছবি

শ্রীলঙ্কা ঋণ খেলাপির খাতায় নাম লেখাল

ছবি

মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৯২, মামলা ৭২

সমান অধিকার-মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় বৈষম্য বিরোধী বিলে পরিবর্তনের আভাস

হাড় জোড়া লাগানোর অস্ত্রোপচারে শিশুর মৃত্যু

উচ্চ শব্দে হর্ণ কান জ্বালাপালা ১২ চালককে জরিমানা

মোটরসাইকেল চোর চক্রের আটক ৬, ৮টি উদ্ধার

ছবি

জাহানার ফাউন্ডেশনে প্রাচীন মুদ্রা প্রদর্শনী

হাত পচে দুর্গন্ধ, ঢামেক ওয়ার্ডে ঠাঁই হয়নি যুবকের!

তামাকপণ্যের দাম বাড়ালে মৃত্যু-স্বাস্থ্যব্যয় কমবে

ঢাকার হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টায় ১২ ডেঙ্গু রোগী

ছবি

এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

রাত ৮টার পর দোকানপাট বন্ধ রাখতে চান মেয়র তাপস

ছবি

ভূমিহীন পরিবারগুলোর সমস্যার সমাধানের দাবি

ছবি

সম্রাটের উন্নত চিকিৎসা দরকার : বিএসএমএমইউ পরিচালক

স্বাধীন সাংবাদিকতার বাধা আইন প্রত্যাহারের আহ্বান সম্পাদক, সাংবাদিক নেতাদের

যাত্রাবাড়ীতে মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

প্রসূতি মায়ের জন্য জরুরি বি পজিটিভ রক্তের প্রয়োজন

ছবি

ঢাকা কলেজ ও আইডিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ

যাত্রাবাড়ীতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

ছবি

রফিকুল-হারুনদের মুক্তি চেয়ে আদালত প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ

ছবি

ক্যাসিনোকান্ডের সম্রাট আপাতত ‘হাসপাতালেই থাকবেন’

ছবি

হাতিরঝিলে ইয়াবাসহ কারবারি আটক

ছবি

নিউমার্কেটে সংঘর্ষ : ফাস্টফুডের দোকানের দুই কর্মচারী গ্রেফতার

ছবি

মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের কাজ সম্পন্ন

ছবি

ঈদের ছুটি শেষ, অফিস-আদালত এখনও ফাঁকা

ছবি

গুলিস্তান হকার্স মার্কেটে অবৈধ দোকান উচ্ছেদ শুরু

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২১

tab

নগর-মহানগর

ছুটির ফাঁদে ব্যবসা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল ২০২২

সাধারণ সময়ে রাজধানীর বায়তুল মোকররমে শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) গম গম করতে থাকে ক্রেতা-বিক্রেতার সোরগোলে। আজ ছিল শুক্রবার, তারওপর একবারে ঈদ আসন্ন। সেই হিসেবে উপচেপড়া ভিড় থাকার কথা থাকলেও দেখা যায় উল্টো চিত্র। অলস সময় পার করছেন বায়তুল মোকাররম ও তার আশপাশের মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।

শিশুদের তৈরি পোশাকের দোকানি শাহাজাহান ভূঁইয়া হতাশ সুরে বলেন, ‘ ছুটি ব্যবসা খাইয়া ফেলছে। একসঙ্গে এত ছুটি। ঢাকা ছাড়ছে মানুষ। কেনাকাটার চাইতে বাড়ি যাওয়া জরুরি।’

প্রায় ৩০ বছর ধরে বায়তুল মোকাররমের ফুটপাতে ব্যবসা করে আসছেন শাহাজাহান। তিনি বলেন, ‘এবার ব্যবসা ভালো হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ব্যবসা হয় নাই। একসঙ্গে ছুটি পরছে অনেক। ছুটি পাইলেই কেউ আর ঢাকায় থাকতে চায় না। আর আমাদের ফুটপাত দোকানের মূল কাস্টমার ঢাকার বাইরের মানুষ। তারা না থাকলে ব্যবসাও থাকে না।’

শাহজাহান বলেন, ‘আমাদের এখানে শুক্রবারই ঈদের মতো ব্যবসা হয়। আইজকা একে শুক্রবার তারওপর ঈদ। আপনে দেখেন মানুষজন আছে (?) মানুষের হাতে টাকা পয়সা নাই বুঝছেন।’

কথা বলার ফাঁকে দেবাশীষ রায় নামের একজন ক্রেতা ছেলে বাচ্চার পোশাক পছন্দ করে দাম মেটালেন। একটা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন দেবাশীষ। বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) অফিস ছুটির পর গ্রামের বাড়ি ভোলা যাওয়ার কথা থাকলেও অতিরিক্ত জানজটের ভয়ে যাননি। তিনি বলেন, ‘এত গরমে এত কষ্ট করে বাড়ি যাওয়ার ইচ্ছা ছিল না। কিন্তু এতদিন ছুটি। ঢাকায় কিছু করার নেই।’

৫ বছর আর ২ বছর বয়সী ২ ছেলের জন্য দুটো ড্রেস কিনে দাম মেটাতে মেটাতে দেবাশীষ বলেন, আমার চারপাশের সবাই মুসলিম। সবাই নতুন পোশাক পরবে আমার ছেলেরা বাদ যাবে কেন। আর ওই যে সবাই বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার।’

দু’জন কম বয়সী যুবক বাচ্চাদের দুটো রোদ চশমা নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ ধরে দরদাম করছিলেন। এক পর্যায়ে বিক্রেতা কিছু দাম কমালেন আর বিক্রেতা বাড়িয়ে দুটো লাল রঙের বাচ্চাদের রোদ চশমা কিনে নিলেন। বেশ খুশি হয়ে একজন ব্যগে পুড়লেন চশমার প্যাকেট। কার জন্য চশমা কিনলেন জানতে চাইলে বলেন, ‘বোনের দুই ছেলের জন্য।’

এখনো লেখাপড়া করেন, বেশি কিছু কিনতে পারবেন না জানিয়ে তারা বলেন, ‘এই চশমা দুই বছর আগেও ৩০ থেকে ৪০ টাকায় পাওয়া যেত এখন ১২০ টাকায় কিনলাম।’ তাদের কথার সঙ্গে সায় দিয়ে বিক্রেতা ফুল মিয়া বলেন, ‘আগে আমিও বিক্রি করছি এই দামে। কিন্তু এখন পারি না।’

ফুল মিয়া বলেন, ‘স্বাধীনতার ১৭ দিন পর থেকে এই বায়তুল মোকাররমে ব্যবসা করছি। ব্যবসায় লাভ-লস থাকবে। কিন্তু দুই বছর করোনার পর ভাবছিলাম ভালো ব্যবসা করবো। কিন্তু তা আর হইলো না। চীন থেকে সময়মতো মাল আসে না বলে পাইকাররা ঠিকমতো মালামাল সাপ্লাই দিতে পারে না। আবার সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে। আমাদেরও তো চলতে হবে।’

ঈদের দুই তিন দিন আগে থেকে কসমেটিকস, জুয়েলারি, জুতা, টুপি, আতরের দোকানে ভিড় বাড়তে থাকে। কিন্তু শুক্রবার বায়তুল মোকাররম, স্টেডিয়াম, গুলিস্তান ও আশপাশের বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায়, ঈদে যেমন ক্রেতা সমাগম হওয়ার কথা এবার তেমন নাই।

ইমিটেশন জুয়েলারির ব্যবসায়ী আল-আমিনও সন্তুষ্ট নন ঈদ ব্যবসায়। তিনিও একই কথা বলে সংবাদকে জানান, ‘সারামাস টুকটাক ব্যবস হইছে। ঈদে যেমন জমজমাট হয় তেমন হয় নাই। এই দুইদিনও ভালো ব্যবসা হবে না জানি। টুকটাক যা হবে তাই নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে।’

মতিঝিলে একটা করপোরেট অফিসে কাজ করেন আবদুল আলীম। বাসা ভাড়া নিয়ে রামপুরায় থাকনে। আজ রাতের ট্রেনে যাবেন দিনাজপুর। স্ত্রীকে নিয়ে টুকিটাকি সামান্য কিছু ঈদ উপহার কিনতে এসেছেন বাবা মা ও ভাই বোনদের জন্য।

আলীম বলেন, ‘করোনার সময় বেতন কমিয়ে ফেলেছে, তা আর বাড়েনি। কিন্তু অন্য সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে। বাড়ি ভাড়া থেকে শুরু করে দৈনন্দিন সবকিছুর। ইচ্ছে থাকলেও উপায় নেই আত্মীয়-স্বজনদের জন্য অনেক উপহার নেয়ার। যা প্রয়োজন তাই কিনছি।’

ফুটপাতে ক্রোকারিজ সামগ্রীর পসরা নিয়ে বসেছেন জাহিদুল ইসলাম সৈকত। একদাম, ১০০ টাকার দোকান। যা কিনবেন তাই ১০০ টাকা। তার কাছে জানতে চাইলে নতুন কিছু বলতে পারলেন না। ঈদে যে হৈচৈ হওয়ার কথা তা নেই জানিয়ে তিনি সংবাদকে বলেন, ‘ঈদের আগের তিন দিন কথা বলার সময় পায় না ব্যবসায়ীরা। তারা এখন অলস বসে আছে।’

ব্যবসা খারাপ হওয়ার কারণ হিসেবে তিনিও বলেন দীর্ঘ ছুটির কথা। সৈকত আরও বলেন, ‘মানুষের হাতে এখন টাকা পয়সা কম। সবাই এখন যা দরকার তাই কেনাকাটা করেন। ঈদে ব্যবসা না হলে ঈদের পর কি হবে তাই ভাবতেছি।’

back to top