alt

নগর-মহানগর

গভীর রাতেও জমজমাট শপিংমল বিপণিবিতান, ফুটপাত

জাহিদা পারভেজ ছন্দা : রোববার, ০১ মে ২০২২

শনিবার। ঘড়ির কাঁটা জানিয়ে দিচ্ছে রাত ১২টা। বসুন্ধরা সিটি শপিংমলের পেছনে বিশাল গাড়ির লাইন। সামনের রাস্তার লাইন বড় দেখে ডা. এরশাদ হোসেন পেছন দিকের রাস্তায় এসে যেন বোকা বনে গেছেন গাড়ির লাইন দেখে। স্ত্রী-সন্তানদের মলে পাঠিয়ে বসে আছেন গাড়ির স্টিয়ারিংয়ে হাত দিয়ে। ৬-৭টা গাড়ির পেছেনে তার গাড়ি। পাকির্ং করতে আরও ৩০ মিনিটের মতো লাগবে জানালো সিকিউরিটির একজন।

দেখে বোঝার উপায় নেই মধ্যরাত। মনে হচ্ছে কেবল সন্ধ্যা। এত রাতে শপিং করতে এসেছেন কেন জানতে চাইলে ডা. এরশাদ বলেন, ‘ইচ্ছা করেই এসেছি। ভিড়বাট্টা কম হবে। রাস্তায় জ্যাম থাকবে না। দিনে তো অনেক ভিড় ঠিক মতো কথাই বলা যায় না। রাতে দেখে শুনে বউ-বাচ্চা তাদের পছন্দের জিনিস কিনতে পারবে। কিন্তু এখন তো দেখছি আমার মতো সবাই ভেবেছে।’

বসুন্ধরা সিটি শপিংমলের ভেতরে গিয়ে দেখা যায় প্রচুর মানুষ। প্রায় প্রতিটা দোকানেই ক্রেতা সমাগম চোখে পড়ার মতো। তবে ব্রান্ডের দোকানগুলোতে ছিল উপচেপড়া ভিড়। ইলিয়ন, আড়ং, দেশীদশ, ইয়োলো, বুনন, এসপ্লাস, লারিভসহ অন্য দোকানগুলোতে লাইন দিয়ে ঢুকছেন ক্রেতারা।

জুতোর দোকানিরাও প্রচ- ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এখানে। বাটায় বাচ্চার জুতো কিনতে এসেছেন ঈশিতা মাহবুব। পছন্দমতো পেয়েও গেছেন। কিন্তু পাঞ্জাবি কিনতে পারেননি এখনও। বাবা ছেলের এক রকম পাঞ্জাবি কিনবেন, সাইজ মিলছে না জানিয়ে ঈশিতা বলেন, ‘এবার কাপড়ের দাম অনেক। যেটা পছন্দ হয় সেটার দাম কমপক্ষে ৫ হাজার। এত টাকা দিয়ে কেনা সম্ভব নয় জন্যই দেরি হচ্ছে। আড়াই হাজারের নিচে কোন পাঞ্জাবি নেই মনে হচ্ছে।’

পাশেই দাঁড়ানো থাকা একজন ক্রেতা ঈশিতার কথার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বলেন, ‘দুই বছর কেনাকাটা করতে হয় নাই, মানে করি নাই। ভালোই ছিলাম। এবার তো কিনতেই হবে। জিনিসের যে দাম! যাদের টাকা আছে তারা তো চট করে কিনে ফেলতে পারে। আমাদের হইছে সমস্যা।’

আড়ং আউটলেটে গিয়ে দেখা যায় এত রাতেও বিক্রয়কর্মীরা হিমশিম খাচ্ছেন সাইজ মেলানো ট্রায়াল দেয়া নিয়ে। শারমীন সুলতানা নামের একজনের গলা বসে গছে কথা বলতে বলতে। শারমীন বলেন, ‘অনেক কথা বলতে হয়।’ কখন যাবেন জানতে চাইলে বলেন, ‘দেড়টা দুইটা বেজে যাবে।’

তিন মাসের বাচ্চাকে নিয়েই শপিংয়ে এসেছেন আলী হাসান। বাচ্চাকে তিনি কোলে নিয়ে স্ত্রীকে পাঠিয়েছেন সবার পোশাক পছন্দ

করতে। গতকাল দুপুরে বসুন্ধরা সিটির ইয়োলো আউটলেটের সামনে গিয়ে দেখা যায় একজন সিকিউরিটি রবিউল ইসলাম (ছদ্মনাম) ঝিমুচ্ছেন। কেউ একজন এসে ডাকাতেই ধড়ফড় করে উঠে দাঁড়ান। একটু সহজ হয়ে বসলে কাছে গিয়ে এই প্রতিবেদক জিজ্ঞেস করেন, রাতে ঘুমান নাই। কত রাত পর্যন্ত দোকান খোলা ছিল। রবিউল বলেন, ‘রাত আড়াইটার সময়ও মানুষজন ভর্তি ছিল। আমরা আর ঢুকতে দেই নাই। আর ধানমন্ডির আউটলেট তো রাত তিনটায় কাস্টমারকে বাইর কইরা দিয়া বন্ধ করছে। এ দুই দিন সারারাতই খোলা থাকবে বসুন্ধরা সিটি।’

গত শুক্রবার রাতে রাজধানীর নিউমার্কেট, গাউসিয়া, চাঁদনিচক এলাকায় গিয়ে একই রকম অবস্থা দেখা যায়। আলো ঝলমলে দোকানগুলোতে ক্রেতার ভিড় আর ফুটপাতগুলোতে হকারদের হাঁকডাকে মনে হবে সবে দিনের শুরু। শাড়ি, গয়না, পাঞ্জাবি, লুঙ্গি, বিছানার চাদর, শিশুদের পোশাক থেকে শুরু করে ঘর সাজানোর নানা পসরা নিয়ে বসেছেন ফুটপাতজুড়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

ঈদের বাকি আর দুইদিন শেষ বেলার বেচা বিক্রিতে যেন কোন কমতি না থকে এজন্য প্রায় সব দোকানেই দিয়েছে মূল্যছাড়। গাউসিয়া মার্কেটের তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী আবদুর রহমান বলেন, ‘মাঝে কয়দিন তো সবই বন্ধ ছিল, দুঃশ্চিন্তায় ছিলাম। একদম শেষে আইসা একটু ব্যবসা হইছে। যা হোক চালানটা উঠবে আশা করতেছি।’

রাতের বেলা বয়স্ক পুরুষ-নারীদের চেয়ে কম বয়সীদের ভিড় করতে দেখা যায়। রোয়াজা ও রাইম দুইবোনের সঙ্গে ৫ কাজিন এসেছেন নিউমার্কেটে। রাতে শপিং করতে খুব ভালো লাগছে জানিয়ে রোয়াজা বলেন, ‘রাতে গরম কম। আর এ সময় একটু দামও কম রাখে বলে এসেছি। সেহরি বাইরেই করবো বলে রাতে এসেছি। আব্বু আম্মুও আসবেন।’

রাইম বলেন, ‘জ্যাম নাই মিরপুর থেকে মাত্র ৩০ মিনিটে চলে এসেছি। ভাবা যায়।’

ঈদকে সামনে রেখে ফার্মগেটে রাত দশটার পর থেকে অস্থায়ী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ভিড় চোখে পড়ে। এখানে ২শ’ টাকা থেকে শুরু করে হাজার ১২শ’ টাকায় নানা ধরনের জুতা-স্যান্ডেল কিনতে পাওয়া যায়। মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্তদের ভিড় দেখা যায় জুতার দোকানে।

বাস ড্রাইভার মো. সুজন ও তার সহযোগী ফরহাদ হোসেন এখান থেকে জুতা কিনলেন ৫শ’ টাকা করে। তারা বলেন, দিনের বেলা সময় নাই মার্কেটে গিয়া দরদাম করে জুতা কেনার। এখানে পছন্দ হয়ে যাওয়ায় তারা কিনে ফেললেন।

ঈদকে কেন্দ্র করে রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট খোলা রাখছে রাতেও। রাতে বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, অন্যবারের মতো এবারও নিজ নিজ দোকান সাজিয়েছেন দোকানিরা ক্রেতা আকৃষ্ট করতে। এবার ঈদ হচ্ছে গ্রীষ্মকালে। অনেক গরম থাকবে বলে বেশিরভাগে মানুষই ভালো সুতি কাপড় কিনছেন বলে জানান বিশ্ব রঙয়ের স্বত্তাধিকারী বিপ্লব সাহা।

অতিমারী করোনার কারণে গত ২ বছর উৎসব ছিল না, ব্যবসায় ছিল ভাটা। সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এবার ব্যবসায়ীরা রাতেও দোকান পাট খোলা রাখছেন বলে জানান দোকান মালিক সমতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন।

ছবি

ভোক্তা অধিকার বিভাগ চায় ক্যাব

কারাগারেই যেতে হলো হাজী সেলিমকে

ছবি

হাজী সেলিমের সংসদ সদস্য পদ বহাল থাকা নিয়ে প্রশ্ন

ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ান শিক্ষা মেলা

মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য প্রদর্শনী চলছে জাতীয় জাদুঘরে

ছবি

“আইইবি’তে কৃতি প্রকৌশলীদের আজীবন ও মরণোত্তর সম্মাননা প্রদান এবং ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত”

ছবি

বিদ্যুতের দাম না বাড়িয়ে ভর্তুকির পরামর্শ এফবিসিসিআইয়ের

ছবি

ডিএমপির মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৭২, মামলা ৫৬

ছবি

শনিবার গ্যাস থাকবে না রাজধানীর যেসব এলাকায়

ছবি

শ্রীলঙ্কা ঋণ খেলাপির খাতায় নাম লেখাল

ছবি

মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৯২, মামলা ৭২

সমান অধিকার-মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় বৈষম্য বিরোধী বিলে পরিবর্তনের আভাস

হাড় জোড়া লাগানোর অস্ত্রোপচারে শিশুর মৃত্যু

উচ্চ শব্দে হর্ণ কান জ্বালাপালা ১২ চালককে জরিমানা

মোটরসাইকেল চোর চক্রের আটক ৬, ৮টি উদ্ধার

ছবি

জাহানার ফাউন্ডেশনে প্রাচীন মুদ্রা প্রদর্শনী

হাত পচে দুর্গন্ধ, ঢামেক ওয়ার্ডে ঠাঁই হয়নি যুবকের!

তামাকপণ্যের দাম বাড়ালে মৃত্যু-স্বাস্থ্যব্যয় কমবে

ঢাকার হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টায় ১২ ডেঙ্গু রোগী

ছবি

এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

রাত ৮টার পর দোকানপাট বন্ধ রাখতে চান মেয়র তাপস

ছবি

ভূমিহীন পরিবারগুলোর সমস্যার সমাধানের দাবি

ছবি

সম্রাটের উন্নত চিকিৎসা দরকার : বিএসএমএমইউ পরিচালক

স্বাধীন সাংবাদিকতার বাধা আইন প্রত্যাহারের আহ্বান সম্পাদক, সাংবাদিক নেতাদের

যাত্রাবাড়ীতে মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

প্রসূতি মায়ের জন্য জরুরি বি পজিটিভ রক্তের প্রয়োজন

ছবি

ঢাকা কলেজ ও আইডিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ

যাত্রাবাড়ীতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

ছবি

রফিকুল-হারুনদের মুক্তি চেয়ে আদালত প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ

ছবি

ক্যাসিনোকান্ডের সম্রাট আপাতত ‘হাসপাতালেই থাকবেন’

ছবি

হাতিরঝিলে ইয়াবাসহ কারবারি আটক

ছবি

নিউমার্কেটে সংঘর্ষ : ফাস্টফুডের দোকানের দুই কর্মচারী গ্রেফতার

ছবি

মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের কাজ সম্পন্ন

ছবি

ঈদের ছুটি শেষ, অফিস-আদালত এখনও ফাঁকা

ছবি

গুলিস্তান হকার্স মার্কেটে অবৈধ দোকান উচ্ছেদ শুরু

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২১

tab

নগর-মহানগর

গভীর রাতেও জমজমাট শপিংমল বিপণিবিতান, ফুটপাত

জাহিদা পারভেজ ছন্দা

রোববার, ০১ মে ২০২২

শনিবার। ঘড়ির কাঁটা জানিয়ে দিচ্ছে রাত ১২টা। বসুন্ধরা সিটি শপিংমলের পেছনে বিশাল গাড়ির লাইন। সামনের রাস্তার লাইন বড় দেখে ডা. এরশাদ হোসেন পেছন দিকের রাস্তায় এসে যেন বোকা বনে গেছেন গাড়ির লাইন দেখে। স্ত্রী-সন্তানদের মলে পাঠিয়ে বসে আছেন গাড়ির স্টিয়ারিংয়ে হাত দিয়ে। ৬-৭টা গাড়ির পেছেনে তার গাড়ি। পাকির্ং করতে আরও ৩০ মিনিটের মতো লাগবে জানালো সিকিউরিটির একজন।

দেখে বোঝার উপায় নেই মধ্যরাত। মনে হচ্ছে কেবল সন্ধ্যা। এত রাতে শপিং করতে এসেছেন কেন জানতে চাইলে ডা. এরশাদ বলেন, ‘ইচ্ছা করেই এসেছি। ভিড়বাট্টা কম হবে। রাস্তায় জ্যাম থাকবে না। দিনে তো অনেক ভিড় ঠিক মতো কথাই বলা যায় না। রাতে দেখে শুনে বউ-বাচ্চা তাদের পছন্দের জিনিস কিনতে পারবে। কিন্তু এখন তো দেখছি আমার মতো সবাই ভেবেছে।’

বসুন্ধরা সিটি শপিংমলের ভেতরে গিয়ে দেখা যায় প্রচুর মানুষ। প্রায় প্রতিটা দোকানেই ক্রেতা সমাগম চোখে পড়ার মতো। তবে ব্রান্ডের দোকানগুলোতে ছিল উপচেপড়া ভিড়। ইলিয়ন, আড়ং, দেশীদশ, ইয়োলো, বুনন, এসপ্লাস, লারিভসহ অন্য দোকানগুলোতে লাইন দিয়ে ঢুকছেন ক্রেতারা।

জুতোর দোকানিরাও প্রচ- ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এখানে। বাটায় বাচ্চার জুতো কিনতে এসেছেন ঈশিতা মাহবুব। পছন্দমতো পেয়েও গেছেন। কিন্তু পাঞ্জাবি কিনতে পারেননি এখনও। বাবা ছেলের এক রকম পাঞ্জাবি কিনবেন, সাইজ মিলছে না জানিয়ে ঈশিতা বলেন, ‘এবার কাপড়ের দাম অনেক। যেটা পছন্দ হয় সেটার দাম কমপক্ষে ৫ হাজার। এত টাকা দিয়ে কেনা সম্ভব নয় জন্যই দেরি হচ্ছে। আড়াই হাজারের নিচে কোন পাঞ্জাবি নেই মনে হচ্ছে।’

পাশেই দাঁড়ানো থাকা একজন ক্রেতা ঈশিতার কথার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বলেন, ‘দুই বছর কেনাকাটা করতে হয় নাই, মানে করি নাই। ভালোই ছিলাম। এবার তো কিনতেই হবে। জিনিসের যে দাম! যাদের টাকা আছে তারা তো চট করে কিনে ফেলতে পারে। আমাদের হইছে সমস্যা।’

আড়ং আউটলেটে গিয়ে দেখা যায় এত রাতেও বিক্রয়কর্মীরা হিমশিম খাচ্ছেন সাইজ মেলানো ট্রায়াল দেয়া নিয়ে। শারমীন সুলতানা নামের একজনের গলা বসে গছে কথা বলতে বলতে। শারমীন বলেন, ‘অনেক কথা বলতে হয়।’ কখন যাবেন জানতে চাইলে বলেন, ‘দেড়টা দুইটা বেজে যাবে।’

তিন মাসের বাচ্চাকে নিয়েই শপিংয়ে এসেছেন আলী হাসান। বাচ্চাকে তিনি কোলে নিয়ে স্ত্রীকে পাঠিয়েছেন সবার পোশাক পছন্দ

করতে। গতকাল দুপুরে বসুন্ধরা সিটির ইয়োলো আউটলেটের সামনে গিয়ে দেখা যায় একজন সিকিউরিটি রবিউল ইসলাম (ছদ্মনাম) ঝিমুচ্ছেন। কেউ একজন এসে ডাকাতেই ধড়ফড় করে উঠে দাঁড়ান। একটু সহজ হয়ে বসলে কাছে গিয়ে এই প্রতিবেদক জিজ্ঞেস করেন, রাতে ঘুমান নাই। কত রাত পর্যন্ত দোকান খোলা ছিল। রবিউল বলেন, ‘রাত আড়াইটার সময়ও মানুষজন ভর্তি ছিল। আমরা আর ঢুকতে দেই নাই। আর ধানমন্ডির আউটলেট তো রাত তিনটায় কাস্টমারকে বাইর কইরা দিয়া বন্ধ করছে। এ দুই দিন সারারাতই খোলা থাকবে বসুন্ধরা সিটি।’

গত শুক্রবার রাতে রাজধানীর নিউমার্কেট, গাউসিয়া, চাঁদনিচক এলাকায় গিয়ে একই রকম অবস্থা দেখা যায়। আলো ঝলমলে দোকানগুলোতে ক্রেতার ভিড় আর ফুটপাতগুলোতে হকারদের হাঁকডাকে মনে হবে সবে দিনের শুরু। শাড়ি, গয়না, পাঞ্জাবি, লুঙ্গি, বিছানার চাদর, শিশুদের পোশাক থেকে শুরু করে ঘর সাজানোর নানা পসরা নিয়ে বসেছেন ফুটপাতজুড়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

ঈদের বাকি আর দুইদিন শেষ বেলার বেচা বিক্রিতে যেন কোন কমতি না থকে এজন্য প্রায় সব দোকানেই দিয়েছে মূল্যছাড়। গাউসিয়া মার্কেটের তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী আবদুর রহমান বলেন, ‘মাঝে কয়দিন তো সবই বন্ধ ছিল, দুঃশ্চিন্তায় ছিলাম। একদম শেষে আইসা একটু ব্যবসা হইছে। যা হোক চালানটা উঠবে আশা করতেছি।’

রাতের বেলা বয়স্ক পুরুষ-নারীদের চেয়ে কম বয়সীদের ভিড় করতে দেখা যায়। রোয়াজা ও রাইম দুইবোনের সঙ্গে ৫ কাজিন এসেছেন নিউমার্কেটে। রাতে শপিং করতে খুব ভালো লাগছে জানিয়ে রোয়াজা বলেন, ‘রাতে গরম কম। আর এ সময় একটু দামও কম রাখে বলে এসেছি। সেহরি বাইরেই করবো বলে রাতে এসেছি। আব্বু আম্মুও আসবেন।’

রাইম বলেন, ‘জ্যাম নাই মিরপুর থেকে মাত্র ৩০ মিনিটে চলে এসেছি। ভাবা যায়।’

ঈদকে সামনে রেখে ফার্মগেটে রাত দশটার পর থেকে অস্থায়ী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ভিড় চোখে পড়ে। এখানে ২শ’ টাকা থেকে শুরু করে হাজার ১২শ’ টাকায় নানা ধরনের জুতা-স্যান্ডেল কিনতে পাওয়া যায়। মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্তদের ভিড় দেখা যায় জুতার দোকানে।

বাস ড্রাইভার মো. সুজন ও তার সহযোগী ফরহাদ হোসেন এখান থেকে জুতা কিনলেন ৫শ’ টাকা করে। তারা বলেন, দিনের বেলা সময় নাই মার্কেটে গিয়া দরদাম করে জুতা কেনার। এখানে পছন্দ হয়ে যাওয়ায় তারা কিনে ফেললেন।

ঈদকে কেন্দ্র করে রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট খোলা রাখছে রাতেও। রাতে বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, অন্যবারের মতো এবারও নিজ নিজ দোকান সাজিয়েছেন দোকানিরা ক্রেতা আকৃষ্ট করতে। এবার ঈদ হচ্ছে গ্রীষ্মকালে। অনেক গরম থাকবে বলে বেশিরভাগে মানুষই ভালো সুতি কাপড় কিনছেন বলে জানান বিশ্ব রঙয়ের স্বত্তাধিকারী বিপ্লব সাহা।

অতিমারী করোনার কারণে গত ২ বছর উৎসব ছিল না, ব্যবসায় ছিল ভাটা। সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এবার ব্যবসায়ীরা রাতেও দোকান পাট খোলা রাখছেন বলে জানান দোকান মালিক সমতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন।

back to top