alt

নগর-মহানগর

১৫ বছর ধরে বিমানবন্দরে সক্রিয় এক ‘অজ্ঞান পার্টি’

তিনশ’র বেশি প্রবাসীকে অজ্ঞান করে মালামাল লুট

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২

১৫ বছর ধরে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সক্রিয় একটি চক্র। যাদের কাজ বিদেশ ফেরত যাত্রীদের সঙ্গে সখ্য গড়ে সর্বস্ব লুটে নেয়া। এই চক্র এমন যাত্রীকে টার্গেট করত যার জন্য বিমানবন্দরে কোন আত্মীয়-স্বজন যায়নি, বা গাড়ি নিয়ে কেউ অপেক্ষা করছে না।

আর এই চক্রের নেতৃত্বে আছেন আমির হোসেন, যে বিমানবন্দরের উল্টো দিকে একটি ফাস্টফুডের দোকানে ১৫ বছর ধরে কাজ করছেন। ‘অজ্ঞান পার্টির’ খপ্পরে পড়ে এক প্রবাসীর সর্বস্ব হারানোর ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে আমিরসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাবব। আর তারপরই এই চক্রের খবর প্রকাশ্যে এলো।

গত ১৫ বছরে তিনশ’র বেশি প্রবাসীকে অজ্ঞান করে মালামাল লুটে নিয়েছে এই চক্র। আর আমিরের বিরুদ্ধে ১৫টির বেশি মামলাও রয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তিনি জানিয়েছেন ৫১ বছর বয়সী আমিরের বাড়ি বরিশালে। মাধ্যমিক পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে সে।

মঈন বলেন, ‘বিমানবন্দর রেলস্টেশন ও বাসস্ট্যান্ডকেন্দ্রিক অজ্ঞান পার্টি চক্রের নেতৃত্বে এখন আমির। সে কখনো বিদেশে যাননি। কিন্তু বিমানবন্দর এলাকায় সবসময় একটি পাসপোর্ট হাতে ঘোরেন। তার সঙ্গে লাগেজ থাকে। লাগেজের ওপর স্টিকার লাগানো থাকে যাতে মনে হয় তিনি বিদেশ থেকে ফিরলেন।

আমিরের সঙ্গে গ্রেপ্তার মো. লিটন মিয়া ওরফে মিল্টন (৪৮) একজন মাইক্রোবাস চালক, তার বাড়িও বরিশাল। আবু বক্কর সিদ্দিক ওরফে পারভেজ (৩৫) গয়নার ব্যবসায়ী, তার বাড়ি ফেনী। আর জাকির হোসেন (৪০) পেশায় ছাপাখানার কর্মী। তার বাড়ি পটুয়াখালী।

কমান্ডার মঈন রোববার (২ অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘চক্রের সদস্য সংখ্যা আট থেকে ১০ জনের মতো। তাদের অনেকেই এখন কারাগারে। জেল থেকে বের হয়ে তারা আবার একই পেশায় নামেন। তারা মূলত বিদেশ থেকে আসা সেসব প্রবাসীদের টার্গেট করতেন, যাদের নেয়ার জন্য কোন আত্মীয়-স্বজন বিমানবন্দরে আসেননি।’

তাদের কাছ থেকে মোবাইল ফোন, প্রবাসীদের অচেতন করার নেশাজাতীয় ট্যাবলেট এবং লাগেজ ও লুটকৃত স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত স্বর্ণ গলানো হয়েছে।

সর্বশেষ গত ২ সেপ্টেম্বর কুয়েতফেরত এক প্রবাসীর মালামাল লুট করে চক্রটি। সেদিন ভোরে বিমানবন্দরে নেমে বগুড়ায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন ওই প্রবাসী। এরপরই চক্রের একজন সদস্য বিমানবন্দরে ওই প্রবাসীকে অনুসরণ করে এবং তার সঙ্গে আলাপ জমান।

র‌্যাব বলছে, ওই প্রবাসী উত্তরা আজমপুর বাসস্ট্যান্ডে কাউন্টারে টিকেট কাটতে যান। ততক্ষণে ওই প্রবাসীর বিশ্বাস অর্জন করেন চক্রের সেই সদস্য। আর তখন লাগেজ ও পাসপোর্ট হাতে দৃশ্যপটে হাজির হন আমির। মাত্র কুয়েত থেকে এসেছেন এমন পরিচয় দিয়ে আমির বলেন, তারও গন্তব্যও বগুড়া।

নিজের কথা বিশ্বাসযোগ্য করতে আমির পকেট থেকে কুয়েতি মুদ্রা বের করে দেখান। নিজের সহযোগীদের ‘নিকট আত্মীয়’ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন ওই প্রবাসীর সঙ্গে।

এরপর তারা বলেন যে, তাদের কাছে অতিরিক্ত একটি বাসের টিকেট আছে। তাদের একজন আত্মীয় যাওয়ার কথা ছিল বলে কাটা হয়েছিল, কিন্তু তিনি যাচ্ছেন না। ওই প্রবাসী চাইলে তাদের সঙ্গে যেতে পারেন, জিজ্ঞাসাবাদের সূত্রে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা মঈন।

তাদের প্রস্তাবে প্রবাসী রাজি হয়ে গেলে তারা উত্তরার আজমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে বগুড়াগামী একটি বাসে উঠে বসেন। আমির ও ওই প্রবাসী পাশাপাশি আসনে বসেন। গ্রেপ্তার লিটন মিয়া পাশের আরেকটি আসনে বসেন। বাস চলতে শুরু করলে চেতনানাশক মিশ্রিত বিস্কুট খাইয়ে প্রবাসীকে অজ্ঞান করে ফেলেন আমির।

গ্রেপ্তারদের ‘স্বীকারোক্তির’ উদ্ধৃতি দিয়ে কমান্ডার মঈন জানান, এরপর ওই প্রবাসীর পকেট থেকে বাসের লাগেজ ট্যাগ বের নেন তারা। সিরাজগঞ্জ এলাকায় তার লাগেজ নিয়ে বাস থেকে নেমে যান আমির ও লিটন মিয়া। এরপর বাসের সুপারবাইজার প্রবাসীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে। পরে বিষয়টি বুঝতে পেরে সে ওই ব্যক্তির আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেন।

র‌্যাব বলছে, ওই ব্যক্তির ব্যাগে প্রায় আট ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ দামি জিনিসপত্র ছিল। স্বর্ণালঙ্কারগুলো শ্যামপুরের জুয়েলার্স দোকানের মালিক পারভেজের কাছে বিক্রি করেন আমির ও তার সহযোগীরা। আট ভরি স্বর্ণ নিয়ে সাড়ে ছয় ভরির দাম ধরে পৌনে পাঁচ লাখ টাকা আমিরকে দেন পারভেজ।

সেখান থেকে লিটন মিয়া ভাগ পান এক লাখ। জাকির ও আরেক ব্যক্তিকে ৫০ হাজার করে টাকা দেন আমির। বাকি টাকা আমির নিজে নিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

পরে পারভেজকে গ্রেপ্তার করে তার কাছ থেকে লুটকৃত স্বর্ণের কিছু অংশ গলিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। কমান্ডার মঈন জানান, এর আগেও বিভিন্ন সময় পারভেজের কাছে লুটের মাল বিক্রি করেছেন আমির। গ্রেপ্তার হওয়া জাকির ও অন্য আরেকজন এই লুটে তার সহযোগী হিসেবে কাজ করেছে। তারাও লুটের ভাগ পেয়েছে।

র‌্যাবের পরিচালক কমান্ডার মঈন বলেন, ‘আমির তিন-চারদিন পরপর এরকম একজনকে টার্গেট করেন। এ বছরই তিনি দুইবার গ্রেপ্তার হয়েছেন।’ আমিরের বিরুদ্ধে শুধু প্রতারণা ও লুটের মামলাই পাওয়া গেছে ১৫টি। এছাড়া আরও ফৌজদারি মামলাও রয়েছে। কয়েকবার গ্রেপ্তার হলেও জামিনে বেরিয়ে আবারও প্রতারণার কাজ করেন।

র‌্যাব বলছে, গত জানুয়ারিতে সৌদি প্রবাসী এক ব্যক্তির কাছ থেকে একইভাবে সর্বস্ব লুটে নেয় আমিরের চক্র। এপ্রিলে আরেক প্রবাসীর সর্বস্ব লুট করেন তারা।

আমিরের সহযোগী লিটন মিয়া পেশায় মাইক্রোবাস চালক। তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে সে। লিটনও একাধিকবার গ্রেপ্তার হয়েছেন বলে জানান কমান্ডার মঈন। সেও একাধিকবার গ্রেপ্তার হয়েছিল। সে বিভিন্ন সময় প্রবাসীদের মাইক্রোবাসে আনা-নেয়ার সুযোগে সর্বস্ব লুট করে নিত।

গ্রেপ্তার পারভেজ বলেছে, সে ৮-৯ বছর জুয়েলারি দোকানের কর্মচারী হিসেবে কাজ করেছে। ৬-৭ বছর আগে নিজেই রাজধানীর শ্যামপুরে জুয়েলারি দোকান দিয়েছে। জুয়েলারি দোকানের আড়ালে সে গত ২ থেকে ৩ বছর ধরে লুটকৃত স্বর্ণ কিনে গলিয়ে বিক্রি করত।

গ্রেপ্তারকৃত জাকির হোসেন বলেছে, সে ছাপাখানার ঠিকাদার হিসেবে কাজ করে। গত ৩ থেকে ৪ বছর আগে সে অভিযুক্ত আমিরের সঙ্গে যোগ দেয়। সে লুটকৃত স্বর্ণালঙ্কার ও অন্য মালামাল রাজধানীর বিভিন্ন জুয়েলারি দোকানসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্রির সঙ্গে জড়িত।

জনসভার স্থান নিয়ে আবার আলোচনায় পুলিশ-বিএনপি

ছবি

বিএনপির নয়াপল্টনে সমাবেশ করা নিয়ে যা বললেন আইজিপি

ছবি

ঢাবিতে গাড়ির ধাক্কায় নারীর মৃত্যুর ঘটনায় মামলা

কামরাঙ্গীরচর থানায় হামলার অভিযোগে হাসপাতালের এমডিসহ গ্রেপ্তার ৭

‘চ্যালেঞ্জের মুখে বিমান শিল্প’

ছবি

ঢাবি এলাকায় নারীকে পিষে টেনে নিল সাবেক শিক্ষকের গাড়ি, হাসপাতালে মৃত্যু 

ছবি

আসাদগেটে প্রাইভেটকারে আগুন, দগ্ধ ২

ছবি

থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশুদের পাশে ইনার হুইল ক্লাব

ছবি

বিজয়ের মাসে চালু হচ্ছে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল

ছবি

রাজারবাগে সড়ক দুর্ঘটনায় অজ্ঞাত যুবকের মৃত্যু

কেরানীগঞ্জে জোড় ইজতেমায় লাখো মুসল্লির সমাগম 

ছবি

ট্যানারি শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় দ্রুত হাসপাতাল স্থাপনের দাবি

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৩৮

ছবি

ডিএনসিসি মেয়রের সঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

ছবি

আকর্ষণীয় পর্যটনকেন্দ্র হিমছড়ি পাহাড়, ঝুঁকিপূর্ণ উঠা-নামার পথ

ছবি

রামপুরায় নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিক নিহত

ছবি

বিপিএমসিএ’র নতুন কমিটি: মুবিন খান সভাপতি আনোয়ার খান সাধারণ সম্পাদক

জেন্ডার প্ল্যাটফর্ম ‘যৌন হয়রানি প্রতিরোধ আইন’ দাবি জানিয়েছে

আর্জেন্টিনার পতাকা টাঙাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই কিশোর দগ্ধ

ছবি

ঢাকাস্থ সাতক্ষীরা জেলা সমিতির কমিটি গঠন

ছবি

স্বাচিপের সম্মেলন ঘিরে উৎসবমুখর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান

ছবি

শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে প্যাঁচা জব্দ, ১৯ লাখ টাকা জরিমানা আদায়

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৭১

ছবি

তাজরীন ট্র্যাজেডি মামলা, ১০ বছরেও শেষ হয়নি বিচার

ছবি

‘আত্মহত্যা’ বলা হলেও ১০ মাস পর জানা গেল, মেয়েটি ধর্ষণের শিকার

ঢাকার সৌন্দর্য ফেরাতে তারের জঞ্জালমুক্ত করার আশা মেয়র তাপসের

পরিকল্পনাহীনতাই যেন আমাদের পরিকল্পনা

ঢাকার মিরপুরে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী কিশোর নিহত

ঢাকার মিরপুরে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী কিশোর নিহত

ছবি

প্রাথমিকে শূন্যপদে নিয়োগের দাবিতে মানববন্ধন : পুলিশি বাধার অভিযোগ

ছবি

‘ঢাকা অ্যাপে’ উত্তরে নির্দিষ্ট ওয়ার্ডগুলোতে কুইক রেসপন্স টিম

পথশিশুদের বিশ্ব ফুটবলে বাংলাদেশের ১১ শিশু

ছবি

রাজধানীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ৪৭

গভীর রাতে খিলগাও ফ্রঅইওভারে ট্রাকচাপায় তিন বন্ধুর মৃত্যু

কদমতলীর বিস্কুট কারখানায় ওভেন বিস্ফোরণে যুবক নিহত

হাজারীবাগে কৃষকের বাজার উদ্বোধন

tab

নগর-মহানগর

১৫ বছর ধরে বিমানবন্দরে সক্রিয় এক ‘অজ্ঞান পার্টি’

তিনশ’র বেশি প্রবাসীকে অজ্ঞান করে মালামাল লুট

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২

১৫ বছর ধরে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সক্রিয় একটি চক্র। যাদের কাজ বিদেশ ফেরত যাত্রীদের সঙ্গে সখ্য গড়ে সর্বস্ব লুটে নেয়া। এই চক্র এমন যাত্রীকে টার্গেট করত যার জন্য বিমানবন্দরে কোন আত্মীয়-স্বজন যায়নি, বা গাড়ি নিয়ে কেউ অপেক্ষা করছে না।

আর এই চক্রের নেতৃত্বে আছেন আমির হোসেন, যে বিমানবন্দরের উল্টো দিকে একটি ফাস্টফুডের দোকানে ১৫ বছর ধরে কাজ করছেন। ‘অজ্ঞান পার্টির’ খপ্পরে পড়ে এক প্রবাসীর সর্বস্ব হারানোর ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে আমিরসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাবব। আর তারপরই এই চক্রের খবর প্রকাশ্যে এলো।

গত ১৫ বছরে তিনশ’র বেশি প্রবাসীকে অজ্ঞান করে মালামাল লুটে নিয়েছে এই চক্র। আর আমিরের বিরুদ্ধে ১৫টির বেশি মামলাও রয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তিনি জানিয়েছেন ৫১ বছর বয়সী আমিরের বাড়ি বরিশালে। মাধ্যমিক পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে সে।

মঈন বলেন, ‘বিমানবন্দর রেলস্টেশন ও বাসস্ট্যান্ডকেন্দ্রিক অজ্ঞান পার্টি চক্রের নেতৃত্বে এখন আমির। সে কখনো বিদেশে যাননি। কিন্তু বিমানবন্দর এলাকায় সবসময় একটি পাসপোর্ট হাতে ঘোরেন। তার সঙ্গে লাগেজ থাকে। লাগেজের ওপর স্টিকার লাগানো থাকে যাতে মনে হয় তিনি বিদেশ থেকে ফিরলেন।

আমিরের সঙ্গে গ্রেপ্তার মো. লিটন মিয়া ওরফে মিল্টন (৪৮) একজন মাইক্রোবাস চালক, তার বাড়িও বরিশাল। আবু বক্কর সিদ্দিক ওরফে পারভেজ (৩৫) গয়নার ব্যবসায়ী, তার বাড়ি ফেনী। আর জাকির হোসেন (৪০) পেশায় ছাপাখানার কর্মী। তার বাড়ি পটুয়াখালী।

কমান্ডার মঈন রোববার (২ অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘চক্রের সদস্য সংখ্যা আট থেকে ১০ জনের মতো। তাদের অনেকেই এখন কারাগারে। জেল থেকে বের হয়ে তারা আবার একই পেশায় নামেন। তারা মূলত বিদেশ থেকে আসা সেসব প্রবাসীদের টার্গেট করতেন, যাদের নেয়ার জন্য কোন আত্মীয়-স্বজন বিমানবন্দরে আসেননি।’

তাদের কাছ থেকে মোবাইল ফোন, প্রবাসীদের অচেতন করার নেশাজাতীয় ট্যাবলেট এবং লাগেজ ও লুটকৃত স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত স্বর্ণ গলানো হয়েছে।

সর্বশেষ গত ২ সেপ্টেম্বর কুয়েতফেরত এক প্রবাসীর মালামাল লুট করে চক্রটি। সেদিন ভোরে বিমানবন্দরে নেমে বগুড়ায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন ওই প্রবাসী। এরপরই চক্রের একজন সদস্য বিমানবন্দরে ওই প্রবাসীকে অনুসরণ করে এবং তার সঙ্গে আলাপ জমান।

র‌্যাব বলছে, ওই প্রবাসী উত্তরা আজমপুর বাসস্ট্যান্ডে কাউন্টারে টিকেট কাটতে যান। ততক্ষণে ওই প্রবাসীর বিশ্বাস অর্জন করেন চক্রের সেই সদস্য। আর তখন লাগেজ ও পাসপোর্ট হাতে দৃশ্যপটে হাজির হন আমির। মাত্র কুয়েত থেকে এসেছেন এমন পরিচয় দিয়ে আমির বলেন, তারও গন্তব্যও বগুড়া।

নিজের কথা বিশ্বাসযোগ্য করতে আমির পকেট থেকে কুয়েতি মুদ্রা বের করে দেখান। নিজের সহযোগীদের ‘নিকট আত্মীয়’ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন ওই প্রবাসীর সঙ্গে।

এরপর তারা বলেন যে, তাদের কাছে অতিরিক্ত একটি বাসের টিকেট আছে। তাদের একজন আত্মীয় যাওয়ার কথা ছিল বলে কাটা হয়েছিল, কিন্তু তিনি যাচ্ছেন না। ওই প্রবাসী চাইলে তাদের সঙ্গে যেতে পারেন, জিজ্ঞাসাবাদের সূত্রে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা মঈন।

তাদের প্রস্তাবে প্রবাসী রাজি হয়ে গেলে তারা উত্তরার আজমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে বগুড়াগামী একটি বাসে উঠে বসেন। আমির ও ওই প্রবাসী পাশাপাশি আসনে বসেন। গ্রেপ্তার লিটন মিয়া পাশের আরেকটি আসনে বসেন। বাস চলতে শুরু করলে চেতনানাশক মিশ্রিত বিস্কুট খাইয়ে প্রবাসীকে অজ্ঞান করে ফেলেন আমির।

গ্রেপ্তারদের ‘স্বীকারোক্তির’ উদ্ধৃতি দিয়ে কমান্ডার মঈন জানান, এরপর ওই প্রবাসীর পকেট থেকে বাসের লাগেজ ট্যাগ বের নেন তারা। সিরাজগঞ্জ এলাকায় তার লাগেজ নিয়ে বাস থেকে নেমে যান আমির ও লিটন মিয়া। এরপর বাসের সুপারবাইজার প্রবাসীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে। পরে বিষয়টি বুঝতে পেরে সে ওই ব্যক্তির আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেন।

র‌্যাব বলছে, ওই ব্যক্তির ব্যাগে প্রায় আট ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ দামি জিনিসপত্র ছিল। স্বর্ণালঙ্কারগুলো শ্যামপুরের জুয়েলার্স দোকানের মালিক পারভেজের কাছে বিক্রি করেন আমির ও তার সহযোগীরা। আট ভরি স্বর্ণ নিয়ে সাড়ে ছয় ভরির দাম ধরে পৌনে পাঁচ লাখ টাকা আমিরকে দেন পারভেজ।

সেখান থেকে লিটন মিয়া ভাগ পান এক লাখ। জাকির ও আরেক ব্যক্তিকে ৫০ হাজার করে টাকা দেন আমির। বাকি টাকা আমির নিজে নিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

পরে পারভেজকে গ্রেপ্তার করে তার কাছ থেকে লুটকৃত স্বর্ণের কিছু অংশ গলিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। কমান্ডার মঈন জানান, এর আগেও বিভিন্ন সময় পারভেজের কাছে লুটের মাল বিক্রি করেছেন আমির। গ্রেপ্তার হওয়া জাকির ও অন্য আরেকজন এই লুটে তার সহযোগী হিসেবে কাজ করেছে। তারাও লুটের ভাগ পেয়েছে।

র‌্যাবের পরিচালক কমান্ডার মঈন বলেন, ‘আমির তিন-চারদিন পরপর এরকম একজনকে টার্গেট করেন। এ বছরই তিনি দুইবার গ্রেপ্তার হয়েছেন।’ আমিরের বিরুদ্ধে শুধু প্রতারণা ও লুটের মামলাই পাওয়া গেছে ১৫টি। এছাড়া আরও ফৌজদারি মামলাও রয়েছে। কয়েকবার গ্রেপ্তার হলেও জামিনে বেরিয়ে আবারও প্রতারণার কাজ করেন।

র‌্যাব বলছে, গত জানুয়ারিতে সৌদি প্রবাসী এক ব্যক্তির কাছ থেকে একইভাবে সর্বস্ব লুটে নেয় আমিরের চক্র। এপ্রিলে আরেক প্রবাসীর সর্বস্ব লুট করেন তারা।

আমিরের সহযোগী লিটন মিয়া পেশায় মাইক্রোবাস চালক। তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে সে। লিটনও একাধিকবার গ্রেপ্তার হয়েছেন বলে জানান কমান্ডার মঈন। সেও একাধিকবার গ্রেপ্তার হয়েছিল। সে বিভিন্ন সময় প্রবাসীদের মাইক্রোবাসে আনা-নেয়ার সুযোগে সর্বস্ব লুট করে নিত।

গ্রেপ্তার পারভেজ বলেছে, সে ৮-৯ বছর জুয়েলারি দোকানের কর্মচারী হিসেবে কাজ করেছে। ৬-৭ বছর আগে নিজেই রাজধানীর শ্যামপুরে জুয়েলারি দোকান দিয়েছে। জুয়েলারি দোকানের আড়ালে সে গত ২ থেকে ৩ বছর ধরে লুটকৃত স্বর্ণ কিনে গলিয়ে বিক্রি করত।

গ্রেপ্তারকৃত জাকির হোসেন বলেছে, সে ছাপাখানার ঠিকাদার হিসেবে কাজ করে। গত ৩ থেকে ৪ বছর আগে সে অভিযুক্ত আমিরের সঙ্গে যোগ দেয়। সে লুটকৃত স্বর্ণালঙ্কার ও অন্য মালামাল রাজধানীর বিভিন্ন জুয়েলারি দোকানসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্রির সঙ্গে জড়িত।

back to top