alt

নগর-মহানগর

বায়ুদূষণ কমাতে জরুরী ভিত্তিতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীতে মানববন্ধন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : সোমবার, ২২ মে ২০২৩

শাহবাগ চত্বরে আজ সোমবার সকালেবায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর উদ্যোগে বায়ুদূষণ কমাতে জরুরী ভিত্তিতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ আয়োজনে সহ-আয়োজক হিসেবে ছিলেন বিএনসিএ, বারসিক, সেভ ফিউচার বাংলাদেশ, জিএলটিএস, গ্রীন ভয়েজ, পরিবেশ উদ্যোগ, সিপিআরডি, সিজিইডি নির্বাহী পরিচালক এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জমান মজুমদার, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা বিভাগের শিক্ষক ও ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইপিডি) এর নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর কবির, বারসিক এর সমন্বয়কারী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সিজিইডি এর নির্বাহী পরিচালক আব্দুল ওহাব, বিএনসিএ সহ-সমন্বয় শামস সুমন, গ্রীন ভয়েজ এর সহ-সমন্বয়ক হুমায়ুন কবির সুমন, সিপিইডি এর ইমরান সরকার, পরিবেশ উদ্যোগ এর সমন্বয়ক মাহমুদা ইসলাম এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিসের নির্বাহী সমন্বয়কারী সোহানুর রহমান।

বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জমান মজুমদার বলেন, সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশের পরিবেশ দূষণ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, বিভিন্ন শহর ধীরে ধীরে বসবাসের যোগ্যতা হারাচ্ছে। সারা দেশে প্রবাহমান তীব্র দাবদাহের পেছনে জলবায়ু পরিবর্তনের পাশাপাশি বায়ুদূষণও দায়ী। ধুলিকণা এবং দূষিত গ্যাসের তাপ শোষণ করার ক্ষমতা থাকার কারণে বর্তমানে অত্যধিক দূষিত বায়ুতে অবস্থিত ধুলিকণা এবং গ্যাসীয় পদার্থগুলো সূর্যের তাপমাত্রাকে শোষণ করে তাপ প্রবাহ সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখছে। পাশাপাশি সালাফার ডাই অক্সাইড, নাইট্রোজেন অক্সাইড, কার্বন মনো অক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা রাখে। সুতরাং তাপমাত্রার বৃদ্ধি কমাতে বায়ু দূষণ কমানো জরুরি। অথচ দেশে বায়ুদূষণ কমানোর ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সমন্বিত কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। বরং প্রতিনিয়ত বায়ুদূষণের নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। অতি দ্রুত বায়ুদূষণ কমাতে পদক্ষেপ না নিলে জনজীবন আরও দুর্বিষহ হয়ে উঠবে। তিনি বায়ু দূষণ ও তাপমাত্রা কমানোর জন্য বনায়ন ও জলাভূমি সংরক্ষণের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব বলেন, বায়ু দূষণের জন্য আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শারীরিক প্রতিবন্ধী হয়ে বেড়ে উঠবে। এই জায়গা থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে আমরা দায়বদ্ধ। নিশ্চয়ই আমরা ঘুরে দাঁড়াবো। আল্লাহ সুবহানাল্লাহু তাআলা আমাদেরকে এমন এক দেশ দিয়েছেন যেখানে বীজ বপন করলেই গাছ হয়, শুধু লালন-পালন করলেই আমরা এই ক্ষতিকর বায়ুদূষণ থেকে মুক্তিলাভ করতে পারি। আজকে আমরা সবাই অঙ্গীকারবদ্ধ হই এই শহরকে আবার সাজাবো এবং এর জন্য সকলকে একসাথে হয়ে কাজ করবো।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা বিভাগের শিক্ষক ও ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইপিডি) এর নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান বলেন, বাংলাদেশে বায়ুদূষণ এখন একটি উদ্বেগজনক জায়গায় আছে, অথচ রাষ্ট্র কিন্তু এখানে নির্বিকার। এই বায়ুদূষণ নিয়ে যে গবেষণা হচ্ছে বেশির ভাগই হচ্ছে বেসরকারি উদ্যোগে। সরকারি যে কয়েকটা গবেষণা হচ্ছে সেখানে অল্প জায়গাতে বায়ুমান পরিমাপ করা হচ্ছে কিন্তু তা দিয়ে পুরো শহরের যে ক্রান্তিক অবস্থা সেটা বুঝার উপায় নেই। অথচ রাষ্ট্রর উচিত ছিল সরকারি ভাবে সকলকে নিয়ে আলোচনা করা, গবেষণা করা ও করনীয়গুলি ঠিক করা।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর কবির বলেন, বায়ুদূষণের ফলে ধীরে ধীরে আমরা অসুস্থ জাতিতে পরিণত হচ্ছি। সকলকে নিয়মিত ভাবে বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের সাথে একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে। সরকারকে বিভিন্ন পর্যায়ে দূষণের উৎস গুলো কমিয়ে আনতে আইনের প্রয়োগ করতে হবে।

বারসিক এর সমন্বয়কারী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বায়ুদূষণ আমাদের অস্তিত্বের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই বায়ুদূষণ আমাদের সমস্ত নগর এলাকার মানুষের জীবনকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে। নগর হলো উন্নত জীবন ধারণের স্থান হিসেবে বিবেচিত। কিন্তু অপরিকল্পিত উন্নয়ন, ইটভাটা, যানবাহন ও শিল্পকারখানার ধোঁয়ার কারণে নগরের বায়ু প্রতিনিয়ত দূষিত হচ্ছে এবং পরিবেশ দিন দিন বসবাসের জন্য অযোগ্য হয়ে যাচ্ছে। তাই বায়ুদূষণ কমানোর জন্য এখনই উদ্যোগ গ্রহণ করা জরুরী।

ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস এর নির্বাহী সমন্বয়কারী সোহানুর রহমান বলেন, প্রাণঘাতী বায়ুদূষণের মোকাবিলায় সরকারী পদক্ষেপ কেবল একটি দায়িত্ব নয়, নৈতিক আবশ্যক। কারণ এটি আমদের শিশু ও তরুণদের নির্মল শ্বাস-প্রশ্বাসের অধিকারকে ক্ষুণ্ণ করে। বায়ুদূষণের কারণে আমাদের ভয়াবহ স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে। তাই সরকারকে দ্বৈতনীতি পরিহার করে পরিবেশগত সুবিচার প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগী হতে হবে আজকেই, এখনই।

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. গুলশান আরা লতিফা বলেন, ঢাকা একদিকে যেমন ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা হিসেবে পরিচিত অন্যদিকে বায়ুদূষণের পরিমাণও দিন দিন বেড়ে চলেছে। এর কারণে স্বাস্থ্য ঝুঁকি, পরিবেশ অবক্ষয় এবং নানাবিধ সম্পদগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে নিজেদের রক্ষা করতে আমাদের প্রচুর গাছ লাগাতে হবে।

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মাহমুদা পারভীন বলেন, অপরিকল্পিত নগরায়নের ফলে ঢাকা শহরে প্রতিনিয়ত বাড়ছে নাগরিক ভোগান্তি। এসব ভোগান্তির মধ্যে অন্যতম প্রধান কারণ হল বায়ু দূষণ, যা আমাদের জীবনকে করে তুলছে অসহনীয়।

পরিবেশ উদ্যোগ এর সমন্বয়ক মাহমুদা ইসলাম বলেন, বায়ু দূষণে প্রতিনিয়ত ঢাকা প্রথম দশটি শহরের মধ্যে থাকার পরেও কোন সমন্বিত উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। উপরন্ত যেসব আইন বিধিমালা আছে সেগুলো ঠিকমতো মানা হচ্ছে না বরং গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে। ধীরে ধীরে আমরা এক ভয়ঙ্কর ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি।

সিজিইডি এর নির্বাহী পরিচালক আব্দুল ওহাব বলেন, এই নগরের বায়ুদূষণ কমানোর জন্য সরকার ও জনগণকে সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করতে হবে। যেসব উৎস থেকে বায়ুদূষণ হচ্ছে তা নিরসনের জন্য প্রযুক্তিগত ব্যবস্থা নিতে হবে এবং সচেতন হতে হবে।

উক্ত মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ সহ অনান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকামন্ডলী এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ, বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর গবেষকগণ এবং বারসিক, বিএনসিএ, সেভ ফিউচার বাংলাদেশ, জিএলটিএস, গ্রীন ভয়েজ, পরিবেশ উদ্যোগ, সিপিআরডি, সিজিইডি এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস সহ অন্যান্য পরিবেশবাদী সংস্থার সদস্যবৃন্দ।

উক্ত মানববন্ধনে নিম্মলিখিত ৪টি দাবি ও ১৫ টি সুপারিশ নীতিনির্ধারনীয় পর্যায়ে পর্যালোচনাপূর্বক গ্রহণ করলে বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণ হবে বলে বক্তরা মত প্রকাশ করে।

ছবি

চট্টগ্রামে বস্তিতে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৯ ইউনিট

ছবি

ঢাকায় পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ৮

ঢাবি চারুকলার বকুলতলায় গান-নাচ-আবৃত্তিতে চৈত্রসংক্রান্তি উদ্‌যাপন

ছবি

ঢাকায় এসেছে ইসরায়েলের ফ্লাইট, বেবিচকের ব্যাখা

ছবি

বর্ষবরণের অপেক্ষায় রমনা

ছবি

যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ওপর গাড়িতে আগুন লাগে জানান পুলিশ

লঞ্চের দড়ি ছিঁড়ে ৫ জনের মৃত্যু : আসামিদের তিন দিনের রিমান্ড

ছবি

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ওপর প্রাইভেট কারে আগুন

রাজধানীর শাহজাদপুরে বুথের নিরাপত্তা প্রহরীকে হত্যা

ছবি

যাত্রীদের পিটুনিতে হয়নি চালক-সহকারীর মৃত্যু, হেলপার গল্প সাজিয়েছে বলছে পুলিশ

ছবি

ঈদের দিন বন্ধ থাকবে মেট্রোরেল

ছবি

মেট্রোরেলের পিলারে বাসের ধাক্কা

ছবি

কেএনএফের তৎপরতা নিয়ে ঢাকায় কোনো শঙ্কা নেই: ডিএমপি কমিশনার

ছবি

আবাসিক হোটেল থেকে নির্মাতা সোহানুর রহমানের মেয়ের মরদেহ উদ্ধার

কেটলির শর্টসার্কিট থেকে লিকেজের গ্যাসে বিস্তার

ছবি

জনগণের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক করতে পুলিশের সব ইউনিট একযোগে কাজ করছে : আইজিপি

ছবি

কমলাপুর স্টেশনে বেড়েছে যাত্রীর চাপ, টিকেট ছাড়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

ছবি

ঈদে ঢাকা ছাড়ার আগে নগরবাসীকে ডিএমপির ১৪ পরামর্শ

ছবি

আগামী দিনে সদরঘাট আরও ফিটফাট হবে : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

ছবি

মেট্রোরেলে ভ্যাট, ঘোষণা কে দিলো ‘জানেন না’ ওবায়দুল কাদের

ছবি

পর্নোগ্রাফির উদ্দেশ্যে ধর্ষণের ভিডিও করা হয় : পুলিশ

এডিস মশা : ডাবের খোসাসহ পরিত্যক্ত দ্রব্যাদি কিনবে ঢাকা উত্তর সিটি

ছবি

মেট্রোরেলের ভাড়া বাড়ছেে, ১৫% ভ্যাট বসানোর সিদ্ধান্ত

ঈদ যাত্রায় টার্মিনালের বাইরে যাত্রী ওঠানামা নয়: ট্রাফিক পুলিশ

ছবি

তেলবাহী লরি উল্টে আগুন : দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু

ছবি

ডেমরায় ১৪ বাসে আগুন নিয়ে রহস্য

ছবি

দেশে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নাজুক : মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান

ছবি

‘বৈষম্যহীন সমাজ বিনির্মাণে তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে’

ছবি

তেলের লরি উল্টে আগুনে দগ্ধদের কেউ শংকামুক্ত নন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

সাভারে তেলের লরি উল্টে আগুনে দগ্ধ ৪ জনের অবস্থা গুরুতর

ধর্ষণ:যত বড় হোক, নাম যেন তদন্তে আসে’

ছবি

মার্চ মাসে ২৪৫জন নারী ও কন্যা নির্যাতিত: মহিলা পরিষদ

ছবি

ফুটপাতসহ বিপণি বিতানগুলোতে জমে উঠেছে ঈদ কেনাকাটা

ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর গলায় ফাঁস

ছবি

বিদ্যুতের তারে পলিথিন, মেট্রোরেল বন্ধ এক ঘণ্টা

ছবি

নববর্ষের অনুষ্ঠান সন্ধ্যায় শেষের নির্দেশনা প্রত্যাহারের দাবি সাংস্কৃতিক জোটের

tab

নগর-মহানগর

বায়ুদূষণ কমাতে জরুরী ভিত্তিতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীতে মানববন্ধন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

সোমবার, ২২ মে ২০২৩

শাহবাগ চত্বরে আজ সোমবার সকালেবায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর উদ্যোগে বায়ুদূষণ কমাতে জরুরী ভিত্তিতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ আয়োজনে সহ-আয়োজক হিসেবে ছিলেন বিএনসিএ, বারসিক, সেভ ফিউচার বাংলাদেশ, জিএলটিএস, গ্রীন ভয়েজ, পরিবেশ উদ্যোগ, সিপিআরডি, সিজিইডি নির্বাহী পরিচালক এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জমান মজুমদার, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা বিভাগের শিক্ষক ও ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইপিডি) এর নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর কবির, বারসিক এর সমন্বয়কারী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সিজিইডি এর নির্বাহী পরিচালক আব্দুল ওহাব, বিএনসিএ সহ-সমন্বয় শামস সুমন, গ্রীন ভয়েজ এর সহ-সমন্বয়ক হুমায়ুন কবির সুমন, সিপিইডি এর ইমরান সরকার, পরিবেশ উদ্যোগ এর সমন্বয়ক মাহমুদা ইসলাম এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিসের নির্বাহী সমন্বয়কারী সোহানুর রহমান।

বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জমান মজুমদার বলেন, সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশের পরিবেশ দূষণ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, বিভিন্ন শহর ধীরে ধীরে বসবাসের যোগ্যতা হারাচ্ছে। সারা দেশে প্রবাহমান তীব্র দাবদাহের পেছনে জলবায়ু পরিবর্তনের পাশাপাশি বায়ুদূষণও দায়ী। ধুলিকণা এবং দূষিত গ্যাসের তাপ শোষণ করার ক্ষমতা থাকার কারণে বর্তমানে অত্যধিক দূষিত বায়ুতে অবস্থিত ধুলিকণা এবং গ্যাসীয় পদার্থগুলো সূর্যের তাপমাত্রাকে শোষণ করে তাপ প্রবাহ সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখছে। পাশাপাশি সালাফার ডাই অক্সাইড, নাইট্রোজেন অক্সাইড, কার্বন মনো অক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা রাখে। সুতরাং তাপমাত্রার বৃদ্ধি কমাতে বায়ু দূষণ কমানো জরুরি। অথচ দেশে বায়ুদূষণ কমানোর ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সমন্বিত কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। বরং প্রতিনিয়ত বায়ুদূষণের নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। অতি দ্রুত বায়ুদূষণ কমাতে পদক্ষেপ না নিলে জনজীবন আরও দুর্বিষহ হয়ে উঠবে। তিনি বায়ু দূষণ ও তাপমাত্রা কমানোর জন্য বনায়ন ও জলাভূমি সংরক্ষণের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব বলেন, বায়ু দূষণের জন্য আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শারীরিক প্রতিবন্ধী হয়ে বেড়ে উঠবে। এই জায়গা থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে আমরা দায়বদ্ধ। নিশ্চয়ই আমরা ঘুরে দাঁড়াবো। আল্লাহ সুবহানাল্লাহু তাআলা আমাদেরকে এমন এক দেশ দিয়েছেন যেখানে বীজ বপন করলেই গাছ হয়, শুধু লালন-পালন করলেই আমরা এই ক্ষতিকর বায়ুদূষণ থেকে মুক্তিলাভ করতে পারি। আজকে আমরা সবাই অঙ্গীকারবদ্ধ হই এই শহরকে আবার সাজাবো এবং এর জন্য সকলকে একসাথে হয়ে কাজ করবো।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা বিভাগের শিক্ষক ও ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইপিডি) এর নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান বলেন, বাংলাদেশে বায়ুদূষণ এখন একটি উদ্বেগজনক জায়গায় আছে, অথচ রাষ্ট্র কিন্তু এখানে নির্বিকার। এই বায়ুদূষণ নিয়ে যে গবেষণা হচ্ছে বেশির ভাগই হচ্ছে বেসরকারি উদ্যোগে। সরকারি যে কয়েকটা গবেষণা হচ্ছে সেখানে অল্প জায়গাতে বায়ুমান পরিমাপ করা হচ্ছে কিন্তু তা দিয়ে পুরো শহরের যে ক্রান্তিক অবস্থা সেটা বুঝার উপায় নেই। অথচ রাষ্ট্রর উচিত ছিল সরকারি ভাবে সকলকে নিয়ে আলোচনা করা, গবেষণা করা ও করনীয়গুলি ঠিক করা।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর কবির বলেন, বায়ুদূষণের ফলে ধীরে ধীরে আমরা অসুস্থ জাতিতে পরিণত হচ্ছি। সকলকে নিয়মিত ভাবে বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের সাথে একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে। সরকারকে বিভিন্ন পর্যায়ে দূষণের উৎস গুলো কমিয়ে আনতে আইনের প্রয়োগ করতে হবে।

বারসিক এর সমন্বয়কারী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বায়ুদূষণ আমাদের অস্তিত্বের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই বায়ুদূষণ আমাদের সমস্ত নগর এলাকার মানুষের জীবনকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে। নগর হলো উন্নত জীবন ধারণের স্থান হিসেবে বিবেচিত। কিন্তু অপরিকল্পিত উন্নয়ন, ইটভাটা, যানবাহন ও শিল্পকারখানার ধোঁয়ার কারণে নগরের বায়ু প্রতিনিয়ত দূষিত হচ্ছে এবং পরিবেশ দিন দিন বসবাসের জন্য অযোগ্য হয়ে যাচ্ছে। তাই বায়ুদূষণ কমানোর জন্য এখনই উদ্যোগ গ্রহণ করা জরুরী।

ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস এর নির্বাহী সমন্বয়কারী সোহানুর রহমান বলেন, প্রাণঘাতী বায়ুদূষণের মোকাবিলায় সরকারী পদক্ষেপ কেবল একটি দায়িত্ব নয়, নৈতিক আবশ্যক। কারণ এটি আমদের শিশু ও তরুণদের নির্মল শ্বাস-প্রশ্বাসের অধিকারকে ক্ষুণ্ণ করে। বায়ুদূষণের কারণে আমাদের ভয়াবহ স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে। তাই সরকারকে দ্বৈতনীতি পরিহার করে পরিবেশগত সুবিচার প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগী হতে হবে আজকেই, এখনই।

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. গুলশান আরা লতিফা বলেন, ঢাকা একদিকে যেমন ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা হিসেবে পরিচিত অন্যদিকে বায়ুদূষণের পরিমাণও দিন দিন বেড়ে চলেছে। এর কারণে স্বাস্থ্য ঝুঁকি, পরিবেশ অবক্ষয় এবং নানাবিধ সম্পদগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে নিজেদের রক্ষা করতে আমাদের প্রচুর গাছ লাগাতে হবে।

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মাহমুদা পারভীন বলেন, অপরিকল্পিত নগরায়নের ফলে ঢাকা শহরে প্রতিনিয়ত বাড়ছে নাগরিক ভোগান্তি। এসব ভোগান্তির মধ্যে অন্যতম প্রধান কারণ হল বায়ু দূষণ, যা আমাদের জীবনকে করে তুলছে অসহনীয়।

পরিবেশ উদ্যোগ এর সমন্বয়ক মাহমুদা ইসলাম বলেন, বায়ু দূষণে প্রতিনিয়ত ঢাকা প্রথম দশটি শহরের মধ্যে থাকার পরেও কোন সমন্বিত উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। উপরন্ত যেসব আইন বিধিমালা আছে সেগুলো ঠিকমতো মানা হচ্ছে না বরং গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে। ধীরে ধীরে আমরা এক ভয়ঙ্কর ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি।

সিজিইডি এর নির্বাহী পরিচালক আব্দুল ওহাব বলেন, এই নগরের বায়ুদূষণ কমানোর জন্য সরকার ও জনগণকে সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করতে হবে। যেসব উৎস থেকে বায়ুদূষণ হচ্ছে তা নিরসনের জন্য প্রযুক্তিগত ব্যবস্থা নিতে হবে এবং সচেতন হতে হবে।

উক্ত মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ সহ অনান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকামন্ডলী এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ, বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) এর গবেষকগণ এবং বারসিক, বিএনসিএ, সেভ ফিউচার বাংলাদেশ, জিএলটিএস, গ্রীন ভয়েজ, পরিবেশ উদ্যোগ, সিপিআরডি, সিজিইডি এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস সহ অন্যান্য পরিবেশবাদী সংস্থার সদস্যবৃন্দ।

উক্ত মানববন্ধনে নিম্মলিখিত ৪টি দাবি ও ১৫ টি সুপারিশ নীতিনির্ধারনীয় পর্যায়ে পর্যালোচনাপূর্বক গ্রহণ করলে বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণ হবে বলে বক্তরা মত প্রকাশ করে।

back to top