alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

চালক ‘সেজে’ শিক্ষার্থী অপহরণ ১৪ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়, গ্রেপ্তার ৭

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ২৪ মার্চ ২০২৪

ঢাকার ধানমন্ডির মাস্টারমাইন্ড স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে অপহরণের পর মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনায় ওই পরিবারের গাড়িচালকসহ সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

রোববার (২৪ মার্চ) সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেন, থানায় মামলার পর গোয়েন্দা পুলিশ অপহরণের রহস্য উদঘাটন করে।

তিনি বলেন, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ এ ঘটনায় গাড়ি চালক কামরুল (২৮) ও তার ভগ্নিপতি আবদুল্লাহ আল মামুনসহ (৩৭) সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে। কামরুলের সহাযোগিতায় মামুন এ অপহরণের পরিকল্পনা করে। ভগ্নিপতিকে সঙ্গে নিয়ে কামরুল হাসান নামের ওই গাড়িচালক স্কুলে যাওয়ার পথে ওই শিক্ষার্থীকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়ে অপহরণের নাটক সাজায় এবং দেড় কোটি টাকা দাবি করে ১৪ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা প্রধান হারুন বলেন, গত ২০ মার্চ সকালে ধানমন্ডি মাস্টারমাইন্ড স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ১১ বছর বয়সী এক শিক্ষার্থী তাদের ব্যক্তিগত চালকসহ অপহৃত হন। পরে অপহরণকারীরা দেড় কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। মুক্তিপণের টাকা না দিলে দুইজনকেই হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়।

ওই দিনই সমঝোতা করে ১৪ লাখ টাকা অপহরণকারীদের হাতে তুলে দিলে বিকালের দিকে চালক ও শিক্ষার্থী মুক্তি পান।

গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- নূর আলম (৩০), রনি মিয়া (৩০), মনির হোসেন (৩২), জনি বিশ্বাস (৪২) ও আসলাম হাওলাদার (২৮)।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ৭টায় স্কুলের সামনে পৌঁছামাত্র মোটরসাইকেলে আসা অপহরণকারীরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে প্রাইভেট কারটি নিয়ন্ত্রণে নেয় এবং চালক ও শিক্ষার্থীকে নিয়ে সাভারের গেন্ডায় চলে যায়। পরে শুধু প্রাইভেট কারটি বসিলা ব্রিজের কাছে ওয়াশপুরে রাস্তার উপর চাবিসহ রেখে যায়।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা হারুন বলেন, এ ঘটনায় ধানমন্ডি থানায় মামলা হওয়ার পর গোয়েন্দা তৎপরতা শুরু করা হয়। তদন্তে নিশ্চিত হওয়া যায় চালকই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত রয়েছে। পরে কুমিল্লা, ফেনী, চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ অপহরণের মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে মামুনের নাম তুলে ধরে ডিএমপির ডিবি প্রধান বলেন, মামুনের একটি বড় সিন্ডিকেট রয়েছে। তিনি নানা ধরনের অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত। এ চক্রের সদস্যদের বিভিন্ন জায়গায় ব্যক্তিগত বা কোন প্রতিষ্ঠানে চাকুরি দিয়ে তাদের দিয়ে অপরাধ করায়। তার দলের অধিকাংশই গাড়িচালক।

হারুন বলেন, ধানমন্ডির এ শিক্ষার্থী অপহরণের ঘটনায় মামুন তার শ্যালক কামরুলকে ব্যবহার করে। গ্রেপ্তার সাতজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

ছবি

আড়াইহাজারে কিশোরী গণধর্ষণ : অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৪

ছবি

পাহাড়কেন্দ্রিক অপহরণ চক্রের প্রধান মোর্শেদ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার

২২ বছর পর স্ত্রী হত্যায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেপ্তার

আড়াইহাজারে কিশোরীকে তুলে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

৭ বছর পর শিশু হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন

ব্যবসার আড়ালে অনলাইনে প্রতারণার অভিযোগ

ছবি

ঢাকা বাড্ডায় এক হত্যা মামলায় তিন আসামির যাবজ্জীবন

ছবি

সাগর-রুনি হত্যা: মামলার প্রতিবেদন জমা আবারও পেছালো

ছবি

আদালতের সময় নষ্ট করায় সেলিম প্রধানকে জরিমানা

খুলনা ও মৌলভীবাজারে চার জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দেড় বছরে ৮০ জন হত্যা

ছবি

উড়োজাহাজ লিজে অনিয়ম: বিমানের সাবেক এমডিসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

চাকরি দেওয়ার কথা বলে অর্থ আত্মসাৎ, বরখাস্ত অফিস সহায়কের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

সার আত্মসাৎ মামলায় সাবেক এমপি পোটনসহ ৫ জন কারাগারে

ছবি

বিমানবন্দর ও টঙ্গী থেকে ৭ ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার

ছবি

ইন্স্যুরেন্স চাকরির আড়ালে জঙ্গি সংগঠনের রিক্রুটার : ডিবি

ছবি

স্বামী-স্ত্রীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

গোবিন্দগঞ্জে নির্যাতন করে গৃহবধূর মাথার চুল কেটে দিয়েছে প্রতিপক্ষ, ৩জন গ্রেফতার

লাখে ১১ হাজার লাভ দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ৬৩ লাখ টাকা আত্মসাৎ

ছবি

ধর্ম অবমাননায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে জবি শিক্ষার্থীর পাঁচ বছরের কারাদণ্ড

ভারতে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে কিডনি হাতিয়ে নিতো চক্রটি

ছবি

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য গ্রেপ্তার

ছবি

ডিজিটাল ডিভাইসে জানানো হতো উত্তর,১০মিনিটে পরীক্ষা শেষ

সংবাদের সার্কুলেশন ম্যানেজারকে প্রাণনাশের হুমকি

ছবি

নায়ক সোহেল চৌধুরী হত্যা: আজিজ মোহাম্মদ ভাই ও দুইজনের যাবজ্জীবন, খালাস ৬

মাদকের তথ্য দেয়ায় হাতের রগ কর্তন, আসামীর পরিবর্তে ভুক্তভোগীকেই আটক, পরে ৫০ হাজার টাকায় মুক্তি

সাবেক এসপি সুব্রত কুমার হালদারসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

ছবি

‘টর্চার সেলে’ নিজ হাতে অপারেশনের নামে পৈশাচিক আনন্দ পেতো মিল্টন : ডিবি প্রধান

ছবি

এবার মানবপাচার মামলায় মিল্টন সমাদ্দারের ৪ দিনের রিমান্ড

ছবি

ডিবি কার্যালয়ে মিল্টন সমাদ্দারের স্ত্রী, চলছে জিজ্ঞাসাবাদ

রাবির ক্যান্টিন পরিচালকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

ছবি

মিল্টন সমাদ্দার ৩ দিনের রিমান্ডে

ছবি

তিন দিন রিমান্ডে মিল্টন সমাদ্দার

ছবি

আলোচিত মিল্টন সমাদ্দারকে হেফাজতে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় : ছাত্রলীগ নেতাকে চাঁদা না দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধরের অভিযোগ

ছবি

নিঃসঙ্গ নারীদের টার্গেট, আমেরিকায় নেওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে প্রতারণা

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

চালক ‘সেজে’ শিক্ষার্থী অপহরণ ১৪ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়, গ্রেপ্তার ৭

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ২৪ মার্চ ২০২৪

ঢাকার ধানমন্ডির মাস্টারমাইন্ড স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে অপহরণের পর মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনায় ওই পরিবারের গাড়িচালকসহ সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

রোববার (২৪ মার্চ) সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেন, থানায় মামলার পর গোয়েন্দা পুলিশ অপহরণের রহস্য উদঘাটন করে।

তিনি বলেন, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ এ ঘটনায় গাড়ি চালক কামরুল (২৮) ও তার ভগ্নিপতি আবদুল্লাহ আল মামুনসহ (৩৭) সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে। কামরুলের সহাযোগিতায় মামুন এ অপহরণের পরিকল্পনা করে। ভগ্নিপতিকে সঙ্গে নিয়ে কামরুল হাসান নামের ওই গাড়িচালক স্কুলে যাওয়ার পথে ওই শিক্ষার্থীকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়ে অপহরণের নাটক সাজায় এবং দেড় কোটি টাকা দাবি করে ১৪ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা প্রধান হারুন বলেন, গত ২০ মার্চ সকালে ধানমন্ডি মাস্টারমাইন্ড স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ১১ বছর বয়সী এক শিক্ষার্থী তাদের ব্যক্তিগত চালকসহ অপহৃত হন। পরে অপহরণকারীরা দেড় কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। মুক্তিপণের টাকা না দিলে দুইজনকেই হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়।

ওই দিনই সমঝোতা করে ১৪ লাখ টাকা অপহরণকারীদের হাতে তুলে দিলে বিকালের দিকে চালক ও শিক্ষার্থী মুক্তি পান।

গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- নূর আলম (৩০), রনি মিয়া (৩০), মনির হোসেন (৩২), জনি বিশ্বাস (৪২) ও আসলাম হাওলাদার (২৮)।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ৭টায় স্কুলের সামনে পৌঁছামাত্র মোটরসাইকেলে আসা অপহরণকারীরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে প্রাইভেট কারটি নিয়ন্ত্রণে নেয় এবং চালক ও শিক্ষার্থীকে নিয়ে সাভারের গেন্ডায় চলে যায়। পরে শুধু প্রাইভেট কারটি বসিলা ব্রিজের কাছে ওয়াশপুরে রাস্তার উপর চাবিসহ রেখে যায়।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা হারুন বলেন, এ ঘটনায় ধানমন্ডি থানায় মামলা হওয়ার পর গোয়েন্দা তৎপরতা শুরু করা হয়। তদন্তে নিশ্চিত হওয়া যায় চালকই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত রয়েছে। পরে কুমিল্লা, ফেনী, চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ অপহরণের মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে মামুনের নাম তুলে ধরে ডিএমপির ডিবি প্রধান বলেন, মামুনের একটি বড় সিন্ডিকেট রয়েছে। তিনি নানা ধরনের অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত। এ চক্রের সদস্যদের বিভিন্ন জায়গায় ব্যক্তিগত বা কোন প্রতিষ্ঠানে চাকুরি দিয়ে তাদের দিয়ে অপরাধ করায়। তার দলের অধিকাংশই গাড়িচালক।

হারুন বলেন, ধানমন্ডির এ শিক্ষার্থী অপহরণের ঘটনায় মামুন তার শ্যালক কামরুলকে ব্যবহার করে। গ্রেপ্তার সাতজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

back to top