alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

মোরেলগঞ্জে ৩০৯ স্কুলে বায়োমেট্রিক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ে হরিলুট!

গনেশ পাল, মোরেলগঞ্জে (বাগেরহাট) : বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

https://sangbad.net.bd/images/2021/December/01Dec21/news/aaaaaa.jpg

মোরেলগঞ্জে (বাগেরহাট) : ৩ মাসেও চালু না হওয়া বায়োমেট্রিক মেশিন -সংবাদ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ডিজিটাল বায়োমেট্রিক শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি ও মোটা অঙ্কের অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে। তিন মাসেও বায়োমেট্রিক হাজিরা বিদ্যালয়গুলোতে চালু হয়নি। ডিভাইস ক্রয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট একাধিক চক্রের ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে টানাপোড়েনে বর্তমানে আটকে গেছে এ কার্যক্রম। শিক্ষকদের এখন গলার কাঁটা এ বায়োমেট্রিক মেশিন। দুর্নীতির ক্লু উদঘাটনে মাঠে নেমেছে তদন্ত টিম মাঠে। বাগেরহাট-৪, মোড়েলগঞ্জ-শরণখোলা আসনের সংসদ সদস্য আমিরুল আলম মিলন শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ের নামে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বারবার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এমপি’র অভিযোগে জানা গেছে, অত্র উপজেলায় শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ের নামে কালক্ষেপণ করা হয়। অনিয়মের কারনে অধিদপ্তর থেকে শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয় না করে টাকা ফেরত চাওয়া হয়। কিন্তু ডিভাইস সরবরাহ চক্র টাকা ফেরত না দিয়ে তড়িঘড়ি সর্বোচ্চ ৬ হাজার টাকার ডিভাইস ১৮ হাজার টাকা ভাউচার দেখিয়ে বাকি টাকা আত্মসাত করেন। বিষয়টি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করা হলে তিনি কোন ব্যবস্থা না নিয়ে বরং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দ্রুত কার্য সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন। সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার পৌর সদরসহ ১৬ ইউনিয়নের ৩০৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মান উন্নয়নে বরাদ্দকৃত রুটিন মেইনটেন্স, স্লিপের টাকা দিয়ে বায়োমেট্রিক হাজিরা ক্রয়ের জন্য উপজেলার সাবেক শিক্ষা কর্মকর্তা নির্দেশ প্রদান করেন। সে মোতাবেক বায়োমেট্রিক ক্রয়ের আগেই স্লিপের ২০ হাজার টাকার বিল ভাউচারও জমা দেন শিক্ষকরা।

https://sangbad.net.bd/images/2021/December/01Dec21/news/pic-2.jpg

ব্যবহার না করে আলমারিতে ফেলে রাখা বায়োমেট্রিক মেশিন

২০২০ সালের প্রথমদিকে কিছু বিদ্যালয়ে বায়োমেট্রিক মেশিন ১৮ হাজার টাকা মূল্য দেখিয়ে ক্রয় করাও হয়। ২০২০ সালে ১৭ মার্চ থেকে করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হলে এর কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। এরইমধ্যে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠলে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয় না করে এ বছরের ২৯ জুলাইয়ের মধ্যে স্লিপের টাকা ট্রেজারিতে জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। তার নির্দেশ উপেক্ষা করে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে তড়িঘড়ি করে অধিকাংশ বিদ্যালয়েই ডিভাইস পৌছে দেয় চুক্তিবদ্ধ ৩টি প্রতিষ্ঠান। এদিকে একাধিক প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে, মেশিনগুলো আলমীরাতে প্যাক করা অবস্থায় রয়েছে। কোথাও কোথায় ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের বাড়িতে রয়েছে মেশিন। একাধিক প্রধান শিক্ষক জানান, বায়োমেট্রিক মেশনি কোম্পানির লোক দিয়ে গেছে। তিন মাস হয়ে গেলেও এখনও সংযোগ দেয়নি। হসিদ মিলছে না ওই লোকদের। সংসদ সদস্যের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১০ নভেম্বর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (প্রকিউরমেন্ট) শেখ রায়হান উদ্দিন সরেজমিনে তদন্তে আসেন। তিনি উপস্থিত সকলের লিখিত স্বাক্ষ্য গ্রহন করেন এবং সকল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের লিখিত স্বাক্ষ্য দেয়ার জন্য নির্দেশ দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকা জানান, কয়েকজন শিক্ষিক নেতার চাপের মুখে এ বায়োমেট্রিক মেশিন নিতে বাধ্য হয়েছে। টাকাও নেয়া হয়েছে ১৮ হাজার করে। তারা আরো বলেন, কয়েক মাস হলে গেলেও এ মেশিন চালু করা হয়নি। যে কোন সময় অকেজো হওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার জালাল উদ্দিন খান বলেন, সকল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের কাছ থেকে উপ-পরিচালক বায়োমেট্রিক ক্রয়ের বিষয়ে লিখিত স্বাক্ষ্য নিয়েছেন। সাবেক উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সময়ে এ বায়োমেট্রিক ক্রয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছিল। বাগেরহাট জেলা শিক্ষা অফিসার শাহ আলম বলেন, ২ বছর পূর্বে স্লিপের ভাউচার জমা দিয়ে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয়। সে সময়ে অনেকে এ মেশিন ক্রয় করতে পারেনি। এ বছর শিক্ষকরা তড়িঘড়ি করে সেসব মেশিন ক্রয় করেছেন। তবে অনিয়ন হয়েছে কিনা জানা নাই।

ছবি

‘সুতার বান্ডিল’ সূত্রে শিমু হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন

ছবি

চিত্রনায়িকা শিমু হত্যা: স্বামী ও তার বন্ধু ৩ দিনের রিমান্ডে

ছবি

বুধবার থেকে সুপ্রিম কোর্ট চলবে ভার্চুয়ালি

ছবি

দাম্পত্য কলহের জেরে ‘স্বামীর হাতে খুন হন’ নায়িকা শিমু

ছবি

অরিত্রীর আত্মহত্যা: সাক্ষ্য দিলেন দুই শিক্ষিকা

গ্লাস সুমনসহ ৫ অভিযুক্ত গ্রেফতার

ছবি

অভিনেত্রী শিমু হত্যায় বন্ধুসহ স্বামী আটক

পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর বাড়ি-দোকান ভাঙচুর

৩ জেলায় দুই খুন, ১ জনের মৃত্যু রহস্যজনক

ছবি

অবাধে রেণু চিংড়ি আহরণ-বিকিকিনি, হুমকিতে দেশের মৎস্যসম্পদ

ছবি

কিশোরীকে আটক রেখে ধর্ষণের অভিযোগ গ্রেফতার ১

দক্ষিণখানে ২৪০ গ্রাম আইসসহ নারী মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

ছবি

নববর্ষে আতশবাজি-ফানুস নিষিদ্ধ চেয়ে হাইকোর্টে রিট

ছবি

বাঁকখালী নদীর প্যারাবন কেটে বসতি নির্মাণ বন্ধে আইনি নোটিশ

পীরগাছায় জমি বিবাদে তিন দিন অবরুদ্ধ পরিবার আতঙ্কে

চট্টগ্রামে আট জুয়াড়ি গ্রেপ্তার

আ’লীগ নেতাকে হত্যা চেষ্টা : গ্রেপ্তার ২

ছবি

দুদকের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে শিল্পকলার মহাপরিচালক লাকী

মা-মেয়েকে গাছে বেঁধে নির্মম নির্যাতন

ভান্ডারিয়ায় জমি বিবাদে ছোট ভাই হত

ফরিদপুরে ইজিবাইক চোর গ্রেপ্তার তিন

আড়াইহাজারে জমি বিবাদে আহত ১০

ছবি

ঢাবির অধ্যাপক হত্যা: কন্ট্রাক্টর ৩ দিনের রিমান্ডে

যাত্রাবাড়ী থেকে অপহরণ, লাশ মিললো কালীগঞ্জে

ছবি

ফেরিতে স্থাপিত ফগলাইট কারসাজি

ছবি

ঢাবির অধ্যাপককে ‘টাকার জন্য’ হত্যা করেন কন্ট্রাক্টর

ছবি

মিতু হত্যা: বাবুলের দুই সন্তানের সঙ্গে কথা বলতে চায় পিবিআই

মাদক মামলায় ৩ জনের জেল

ছবি

কক্সবাজারে হত্যার দায়ে একজনের মৃত্যুদন্ড, ৪ জনের যাবজ্জীবন

কলাপাড়ায় ১০ মণ জাটকা জব্দ

ছবি

চাঞ্চল্যকর জাকিয়া হত্যা মামলার রায় ২৭ জানুয়ারি

ছবি

একের পর এক খুন, ‘বাউল বেশে’ ঘুরতেন হেলাল

সরকারি সার প্যাকেটজাত, ডিলারকে জরিমানা

নওগাঁ পাসপোর্ট অফিসে মাসে কোটি টাকার ঘুষ বাণিজ্য

ছবি

শিক্ষকতার আড়ালে ‘জঙ্গি কার্যক্রম’ চালাতেন ওয়াহিদুল

ছবি

কন্ঠশিল্পী আসিফের বিচার শুরু

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

মোরেলগঞ্জে ৩০৯ স্কুলে বায়োমেট্রিক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ে হরিলুট!

গনেশ পাল, মোরেলগঞ্জে (বাগেরহাট)

বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

https://sangbad.net.bd/images/2021/December/01Dec21/news/aaaaaa.jpg

মোরেলগঞ্জে (বাগেরহাট) : ৩ মাসেও চালু না হওয়া বায়োমেট্রিক মেশিন -সংবাদ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ডিজিটাল বায়োমেট্রিক শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি ও মোটা অঙ্কের অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে। তিন মাসেও বায়োমেট্রিক হাজিরা বিদ্যালয়গুলোতে চালু হয়নি। ডিভাইস ক্রয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট একাধিক চক্রের ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে টানাপোড়েনে বর্তমানে আটকে গেছে এ কার্যক্রম। শিক্ষকদের এখন গলার কাঁটা এ বায়োমেট্রিক মেশিন। দুর্নীতির ক্লু উদঘাটনে মাঠে নেমেছে তদন্ত টিম মাঠে। বাগেরহাট-৪, মোড়েলগঞ্জ-শরণখোলা আসনের সংসদ সদস্য আমিরুল আলম মিলন শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ের নামে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বারবার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এমপি’র অভিযোগে জানা গেছে, অত্র উপজেলায় শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয়ের নামে কালক্ষেপণ করা হয়। অনিয়মের কারনে অধিদপ্তর থেকে শিক্ষক হাজিরা ডিভাইস ক্রয় না করে টাকা ফেরত চাওয়া হয়। কিন্তু ডিভাইস সরবরাহ চক্র টাকা ফেরত না দিয়ে তড়িঘড়ি সর্বোচ্চ ৬ হাজার টাকার ডিভাইস ১৮ হাজার টাকা ভাউচার দেখিয়ে বাকি টাকা আত্মসাত করেন। বিষয়টি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করা হলে তিনি কোন ব্যবস্থা না নিয়ে বরং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দ্রুত কার্য সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন। সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার পৌর সদরসহ ১৬ ইউনিয়নের ৩০৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মান উন্নয়নে বরাদ্দকৃত রুটিন মেইনটেন্স, স্লিপের টাকা দিয়ে বায়োমেট্রিক হাজিরা ক্রয়ের জন্য উপজেলার সাবেক শিক্ষা কর্মকর্তা নির্দেশ প্রদান করেন। সে মোতাবেক বায়োমেট্রিক ক্রয়ের আগেই স্লিপের ২০ হাজার টাকার বিল ভাউচারও জমা দেন শিক্ষকরা।

https://sangbad.net.bd/images/2021/December/01Dec21/news/pic-2.jpg

ব্যবহার না করে আলমারিতে ফেলে রাখা বায়োমেট্রিক মেশিন

২০২০ সালের প্রথমদিকে কিছু বিদ্যালয়ে বায়োমেট্রিক মেশিন ১৮ হাজার টাকা মূল্য দেখিয়ে ক্রয় করাও হয়। ২০২০ সালে ১৭ মার্চ থেকে করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হলে এর কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। এরইমধ্যে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠলে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয় না করে এ বছরের ২৯ জুলাইয়ের মধ্যে স্লিপের টাকা ট্রেজারিতে জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। তার নির্দেশ উপেক্ষা করে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে তড়িঘড়ি করে অধিকাংশ বিদ্যালয়েই ডিভাইস পৌছে দেয় চুক্তিবদ্ধ ৩টি প্রতিষ্ঠান। এদিকে একাধিক প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে, মেশিনগুলো আলমীরাতে প্যাক করা অবস্থায় রয়েছে। কোথাও কোথায় ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের বাড়িতে রয়েছে মেশিন। একাধিক প্রধান শিক্ষক জানান, বায়োমেট্রিক মেশনি কোম্পানির লোক দিয়ে গেছে। তিন মাস হয়ে গেলেও এখনও সংযোগ দেয়নি। হসিদ মিলছে না ওই লোকদের। সংসদ সদস্যের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১০ নভেম্বর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (প্রকিউরমেন্ট) শেখ রায়হান উদ্দিন সরেজমিনে তদন্তে আসেন। তিনি উপস্থিত সকলের লিখিত স্বাক্ষ্য গ্রহন করেন এবং সকল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের লিখিত স্বাক্ষ্য দেয়ার জন্য নির্দেশ দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকা জানান, কয়েকজন শিক্ষিক নেতার চাপের মুখে এ বায়োমেট্রিক মেশিন নিতে বাধ্য হয়েছে। টাকাও নেয়া হয়েছে ১৮ হাজার করে। তারা আরো বলেন, কয়েক মাস হলে গেলেও এ মেশিন চালু করা হয়নি। যে কোন সময় অকেজো হওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার জালাল উদ্দিন খান বলেন, সকল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের কাছ থেকে উপ-পরিচালক বায়োমেট্রিক ক্রয়ের বিষয়ে লিখিত স্বাক্ষ্য নিয়েছেন। সাবেক উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সময়ে এ বায়োমেট্রিক ক্রয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছিল। বাগেরহাট জেলা শিক্ষা অফিসার শাহ আলম বলেন, ২ বছর পূর্বে স্লিপের ভাউচার জমা দিয়ে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয়। সে সময়ে অনেকে এ মেশিন ক্রয় করতে পারেনি। এ বছর শিক্ষকরা তড়িঘড়ি করে সেসব মেশিন ক্রয় করেছেন। তবে অনিয়ন হয়েছে কিনা জানা নাই।

back to top