alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

শিশুসন্তানকে ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা কারাগারে

আদালত বার্তা পরিবেশক : বুধবার, ১২ জানুয়ারী ২০২২

চার বছরের শিশুসন্তানকে ধর্ষণ মামলায় ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ডা. ইব্রাহীম রহমান রুমিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত। মেয়েটির মায়ের করা মামলায় বুধবার (১২ জানুয়ারি) ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে আত্মসমর্পণ করলে ভারপ্রাপ্ত বিচারক জুলফিকার হায়াৎ এই আদেশ দেন।

এদিন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন রুমি। তার পক্ষে আদালতে কাজী নজিবুল্যাহ হিরু, মিজানুর রহমান মামুন, খন্দকার তানজীর মান্নান জামিন শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে মাহমুদা আক্তার জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।

আসামি ইব্রাহিম রহমান রুমি (৩৫) ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। রুমি ঝিনাইদহ-২ আসনের সাবেক সাংসদ ও বিএনপি উপদেষ্টা মসিউর রহমানের বড় ছেলে। তিনি ঢাকায় থাকেন কলাবাগানে।

রুমির সাবেক স্ত্রী গত ১ ডিসেম্বর কলাবাগান থানায় মামলাটি করেন। মামলায় তিনি উল্লেখ করেন, ২০১৬ সালের ২৬ জুন পারিবারিকভাবে ডা. ইব্রাহীম রহমান রুমির (৩৫) সঙ্গে তার বিয়ে হয়। এরপর বিবাদীর সঙ্গে সংসারকালে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। সংসার জীবনে বনিবনা না হওয়ায় গত বছরের ২৬ আগস্ট রুমির সঙ্গে তার বিচ্ছেদ ঘটে। গত বছরের ২৩ মার্চ বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৪টায় তার অনুপস্থিতিতে চার বছরের শিশুকন্যাকে উত্তরার বাসা থেকে নিয়ে যান রুমি। গত ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রুমি তার কন্যাকে কলাবাগানের বাসায় নিজের হেফাজতে রাখেন। শিশুটির মায়ের অভিযোগ, ওই সময় ফেরত চাইলেও তার কন্যাকে নিতে দেননি রুমি। পরে এ বছরের ২২ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের আদেশে কন্যাশিশুকে নিজের হেফাজতে নেন তিনি।

এজাহারে আরও বলা হয়, গত ১২ অক্টোবর রাত আনুমানিক ৮টায় আবারও শিশুসন্তানটিকে নিজের কলাবাগানের বাসায় আনেন ইব্রাহিম রহমান রুমি। পরদিন ১৩ অক্টোবর দুপুর ১২টার দিকে শিশুর মা কলাবাগান থেকে চার বছরের শিশুটিকে উত্তরায় নিজের বাসায় ফিরিয়ে আনেন। বাসায় আনার পর পরিহিত পোশাক পরিবর্তনকালে মেয়ের শরীরে নির্যাতনের ছাপ দেখতে পান তিনি। গত ২৩ মার্চ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর এবং ১২ অক্টোবর থেকে ১৩ অক্টোবর দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিবাদীর বর্তমান ঠিকানার বাসায় আমার মেয়ের অবস্থানকালে বিভিন্ন সময়ে মেয়েকে যৌন নির্যাতন করেন বলে বাদী এজাহারে উল্লেখ করেন। গত ১ ডিসেম্বর নিজের চার বছরের কন্যা সন্তানকে ধর্ষণের অভিযোগ এনে কলাবাগান থানায় মামলা দায়ের করেন রুমির স্ত্রী।

এদিকে, নিজের শিশু সন্তানকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে ইব্রাহিম রহমান রুমির বিরুদ্ধে রোববার (৯ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রুমির স্ত্রী আফিয়া বিনতে শাহে, শাশুড়ি মাগফুরা আহমেদ ও তার শিশু কন্যা। সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে অসহায় দাবি করে নাতনির প্রতি ন্যক্কারজনক অন্যায়ের বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন শিশুটির নানি মাগফুরা আহমেদ।

ছবি

ডিমের পিকআপে ডাকাতি, যেভাবে গ্রেপ্তার ৬ ডাকাত

লালমনিরহাটে আ.লীগ নেতার ছেলের নেতৃত্বে ৪ সাংবাদিকের ওপর হামলা

ছবি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

ছবি

জন্মদিন পালনের কথা বলে এনে নারী চিকিৎসককে খুন : র‍্যাব

ছবি

হোটেল থেকে নারী চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার: ছেলেবন্ধু গ্রেপ্তার

ছবি

ডেল্টা লাইফের গুরুত্বপূর্ণ নথির ফটোকপি গাড়িযোগে পাচারের চেষ্টা

ছবি

জঙ্গি নেতা রাজীব গান্ধীর সহযোগী আফজাল গ্রেপ্তার

ছবি

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এর সাবেক এমডি রাশেদুলের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলা

ছবি

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে যুগ্ম সচিবের বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

‘জজ মিয়ার’ জন্য ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে নোটিশ

কর ফাঁকি : মদিনার ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় কামরাঙ্গীরচরে গ্রেপ্তার চারজন রিমান্ডে

ছবি

নারায়ণগঞ্জে মানব পাচার আইনে চারজনের যাবজ্জীবন

ছবি

বাংলাদেশের দুই বোনকে ভারতের যৌনপল্লীতে বিক্রি

ছবি

রোহিঙ্গা শিবিরে দুই রোহিঙ্গা নেতাকে হত্যা

প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি : নড়াইলে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা গ্রেফতার

বগুড়ায় ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র হত্যা

২৬ মামলার আসামি স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা গ্রেফতার

তিন দিন আগে বাস ডাকাতির পরিকল্পনা করে মূলহোতা ডাকাত রতন

সখীপুরে জমি বিরোধে ভাতিজাদের হাতে চাচা খুন

ছবি

নওগাঁয় সরকারী সম্পত্তি ব্যক্তি মালিকানায় খাজনা-খারিজের অভিযোগ

ছবি

দলবদ্ধ ধর্ষণ ছাড়াও একাধিক নারীর শ্লীলতাহানি করে ডাকাত দল

ছবি

সিন্ডিকেটের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার, স্বীকারোক্তি

বগুড়ায় অবৈধ মজুদ রাখা ১২ হাজার বস্তা সার ও ২টিট্রাক আটক

ছবি

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট

ছবি

খালাসের পরও কনডেম সেলে ৭ বছর : বিচারবিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

বগুড়ায় চাঁদাবাজীর অভিযোগ সোর্সসহ পুলিশ সদস্য ঘেরাও, পুলিশের এস আই ক্লোজড

বখাটের উৎপাতে ছাত্রীর মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ, ব‍্যবস্থা নেয়নি ইউএনও

ছবি

আদালত ঘুরে এলাকায় আজিজুল, ফুলের মালা দিয়ে বরণ

ছাত্রদল,স্বেচ্ছাসেবকদলের ৫ নেতা গাঁজা ও ইয়াবা সহ গ্রেফতার।

রূপগঞ্জে বিএনপি নেতার কার্যালয়ে ‘জয়বাংলা শ্লোগান দিয়ে’ হামলা

ছবি

এসএসএফের নামে প্রতিষ্ঠান খুলে কোটি টাকার প্রতারণা : গ্রেফতার ৬

ছবি

অস্ত্র মামলায় নূর হোসেনের যাবজ্জীবন

কুষ্টিয়া থেকে ঢাকাগামী চলন্ত বাসে ডাকাতি-সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

‘মোল্লা শামিমকে পেলেই তদন্ত ক্লোজ করবে পুলিশ’

ছবি

এমপি জাফর পত্নী শাহেদার অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

শিশুসন্তানকে ধর্ষণ মামলায় বিএনপি নেতা কারাগারে

আদালত বার্তা পরিবেশক

বুধবার, ১২ জানুয়ারী ২০২২

চার বছরের শিশুসন্তানকে ধর্ষণ মামলায় ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ডা. ইব্রাহীম রহমান রুমিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত। মেয়েটির মায়ের করা মামলায় বুধবার (১২ জানুয়ারি) ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে আত্মসমর্পণ করলে ভারপ্রাপ্ত বিচারক জুলফিকার হায়াৎ এই আদেশ দেন।

এদিন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন রুমি। তার পক্ষে আদালতে কাজী নজিবুল্যাহ হিরু, মিজানুর রহমান মামুন, খন্দকার তানজীর মান্নান জামিন শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে মাহমুদা আক্তার জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।

আসামি ইব্রাহিম রহমান রুমি (৩৫) ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। রুমি ঝিনাইদহ-২ আসনের সাবেক সাংসদ ও বিএনপি উপদেষ্টা মসিউর রহমানের বড় ছেলে। তিনি ঢাকায় থাকেন কলাবাগানে।

রুমির সাবেক স্ত্রী গত ১ ডিসেম্বর কলাবাগান থানায় মামলাটি করেন। মামলায় তিনি উল্লেখ করেন, ২০১৬ সালের ২৬ জুন পারিবারিকভাবে ডা. ইব্রাহীম রহমান রুমির (৩৫) সঙ্গে তার বিয়ে হয়। এরপর বিবাদীর সঙ্গে সংসারকালে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। সংসার জীবনে বনিবনা না হওয়ায় গত বছরের ২৬ আগস্ট রুমির সঙ্গে তার বিচ্ছেদ ঘটে। গত বছরের ২৩ মার্চ বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৪টায় তার অনুপস্থিতিতে চার বছরের শিশুকন্যাকে উত্তরার বাসা থেকে নিয়ে যান রুমি। গত ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রুমি তার কন্যাকে কলাবাগানের বাসায় নিজের হেফাজতে রাখেন। শিশুটির মায়ের অভিযোগ, ওই সময় ফেরত চাইলেও তার কন্যাকে নিতে দেননি রুমি। পরে এ বছরের ২২ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের আদেশে কন্যাশিশুকে নিজের হেফাজতে নেন তিনি।

এজাহারে আরও বলা হয়, গত ১২ অক্টোবর রাত আনুমানিক ৮টায় আবারও শিশুসন্তানটিকে নিজের কলাবাগানের বাসায় আনেন ইব্রাহিম রহমান রুমি। পরদিন ১৩ অক্টোবর দুপুর ১২টার দিকে শিশুর মা কলাবাগান থেকে চার বছরের শিশুটিকে উত্তরায় নিজের বাসায় ফিরিয়ে আনেন। বাসায় আনার পর পরিহিত পোশাক পরিবর্তনকালে মেয়ের শরীরে নির্যাতনের ছাপ দেখতে পান তিনি। গত ২৩ মার্চ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর এবং ১২ অক্টোবর থেকে ১৩ অক্টোবর দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিবাদীর বর্তমান ঠিকানার বাসায় আমার মেয়ের অবস্থানকালে বিভিন্ন সময়ে মেয়েকে যৌন নির্যাতন করেন বলে বাদী এজাহারে উল্লেখ করেন। গত ১ ডিসেম্বর নিজের চার বছরের কন্যা সন্তানকে ধর্ষণের অভিযোগ এনে কলাবাগান থানায় মামলা দায়ের করেন রুমির স্ত্রী।

এদিকে, নিজের শিশু সন্তানকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে ইব্রাহিম রহমান রুমির বিরুদ্ধে রোববার (৯ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রুমির স্ত্রী আফিয়া বিনতে শাহে, শাশুড়ি মাগফুরা আহমেদ ও তার শিশু কন্যা। সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে অসহায় দাবি করে নাতনির প্রতি ন্যক্কারজনক অন্যায়ের বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন শিশুটির নানি মাগফুরা আহমেদ।

back to top