alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

মিতু হত্যা: বাবুলের দুই সন্তানের সঙ্গে কথা বলতে চায় পিবিআই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২২

ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় তাদের দুই সন্তানের সঙ্গে কথা বলতে চায় মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। দুই সন্তান খুনের ঘটনায় গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী উল্লেখ করে তাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য আদালতে আবেদন করেছে পিবিআইয়ের পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক।

আবেদনের ওপর আগামী রোববার (১৬ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-৭ এ শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

শুক্রবার ( ১৪ জানুয়ারি) মামলার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক বলেন, বাবুল আক্তারের দুই ছেলে-মেয়ের সঙ্গে কথা বলার জন্য সম্প্রতি আদালতে একটি আবেদন করেছি। এ খুনের ঘটনায় ছেলে প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে থাকলেও এখন পর্যন্ত তার কোনো বক্তব্য নেওয়া হয়নি, তার সঙ্গে কথা বলা হয়নি। এছাড়া তার মেয়ের সঙ্গে কথা বলা হয়নি। তদন্ত প্রক্রিয়া অংশ হিসেবে ও মামলার রহস্য উদঘাটনে তাদের সঙ্গে কথা বলা দরকার। তাই তাদের সঙ্গে কথা বলতে আদালতে আবেদন করেছি। আদালতের আদেশ পাওয়া গেলে তাদের সঙ্গে কথা বলা হবে।

বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার ঘটনায় বাবুল আক্তার ও মিতুর বাবা বাদী হয়ে পৃথক সময়ে দুইটি মামলা করেন পাঁচলাইশ থানায়। এ দুইটি মামলা তদন্ত করছেন পিবিআইয়ের পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক।

পিবিআই বলছে, গত বছরের ২৩ অক্টোবর আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে মিতু হত্যা মামলার আসামি এহতেশামুল হক ভোলা বলেছিলেন, সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের নির্দেশেই তার স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে হত্যা করা হয়েছিল। মিতুকে হত্যা না করলে কামরুল শিকদার ওরফে মুছাকে ক্রসফায়ারে দেওয়ার ভয় দেখান বাবুল আক্তার। মিতুকে হত্যা করার জন্য মুছাকে টাকাও দিয়েছিলেন বাবুল আক্তার।

গত বছরের ৩০ জুন বাবুল আক্তারের ভাই হাবিবুর রহমানের করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই মাগুরা গিয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রবেশন অফিসারের উপস্থিতিতে বাবুল-মিতুর সন্তানদের জিজ্ঞাসাবাদ ও সাক্ষ্যগ্রহণ করতে আদেশ দিয়েছিলেন চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭। বাবুলের পরিবার মাগুরা পৌর সদরের কাউন্সিলর পাড়ার বাসিন্দা।

তার আগে ১৩ জুন মামলার সে সময়ের তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের প্রেক্ষাপটে মিতু-বাবুল দম্পতির দুই সন্তানকে ১৫ দিনের মধ্যে আইওর কাছে হাজির করতে বাবুলের বাবা আব্দুল ওয়াদুদু মিয়া ও ভাই হাবিবুর রহমান লাবুকে নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।

উল্লেখ্য, মাহমুদা খানম মিতু হত্যার ঘটনায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছিলেন তার স্বামী সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার। ওই মামলায় গত বছরের ৯ জানুয়ারি চট্টগ্রামের একটি আদালত তাকেই গ্রেফতার দেখানোর আদেশ দেন।

সে সময় বাবুল আক্তারের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী বলেছিলেন, একই ঘটনায় মিতুর বাবার দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন বাবুল। এ ঘটনায় দুই মামলা আদালতে চলতে পারে না। আমরা এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে যাব।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, মিতু হত্যার ঘটনায় বাবুল আক্তার যে মামলাটি দায়ের করেছিলেন, সেটির তদন্ত শেষ করে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছিল পিবিআই। কিন্তু আদালত চূড়ান্ত প্রতিবেদন না নিয়ে মামলাটি অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন। মিতুর বাবার করা মামলাটিও তদন্ত করছে পিবিআই।

স্ত্রী খুন হওয়ার আগে চট্টগ্রাম নগরীর জিএইসি এলাকায় ছেলে আক্তার মাহমুদ মাহির ও মেয়ে তাবাসসুমকে নিয়ে থাকতেন বাবুল দম্পতি।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর নিজাম রোডে ছেলে আক্তার মাহমুদ মাহিরকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। ওই সময় এ ঘটনা দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচিত হয়। ঘটনার সময় মিতুর স্বামী পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার অবস্থান করছিলেন ঢাকায়। ঘটনার পর চট্টগ্রামে ফিরে পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন তিনি। এ মামলাতেই এখন তাকে গ্রেফতার দেখানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ছবি

শাবি শিক্ষককে ফেনসিডিল সাপ্লাই দিতে গিয়ে গার্ড আটক!

ছবি

সিদ্ধিরগঞ্জে ফ্ল্যাটে হাত-পা বাঁধা গৃহবধূর লাশ, স্বামী পলাতক

ছবি

শিক্ষককে ৬ মাসের বেশি সাময়িক বরখাস্ত নয়: হাইকোর্ট

স্বর্ণসহ অজ্ঞান পার্টির ২ সদস্য গ্রেপ্তার

ছবি

মিজান-বাছিরের সর্বোচ্চ সাজা চায় দুদক

লালমনিরহাটে ৩ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য ধ্বংস

ভেড়ামারায় ১৭ ভাটাকে জরিমানা ৪৩ লাখ টাকা

চট্টগ্রাম সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয় সহকারীর স্ত্রীর ৭ বছর জেল

ছবি

২০ বছর পর হত্যা মামলার রায়, ৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড

চাঁদা দাবিতে ছেলেসহ কনস্টেবল গ্রেপ্তার

ছবি

নাসির-তামিমার বিয়েকাণ্ড : অভিযোগ গঠনের আদেশ ৯ ফেব্রুয়ারি

ছবি

মোবাইল গ্রাহকদের অভিযোগ শুনতে কমিটি গঠনের নির্দেশ

কুমিল্লায় নদীর মাটি কাটায় দন্ডিত ৭

যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে রক্তাক্ত করে রাস্তায় ফেলে গেল স্বামী

ছবি

পল্লবীর ওসিসহ ১৭ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খারিজ

আধিপত্য বিবাদে বাড়িঘর ভাঙচুর : আহত ১০

মামলা না তোলায় যুবলীগ নেতার হাত-পা ভাঙল

বাড়িতে ঢুকে কৃষককে হত্যা

ছবি

ট্রান্সজেন্ডার বিউটি ব্লগারকে যৌন নির্যাতন ও হত্যাচেষ্টা, গ্রেফতার ৩

ছবি

নারায়ণগঞ্জে ২ চাঁদাবাজ গ্রেফতার

ছবি

প্রশ্নফাঁস: উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যানসহ ১০ জন আটক

ছবি

গৃহকর্মী নির্যাতন, অভিযুক্ত সুমি গ্রেপ্তার

ছবি

ক্লু-লেস হত্যার রহস্য উদঘাটন

ছবি

শিমু হত্যা: নোবেল একা নয়, হত্যাকাণ্ডের সময় ছিলেন বন্ধু

মেজর জিয়াসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

ছবি

সিদ্ধিরগঞ্জে যুবককে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা ॥ থানায় মামলা

চাটখিলে সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি, আসামি হাজতে

টঙ্গীতে ২ শিশুকে ধর্ষণ : গ্রেপ্তার ১

মতলবে সিডিউল ছিনতাই, আটক ১

বদলগাছীতে পর্নোগ্রাফি ভিডিও সরবরাহকারী ৭ জন গ্রেপ্তার

পচা চাল সংগ্রহে রৌমারী খাদ্য গুদাম সিলগালা

ছবি

টেকনাফে দুই দ্বীপকে ঘিরে মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া

ছবি

আবরার হত্যা: ফাঁসির আসামি সেতুর হাইকোর্টে আপিল

ছবি

রাজধানীতে ৫১৩টি চোরাই মোবাইলসহ ৮ সদস্য আটক

ছবি

সেফাতউল্লাহর মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়ে ৪ জুলাই

ফরিদপুরে অস্ত্র-মাদক গ্রেপ্তার দুই জন

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

মিতু হত্যা: বাবুলের দুই সন্তানের সঙ্গে কথা বলতে চায় পিবিআই

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

ফাইল ছবি

শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২২

চট্টগ্রামের সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় তাদের দুই সন্তানের সঙ্গে কথা বলতে চায় মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। দুই সন্তান খুনের ঘটনায় গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী উল্লেখ করে তাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য আদালতে আবেদন করেছে পিবিআইয়ের পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক।

আবেদনের ওপর আগামী রোববার (১৬ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-৭ এ শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

শুক্রবার ( ১৪ জানুয়ারি) মামলার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক বলেন, বাবুল আক্তারের দুই ছেলে-মেয়ের সঙ্গে কথা বলার জন্য সম্প্রতি আদালতে একটি আবেদন করেছি। এ খুনের ঘটনায় ছেলে প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে থাকলেও এখন পর্যন্ত তার কোনো বক্তব্য নেওয়া হয়নি, তার সঙ্গে কথা বলা হয়নি। এছাড়া তার মেয়ের সঙ্গে কথা বলা হয়নি। তদন্ত প্রক্রিয়া অংশ হিসেবে ও মামলার রহস্য উদঘাটনে তাদের সঙ্গে কথা বলা দরকার। তাই তাদের সঙ্গে কথা বলতে আদালতে আবেদন করেছি। আদালতের আদেশ পাওয়া গেলে তাদের সঙ্গে কথা বলা হবে।

বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার ঘটনায় বাবুল আক্তার ও মিতুর বাবা বাদী হয়ে পৃথক সময়ে দুইটি মামলা করেন পাঁচলাইশ থানায়। এ দুইটি মামলা তদন্ত করছেন পিবিআইয়ের পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক।

পিবিআই বলছে, গত বছরের ২৩ অক্টোবর আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে মিতু হত্যা মামলার আসামি এহতেশামুল হক ভোলা বলেছিলেন, সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের নির্দেশেই তার স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে হত্যা করা হয়েছিল। মিতুকে হত্যা না করলে কামরুল শিকদার ওরফে মুছাকে ক্রসফায়ারে দেওয়ার ভয় দেখান বাবুল আক্তার। মিতুকে হত্যা করার জন্য মুছাকে টাকাও দিয়েছিলেন বাবুল আক্তার।

গত বছরের ৩০ জুন বাবুল আক্তারের ভাই হাবিবুর রহমানের করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই মাগুরা গিয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রবেশন অফিসারের উপস্থিতিতে বাবুল-মিতুর সন্তানদের জিজ্ঞাসাবাদ ও সাক্ষ্যগ্রহণ করতে আদেশ দিয়েছিলেন চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭। বাবুলের পরিবার মাগুরা পৌর সদরের কাউন্সিলর পাড়ার বাসিন্দা।

তার আগে ১৩ জুন মামলার সে সময়ের তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের প্রেক্ষাপটে মিতু-বাবুল দম্পতির দুই সন্তানকে ১৫ দিনের মধ্যে আইওর কাছে হাজির করতে বাবুলের বাবা আব্দুল ওয়াদুদু মিয়া ও ভাই হাবিবুর রহমান লাবুকে নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।

উল্লেখ্য, মাহমুদা খানম মিতু হত্যার ঘটনায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছিলেন তার স্বামী সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার। ওই মামলায় গত বছরের ৯ জানুয়ারি চট্টগ্রামের একটি আদালত তাকেই গ্রেফতার দেখানোর আদেশ দেন।

সে সময় বাবুল আক্তারের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী বলেছিলেন, একই ঘটনায় মিতুর বাবার দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন বাবুল। এ ঘটনায় দুই মামলা আদালতে চলতে পারে না। আমরা এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে যাব।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, মিতু হত্যার ঘটনায় বাবুল আক্তার যে মামলাটি দায়ের করেছিলেন, সেটির তদন্ত শেষ করে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছিল পিবিআই। কিন্তু আদালত চূড়ান্ত প্রতিবেদন না নিয়ে মামলাটি অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন। মিতুর বাবার করা মামলাটিও তদন্ত করছে পিবিআই।

স্ত্রী খুন হওয়ার আগে চট্টগ্রাম নগরীর জিএইসি এলাকায় ছেলে আক্তার মাহমুদ মাহির ও মেয়ে তাবাসসুমকে নিয়ে থাকতেন বাবুল দম্পতি।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর নিজাম রোডে ছেলে আক্তার মাহমুদ মাহিরকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। ওই সময় এ ঘটনা দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচিত হয়। ঘটনার সময় মিতুর স্বামী পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার অবস্থান করছিলেন ঢাকায়। ঘটনার পর চট্টগ্রামে ফিরে পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন তিনি। এ মামলাতেই এখন তাকে গ্রেফতার দেখানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

back to top