alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

হ‌ুমায়ূন আহমেদের চিত্রকর্ম আত্মসাৎ: দুজনকে হাজির হতে সমন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক: : রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

জনপ্রিয় প্রয়াত কথাসাহিত্যিক ও নির্মাতা হ‌ুমায়ূন আহমেদের চিত্রকর্ম প্রতারণামূলকভাবে আত্মসাতের মামলায় রুমা চৌধুরী ও তার স্বামী মঞ্জুরুল আজিম পলাশকে আগামী ২৫ অক্টোবর আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেছেন আদালত।

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) ঢাকার অ্যাডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনের আদালত পুলিশের দেওয়া প্রতিবেদন আমলে নিয়ে এ আদেশ দেন।

২০২১ সালের ২৯ জুন প্রয়াত হ‌ুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন মামলার আবেদন দাখিল করেন। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

মামলাটি তদন্তের পর সম্প্রতি অভিযোগে সত্যতা পেয়েছে মর্মে পিবিআই আদালত প্রতিবেদন দাখিল করে। ওই প্রতিবেদন আমলে নিয়ে আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১২ সালে ক্যানসার চিকিৎসার জন্য আমেরিকার নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় গিয়েছিলেন হ‌ুমায়ূন আহমেদ। সেখানে তিনি তার পুত্র নিষাদকে নিয়ে বেশ কিছু ছবি এঁকেছিলেন। ওই সময়ে রুমা চৌধুরী ও তার সাবেক স্বামী বই ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ সাহার ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। সে সূত্রে হ‌ুমায়ূন আহমেদ তার আঁকা ২৪টি ছবি তাদেরকে দেন প্রদর্শনীর উদ্দেশ্য। যেগুলো ২০১২ সালের জুন মাসে রুমা চৌধুরী জিম্মায় দেওয়া হয়। শর্ত ছিল প্রদর্শনী শেষে তারা ছবিগুলো হ‌ুমায়ূন আহমেদের কাছে ফেরত দিবেন।

প্রদর্শনীর দায়িত্ব দেওয়ার পর থেকে রুমা চৌধুরী ও বিশ্বজিৎ সাহার উদ্দেশ্য ছিল প্রাথমিকভাবে ছবিগুলো বিক্রি করে কমিশন লাভ করা এবং পরবর্তীতে ছবিগুলো আত্মসাৎ করা। এভাবে তারা বারবার হ‌ুমায়ূন আহমেদকে প্রস্তাব দিলেও তিনি তাতে কর্ণপাত করেননি।

তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, ছবিগুলো তিনি এঁকেছেন তার নিজের এবং পুত্র নিষাদের আনন্দের জন্য। বিক্রি করে অর্থ লাভের জন্য নয়। এ সময়ে রুমা চৌধুরী গুজব রটান প্রদর্শনীর ২৪টি ছবির মধ্যে ৪টি ছবি হারানো গেছে।

আরও বলা হয়, হ‌ুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর পর শাওন দেশে ফিরে আসেন। তিনি রুমা চৌধুরী ও বিশ্বজিৎ সাহার কাছে ছবিগুলো ফেরত চান। বারবার চাওয়া সত্ত্বেও তারা ফেরত দিতে টালবাহানা শুরু করে। পরবর্তীতে অভিনেতা ও তৎকালীন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ব্যক্তির সহায়তায় তারা ২০টি ছবি ফেরত দেন হ‌ুমায়ূন আহমেদের মা আয়েশা ফয়েজের জিম্মায়। এ ঘটনা ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের। পরবর্তীতে রুমা চৌধুরীর সঙ্গে বিশ্বজিৎ সাহার বিচ্ছেদ হয়ে যায় এবং তিনি কুমিল্লার মঞ্জুরুল আজিম পলাশকে বিয়ে করেন। ২০১৫ সালে রুমা কুমিল্লায় চলে আসেন পলাশের সঙ্গে বসবাসের উদ্দেশ্যে।

মঞ্জুরুল আজিম পলাশ গত বছর ৩১ মার্চ তার ফেসবুকে কুমিল্লায় লিংকবাংলা শিল্প প্রদর্শনীর বিজ্ঞাপন দেন। ১ থেকে ১০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত প্রদর্শনীতে একটি ছবি হ‌ুমায়ূন আহমেদের আঁকা ছবি ছিলো। যে ছবিটি হ‌ুমায়ূন আহমেদের আঁকা হারিয়ে যাওয়া চারটি ছবির একটি বলে প্রতীয়মান হয়। এর দ্বারা প্রমাণিত হয় রুমা চৌধুরীর যোগসাজশে মঞ্জুরুল আজিম পলাশ ছবিগুলো অসাধুভাবে আত্মসাৎ করেছেন।

আত্মসাৎ করা হ‌ুমায়ূন আহমেদের অঙ্কিত ছবিগুলোর মূল্য শৈল্পিক বা আর্থিক নিক্তিতে পরিমাপ করা সম্ভব না। যা হ‌ুমায়ূন আহমেদের জীবনের শেষদিনগুলোতে তার সাথে পুত্র নিষাদের কাটানো সময়ের স্মৃতি বিজড়িত। আসামিদের কাছ থেকে ছবিগুলো উদ্ধার করা না গেলে তা বেহাত ও ধ্বংসপ্রাপ্ত বা ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর এতে শুধু প্রয়াত হ‌ুমায়ূন আহমেদের পরিবারই নয়, সর্বোপরি দেশ ও জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হবে বলে মামলায় বলা হয়।

সখীপুরে তিন গরু চোর গ্রেপ্তার

বগুড়ার শেরপুরে এক সন্ত্রাসীকে কুপিয়ে হত্যা

শিবালয়ে চাল লুটপাটকারী পুরস্কৃত, অভিযোগকারীরা বহিস্কৃত

ছবি

একাত্তরের রাজাকার খলিলকে ধরা হলো যেভাবে

ছবি

জামিন পেলেন ক্রিকেটার আল আমিন

ছবি

১০ বছরে ৫ শতাধিক চুরি করেছে ‘স্পাইডারম্যান’ বিল্লাল

ছবি

ঝুমন দাসের জামিন ফের নামঞ্জুর

ছবি

ডিসি অফিসের আট কর্মচারীসহ ১১ জনের ৭ বছরের জেল

মুন্সীগঞ্জে হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণ, ওয়ার্ড বয় গ্রেফতার

ঘোড়াঘাটে মাদকাসক্ত ছেলের ৬ মাসের কারাদন্ড

ছবি

গভীর ষড়যন্ত্র হয়েছে, আমি নির্দোষ: জিকে শামীম

ছবি

স্বর্ণ চোরাচালান মামলা, চীনা নাগরিকের ৭ বছর কারাদণ্ড

ছবি

বনজ কুমারের বিরুদ্ধে বাবুল আক্তারের মামলার আবেদন খারিজ

ময়মনসিংহে মোটর সাইকেলের সাথে ধাক্কা লাগায় সিএনজি চালককে পিটিয়ে হত্যা

ছবি

জি কে শামীম ও ৭ দেহরক্ষীর যাবজ্জীবন, প্রথম মামলার রায়

সখীপুরে ভূমিহীন নারীর চেক নিয়ে প্রতারণা

ছবি

গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা, গ্রেপ্তার এক

ছবি

আজ জি কে শামীমসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে রায়

ছবি

এক দশক পর ধরা পড়লেন ফাঁসির আসামি

ভোলায় স্ত্রীকে উক্তত্যের প্রতিবাদ করায় পুলিশ কনস্টেবলকে কূপিয়ে জখম

ধামইরহাটে সরকারী রাস্তা দখল করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ

ড্রাইভার দেলোয়ার হোসেনকে অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

কারাগারে আটক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী মান্নানের নামে আরো ১ টি মামলা দায়ের

সাভারে ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

ছবি

ডিজিটাল প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করেন ই-অরেঞ্জের সোহেল

ছবি

পরিচয় পাল্টেও শেষ রক্ষা হলো না, ৮ বছর পর ধরা পড়লেন খুনের আসামি

নোয়াখালীতে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ছবি

পি কে হালদারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু

ছবি

ইয়াবা পাচার মামলায় তৃতীয় লিঙ্গের রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন

ছবি

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এক মাঝিকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

হোশি কুনিও হত্যা : ৪ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল, খালাস ১

‘ত্রুটিযুক্ত’ লিজে দুর্বলতা কী, খতিয়ে দেখছে দুদক

ছবি

সাংসদ জাফর আলম ও তার স্ত্রী-সন্তানকে জিজ্ঞাসাবাদ করল দুদক

ছবি

বিয়ের ৭ দিনের মাথায় স্ত্রীকে গলাকেটে খুন, স্বামীর যাবজ্জীবন

ছবি

ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ চেয়ে হাইকোর্টে রিট

ছবি

দুই নারী মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

হ‌ুমায়ূন আহমেদের চিত্রকর্ম আত্মসাৎ: দুজনকে হাজির হতে সমন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক:

রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

জনপ্রিয় প্রয়াত কথাসাহিত্যিক ও নির্মাতা হ‌ুমায়ূন আহমেদের চিত্রকর্ম প্রতারণামূলকভাবে আত্মসাতের মামলায় রুমা চৌধুরী ও তার স্বামী মঞ্জুরুল আজিম পলাশকে আগামী ২৫ অক্টোবর আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেছেন আদালত।

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) ঢাকার অ্যাডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনের আদালত পুলিশের দেওয়া প্রতিবেদন আমলে নিয়ে এ আদেশ দেন।

২০২১ সালের ২৯ জুন প্রয়াত হ‌ুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন মামলার আবেদন দাখিল করেন। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

মামলাটি তদন্তের পর সম্প্রতি অভিযোগে সত্যতা পেয়েছে মর্মে পিবিআই আদালত প্রতিবেদন দাখিল করে। ওই প্রতিবেদন আমলে নিয়ে আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১২ সালে ক্যানসার চিকিৎসার জন্য আমেরিকার নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় গিয়েছিলেন হ‌ুমায়ূন আহমেদ। সেখানে তিনি তার পুত্র নিষাদকে নিয়ে বেশ কিছু ছবি এঁকেছিলেন। ওই সময়ে রুমা চৌধুরী ও তার সাবেক স্বামী বই ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ সাহার ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। সে সূত্রে হ‌ুমায়ূন আহমেদ তার আঁকা ২৪টি ছবি তাদেরকে দেন প্রদর্শনীর উদ্দেশ্য। যেগুলো ২০১২ সালের জুন মাসে রুমা চৌধুরী জিম্মায় দেওয়া হয়। শর্ত ছিল প্রদর্শনী শেষে তারা ছবিগুলো হ‌ুমায়ূন আহমেদের কাছে ফেরত দিবেন।

প্রদর্শনীর দায়িত্ব দেওয়ার পর থেকে রুমা চৌধুরী ও বিশ্বজিৎ সাহার উদ্দেশ্য ছিল প্রাথমিকভাবে ছবিগুলো বিক্রি করে কমিশন লাভ করা এবং পরবর্তীতে ছবিগুলো আত্মসাৎ করা। এভাবে তারা বারবার হ‌ুমায়ূন আহমেদকে প্রস্তাব দিলেও তিনি তাতে কর্ণপাত করেননি।

তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, ছবিগুলো তিনি এঁকেছেন তার নিজের এবং পুত্র নিষাদের আনন্দের জন্য। বিক্রি করে অর্থ লাভের জন্য নয়। এ সময়ে রুমা চৌধুরী গুজব রটান প্রদর্শনীর ২৪টি ছবির মধ্যে ৪টি ছবি হারানো গেছে।

আরও বলা হয়, হ‌ুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর পর শাওন দেশে ফিরে আসেন। তিনি রুমা চৌধুরী ও বিশ্বজিৎ সাহার কাছে ছবিগুলো ফেরত চান। বারবার চাওয়া সত্ত্বেও তারা ফেরত দিতে টালবাহানা শুরু করে। পরবর্তীতে অভিনেতা ও তৎকালীন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ব্যক্তির সহায়তায় তারা ২০টি ছবি ফেরত দেন হ‌ুমায়ূন আহমেদের মা আয়েশা ফয়েজের জিম্মায়। এ ঘটনা ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের। পরবর্তীতে রুমা চৌধুরীর সঙ্গে বিশ্বজিৎ সাহার বিচ্ছেদ হয়ে যায় এবং তিনি কুমিল্লার মঞ্জুরুল আজিম পলাশকে বিয়ে করেন। ২০১৫ সালে রুমা কুমিল্লায় চলে আসেন পলাশের সঙ্গে বসবাসের উদ্দেশ্যে।

মঞ্জুরুল আজিম পলাশ গত বছর ৩১ মার্চ তার ফেসবুকে কুমিল্লায় লিংকবাংলা শিল্প প্রদর্শনীর বিজ্ঞাপন দেন। ১ থেকে ১০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত প্রদর্শনীতে একটি ছবি হ‌ুমায়ূন আহমেদের আঁকা ছবি ছিলো। যে ছবিটি হ‌ুমায়ূন আহমেদের আঁকা হারিয়ে যাওয়া চারটি ছবির একটি বলে প্রতীয়মান হয়। এর দ্বারা প্রমাণিত হয় রুমা চৌধুরীর যোগসাজশে মঞ্জুরুল আজিম পলাশ ছবিগুলো অসাধুভাবে আত্মসাৎ করেছেন।

আত্মসাৎ করা হ‌ুমায়ূন আহমেদের অঙ্কিত ছবিগুলোর মূল্য শৈল্পিক বা আর্থিক নিক্তিতে পরিমাপ করা সম্ভব না। যা হ‌ুমায়ূন আহমেদের জীবনের শেষদিনগুলোতে তার সাথে পুত্র নিষাদের কাটানো সময়ের স্মৃতি বিজড়িত। আসামিদের কাছ থেকে ছবিগুলো উদ্ধার করা না গেলে তা বেহাত ও ধ্বংসপ্রাপ্ত বা ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর এতে শুধু প্রয়াত হ‌ুমায়ূন আহমেদের পরিবারই নয়, সর্বোপরি দেশ ও জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হবে বলে মামলায় বলা হয়।

back to top