alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি মামলা করতে ৫ বছর পার, তদন্তে গেল ৭ বছর

তিন মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ করতে চায় দুদক -সচিব

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২

রাষ্ট্রয়াত্ত বেসিক ব্যাংকে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা ঋণ কেলেঙ্কারির অভিযোগে মামলা করতে ৫ বছর সময় নেয়ার পর তদন্তে ৭ বছর সময় পার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ভুয়া নথিপত্রে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ দেয়ার ঘটনা প্রকাশ হলে অনুসন্ধান করে মামলা করতে দুদক ৫ বছর পার করেছিল। সাত বছর আগে সাবেক এমডি কাজী ফকরুল ইসলামসহ ১২০ জনের নামে দুদক যে ৫৬ মামলা করেছে তা আগামী ৩ মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ করার জন্য দুদককে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। যার ফলে আগামী ৩ মাসের মধ্যে এসব মামলা তদন্ত শেষ করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে চাচ্ছে কমিশন। আর এ কারণে দ্রুত তদন্ত শেষ করে তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

গতকাল এক ব্রিফিংয়ে দুদক সচিব মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন, বেসিক ব্যাংকের সাবেক এমডিসহ ১২০ জনের বিরুদ্ধে যে ৫৬টি মামলা হয়েছে সেই মামলার তদন্ত কার্যক্রম আগামী ৩ মাসের মধ্যে শেষ করতে দুদককে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আর আদালতের নির্দেশনা মেনে বেসিক ব্যাংকের বিরুদ্ধে করা এসব তদন্ত তিন মাসের মধ্যে শেষ করতে কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছেন কমিশন।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ২০০৯ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের গুলশান, দিলকুশা ও শান্তিনগর শাখা থেকে মোট সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার ঋণ অনিয়মের মাধ্যমে বিতরণের অভিযোগ ওঠার পরপরই অনুসন্ধানে নামে দুদক। ঋণপত্র যাচাই না করে জামানত ছাড়া, জাল দলিলে ভুয়া ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ঋণদানসহ নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে বিধিবহির্ভূতভাবে ঋণ অনুমোদনের অভিযোগ ওঠে ব্যাংকটির তৎকালীন পরিচালনাপর্ষদের বিরুদ্ধে। প্রায় পাঁচ বছর অনুসন্ধান শেষে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা লোপাটের ঘটনায় ২০১৫ সালের ২১, ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বর তিনদিনে টানা ৫৬টি মামলা হয়। রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন ও গুলশান থানায় এসব মামলায় আসামি করা হয় ১২০ জনকে। এর মধ্যে ঋণগ্রহীতা ৮২ জন, ব্যাংকার ২৭ ও ভূমি জরিপকারী ১১ জন। যদিও এসব মামলায় ব্যাংকের তৎকালীন চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চুকে আসামি করা হয়নি। এ নিয়ে সমালোচনায় পড়েন দুদক কমিশন।

দুদক সচিব বলেন, আদালতের নির্দেশনা মেনে বেসিক ব্যাংকের ৫৬টি মামলার তদন্তকাজ যাতে নির্ধারিত তিন মাসের মধ্যে শেষ করা হয়, সে লক্ষ্যে তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আমাদের পক্ষ থেকে যথাসাধ্য চেষ্টা থাকবে।

দুদক সচিব বলেন, বেসিক ব্যাংকের ৫৬টি মামলার প্রতিটির সঙ্গে অনেক বিষয় জড়িত। অনেক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করতে হয়। সে কারণেই সময় লাগছে। আমরা আমাদের কর্মকর্তাদের আদালতের নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলেছি।

দুদক ও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার ঋন কেলেঙ্কারীর অভিযোগে অনুসন্ধানে নামলেও অনিয়মের মাধ্যমে দুই হাজার ৬৫ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়। এর মধ্যে রাজধানীর গুলশান শাখা থেকে এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা, শান্তিনগর শাখা থেকে ৩৮৭ কোটি টাকা, প্রধান শাখা থেকে প্রায় ২৪৮ কোটি টাকা এবং দিলকুশা শাখা থেকে ১৩০ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয় তখন মামলায় বলা হয়। অভিযোগের বাকি অংশের অনুসন্ধান এখনও চলছে। এছাড়া বেসিক ব্যাংকসংক্রান্ত বিষয়ে আরও পৃথক চারটি মামলা করে দুদক।

ব্যাংকার ও ঋণগ্রহীতাদের অনেকেই একাধিক মামলায় আসামি হয়েছেন। এর মধ্যে ব্যাংকের সাবেক এমডি কাজী ফখরুল ইসলামকে আসামি করা হয়েছে ৪৮টি মামলায়। ডিএমডি ফজলুস সোবহান ৪৭টি, কনক কুমার পুরকায়স্থ ২৩টি, মো. সেলিম আটটি, বরখাস্ত হওয়া ডিএমডি এ মোনায়েম খান ৩৫টি মামলার আসামি। তবে কোন মামলায় ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চুসহ পরিচালনা পর্ষদের কাউকে আসামি করা হয়নি। এ বিষয়ে দুদকের বরাবরই বক্তব্য ছিল, ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় দালিলিকভাবে আবদুল হাই বাচ্চুর সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি।

অন্যদিকে দুদকের দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে গণমাধ্যমের সামনে নিজের ভুল স্বীকার করে বেসিক ব্যাংকের একসময়ের চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চু বলেছিলেন, ‘আমি যা করেছি সরল মনে করেছি। অনেকক্ষেত্রে ভুল করেছি। তবে সব দায় আমার নয়। কারণ, বোর্ডের অনুমোদনের বাইরে আমি কিছু করিনি।’ জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য বাচ্চুকে ২০০৯ সালে বেসিক ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেয় সরকার। ২০১২ সালে তার নিয়োগ নবায়নও হয়। কিন্তু ঋণ কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠলে ২০১৪ সালে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফখরুল ইসলামকে অপসারণের পর চাপের মুখে থাকা বাচ্চু পদত্যাগ করেন। বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি মামলাগুলোর তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন দুদকের সাবেক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের দল।

ছবি

ক্রিকেটার আল আমিনের বিরুদ্ধে যৌতুকের মামলায় চার্জশিট

৬৯ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে শাস্তি দিল ইসি

ফরিদপুরে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে হামলা, নিহত ১

পি কে হালদারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য ১ মার্চ

ফরিদপুরে পায়ে দুর্বিত্তদের গুলি : আহত এক

ছবি

তারেক-জোবায়দাকে হাজির হতে গেজেট প্রকাশ

ছবি

শাশুড়িসহ নাসির-তামিমার অভিযোগ গঠনের শুনানি ২৮ ফেব্রুয়ারি

ছবি

আপিল প্রস্তুত করতে ২ মাস সময় পেলো জামায়াত

ছবি

যুদ্ধাপরাধ: পলাতক দুই ফাঁসির আসামি গ্রেপ্তার

ছবি

মহাসড়কে অটোরিকশা চালাতে প্রথমে ৫ হাজার টাকা চাঁদা, দিনে ৬০ টাকা

পূর্ব বিরোধের জের ধরে আ.লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, আটক-৪

মোবাইল ফোনে ডেকে এনে যুবক হত্যা; প্রধান আসামী কিলার রহমান গ্রেপ্তার

ছবি

অভিজিৎ রায় হত্যা: আরেক মামলায় ফারাবীর ৭ বছরের কারাদণ্ড

ছবি

সালাম মুর্শেদীর বাড়ি : ভিডিও সরাতে ব্যারিস্টার সুমনকে নির্দেশ

ছবি

ইয়াবা পাচার: মায়ানমারের আট নাগরিকের যাবজ্জীবন

ছবি

আইজিপির নামে হোয়াটসঅ্যাপ খুলে প্রতারণা, যুবকের কারাদণ্ড

ছবি

কর্মচারীদের টাকা আত্মসাত: ওয়াসার এমডিসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন তলব

ছবি

কক্সবাজার বিমানবন্দরে এসআই তাজের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

ছবি

শিশু ধর্ষণের দায়ে দুই আসামির মৃত্যুদণ্ড

নোয়াখালীতে আগ্নেয়াস্ত্র ও ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৪

ছবি

খালেদা জিয়ার গ্যাটকো মামলায় চার্জ শুনানি ১৪ মার্চ

ছবি

ফেনসিডিল রাখার দায়ে ২ ব্যক্তির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ছবি

জামিন জালিয়াতি মামলায় আইনজীবী-ক্লার্কসহ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

ছবি

জাপানি দুই শিশু কার জিম্মায় থাকবে জানা যাবে আজ

নারায়ণগঞ্জে ৪ বছরের শিশু ধর্ষণ

নিখোঁজের ৬দিন পর অটোরিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার

ছবি

গোলাপের নিউইয়র্কে ৯ বাড়ি: অনুসন্ধান চেয়ে দুদকে চিঠি, ব্যারিস্টার সুমনের

ছবি

শিবগঞ্জে ভূমিদস্যূকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা!

সিলেটে ট্রান্সফরমার চুরির সময় চোর নিহত

সখীপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাদকাসক্তকে এক বছরের কারাদণ্ড

১০ বছরের শিশু ধর্ষণের পর হত্যা, আসামির মৃত্যুদন্ড

ছবি

আলেশা মার্টের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

ছবি

আসিফকে ই-পাসপোর্ট দিতে নির্দেশ: হাইকোর্টের

ছবি

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিয়ে রিট, শুনানি ২ মাস পর

ছবি

মাকে ৫ টুকরো করে হত্যা: ছেলেসহ ৭ জনের ফাঁসি

ছবি

জন্ম নিবন্ধন সার্ভার হ্যাক করে ৫৪৮ সনদ ইস্যু: আটক ৪

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি মামলা করতে ৫ বছর পার, তদন্তে গেল ৭ বছর

তিন মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ করতে চায় দুদক -সচিব

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২

রাষ্ট্রয়াত্ত বেসিক ব্যাংকে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা ঋণ কেলেঙ্কারির অভিযোগে মামলা করতে ৫ বছর সময় নেয়ার পর তদন্তে ৭ বছর সময় পার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ভুয়া নথিপত্রে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ দেয়ার ঘটনা প্রকাশ হলে অনুসন্ধান করে মামলা করতে দুদক ৫ বছর পার করেছিল। সাত বছর আগে সাবেক এমডি কাজী ফকরুল ইসলামসহ ১২০ জনের নামে দুদক যে ৫৬ মামলা করেছে তা আগামী ৩ মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ করার জন্য দুদককে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। যার ফলে আগামী ৩ মাসের মধ্যে এসব মামলা তদন্ত শেষ করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে চাচ্ছে কমিশন। আর এ কারণে দ্রুত তদন্ত শেষ করে তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

গতকাল এক ব্রিফিংয়ে দুদক সচিব মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন, বেসিক ব্যাংকের সাবেক এমডিসহ ১২০ জনের বিরুদ্ধে যে ৫৬টি মামলা হয়েছে সেই মামলার তদন্ত কার্যক্রম আগামী ৩ মাসের মধ্যে শেষ করতে দুদককে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আর আদালতের নির্দেশনা মেনে বেসিক ব্যাংকের বিরুদ্ধে করা এসব তদন্ত তিন মাসের মধ্যে শেষ করতে কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছেন কমিশন।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ২০০৯ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের গুলশান, দিলকুশা ও শান্তিনগর শাখা থেকে মোট সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার ঋণ অনিয়মের মাধ্যমে বিতরণের অভিযোগ ওঠার পরপরই অনুসন্ধানে নামে দুদক। ঋণপত্র যাচাই না করে জামানত ছাড়া, জাল দলিলে ভুয়া ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ঋণদানসহ নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে বিধিবহির্ভূতভাবে ঋণ অনুমোদনের অভিযোগ ওঠে ব্যাংকটির তৎকালীন পরিচালনাপর্ষদের বিরুদ্ধে। প্রায় পাঁচ বছর অনুসন্ধান শেষে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা লোপাটের ঘটনায় ২০১৫ সালের ২১, ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বর তিনদিনে টানা ৫৬টি মামলা হয়। রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন ও গুলশান থানায় এসব মামলায় আসামি করা হয় ১২০ জনকে। এর মধ্যে ঋণগ্রহীতা ৮২ জন, ব্যাংকার ২৭ ও ভূমি জরিপকারী ১১ জন। যদিও এসব মামলায় ব্যাংকের তৎকালীন চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চুকে আসামি করা হয়নি। এ নিয়ে সমালোচনায় পড়েন দুদক কমিশন।

দুদক সচিব বলেন, আদালতের নির্দেশনা মেনে বেসিক ব্যাংকের ৫৬টি মামলার তদন্তকাজ যাতে নির্ধারিত তিন মাসের মধ্যে শেষ করা হয়, সে লক্ষ্যে তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আমাদের পক্ষ থেকে যথাসাধ্য চেষ্টা থাকবে।

দুদক সচিব বলেন, বেসিক ব্যাংকের ৫৬টি মামলার প্রতিটির সঙ্গে অনেক বিষয় জড়িত। অনেক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করতে হয়। সে কারণেই সময় লাগছে। আমরা আমাদের কর্মকর্তাদের আদালতের নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলেছি।

দুদক ও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার ঋন কেলেঙ্কারীর অভিযোগে অনুসন্ধানে নামলেও অনিয়মের মাধ্যমে দুই হাজার ৬৫ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়। এর মধ্যে রাজধানীর গুলশান শাখা থেকে এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা, শান্তিনগর শাখা থেকে ৩৮৭ কোটি টাকা, প্রধান শাখা থেকে প্রায় ২৪৮ কোটি টাকা এবং দিলকুশা শাখা থেকে ১৩০ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয় তখন মামলায় বলা হয়। অভিযোগের বাকি অংশের অনুসন্ধান এখনও চলছে। এছাড়া বেসিক ব্যাংকসংক্রান্ত বিষয়ে আরও পৃথক চারটি মামলা করে দুদক।

ব্যাংকার ও ঋণগ্রহীতাদের অনেকেই একাধিক মামলায় আসামি হয়েছেন। এর মধ্যে ব্যাংকের সাবেক এমডি কাজী ফখরুল ইসলামকে আসামি করা হয়েছে ৪৮টি মামলায়। ডিএমডি ফজলুস সোবহান ৪৭টি, কনক কুমার পুরকায়স্থ ২৩টি, মো. সেলিম আটটি, বরখাস্ত হওয়া ডিএমডি এ মোনায়েম খান ৩৫টি মামলার আসামি। তবে কোন মামলায় ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চুসহ পরিচালনা পর্ষদের কাউকে আসামি করা হয়নি। এ বিষয়ে দুদকের বরাবরই বক্তব্য ছিল, ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় দালিলিকভাবে আবদুল হাই বাচ্চুর সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি।

অন্যদিকে দুদকের দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে গণমাধ্যমের সামনে নিজের ভুল স্বীকার করে বেসিক ব্যাংকের একসময়ের চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চু বলেছিলেন, ‘আমি যা করেছি সরল মনে করেছি। অনেকক্ষেত্রে ভুল করেছি। তবে সব দায় আমার নয়। কারণ, বোর্ডের অনুমোদনের বাইরে আমি কিছু করিনি।’ জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য বাচ্চুকে ২০০৯ সালে বেসিক ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেয় সরকার। ২০১২ সালে তার নিয়োগ নবায়নও হয়। কিন্তু ঋণ কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠলে ২০১৪ সালে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফখরুল ইসলামকে অপসারণের পর চাপের মুখে থাকা বাচ্চু পদত্যাগ করেন। বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি মামলাগুলোর তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন দুদকের সাবেক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের দল।

back to top