alt

বিনোদন

চাষী নজরুল ইসলামের চলে যাওয়ার ৭ বছর

বিনোদন বার্তা পরিবেশক : মঙ্গলবার, ১১ জানুয়ারী ২০২২

আজ ১১ জানুয়ারি গুণী নির্মাতা চাষী নজরুল ইসলামের চলে যাওয়ার ৭ বছর। ২০১৫ সালে ঢালিউডে একটা অপূরণীয় অভাব তৈরি করে তিনি চলে যান ওপারে। সিনে জগতে সবসময় তিনি স্মরণীয়। তবে জন্ম কিংবা মৃত্যু দিনে আরও বেশি জীবন্ত হয়ে ওঠেন এই বরেণ্য ব্যক্তিত্ব।

বাংলাদেশী সিনেমার যে কয়েকজন গুণী নির্মাতা এবং সফল হিসেবে বিবেচিত, তাদের মধ্যে অন্যতম চাষী নজরুল ইসলাম। তার নির্মিত সিনেমাগুলো দিয়েই বাংলা চলচ্চিত্রে আজও তারা হয়ে জ্বলছেন চাষী নজরুল ইসলাম। তাঁর নির্মিত মুক্তিযুদ্ধ ও সাহিত্য নির্ভর চলচ্চিত্র বাংলা চলচ্চিত্রশিল্পকে করেছে সমৃদ্ধ।

চাষী নজরুল ইসলামের জন্ম ১৯৪১ সালের ২৩ অক্টোবর বিক্রমপুরের শ্রীনগরে। চাষী নজরুলের বাবা ছিলেন ভারতের টাটা স্টিলের ইঞ্জিনিয়ার। সেই সূত্রে তাঁর মা তাঁকে বাবার কর্মস্থল জামশেদপুরে নিয়ে যান। শৈশব কাটে ভারতের জামশেদপুরে। সেখানেই তিনি বাবার প্রতিষ্ঠা করা স্কুলে পড়াশোনা করেন। জমশেদপুরেই কলেজ সম্পন্ন করেন চাষী নজরুল। বাবার অসুস্থতার দরুন ১৯৫৮ সালে চাষীর পরিবারে সবাই বিক্রমপুরে চলে আসে।

পরিচালক হওয়ার আগে দীর্ঘদিন মঞ্চে কাজ করেছেন। ১৯৬১ সালে খালাতো বোনের স্বামী সৈয়দ মোহাম্মদ আওয়ালের হাত ধরে চলচ্চিত্র অঙ্গনে প্রবেশ করেছিলেন তিনি। নির্মাতা ফতেহ লোহানীর সহকারী হিসেবে ‘আছিয়া’ সিনেমায় কাজ করেন চাষী। এর দুই বছর পর ‘দুই দিগন্ত’ চলচ্চিত্রে প্রখ্যাত সাংবাদিক ও চলচ্চিত্রকার ওবায়েদ-উল-হকের সহকারী হিসেবে কাজ করেছিলেন নন্দিত এই পরিচালক। বছর দশেক সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করার পর স্বাধীন বাংলাদেশের ও মুক্তিযুদ্ধের প্রথম চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ নির্মাণের মাধ্যমে ১৯৭২ সালে চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন চাষী। ক্যারিয়ার জুড়ে নির্মান করেছেন বেশকিছু কালজয়ী সিনেমা।

সংগ্রাম’, ‘ভালো মানুষ’, ‘বাজিমাত’, ‘দেবদাস’, ‘শুভদা’, ‘মিয়া ভাই’, ‘বেহুলা লক্ষ্মীন্দর’, ‘পদ্মা মেঘনা যমুনা’, ‘হাঙর নদী গ্রেনেড’, ‘হাছন রাজা’, ‘মেঘের পরে মেঘ’, ‘সুভা’-এর মতো

নির্মাতা হিসেবে চাষী নজরুল ইসলাম দুইবার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। ১৯৮৬ সালে ‘শুভদা’ ও ১৯৯৭ সালে ‘হাঙর নদী গ্রেনেড’ সিনেমা দুটি তাকে এই সম্মাননা এনে দেয়। এছাড়া তিনি ২০০৪ সালে ভুষিত হন রাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদকে।

ছবি

অস্কারের রিমাইন্ডার লিস্টে বাংলাদেশের সিনেমা

ছবি

আমরা কেউই ‘মদ্যপ’ ছিলাম না - স্পর্শিয়া

ছবি

রাজ-পরীর হলুদ সন্ধ্যা

ছবি

করোনায় আক্রান্ত পূর্ণিমা

ছবি

বাংলাভিশনে আজ থেকে ধারাবাহিক ‘ভাড়াবাড়ি বাড়াবাড়ি’

ছবি

মা হলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

ছবি

আজ ‘ইউরিডাইস’ নাটকের উদ্ধোধনী মঞ্চায়ন

ছবি

একুশে টিভিতে আসছে ধারাবাহিক নাটক ‘নাট বল্টু’

ছবি

জ্যোতিষীর ভবিষ্যদ্বাণী ভুল প্রমাণ করে হয়েছিলেন বাংলাদেশের সংগীত জগতের শীর্ষ সুরকার

ছবি

এফডিসিতে লাঞ্ছিত হলেন চিত্রনায়ক ইমন

ছবি

১৬ বছর পর হামিন আহমেদের একক গান

ছবি

তারকাদের দেখতে এফডিসিতে উপচেপড়া ভিড়

ছবি

প্রশংসায় ভাসছে ‘গেহরাইয়ান’ সিনেমার ট্রেলার

ছবি

আবারও কলকাতার ছবিতে মোশাররফ করিম

ছবি

সেন্সর পেল ‘বড্ড ভালোবাসি’ চলচ্চিত্র

ছবি

৩ দিনব্যাপী জাতীয় নৃত্য উৎসব

ছবি

রাত জাগা ফুল’-এ অভিনয়ের জন্য সাড়া পাচ্ছেন শাহেদ শাহারিয়ার ও তানিন তানহা

ছবি

তাহসানকে ‘তারকাদের দায়িত্ব’ স্মরণ করিয়ে দিলেন বিচারক

ছবি

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘পুতুলনাচের ইতিকথা’র কুসুম হচ্ছেন জয়া

ছবি

আগাম জামিনের আবেদন করেছেন তাহসান

ছবি

মনোজ-ফারিয়ার নতুন নাটক ‘নোনাজলের বৃষ্টি’

ছবি

মুক্তির তালিকায় কেয়ার পাঁচ সিনেমা

ছবি

ইচ্ছাকৃত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শিল্পীর মৃত্যু

ছবি

মা ও ছেলে : দিলারা জামান ও কায়েস আরজু

ছবি

বলিউডের তিন সিনেমায় সামান্থা

ছবি

শম্পা বিশ্বাসের কন্ঠে আসছে নতুন তিন গান

ছবি

সেন্সর পেল পরীমনি-রোশান জুটির ‘মুখোশ’

ছবি

‘আলপিন’ ওয়েব ফিল্মে মিলন-ববি-সাঞ্জু

ছবি

এফডিসিতে কোনো বহিরাগত মাস্তান ঢুকতে পারবে না: অতিরিক্ত ডিআইজি হারুন

ছবি

ইংরেজিতে গান করায় কটাক্ষের শিকার আরমান মালিক

ছবি

করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন কণ্ঠশিল্পী ন্যানসি

ছবি

আজ আসছে পুষ্পিতা’র ‘স্পর্শের বাইরে’

ছবি

অঞ্জন দত্তের জন্মদিনে ‘স্মৃতির পাতায় বেলা বোস -২’

ছবি

‘জিম্মি’ ও ‘ঘর ভাঙ্গা সংসার’র কাজ শেষ করলেন শিরীন শিলা

ছবি

জি সিরিজে মুক্তি পেল ‘গল্পগুলো হয়নি বলা’

ছবি

আবারও ইনফিনিক্সের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর তানজিন তিশা

tab

বিনোদন

চাষী নজরুল ইসলামের চলে যাওয়ার ৭ বছর

বিনোদন বার্তা পরিবেশক

মঙ্গলবার, ১১ জানুয়ারী ২০২২

আজ ১১ জানুয়ারি গুণী নির্মাতা চাষী নজরুল ইসলামের চলে যাওয়ার ৭ বছর। ২০১৫ সালে ঢালিউডে একটা অপূরণীয় অভাব তৈরি করে তিনি চলে যান ওপারে। সিনে জগতে সবসময় তিনি স্মরণীয়। তবে জন্ম কিংবা মৃত্যু দিনে আরও বেশি জীবন্ত হয়ে ওঠেন এই বরেণ্য ব্যক্তিত্ব।

বাংলাদেশী সিনেমার যে কয়েকজন গুণী নির্মাতা এবং সফল হিসেবে বিবেচিত, তাদের মধ্যে অন্যতম চাষী নজরুল ইসলাম। তার নির্মিত সিনেমাগুলো দিয়েই বাংলা চলচ্চিত্রে আজও তারা হয়ে জ্বলছেন চাষী নজরুল ইসলাম। তাঁর নির্মিত মুক্তিযুদ্ধ ও সাহিত্য নির্ভর চলচ্চিত্র বাংলা চলচ্চিত্রশিল্পকে করেছে সমৃদ্ধ।

চাষী নজরুল ইসলামের জন্ম ১৯৪১ সালের ২৩ অক্টোবর বিক্রমপুরের শ্রীনগরে। চাষী নজরুলের বাবা ছিলেন ভারতের টাটা স্টিলের ইঞ্জিনিয়ার। সেই সূত্রে তাঁর মা তাঁকে বাবার কর্মস্থল জামশেদপুরে নিয়ে যান। শৈশব কাটে ভারতের জামশেদপুরে। সেখানেই তিনি বাবার প্রতিষ্ঠা করা স্কুলে পড়াশোনা করেন। জমশেদপুরেই কলেজ সম্পন্ন করেন চাষী নজরুল। বাবার অসুস্থতার দরুন ১৯৫৮ সালে চাষীর পরিবারে সবাই বিক্রমপুরে চলে আসে।

পরিচালক হওয়ার আগে দীর্ঘদিন মঞ্চে কাজ করেছেন। ১৯৬১ সালে খালাতো বোনের স্বামী সৈয়দ মোহাম্মদ আওয়ালের হাত ধরে চলচ্চিত্র অঙ্গনে প্রবেশ করেছিলেন তিনি। নির্মাতা ফতেহ লোহানীর সহকারী হিসেবে ‘আছিয়া’ সিনেমায় কাজ করেন চাষী। এর দুই বছর পর ‘দুই দিগন্ত’ চলচ্চিত্রে প্রখ্যাত সাংবাদিক ও চলচ্চিত্রকার ওবায়েদ-উল-হকের সহকারী হিসেবে কাজ করেছিলেন নন্দিত এই পরিচালক। বছর দশেক সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করার পর স্বাধীন বাংলাদেশের ও মুক্তিযুদ্ধের প্রথম চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ নির্মাণের মাধ্যমে ১৯৭২ সালে চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন চাষী। ক্যারিয়ার জুড়ে নির্মান করেছেন বেশকিছু কালজয়ী সিনেমা।

সংগ্রাম’, ‘ভালো মানুষ’, ‘বাজিমাত’, ‘দেবদাস’, ‘শুভদা’, ‘মিয়া ভাই’, ‘বেহুলা লক্ষ্মীন্দর’, ‘পদ্মা মেঘনা যমুনা’, ‘হাঙর নদী গ্রেনেড’, ‘হাছন রাজা’, ‘মেঘের পরে মেঘ’, ‘সুভা’-এর মতো

নির্মাতা হিসেবে চাষী নজরুল ইসলাম দুইবার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। ১৯৮৬ সালে ‘শুভদা’ ও ১৯৯৭ সালে ‘হাঙর নদী গ্রেনেড’ সিনেমা দুটি তাকে এই সম্মাননা এনে দেয়। এছাড়া তিনি ২০০৪ সালে ভুষিত হন রাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদকে।

back to top