alt

আন্তর্জাতিক

মায়ানমারের অর্থনৈতিক বিপর্যয়: গৃহযুদ্ধ ও দারিদ্র্যের গভীরতা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ১২ জুন ২০২৪

মায়ানমারের অর্থনীতি বর্তমানে এমন অবস্থায় আছে যে, দেখা যাচ্ছে, আগামীতে দেশের অর্থনৈতিক গতি হবে কচ্ছপের গতির মতো ধীর! বিশ্ব ব্যাংকের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গৃহযুদ্ধ কবলিত এই দেশটির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি চলতি অর্থবছরে মাত্র ১ শতাংশে সীমাবদ্ধ থাকবে। এটি গত ছয় বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ সময়।

**বর্তমান সংকটের গভীরতা:

১.ক্রমবর্ধমান সহিংসতা:

মায়ানমারে সহিংসতা এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, ব্যবসায়ীরা নিজেদের জীবন বাজি রেখে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সশস্ত্র সংঘর্ষ ও রাজনৈতিক অস্থিরতা ব্যবসা পরিচালনায় প্রধান বাধা হিসেবে দেখা দিয়েছে।

২. কর্মী সংকট:

সামরিক জান্তার অত্যাচার ও অর্থনৈতিক অবনতির কারণে বহু লোক কাজের সন্ধানে গ্রামীণ এলাকায় চলে যাচ্ছে বা বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে। কর্মক্ষেত্রে এই অভাব দেশটির শিল্পখাতকে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করছে।

৩. মুদ্রার অবমূল্যায়ন:

দেশের মুদ্রার অবস্থা এমন খারাপ যে, বাজারে গেলে টাকাগুলো যেন আপনার চোখের সামনেই গলে যাচ্ছে। মায়ানমারের কিয়াত মুদ্রার মান আন্তর্জাতিক বাজারে এতটাই কমেছে যে, এটি নিয়ে কৌতুকময় মন্তব্য করা ছাড়া উপায় নেই।

** নতুন বাস্তবতা ও চ্যালেঞ্জ:

১.২০২১ সালের সামরিক অভ্যুত্থান:

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার এই দেশের অর্থনীতি সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে ধীরে ধীরে ভেঙে পড়ছে। সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখল এবং এর পরবর্তী দমন-পীড়ন দেশের অর্থনীতিকে গভীর সংকটে ফেলে দিয়েছে।

২. অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষ:

মায়ানমারে সামরিক বাহিনী এবং বিভিন্ন সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। এটি শুধু জনগণের জীবনকেই বিপন্ন করেনি, বরং দেশের আর্থিক অবস্থা ও স্থিতিশীলতাকেও ঝুঁকির মুখে ফেলেছে। গৃহযুদ্ধের কারণে ৩০ লাখেরও বেশি মানুষ তাদের ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে।

৩. দারিদ্র্যের বৃদ্ধি :

বিশ্ব ব্যাংক জানিয়েছে, মায়ানমারের দারিদ্র্যের হার আবার ২০১৫ সালের স্তরে পৌঁছে গেছে, যা ৩২.১ শতাংশ। গত ছয় বছরের মধ্যে এই পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ। দারিদ্র্যের গভীরতা এবং তীব্রতা দেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কাঠামোকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

৪. শ্রমবাজারের সংকট:

সামরিক জান্তা তাদের ক্ষয় হওয়া সামরিক জনবল পূরণের জন্য চলতি বছরের প্রথম দিকে নিয়োগ পরিকল্পনা ঘোষণা করে। এর ফলে, অনেকেই শহর ছেড়ে গ্রামীণ এলাকায় চলে গেছে অথবা বিদেশে পাড়ি জমিয়েছে। ফলে দেশের শিল্পখাতে শ্রমিক সংকট আরও প্রকট হয়েছে।

৫. সীমান্ত বাণিজ্যের অবনতি:

মায়ানমারের জান্তা সরকার চীন ও থাইল্যান্ডের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ স্থল সীমান্তের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে। এর ফলে, দেশের স্থল বাণিজ্য মারাত্মকভাবে হ্রাস পেয়েছে। এই পরিস্থিতি দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে আরও কঠিন করে তুলেছে।

৬. মূল্যস্ফীতি ও বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি:

মূল্যস্ফীতির উচ্চহার এবং বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি দেশের অর্থনীতিকে দুর্বল করে তুলছে। এটি দেশটির দৃশ্যমান অর্থনীতিকে কঠিন পরিস্থিতিতে ফেলেছে।

মায়ানমারের অর্থনীতি বর্তমানে একটি গভীর সংকটের মধ্যে রয়েছে। গৃহযুদ্ধ, দারিদ্র্য, কর্মী সংকট, এবং মুদ্রার অবমূল্যায়ন সবই দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে নাজুক করে তুলেছে। এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য দেশের একটি স্থায়ী সমাধান ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ প্রয়োজন।

ছবি

বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে বেআইনি শক্তি প্রয়োগ করেছে পুলিশ: অ্যামনেস্টি

ছবি

পরিস্থিতি বুঝে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে : পলক

ছবি

চীনে শপিং সেন্টারে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১৬

ছবি

গাজায় ২৪ ঘণ্টায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৮১

ছবি

ছাত্রলীগকে সন্ত্রাসী সংগঠন বিবেচনার প্রশ্নে যা বলছে যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

সারা দেশে আ. লীগ নেতাকর্মীদের শক্ত অবস্থান নেওয়ার নির্দেশ

ছবি

কোটা আন্দোলনে হামলা-সংঘর্ষ-হত্যা : যা বলছে জাতিসংঘ

ছবি

ওমান উপকূলে ট্যাংকারডুবি, ১৩ ভারতীয়সহ সমুদ্রে নিখোঁজ ১৬ ক্রু

ছবি

বিশ্ব গণমাধ্যমে বাংলাদেশের কোটা সংস্কার আন্দোলন

ছবি

কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলায় অ্যামনেস্টির নিন্দা

ছবি

আসন্ন নির্বাচনে ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর নাম ঘোষণা ট্রাম্পের

ছবি

ইসরায়েলের ৫ নাগরিক, তিন সংস্থার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি ইইউর

ছবি

নুসেইরাত-খান ইউনিসে ইসরায়েলের বর্বর হামলা, ৫ শিশুসহ নিহত ১৫

ছবি

কোটা আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, যা বলছে যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

রিপাবলিকান সম্মেলনে যোগ দিতে উইসকন্সিনে পৌঁছেছেন ট্রাম্প

ছবি

গাজায় ইসরায়েলি বর্বরতা চলছেই, নিহত আরও ১৪১ ফিলিস্তিনি

ছবি

ট্রাম্পের ওপর হামলা

ছবি

ট্রাম্পের ওপর হামলাকারী ছিলেন রিপাবলিকান পার্টির নিবন্ধিত ভোটার

ছবি

ট্রাম্পকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে: এফবিআই

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে এ ধরনের সহিংসতার কোনো জায়গা নেই: বাইডেন

ছবি

ট্রাম্পের ওপর হামলা

ছবি

গাজায় ইসরায়েলের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ৭১ জন নিহত

ছবি

গাজায় হেপাটাইটিসে আক্রান্ত ৭০ হাজারের বেশি মানুষ

ছবি

নাইজেরিয়ায় ধসে পড়েছে স্কুল, নিহত ২১

ছবি

কুকুর লেলিয়ে প্রতিবন্ধী ফিলিস্তিনিকে হত্যা করল ইসরায়েলি সেনারা

ছবি

নির্বাচনে আমি থাকছি, আর আমিই জিতবো : বাইডেন

ছবি

নাইজেরিয়ায় স্কুলভবনে ধস, ২২ শিক্ষার্থীর মৃত্যু

ছবি

পাকিস্তানের পার্লামেন্টে সংরক্ষিত আসন পেতে যাচ্ছে ইমরানের পিটিআই দল

ছবি

বাইডেনের পরপর ভুল মন্তব্যে উদ্বেগ, তবুও নির্বাচনী প্রচারণায় অটল

ছবি

নেপালে ভূমিধসে নদীতে ছিটকে পড়ল দুই বাস, নিখোঁজ অন্তত ৬৩

ছবি

অরুণাচলে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে ভারতের পদক্ষেপ, চীনের তীব্র প্রতিক্রিয়া

ছবি

যুক্তরাজ্যের নতুন সরকারে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুশনারা আলীও

ছবি

গাজায় বাস্তুচ্যুতদের ক্যাম্পে ইসরায়েলের বর্বর হামলা, নিহত ২৯

ছবি

ভারতে এক্সপ্রেসওয়েতে ভয়াবহ দুর্ঘটনা, নিহত অন্তত ১৮

ছবি

শিশু হাসপাতালসহ ইউক্রেনজুড়ে রাশিয়ার ব্যাপক হামলা, নিহত ৪১

ছবি

উরুগুয়েতে নার্সিং হোমে অগ্নিকাণ্ডে ১০ বয়স্ক নাগরিক নিহত

tab

আন্তর্জাতিক

মায়ানমারের অর্থনৈতিক বিপর্যয়: গৃহযুদ্ধ ও দারিদ্র্যের গভীরতা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ১২ জুন ২০২৪

মায়ানমারের অর্থনীতি বর্তমানে এমন অবস্থায় আছে যে, দেখা যাচ্ছে, আগামীতে দেশের অর্থনৈতিক গতি হবে কচ্ছপের গতির মতো ধীর! বিশ্ব ব্যাংকের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গৃহযুদ্ধ কবলিত এই দেশটির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি চলতি অর্থবছরে মাত্র ১ শতাংশে সীমাবদ্ধ থাকবে। এটি গত ছয় বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ সময়।

**বর্তমান সংকটের গভীরতা:

১.ক্রমবর্ধমান সহিংসতা:

মায়ানমারে সহিংসতা এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, ব্যবসায়ীরা নিজেদের জীবন বাজি রেখে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সশস্ত্র সংঘর্ষ ও রাজনৈতিক অস্থিরতা ব্যবসা পরিচালনায় প্রধান বাধা হিসেবে দেখা দিয়েছে।

২. কর্মী সংকট:

সামরিক জান্তার অত্যাচার ও অর্থনৈতিক অবনতির কারণে বহু লোক কাজের সন্ধানে গ্রামীণ এলাকায় চলে যাচ্ছে বা বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে। কর্মক্ষেত্রে এই অভাব দেশটির শিল্পখাতকে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করছে।

৩. মুদ্রার অবমূল্যায়ন:

দেশের মুদ্রার অবস্থা এমন খারাপ যে, বাজারে গেলে টাকাগুলো যেন আপনার চোখের সামনেই গলে যাচ্ছে। মায়ানমারের কিয়াত মুদ্রার মান আন্তর্জাতিক বাজারে এতটাই কমেছে যে, এটি নিয়ে কৌতুকময় মন্তব্য করা ছাড়া উপায় নেই।

** নতুন বাস্তবতা ও চ্যালেঞ্জ:

১.২০২১ সালের সামরিক অভ্যুত্থান:

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার এই দেশের অর্থনীতি সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে ধীরে ধীরে ভেঙে পড়ছে। সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখল এবং এর পরবর্তী দমন-পীড়ন দেশের অর্থনীতিকে গভীর সংকটে ফেলে দিয়েছে।

২. অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষ:

মায়ানমারে সামরিক বাহিনী এবং বিভিন্ন সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। এটি শুধু জনগণের জীবনকেই বিপন্ন করেনি, বরং দেশের আর্থিক অবস্থা ও স্থিতিশীলতাকেও ঝুঁকির মুখে ফেলেছে। গৃহযুদ্ধের কারণে ৩০ লাখেরও বেশি মানুষ তাদের ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে।

৩. দারিদ্র্যের বৃদ্ধি :

বিশ্ব ব্যাংক জানিয়েছে, মায়ানমারের দারিদ্র্যের হার আবার ২০১৫ সালের স্তরে পৌঁছে গেছে, যা ৩২.১ শতাংশ। গত ছয় বছরের মধ্যে এই পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ। দারিদ্র্যের গভীরতা এবং তীব্রতা দেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কাঠামোকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

৪. শ্রমবাজারের সংকট:

সামরিক জান্তা তাদের ক্ষয় হওয়া সামরিক জনবল পূরণের জন্য চলতি বছরের প্রথম দিকে নিয়োগ পরিকল্পনা ঘোষণা করে। এর ফলে, অনেকেই শহর ছেড়ে গ্রামীণ এলাকায় চলে গেছে অথবা বিদেশে পাড়ি জমিয়েছে। ফলে দেশের শিল্পখাতে শ্রমিক সংকট আরও প্রকট হয়েছে।

৫. সীমান্ত বাণিজ্যের অবনতি:

মায়ানমারের জান্তা সরকার চীন ও থাইল্যান্ডের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ স্থল সীমান্তের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে। এর ফলে, দেশের স্থল বাণিজ্য মারাত্মকভাবে হ্রাস পেয়েছে। এই পরিস্থিতি দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে আরও কঠিন করে তুলেছে।

৬. মূল্যস্ফীতি ও বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি:

মূল্যস্ফীতির উচ্চহার এবং বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি দেশের অর্থনীতিকে দুর্বল করে তুলছে। এটি দেশটির দৃশ্যমান অর্থনীতিকে কঠিন পরিস্থিতিতে ফেলেছে।

মায়ানমারের অর্থনীতি বর্তমানে একটি গভীর সংকটের মধ্যে রয়েছে। গৃহযুদ্ধ, দারিদ্র্য, কর্মী সংকট, এবং মুদ্রার অবমূল্যায়ন সবই দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে নাজুক করে তুলেছে। এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য দেশের একটি স্থায়ী সমাধান ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ প্রয়োজন।

back to top