alt

আন্তর্জাতিক

নারীদের মিছিলের খবর প্রকাশ করায়

ফের সাংবাদিকদের মারলো তালেবান

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১

কাবুলে নারীদের অধিকার আদায়ের মিছিলের খবর প্রকাশ করার সময় সাংবাদিকদের মারধর করে তালেবান যোদ্ধারা-এএফপি

আফগানিস্তানে নারীদের বিক্ষোভ মিছিলের খবর প্রকাশের জন্যে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকদের মারধর করেছে তালেবান। হামলার শিকার সাংবাদিকদের একজন বিদেশিও ছিলেন। এক প্রতিবেদনে এএফপি জানিয়েছে, কাবুলে আফগান সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামনে নারীদের একটি বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। প্রায় ২০ জন নারী হাতে লেখা প্রতিবাদী প্ল্যাকার্ড হাতে মিছিল নিয়ে মন্ত্রণালয়ের ফটকের কাছে আসেন এবং সমাবেশ করেন।

ওই সময় নারীরা প্ল্যাকার্ড হাতে শিক্ষা নিয়ে রাজনীতি বন্ধ কর স্লোগান দেন। তাদের প্ল্যাকার্ডে আমাদের পড়াশোনা ও কাজ করার অধিকার নেই ও বেকারত্ব, দারিদ্র্য, ক্ষুধার অবসান চাই লেখা ছিল। ওই নারীদের দেড় ঘণ্টা বিক্ষোভের অনুমতি দেয় তালেবান কর্তৃপক্ষ। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল তালেবান সরকারের রক্ষীবাহিনীর সদস্যরাও। তাদের কারো হতে ছিল এম ১৬, কারো হাতে ছিল একে ৪৭ অ্যাসল্ট রাইফেল। কয়েকজন পরেছিলেন বুলেট প্রুফ ভেস্টও। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে চলে এই মিছিল ও সমাবেশ। তারপর আচমকা এক তালেবান রক্ষী ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক বিদেশি সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে আঘাত করে। একই সময়ে আরেক ফটো সাংবাদিক অপর এক রক্ষীর লাথির আঘাতে সড়কে পড়ে যান। এ ছাড়া কমপক্ষে আরও দুই সাংবাদিক ওই সময় তালেবান যোদ্ধাদের হামলার শিকার হন।

প্রতিবাদ মিছিলের অন্যতম সংগঠক জাহরা মোহাম্মদি এ সম্পর্কে বলেন, আজকের ঘটনায় আরেকবার প্রমাণিত হলো- তালেবান শাসনের অধীনে দেশি-বিদেশি সাংবাদিক কিংবা নারী- কেউই নিরাপদ নয়। ঝুঁকি সত্ত্বেও আফগান নারীরা নিজেদের অধিকারের জন্য মিছিল করেছে। তিনি বলেন, পরিস্থিতি হচ্ছে, দেশি-বিদেশি সাংবাদিক, নারী থেকে শুরু করে কাউকেই সম্মান করছে না তালেবান। তালেবান আমাদের শিক্ষার অধিকার কেড়ে নিয়েছে, কিন্তু অবশ্যে তা পুনরায় ফিরিয়ে দিতে হবে তাদের। মেয়েদের স্কুলকগুলো অবিলম্বে খুলে দিতে হবে। আমরা সব আফগান কিশোরী ও তরুণীদের উদ্দেশে বলতে চাই, তালেবানদের ভয় পেয়ো না, নিজেদের অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে নামো।

চলতি বছরের মধ্য আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। এরপর দেড় মাসের বেশি ধরে দেশটির মাধ্যমিক স্কুলের মেয়েশিক্ষার্থীরা স্কুল যেতে পারছে না। পাশাপাশি আফগান নারীদের কর্মস্থলে কাজ করার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে কট্টর ইসলামপন্থি গোষ্ঠীটি।

মোহাম্মাদি বলেন, আফগান সব মেয়ে ও নারীর প্রতি আমার বার্তা হচ্ছে, তালেবানকে ভয় পেও না। এমনকি তোমাদের পরিবারের সদস্যরা ঘর থেকে বের হওয়ার অনুমতি না দিলেও ভয় পাবে না। ঘরের বাইরে বের হও। আত্মত্যাগ কর। নিজের অধিকারের জন্য লড়াই কর। পরের প্রজন্ম যাতে শান্তিতে থাকতে পারে, এ জন্য আমাদের আত্মত্যাগ করতে হবে। বিক্ষোভের সময় নারীদের মিছিলের পাশাপাশি শিশুদেরও হাঁটতে দেখা যায়। তবে তারা মিছিলের অংশ ছিল কি না, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এর আগে ২৬ আগস্ট কাবুলে আফগান সংবাদমাধ্যম টোলোনিউজের সাংবাদিক জিয়ার খান ইয়াদ ও তার ক্যামেরাম্যান তালেবানের আক্রমণের শিকার হন। পরে ১০ সেপ্টেম্বর অন্য আরেক নারী বিক্ষোভের প্রতিবেদন তৈরির সময়

কমপক্ষে পাঁচ সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করে তালেবান। তাদের মধ্যে দুজনকে বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে নির্মমভাবে পেটানো হয়।

গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল দখলের মধ্যে দিয়ে আফগানিস্তানের জাতীয় ক্ষমুায় আসীন হয় কট্টর সুন্নি ইসলামপন্থি গোষ্ঠী তালেবান। ক্ষমতা দখলের পরপরই কো এডুকেশন ও মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুলগুলো বন্ধ করে দেয় এই গোষ্ঠী। প্রায় আড়াই মাস ধরে এই স্কুলগুলো বন্ধ থাকায় চরম অনিশ্চয়তায় পড়েছে দেশটির নারী শিক্ষা ব্যবস্থা। অবশ্য জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলের কাছে তালেবান সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে- খুব দ্রুতই ফের চালু করা হবে আফগানিস্তানের মেয়ে স্কুলগুলো। দেশটির ৩৪টি প্রদেশের ৫টিতে ইতোমধ্যে মেয়ে স্কুলগুলো খুলে দেয়া হয়েছে বলেও জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলকে জানিয়েছে তালেবান।

ছবি

‘ওমিক্রন’ এশিয়ায় বাড়ছে

ছবি

সাধারণ ঠাণ্ডার ভাইরাসের জিনগত বৈশিষ্ট্য মিলেছে ওমিক্রনে

ছবি

নারীর সম্মতি ছাড়া তাকে বিয়ে করা যাবে না, ডিক্রি আফগানিস্তানে

ছবি

প্রস্তুতি নিতে সব দেশের প্রতি আহ্বান ডাব্লিউএইচওর

ছবি

টানা ৬ সপ্তাহে বিশ্ববাজারে কমলো জ্বালানি তেলের দাম

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রের ৫ রাজ্যে ওমিক্রনের থাবা

ছবি

ওমিক্রন: ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা নয়, টিকার পক্ষে ডব্লিউএইচও

ছবি

মালয়েশিয়ায় ওমিক্রন, নিষেধাজ্ঞা জারি ভ্রমণে

ছবি

রানওয়ে থেকে ঠেলে বিমান সরালেন যাত্রীরা

ছবি

অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকায় রক্ত জমাট বাঁধার কারণ জানা গেল

ছবি

গাদ্দাফিপুত্রের প্রেসিডেন্ট পদে লড়তে আর বাধা নেই

ছবি

প্রতি বছরই করোনাভাইরাসের টিকা নিতে হবে : ফাইজার প্রধান

ছবি

পাগড়ি-শেরোয়ানি পরে ঘোড়ায় চড়ে বিয়ে করতে গেলেন কনে

ছবি

বিশ্বজুড়ে করোনায় মৃত্যু কমেছে, বেড়েছে শনাক্ত

ছবি

ওমিক্রন : কতটা মারাত্মক?

ছবি

ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রকে অর্থ ছাড়ের আহ্বান তালেবানের

ছবি

এবার ভারতে ২ জনের ওমিক্রন শনাক্ত

ছবি

ওমিক্রন সম্পর্কে নিশ্চিত তথ্য পেতে আরও ‘দুই সপ্তাহ’ লাগতে পারে

ছবি

ফোর্বসের ‘থার্টি আন্ডার থার্টি’ -তে বাংলাদেশি তরুণী বাশিমা

ছবি

ওমিক্রন: কতটা মারাত্মক?

ছবি

সৌদি আরবে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত

ছবি

ওমিক্রন পৌঁছেছে ২০ দেশে, শনাক্তের আগেই ছিল ইউরোপে

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলে বন্দুকধারীর হামলা, নিহত ৩ শিক্ষার্থী

ছবি

অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টের এক-তৃতীয়াংশ কর্মী যৌন হয়রানির শিকার

ছবি

সু চির মামলার রায় হঠাৎ স্থগিত

ছবি

ওমিক্রন নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই : বাইডেন

ছবি

ওমিক্রন আক্রান্তদের উপসর্গ কতটা গুরুতর

ছবি

করোনায় আরো ৫ হাজারের বেশি মৃত্যু

ছবি

ইরানকে পারমাণবিক অস্ত্রের মালিক হতে দেবে না যুক্তরাজ্য-ইসরায়েল

ছবি

ফের মুখোমুখি হচ্ছে বাইডেন-পুতিন

ভারতের লোকসভায় কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস

ছবি

হুয়াওয়ে’র ইনোভেশন সেন্টার উদ্বোধন করলেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ওমিক্রন: ভারতের ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

ছবি

করোনাভাইরাস ‘ওমিক্রন’ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৫ তথ্য

ছবি

আত্মহত্যা করতে চাইলে টিকা নিতে হবে

tab

আন্তর্জাতিক

নারীদের মিছিলের খবর প্রকাশ করায়

ফের সাংবাদিকদের মারলো তালেবান

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

কাবুলে নারীদের অধিকার আদায়ের মিছিলের খবর প্রকাশ করার সময় সাংবাদিকদের মারধর করে তালেবান যোদ্ধারা-এএফপি

বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১

আফগানিস্তানে নারীদের বিক্ষোভ মিছিলের খবর প্রকাশের জন্যে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকদের মারধর করেছে তালেবান। হামলার শিকার সাংবাদিকদের একজন বিদেশিও ছিলেন। এক প্রতিবেদনে এএফপি জানিয়েছে, কাবুলে আফগান সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামনে নারীদের একটি বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। প্রায় ২০ জন নারী হাতে লেখা প্রতিবাদী প্ল্যাকার্ড হাতে মিছিল নিয়ে মন্ত্রণালয়ের ফটকের কাছে আসেন এবং সমাবেশ করেন।

ওই সময় নারীরা প্ল্যাকার্ড হাতে শিক্ষা নিয়ে রাজনীতি বন্ধ কর স্লোগান দেন। তাদের প্ল্যাকার্ডে আমাদের পড়াশোনা ও কাজ করার অধিকার নেই ও বেকারত্ব, দারিদ্র্য, ক্ষুধার অবসান চাই লেখা ছিল। ওই নারীদের দেড় ঘণ্টা বিক্ষোভের অনুমতি দেয় তালেবান কর্তৃপক্ষ। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল তালেবান সরকারের রক্ষীবাহিনীর সদস্যরাও। তাদের কারো হতে ছিল এম ১৬, কারো হাতে ছিল একে ৪৭ অ্যাসল্ট রাইফেল। কয়েকজন পরেছিলেন বুলেট প্রুফ ভেস্টও। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে চলে এই মিছিল ও সমাবেশ। তারপর আচমকা এক তালেবান রক্ষী ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক বিদেশি সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে আঘাত করে। একই সময়ে আরেক ফটো সাংবাদিক অপর এক রক্ষীর লাথির আঘাতে সড়কে পড়ে যান। এ ছাড়া কমপক্ষে আরও দুই সাংবাদিক ওই সময় তালেবান যোদ্ধাদের হামলার শিকার হন।

প্রতিবাদ মিছিলের অন্যতম সংগঠক জাহরা মোহাম্মদি এ সম্পর্কে বলেন, আজকের ঘটনায় আরেকবার প্রমাণিত হলো- তালেবান শাসনের অধীনে দেশি-বিদেশি সাংবাদিক কিংবা নারী- কেউই নিরাপদ নয়। ঝুঁকি সত্ত্বেও আফগান নারীরা নিজেদের অধিকারের জন্য মিছিল করেছে। তিনি বলেন, পরিস্থিতি হচ্ছে, দেশি-বিদেশি সাংবাদিক, নারী থেকে শুরু করে কাউকেই সম্মান করছে না তালেবান। তালেবান আমাদের শিক্ষার অধিকার কেড়ে নিয়েছে, কিন্তু অবশ্যে তা পুনরায় ফিরিয়ে দিতে হবে তাদের। মেয়েদের স্কুলকগুলো অবিলম্বে খুলে দিতে হবে। আমরা সব আফগান কিশোরী ও তরুণীদের উদ্দেশে বলতে চাই, তালেবানদের ভয় পেয়ো না, নিজেদের অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে নামো।

চলতি বছরের মধ্য আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। এরপর দেড় মাসের বেশি ধরে দেশটির মাধ্যমিক স্কুলের মেয়েশিক্ষার্থীরা স্কুল যেতে পারছে না। পাশাপাশি আফগান নারীদের কর্মস্থলে কাজ করার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে কট্টর ইসলামপন্থি গোষ্ঠীটি।

মোহাম্মাদি বলেন, আফগান সব মেয়ে ও নারীর প্রতি আমার বার্তা হচ্ছে, তালেবানকে ভয় পেও না। এমনকি তোমাদের পরিবারের সদস্যরা ঘর থেকে বের হওয়ার অনুমতি না দিলেও ভয় পাবে না। ঘরের বাইরে বের হও। আত্মত্যাগ কর। নিজের অধিকারের জন্য লড়াই কর। পরের প্রজন্ম যাতে শান্তিতে থাকতে পারে, এ জন্য আমাদের আত্মত্যাগ করতে হবে। বিক্ষোভের সময় নারীদের মিছিলের পাশাপাশি শিশুদেরও হাঁটতে দেখা যায়। তবে তারা মিছিলের অংশ ছিল কি না, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এর আগে ২৬ আগস্ট কাবুলে আফগান সংবাদমাধ্যম টোলোনিউজের সাংবাদিক জিয়ার খান ইয়াদ ও তার ক্যামেরাম্যান তালেবানের আক্রমণের শিকার হন। পরে ১০ সেপ্টেম্বর অন্য আরেক নারী বিক্ষোভের প্রতিবেদন তৈরির সময়

কমপক্ষে পাঁচ সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করে তালেবান। তাদের মধ্যে দুজনকে বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে নির্মমভাবে পেটানো হয়।

গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল দখলের মধ্যে দিয়ে আফগানিস্তানের জাতীয় ক্ষমুায় আসীন হয় কট্টর সুন্নি ইসলামপন্থি গোষ্ঠী তালেবান। ক্ষমতা দখলের পরপরই কো এডুকেশন ও মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুলগুলো বন্ধ করে দেয় এই গোষ্ঠী। প্রায় আড়াই মাস ধরে এই স্কুলগুলো বন্ধ থাকায় চরম অনিশ্চয়তায় পড়েছে দেশটির নারী শিক্ষা ব্যবস্থা। অবশ্য জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলের কাছে তালেবান সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে- খুব দ্রুতই ফের চালু করা হবে আফগানিস্তানের মেয়ে স্কুলগুলো। দেশটির ৩৪টি প্রদেশের ৫টিতে ইতোমধ্যে মেয়ে স্কুলগুলো খুলে দেয়া হয়েছে বলেও জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলকে জানিয়েছে তালেবান।

back to top